ঢাকা
আজকের সর্বশেষ সবখবর

ভাড়া করা দুটি এয়ারক্রাফট নিয়ে বিপাকে বিমান

admin
August 14, 2015 8:30 pm
Link Copied!

স্টাফ রিপোর্টারঃ অভ্যন্তরীণ রুটে চলাচল চলের জন্য ভাড়া করা দুটি টার্বো প্রপ উড়োজাহাজ নিয়ে বিপাকে পড়েছে বিমান। এ দুটি উড়োজাহাজ গত এপ্রিল মাসে ২ কোটি ৬০ লাখ টাকা মাসিক ভাড়ায় মিসরের স্মার্ট এভিয়েশন আনা হয়। কিন্তু স্মার্ট এভিয়েশনের নির্লিপ্ততা আর চুক্তির ত্রুটির কারণে বিমানকে এখন প্রতি মাসে ভাড়ার অতিরিক্ত ২ কোটি ২০ লাখ টাকা খরচ করতে হচ্ছে। তারমধ্যে ১ কোটি ৭০ লাখ টাকা রক্ষণাবেক্ষণ রিজার্ভ খাতে আর স্থানীয় এজেন্ট না থাকায় খরচ হচ্ছে আরো ৫০ লাখ টাকা। এ অবস্থায় অভ্যন্তরীণ রুটে ফ্লাইট চালিয়ে গত তিন মাসেও লাভের মুখ দেখেনি বিমান। বিমান সংশ্লিষ্ট সূত্রে এ তথ্য জানা যায়।

সংশ্লিষ্ট সূত্র মতে, অভ্যন্তরীণ রুটের জন্য মিশরের স্মার্ট এভিয়েশন থেকে বিমান একই মডেলের যে দুটি উড়োজাহাজ ভাড়া নিয়েছে তার প্রতিটির জন্যই মাসে ১ কোটি ৩০ লাখ টাকা পরিশোধ করতে হয়। তাছাড়া রক্ষণাবেক্ষণ রিজার্ভ এবং ক্রুসহ আরো খরচ হয় এক কোটি ৩০ লাখ টাকা। এক্ষেত্রে পাঁচ বছর পর বিমানকে একদিকে যেমন উড়োজাহাজ দুটি ফেরত দিতে হবে, অন্যদিকে ভাড়া গুনতে হবে প্রতিটির জন্য রক্ষণাবেক্ষণ রিজার্ভ, রি-ডেলিভারি পেমেন্টসহ গড়ে ২৫ মিলিয়ন ডলার। দুটি উড়োজাহাজের পেছনে মোট খরচ হবে প্রায় ৫০ মিলিয়ন ডলার (৩৮৯ কোটি টাকা)। অথচ এ টাকায় একই মডেলের ৪টি উড়োজাহাজ কেনা সম্ভব।

সূত্র জানায়, স্মাট এভিয়েশন চুক্তির পর উড়োজাহাজ দুটি বিমানকে গছিয়ে দিয়ে লাপাত্তা হয়ে আছে। গত ৩ মাসে ওই সংস্থার কোনো কর্মকর্তার হদিস পাওয়া যাচ্ছে না। টেলিফোন ই-মেইল বার্তা, চিঠিপত্র লিখেও কারোর সাড়া পাওয়া যাচ্ছে না। মূলত স্থানীয় এজেন্ট না থাকায় বিমানকে এ সমস্যায় পড়তে হয়েছে। অথচ উড়োজাহাজ দুটি মিসরের একটি ব্যাংকের কাছে বন্ধক থাকায় চুক্তি অনুযায়ী ওই ব্যাংককেই বিমান মাসিক ভাড়া পরিশোধ করে যাচ্ছে। কিন্তু এয়ারক্রাফট দুটির বিভিন্ন সমস্যা, স্পেয়ার পার্টস ক্রয়, মেরামতসহ নানা প্রয়োজনে মালিকানা সংস্থা স্মার্ট এভিয়েশনের সাথে যোগাযোগ করেও তাদের খুঁজে পাওয়া যাচ্ছে না। ফলে বাধ্য হয়েই বিমানকে নিজের খরচে নিজ জনবল দিয়েই এসব কাজ করতে হচ্ছে। যদিও নিয়ম হলো এয়ারক্রাফট ঢাকায় পৌঁছার আগেই স্থানীয় এজেন্ট নিয়োগ দিয়ে এসব কাজ করা।

