13yercelebration
ঢাকা
আজকের সর্বশেষ সবখবর

ভারতের আদানি গ্রুপের বিরুদ্ধে বিরাট জালিয়াতির অভিযোগ

Link Copied!

যুক্তরাষ্ট্র ভিত্তিক প্রতিষ্ঠান হিনডেনবার্গের একটি গবেষণা রিপোর্টে, ভারত তথা এশিয়ার শীর্ষ ধনী গৌতম আদানির বিরুদ্ধে ‘করপোরেট জগতের ইতিহাসের সবচেয়ে বড় ধোঁকাবাজির’ অভিযোগ করা হয়েছে। আদানি গ্রুপ হিসাবের খাতায় জালিয়াতি করে শেয়ারবাজারে ধোঁকাবাজি করেছে। এমন কথাও ওই রিপোর্টে বলা হয়েছে যে, আদানি গ্রুপের ঘাড়ে প্রচুর ঋণ রয়েছে – যা এই ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের আর্থিক ভিত্তিকে নড়বড়ে করে তুলেছে। মরিশাস ও ক্যারিবীয় দ্বীপপুঞ্জের বিভিন্ন ট্যাক্স হেভেনে বিভিন্ন কোম্পানিতে, আদানি গ্রুপের মালিকানা থাকার ব্যাপারে ইঙ্গিত করা হয়েছে।
হিনডেনবার্গ তাদের রিপোর্টে আরও জানিয়েছে, কৃত্রিম ভাবে শেয়ারের দর বহু গুণ বাড়িয়েই আদানিরা বিশাল শেয়ার সম্পদ গড়েছে। গত তিন বছরে আদানি গ্রুপের কর্ণধার গৌতম আদানির শেয়ার সম্পদ বেড়েছে ৮০০ শতাংশের বেশি। রিপোর্টটি প্রকাশের সাথে সাথে শেয়ার বাজারে তীব্র নেতিবাচক প্রতিক্রিয়া হয়েছে এবং আদানি গ্রুপের শেয়ারে ধস নেমেছে। শুক্রবার সেনসেক্সের ৮৭৪ পয়েন্ট পতনেরও অন্যতম কারণ এই অভিযোগ। ৪.৫৫ কোটি শেয়ার বিক্রি করে টাকা হাতিয়ে নিতে চেষ্টা করেছিল আদানি গ্রুপ। কিন্তু বিক্রি হয়েছে মাত্র ৪.৭ লক্ষ শেয়ার।
আদানি গ্রুপের দাবি, শেয়ার বিক্রির প্রক্রিয়া বানচাল করতেই ভিত্তিহীন অভিযোগ তুলেছে হিনডেনবার্গ। তার পরেই ভারতের বিশেষজ্ঞ মহলে প্রশ্ন উঠেছে যে, আমেরিকার লগ্নি সংক্রান্ত গবেষণাকারী সংস্থা হিনডেনবার্গ রিসার্চের রিপোর্টে প্রকাশিত অভিযোগ সত্যি প্রমাণিত হলে, ভারতের অর্থনীতি নতুন করে ঝুঁকির মুখে পড়বে না তো? মোদী সরকারের পছন্দের শিল্প গোষ্ঠী বলে কটাক্ষ ছুঁড়ে দিয়ে বিরোধী দল কংগ্রেস বলেছে, সাধারণ মানুষের স্বার্থে অবিলম্বে আদানি গোষ্ঠীর বিরুদ্ধে নিরপেক্ষ তদন্তে নামুক শেয়ার বাজার নিয়ন্ত্রক সংস্থা সেবি ও রিজার্ভ ব্যাঙ্ক। কংগ্রেসের দাবি, আদানিদের সংস্থায় এলআইসি-র বিপুল লগ্নি আছে। স্টেট ব্যাঙ্ক-সহ বিভিন্ন রাষ্ট্রায়ত্ত ব্যাঙ্কে রয়েছে আদানি গ্রুপের বিশাল ঋণ। ফলে আদানি গ্রুপের শেয়ার মূল্য কমলে তাদের ক্ষতি। যেখানে মানুষের পুঁজি থাকে। ইতিমধ্যেই এলআইসি-র লগ্নি মূল্য কমেছে। এ দিন তাদের শেয়ার দর ৩.৪৫% পড়েছে। বেশ খানিকটা নেমেছে স্টেট ব্যাঙ্ক, ব্যাঙ্ক অব বরোদা-সহ ব্যাঙ্কিং সংস্থার শেয়ারের দাম।
