13yercelebration
ঢাকা
আজকের সর্বশেষ সবখবর

ভারতের লোকসভা নির্বাচনের স্বচ্ছতা নিশ্চিত করতে সাবেক উচ্চপদস্থ কর্মকর্তাদের খোলা চিঠি

Link Copied!

কনডাক্ট গ্রুপের পক্ষ থেকে চিঠি নির্বাচন কমিশনে পাঠানো হয়। এতে স্বাক্ষর করেছেন ১০২ সাবেক কর্মকর্তা। তাদের মধ্যে আছেন– ওয়াজাহাদ হাবিবুল্লাহ, শিবশঙ্কর মেনন, জি কে পিল্লাই, কে সুজাতা রাও, সন্দীপ বাগচী, গোপালান বালাগোপাল ও রানা ব্যানার্জি।

চিঠিতে বলা হয়েছে, “আমরা সাবেক সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীদের একটি দল, যারা বিভিন্ন সময়ে কেন্দ্রীয় এবং রাজ্য সরকারকে সেবা দিয়েছি। আমাদের কোনো রাজনৈতিক দলের সঙ্গে সম্পর্ক নেই, তবে আমরা ভারতের সংবিধানের প্রতি দৃঢ় প্রতিশ্রুতিবদ্ধ।”

“২০২৪ সালের ৪ জুন বিশ্বের সবচেয়ে বড় গণতন্ত্রের দেশ ভারতে সংসদের নিম্নকক্ষ লোকসভার ভোটগ্রহণ শেষে ফলাফল চূড়ান্ত হবে। এই বিশাল কর্মযজ্ঞে দেশটির শ্রমজীবী মানুষ, কৃষক, নারী এবং যুবকরা তীব্র তাপপ্রবাহের মধ্যেই গণতন্ত্রের প্রতি অবিচল থেকে তাদের বিশ্বাসকে জয়ী করেছে। এই নির্বাচনের অখণ্ডতা ও সুষ্ঠুতা নিশ্চিত করার দায়িত্ব বেশ কিছু প্রতিষ্ঠানের ওপর সাংবিধানিকভাবে অর্পিত। এর মধ্যে রয়েছে উচ্চ বিচার বিভাগ, নির্বাচন কমিশন, প্রতিটি রাজ্যের প্রধান নির্বাচনী কর্মকর্তা এবং প্রতিটি জেলার রিটার্নিং অফিসাররা।”

“আর এসব সাংবিধানিক প্রতিষ্ঠানের প্রতি সাধারণ নাগরিকদের আস্থা ধরে রাখার জন্য প্রতিষ্ঠানগুলোকে সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষভাবে গুরুদায়িত্ব পালন করতে হবে। তাদের অবশ্যই নাগরিকদের কাজের স্বচ্ছতা এবং জবাবদিহিতা করতে হবে। এছাড়া ধারাবাহিকভাবে ভোটারদের তথ্য শেয়ার করার মাধ্যমে প্রক্রিয়াটির নিরপেক্ষতার বিষয়ে আশ্বস্ত করতে হবে।”

“২০২৪ সালের সাধারণ নির্বাচনের সুষ্ঠুতা নিয়ে অনেক ক্ষেত্রে সন্দেহ ও শঙ্কা দেখা দিয়েছে। যেমন: ইভিএমের মাধ্যমে ভোট কারচুপি করা হতে পারে। এছাড়া একজন ব্যক্তি বেআইনিভাবে অনেকের ভোট দেওয়ার ঘটনা ঘটেছে, যা ভিডিওসহ প্রচারিত হয়েছে। ভোটার তালিকায় বিশেষ করে যারা দুর্বল গোষ্ঠীর, তাদের নাম খুঁজে পাওয়া যাচ্ছে না। প্রতিটি নির্বাচনী এলাকায় ভোটার তালিকা এবং মোট ভোটের সংখ্যা প্রকাশ করতে অস্বীকৃতি জানানো হয়। এছাড়া ক্ষমতাসীন দলের সিনিয়র নেতাদের দ্বারা সংখ্যালঘু এবং বিরোধী দলের লোকজনকে লক্ষ্য করে ঘৃণামূলক বক্তব্য প্রদান বা কটাক্ষ করা হয়। এমনকি নির্বাচন কমিশনের পক্ষ থেকে এসব সমস্যা মোকাবেলা করা বা ভোটারদের শঙ্কা দূর করতে কোনো পদক্ষেপ গ্রহণ না করার মতো ঘটনা ঘটেছে।”

“তাই ভোটারদের শঙ্কা দূর করতে নির্বাচন কমিশনকে দ্রুততার সঙ্গে স্বচ্ছভাবে কাজ করা উচিত। দুঃখের সঙ্গে জানাচ্ছি, অতীতের কোনো নির্বাচন কমিশনই দায়িত্ব পালনে বর্তমান কমিশনের মতো অনীহা প্রকাশ করেনি। বিষয়টি তাদের নজরে আনা হয়েছে। আমরা আশা করি, বাকি সময়গুলোতে তারা দায়িত্বে অবহেলা করবে না। ইভিএম মেশিনগুলোর নিরাপত্তার জন্য সুরক্ষিত স্থানে রাখা দরকার। রিটার্নিং কর্মকর্তাদের দ্রুততার সঙ্গে ভোট গণনার ফলাফল ঘোষণা করতে প্রতিশ্রুতিবদ্ধ হতে হবে। নির্বাচনের দৌড়ে কারা এগিয়ে আছে তা জানাতে হবে।”

“সংবিধান ও আইন রক্ষা করা এবং তা ধরে রাখার জন্য ‘ভারতের জনগণের সেবা ও কল্যাণে নিজেকে নিবেদিত’ করার বিষয়টি প্রথম শ্রেণির নাগরিক, ভারতের রাষ্ট্রপতির সামনে উত্থাপন করছি। আমরা বিশ্বাস করি এটি পথপ্রদর্শক হিসেবে কাজ করবে। আমরা জানি যে, ভারতের রাষ্ট্রপতির কাঁধে অনেক কঠিন দায়িত্ব ন্যস্ত হবে। আমরা আশা করি, তিনি গণতান্ত্রিক নজির অনুসরণ করবেন। ভারতের নাগরিকদের পক্ষ থেকে আমরা বিনয়ের সঙ্গে জানাচ্ছি, গণতান্ত্রিক সরকার গঠনের প্রক্রিয়ার সঙ্গে যুক্ত প্রতিটি প্রতিষ্ঠান এবং কর্তৃপক্ষকে ভারতের সংবিধান মেনে চলা এবং সমুন্নত রাখার জন্য তাদের প্রধান দায়িত্ব মনে করিয়ে দিতে চাই। দায়িত্ব গ্রহণের সময় তারা যে শপথ নিয়েছিলেন তা আমরা তাদের স্মরণ করিয়ে দিতে চাই।”

http://www.anandalokfoundation.com/