সূত্র আরো জানায়, প্রতিটি উড়োজাহাজ ভাড়ার ক্ষেত্রে রক্ষণাবেক্ষণ রিজার্ভের টাকা সাধারণত বিমানের নিজস্ব ফান্ডে জমা রাখা হয়। যাতে উড়োজাহাজ মেরামত কিংবা প্রয়োজনের সাথে সাথে টাকা পাওয়া যায়। একই সাথে ডিপোজিট থেকে আয়কৃত সুদও বিমানের ফান্ডে যোগ হয়। কিন্তু এই চুক্তির আওতায় রক্ষণাবেক্ষণ রিজার্ভের টাকাও মাস শেষে ভাড়ার সাথে মিসরের সংশ্লিষ্ট ব্যাংকের কাছে জমা দিতে হয়। ফলে ভাড়া করা এয়ারক্রাফট দুটির কোনো ত্রুটি ধরা পড়লে টাকার অভাবে তা মেরামতে মাসের পর মাস সময় লেগে যায়। কারণ টাকার জন্য মিসরের ওই ব্যাংকের কাছে ধরনা দিয়েও যথাসময়ে টাকা পাওয়া যায় না। তাছাড়া ওই ব্যাংক টাকা দিতেও গড়িমসি করে। এতে মাঝে মাঝে দীর্ঘ সময় বিমান দুটিকে বসিয়ে রাখতে হচ্ছে।

এদিকে প্রতিটি ৭৪ আসনের উড়োজাহাজ দুটি পাঁচ বছরের জন্য ভাড়া করার ক্ষেত্রে দরপত্রের মৌলিক শর্তও লঙ্ঘন করা হয়েছে। এ সংক্রান্ত বিমানের দাফতরিক নথিপত্রে দেখা যায় দরপত্রে আরো কম ভাড়ায় উড়োজাহাজ ভাড়া দেয়ার প্রস্তাব পাওয়া গেলেও বিমান কর্তৃপক্ষ নানা অজুহাতে তা গ্রহণ করেনি। অথচ দরপত্রের মৌলিক শর্তাবলীর মধ্যে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ শর্তটি পূরণ না করা সত্ত্বেও মিসরের স্মার্ট এভিয়েশন থেকেই দুটি উড়োজাহাজ ভাড়া করার চুক্তি করে বিমান। এর নেপথ্যে বড় অঙ্কের আর্থিক লেনদেনের অভিযোগ রয়েছে। মিশরের স্মার্ট এভিয়েশনের প্রস্তাবে মাসিক ভাড়া ১ লাখ ৮৫ হাজার মার্কিন ডলার (১ কোটি ৪৪ লাখ টাকা) উল্লেখ করা হয়। তার সাথে রয়েছে প্রতি উড্ডয়ন ঘণ্টার জন্য রক্ষণাবেক্ষণ রিজার্ভ ৬শ’ ডলার। অবশ্য চুক্তির সময় ভাড়া নির্ধারণ করা হয় ১ লাখ ৬৮ হাজার মার্কিন ডলার (১ কোটি ৩০ লাখ টাকা)। যদিও অন্য একটি প্রতিষ্ঠান স্মার্ট এভিয়েশন থেকে মাসিক ভাড়া ৬৫ হাজার মার্কিন ডলার (৫০ লাখ টাকা) কমে একটি উড়োজাহাজ দিতে চেয়েছিল। আর দ্বিতীয় উড়োজাহাজ ৬ মাসের মধ্যে একই দরে দেয়ার প্রস্তাব করেছিল।