কংগ্রেস সাংসদ জয়রাম রমেশ বলেন, দেশের আর্থিক ব্যবস্থাকে স্থিতিশীল রাখা আরবিআই ও সেবির কর্তব্য। তাই অভিযোগ খতিয়ে দেখা দরকার তাদের। প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে আদানিদের সম্পর্ক প্রতারণায় ইন্ধন জুগিয়েছে কি না বা দেওয়া-নেওয়ার স্বার্থের খাতিরে আর্থিক নয়ছয় প্রশ্রয় পেয়েছে কি না, দেখতে হবে সেটাও। অর্থনীতিবিদ অভিরূপ সরকারের বক্তব্য, ‘‘গোষ্ঠীর সংস্থায় এলআইসির লগ্নির খবর সত্যি হলে সেটা উদ্বেগের। ঋণদাতা ব্যাঙ্কগুলিরও দুশ্চিন্তার কারণ আছে। টাকাগুলো সাধারণ মানুষের।” শিব সেনা দলের নেতা এবং পার্লামেন্ট সদস্য প্রিয়ংকা চতুর্বেদী টুইট করেছেন, “বিস্তারিত গবেষণা রিপোর্টটি জনসমক্ষে প্রকাশ হওয়ার পর, সরকারের উচিৎ এসব অভিযোগ আমলে নিয়ে তদন্ত করে দেখা।“ দক্ষিণ ভারতের রাজনীতিবিদ কে. টি. রামারাও দাবি করেছেন, “আদানি গ্রুপের ব্যবসায়িক কর্মকাণ্ড তদন্ত করতে হবে।”
তবে পর্যবেক্ষকরা বলছেন, ভারতের শেয়ার বাজারের নিয়ন্ত্রক সংস্থা সেবি তেমনটা করবে- সে সম্ভাবনা এখন নেই বললেই চলে। ভারতের শেয়ার বাজার বিষয়ক গবেষণা প্রতিষ্ঠান ইনগভার্ন রিসার্চের প্রধান শ্রীরাম সুব্রামনিয়াম বলেছেন, “ভারতের সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ বোর্ড কেবল তখনই ব্যবস্থা নেয় – যখন কোনও তালিকাভুক্ত কোম্পানির বিরুদ্ধে তাদের কাছে সুনির্দিষ্ট অভিযোগ পাঠানো হয়। কিন্তু আদানি গ্রুপের ব্যাপারে এখন পর্যন্ত কোন অভিযোগ করা হয়নি।”
ব্লুমবার্গের কলামিস্ট অ্যান্ডি মুখার্জী বলেছেন,“আদানি ছাড়াও সামগ্রিকভাবে ভারতের শেয়ার বাজারের বিশ্বস্ততা নিয়ে নানা প্রশ্ন রয়েছে।“ তার মতে, এর অন্যতম কারণ কারণ হলো ভারতের শেয়ার বাজার এখনও একদিকে আর্থিক ব্যবস্থার বৈশ্বিকীকরন এবং অভ্যন্তরীণ রাজনৈতিক জাতীয়তাবাদের ভেতরে পড়ে হিমশিম খাচ্ছে। আ্যান্ডি মুখার্জী আরও লিখেছেন, “জঞ্জাল দূর করার জন্য ভারতের বাজার নিয়ন্ত্রক সংস্থা কী রাস্তায় মানুষের ক্ষোভের জন্য অপেক্ষা করবে?”
যুক্তরাষ্ট্র ভিত্তিক গবেষণা প্রতিষ্ঠান হিনডেনবার্গকে একহাত নেওয়ার চেষ্টা শুরু করেছে আদানি গ্রুপ। আদানি গ্রুপ বলেছে, হিনডেনবার্গের রিপোর্ট “বিদ্বেষমূলক” এবং ভুল তথ্যে ভরা। তারা বলেছে, মার্কিন এই কোম্পানির বিরুদ্ধে তারা ভারত এবং যুক্তরাষ্ট্রে মামলা করার কথা বিবেচনা করছে। আদানি গ্রুপ দাবি করেছে, তারা সব ধরণের আইন অনুসরণ করে ব্যবসা করে। গ্রুপের প্রধান আইন কর্মকর্তা যতীন জালুনধোয়ালা বলেছেন, “(হিনডেনবার্গের) এই রিপোর্ট প্রকাশের পর ভারতের শেয়ার বাজারে যে টালমাটাল অস্থিরতা তৈরি হয়েছে, তা খুবই উদ্বেগের বিষয়। এর ফলে ভারতীয় নাগরিকরা অনাকাঙ্ক্ষিত মানসিক চাপে পড়েছেন।“ যতীন জালুনধোয়ালা অভিযোগ করেছেন, আদানি গ্রুপের শেয়ারের দরপতনের অশুভ উদ্দেশ্য নিয়েই এই রিপোর্টে “প্রমাণ ছাড়া” বিভিন্ন তথ্য এবং অভিযোগ তুলে ধরা হয়েছে। তিনি বলেন, হিনডেনবার্গ তাদের ব্যবসায়িক স্বার্থেই একাজ করেছে।
গত বৃহস্পতিবার হিনডেনবার্গ তাদের প্রতিক্রিয়ায় বলেছে, যেসব গুরুতর বিষয় তাদের রিপোর্টে তুলে ধরা হয়েছে, সে বিষয়ে আদানি গ্রুপ কোনও সন্তোষজনক ব্যাখ্যা দেয়নি। হিনডেনবার্গ বলেছে, তাদের রিপোর্ট সঠিক এবং আদানি গ্রুপ মামলা করতে চাইলে তারা মোকাবেলা করবে।
http://www.anandalokfoundation.com/