13yercelebration
ঢাকা
আজকের সর্বশেষ সবখবর

ভারতে ‘ক্যাশ ফর ভোট’ : পৃথিবীর সবচেয়ে ব্যয়বহুল নির্বাচন

Link Copied!

ভারতের গবেষণা প্রতিষ্ঠান সেন্টার ফর মিডিয়া স্টাডিজের (সিএমএস) তথ্য অনুসারে, এবারের লোকসভা নির্বাচনে ব্যয় হতে পারে ১.৩৫ ট্রিলিয়ন রুপি বা ১ হাজার ৬০০ কোটি ডলার। এটা দেশটির ২০১৯ সালের নির্বাচনের ব্যয়ের দ্বিগুণেরও বেশি। শুধু তাই নয়, এটি ২০২০ সালের যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের ব্যয়ের পরিমাণকেও ছাড়িয়ে যাবে।

ভারতের জাতীয় নির্বাচনে এবার ভোট দিচ্ছেন প্রায় ১০০ কোটি মানুষ, যা ইতিহাসের সবচেয়ে বড় গণতান্ত্রিক আয়োজন। একই সঙ্গে এই নির্বাচনে ব্যয়ও হচ্ছে পৃথিবীর সবচেয়ে বেশি, যা ছাড়িয়ে যাবে যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের খরচকেও। নির্বাচিত হওয়ার পর বিপুল এই খরচ পুষিয়ে নিতে বিজয়ী প্রার্থী লুটপাটে নামেন। এতে তারা ধনী হতে থাকেন। জরিপে দেখা গেছে, কালো টাকা ব্যয় করে বিজয়ী হওয়া প্রার্থীদের বেশির ভাগই অতীতে নানা অপরাধে জড়িত ছিলেন।

২০১৯ সালে সব দল মিলে নির্বাচনে যত ব্যয় করে, তার অর্ধেকেরও বেশি একাই খরচ করেছিল ক্ষমতাসীন ভারতীয় জনতা পার্টি (বিজেপি)। এর পর তারা ক্ষমতায় আসে। এবারও হয়তো একই কাজ করবে দলটি। এ ধরনের সমস্যা শুধু ভারতেই দেখা যাচ্ছে, তা নয়। অন্যান্য উন্নয়নশীল দেশেও ‘ক্যাশ ফর ভোট’ বা টাকার বিনিময়ে ভোটের বিষয়টি চলছে। নির্বাচনে কালো টাকা ব্যয় বন্ধে ২০১৮ সালে নির্বাচনী বন্ড চালু করে নরেন্দ্র মোদি সরকার। কিন্তু তাতে সুফল মেলেনি।

কেন নির্বাচন ঘিরে ভারতের রাজনৈতিক দলগুলো এমন বিপুল পরিমাণ অর্থ ব্যয় করে, তা  তুলে ধরেছেন বিশেষজ্ঞরা। তারা বলছেন, কোনো সুনির্দিষ্ট একটি কারণে এই বিপুল ব্যয় নয়। এর পেছনে রয়েছে একাধিক কারণ। যেমন বিশাল সংখ্যক ভোটারের কাছে পৌঁছাতে দলগুলোর খরচ বেশি হচ্ছে। গত ২০ বছরে দেশটিতে জনসংখ্যা বেড়েছে ২৭ শতাংশ। কিন্তু এই সময়ে নির্বাচনী ব্যয় ১৬৫ শতাংশ বেড়েছে, যা জনসংখ্যা বৃদ্ধির হারের চেয়ে অনেক বেশি।

সিএমএসের ধারণা, ২০১৯ সালে রাজনৈতিক দল ও প্রার্থীদের অর্ধেকেরও বেশি ব্যয় হয়েছে বিজ্ঞাপন, কর্মীদের মজুরি ও যাতায়াতে। ভারতের অর্থনীতি বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে ভোটারদের রুচিবোধেও এসেছে পরিবর্তন। ফলে পরিশীলিত ও ব্যয়বহুলভাবেই তাদের কাছে প্রচার চালাতে হচ্ছে। প্রযুক্তির বিকাশে এখন ডিজিটাল মাধ্যমেও প্রচারে ব্যয় বেড়েছে। গুগলের তথ্য বলছে, চলতি নির্বাচনের আগের কয়েক মাসে দেশটিতে যে পরিমাণ বিজ্ঞাপন দেওয়া হয়েছে, তা ২০১৯ সালের একই সময়ের চেয়ে ৬ গুণ।

যেমন বিশাল সংখ্যক ভোটারের কাছে পৌঁছাতে দলগুলোর খরচ বেশি হচ্ছে। গত ২০ বছরে দেশটিতে জনসংখ্যা বেড়েছে ২৭ শতাংশ। কিন্তু এই সময়ে নির্বাচনী ব্যয় ১৬৫ শতাংশ বেড়েছে, যা জনসংখ্যা বৃদ্ধির হারের চেয়ে অনেক বেশি। নির্বাচনী ব্যয় বাড়ার আরেকটি ব্যাখ্যা হলো, প্রার্থীর সংখ্যা। ২০১৯ সালে গড়ে একটি আসনে ১৫ জন প্রার্থী লড়েছেন দেশটিতে। তীব্র প্রতিদ্বন্দ্বিতাপূর্ণ নির্বাচনে ভোটার টানতে পাল্লা দিয়ে খরচ করতে হচ্ছে প্রার্থীদের।
গুরুত্বপূর্ণ আরেক কারণ হলো, ভোটারদের জন্য মিষ্টান্ন কেনা। এই ব্যয় কখনোই হিসাবে ধরা হয় না। সিএমএসের ধারণা, ২০১৯ সালে ব্যয়ের প্রায় চার ভাগের এক ভাগই ব্যয় হয়েছে ভোটারদের উপহার সামগ্রী পাঠাতে। এর মধ্যে ছিল মদ, টিভি থেকে শুরু করে ছাগল কিনে দেওয়া পর্যন্ত। ছিল নগদ টাকাও।
সিএমএসের তথ্য বলছে, দক্ষিণ ভারতের চার জেলার অর্ধেকেরও বেশি ভোটারকে প্রতিটি ভোটের জন্য ১ থেকে ২ হাজার রুপি দেওয়া হয়েছে। যদিও ভোট উপলক্ষে এমন উপহার দেশটিতে নিষিদ্ধ। ভোট শুরুর আগে লেভেল প্লেয়িং ফিল্ড নিশ্চিতে গত ১৫ এপ্রিল একদিনেই ৪ হাজার ৭০০ কোটি রুপির বিভিন্ন জিনিস বাজেয়াপ্ত করে নির্বাচন কমিশন। এর মধ্যে রয়েছে ৩৬০ লিটার মদ ও নগদ ৪ হাজার কোটি রুপি। গোটা দেশের তুলনায়  এটা আংশিক চিত্র মাত্র।
http://www.anandalokfoundation.com/