অন্যদিকে বিমানের পরিচালনা পর্ষদে উত্থাপিত এ সংক্রান্ত নথিতে দেখা যায় দরপত্রের মৌলিক শর্তে বলা হয়েছে, উড়োজাহাজ সরবরাহের তারিখ থেকে ২ বছরের মধ্যে হেভি মেইনটেন্যান্স চেক (বড় রক্ষণাবেক্ষণ) করা যাবে না। কিন্তু যে দুটি উড়োজাহাজ আনা হয়েছে সেগুলোর হেভি চেক আগামী বছরের জুন ও সেপ্টেম্বরেই করতে হবে। তাতে বিপুল অঙ্কের আর্থিক ব্যয়ে রক্ষণাবেক্ষণের খরচ বাংলাদেশ বিমানের ওপরই বর্তাবে। যদিও চুক্তির আগে গত মার্চ মাসে এ বিষয়ে বিমানের ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) কাইল হেয়্যুড বিষয়টি স্বীকার করেছিলেন। তবে তিনি দাবি করেছিলেন উড়োজাহাজ দুটি সরবরাহের আগেই স্মার্ট অ্যাভিয়েশন কর্তৃপক্ষ মাল্টিপল সি-চেক (এক ধরনের রক্ষণাবেক্ষণ) করে দেবে বলে বিমানকে জানিয়ে ছিল। যদিও স্মার্ট এভিয়েশন এখন পর্যন্ত গত ৪ মাসে কোনো ধরনের সি-চেক করেনি। বরং সি-চেক তো দূরের কথা, বর্তমানে সংস্থাটির কোনো কর্মকর্তাকেও খুঁজে পাওয়া যাচ্ছে না। আর স্থানীয় কোনো এজেন্ট না থাকায় স্মার্ট এভিয়েশনের বিরুদ্ধে কোনো ব্যবস্থাও নেয়া যাচ্ছে না। তাছাড়া স্মার্ট এভিয়েশন তাদের প্রস্তাবের সাথে উড়োজাহাজ দুটির উৎপাদনের তারিখ, এ সংক্রান্ত কাগজপত্র, মালিকানা সংক্রান্ত কাগজপত্র, সরবরাহ সূচি, রক্ষণাবেক্ষণ সংক্রান্ত দরসহ জরুরি কাগজপত্রও বিমানকে দেয়নি। অথচ নিয়ম অনুযায়ী কোনো দরপত্রে এ ধরনের প্রয়োজনীয় কাগজপত্র না থাকলে শুরুতেই দরপত্র বাতিল হয়ে যাওয়ার কথা। কিন্তু এ নিয়ে কেউ কোনো প্রশ্ন তোলেননি। বরং বিমানের পরিকল্পনা বিভাগ অতি উৎসাহী হয়ে নিজেরাই প্রয়োজনীয় কাগজপত্র সংগ্রহ করে তা স্মার্ট এভিয়েশনের দরপত্রে সংযোজন করেছে। তারপর একমাত্র স্মার্ট এভিয়েশনকে যোগ্য ঘোষণা করে বাকি ৮টি প্রতিষ্ঠানের প্রস্তাব বাতিল করা হয়। যদিও এর আগে এ ধরনের শর্ত লঙ্ঘনের অভিযোগে জিএ টেলিসিস নামে একটি দরদাতা প্রতিষ্ঠানের প্রস্তাব নাকচ করে দেয়া হয়েছিল।

মূলত দরপত্রের মৌলিক শর্ত লঙ্ঘন করার অজুহাতে তাদের নন-রেসপন্সিভ করা হয়েছিল। অথচ স্মার্ট এভিয়েশনের বেলায় ঘটে সম্পূর্ণ তার উল্টো ঘটনা।

এ বিষয়ে বিমানের পরিচালক (প্লানিং) বেলায়েত হোসেন, ভারপ্রাপ্ত পরিচালক (ফাইন্যান্স) মোসাদ্দেক আহম্মেদ, পরিচালক (মার্কেটিং) শাহনেওয়াজ কোনো কথা বলতে রাজি হননি। তবে সংশ্লিষ্ট বিভাগের কর্মকর্তারা বলছেন- বিমান ও স্মার্ট এভিয়েশনের সাথে কিউ-৪০০ টার্বো প্রপ উড়োজাহাজ দুটির চুক্তি বিমানের জন্য শাপেবর হয়ে দেখা দিয়েছে। তারা অবিলম্বে স্মার্ট এভিয়েশনের সাথে করা চুক্তি বাতিলের কথাও বলেছেন। তা নাহলে এ নিয়ে দুর্নীতি দমন কমিশনে মামলা হলে সবাইকে জেল খাটতে হবে।

http://www.anandalokfoundation.com/