13yercelebration
ঢাকা
আজকের সর্বশেষ সবখবর

ভারতীয় বিনিয়োগকারীদের আস্থা হারিয়েছেন গৌতম আদানি

ডেস্ক
January 31, 2023 10:25 am
Link Copied!

স্কুল পালানো গৌতম আদানি ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির অত্যন্ত ঘনিষ্ঠ। নরেন্দ্র মোদির সহায়তায় তার নাটকীয় উত্থান। ভারতের বিখ্যাত সাংবাদিক এম রাজশেখর লিখেছেন, ২০১৪ সালের আগে আদানি গ্রুপের কার্যক্রম মূলত গুজরাটে সীমাবদ্ধ ছিল। ওই বছরই গুজরাটের তৎকালীন মুখ্যমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি ভারতের প্রধানমন্ত্রী হন। তার পর থেকে গ্রুপটি রাতারাতি সারাদেশে তার কার্যক্রম সম্প্রসারিত করে। শুধু তাই নয়; তারা এত দিন যে বিদ্যুৎ ও বন্দর ব্যবসায় সীমাবদ্ধ ছিল; সেখান থেকে বেরিয়ে এসে বিমানবন্দর, নবায়নযোগ্য জ্বালানি, সিমেন্ট, প্রতিরক্ষা সরঞ্জাম, তথ্যপ্রযুক্তি ইত্যাদি ক্ষেত্রে মনোযোগ দেয়। এবং নরেন্দ্র মোদির সঙ্গে ঘনিষ্ঠতার সূত্রে রাষ্ট্রের বড় বড় অবকাঠামোগত প্রকল্প বাগিয়ে নিতে সক্ষম হন গৌতম আদানি।

শর্ট সেলার খ্যাত হিনডেনবার্গ গত বুধবার এক প্রতিবেদনে – ভারতের শীর্ষ ধনী গৌতম আদানির মালিকানাধীন আদানি গোষ্ঠীর বিরুদ্ধে শেয়ারবাজারে জালিয়াতির অভিযোগ তোলে। এরপর আদানি গোষ্ঠীর তালিকাভুক্ত কোম্পানিগুলোর শেয়ারদর হুহু করে পড়ে যায়। এ ঘটনায় ভারতের বিনিয়োগকারীদের আস্থা সংকট তৈরি হতে পারে বলে মনে করছেন বিশ্নেষকরা।

গতকাল আদানি গ্রুপের মালিক গৌতম আদানির ব‍্যক্তিগত সম্পদ কমেছে ৯ বিলিয়ন ডলারের বেশি। ফলে তিনি বিশ্বের তৃতীয় শীর্ষ ধনীর অবস্থান থেকে গতকাল নবম স্থানে নেমে গেছেন। ব্লুমবার্গ বিলিয়নেয়ার্স ইনডেক্স অনুসারে আদানির মোট সম্পদের মূল্য গত তিন কর্মদিবসে ২৭ দশমিক ৯ বিলিয়ন ডলার কমেছে। ব্লুমবার্গের হিসাবে, এখনও তিনি ৮৫ দশমিক ২ বিলিয়ন ডলারের মালিক। ২০২২ সালের ২০ সেপ্টেম্বর আদানির মোট শেয়ারে দাম ছিল ১৫০ বিলিয়ন ডলার। আদানি গ্রুপের শেয়ারের দর পতনের ধারা অব্যাহত থাকলে আগামী দিনগুলোতে তার অবস্থান কোথায় ঠেকবে- তা এখনই বলা যাচ্ছে না। দু’দিন বন্ধ থাকার পর সোমবার আবার দেশটির শেয়ার লেনদেন শুরু হলে কোম্পানিটি আরও অন্তত ১৯ বিলিয়ন ডলার (দুই লাখ কোটি টাকারও বেশি) বাজারমূল্য হারিয়েছে। এ নিয়ে তিন কর্মদিবসে কোম্পানিটি ৭১ বিলিয়ন ডলার হারিয়েছে। আদানির জালিয়াতির প্রতিবেদনের বড় ধাক্কা লেগেছে ভারতের ব্যাংক ও জীবন বীমার শেয়ারের দরেও। ভারতের শেয়ারবাজার লাখ লাখ কোটি রুপি হারিয়েছে।

গতকালও তৃতীয় দিনের মতো আদানি গ্রুপের বেশিরভাগ কোম্পানির শেয়ার তীব্র লোকসান দেখতে থাকে। এর জেরে ভারতের শেয়ারবাজারে দুপুরের আগেই প্রায় ১ শতাংশ পতন ঘটে। এদিন আদানি টোটাল গ্যাস, আদানি ট্রান্সমিশন ও আদানি গ্রিন এনার্জি- প্রতিটির শেয়ারদর ২০ শতাংশ পড়ে গেলে লেনদেন বন্ধ করে দেওয়া হয়। শুক্রবারও একই ঘটনা ঘটেছিল। যদিও সকালে মিশ্র প্রতিক্রিয়া দেখা যায় আদানির শেয়ারে। কিন্তু বেলা বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে পতনও বড় হতে থাকে। ফলে বিনিয়োগকারীদের লাখো কোটি টাকা উধাও হয়ে যায়।

সোমবার আদানি এন্টারপ্রাইজের বহুল আলোচিত ফলোঅন পাবলিক অফারের (এফপিও) দর ৩ শতাংশ বাড়লেও এখনও তা প্রস্তাবিত মূল্যের চেয়ে অনেক কম। গত শুক্রবার তা আরও কম ছিল। ২৫০ কোটি ডলারের এই এফপিওর লেনদেন গতকাল দ্বিতীয় কার্যদিবসে গড়িয়েছে। সকালে এই শেয়ার কেনাবেচা হয়েছে ২ হাজার ৮৪৮ রুপিতে। অথচ এর প্রস্তাবিত দর ছিল ৩ হাজার ১১২ থেকে ৩ হাজার ২৭৬ রুপি। শুক্রবার প্রথম দিনেই এই এফপিওর দর ২০ শতাংশ কমে যায়। ফলে সেকেন্ডারি বাজারে নূ্যনতম দামের চেয়ে ১১ শতাংশ নিচে নেমে যায়। সেদিন লক্ষ্যমাত্রার মাত্র ১ শতাংশ বিক্রি হয়েছে এই এফপিও। সে কারণে এই এফপিওর ভবিষ্যৎ নিয়ে শঙ্কা তৈরি হয়েছে। ভারতের আইন অনুসারে, কোনো প্রস্তাবিত শেয়ার ৯০ শতাংশ বিক্রি না হলে ইস্যুয়ারকে পুরো অর্থ ফেরত দিতে হয়। ফলে শেষ পর্যন্ত আদানি গোষ্ঠীকে লজ্জার মধ্যে পড়তে হতে পারে।

যুক্তরাষ্ট্রের গবেষণা প্রতিষ্ঠান হিনডেনবার্গ রিসার্চে গত সপ্তাহে আদানির জালিয়াতির খবর প্রকাশের পর, ভারতে করপোরেট প্রতিষ্ঠানের জবাবদিহিতা ও রাষ্ট্রীয় প্রতিষ্ঠানের স্বচ্ছতা নিয়ে প্রশ্ন উঠেছে। আদানি গ্রুপ গতকাল হিনডেনবার্গের উত্থাপিত অভিযোগের বিষয়ে ৪১৩ পৃষ্ঠার জবাব দিলেও শেয়ারবাজারে ধস ঠেকাতে পারেনি।

হিনডেনবার্গের প্রতিবেদনটিকে মিথ্যে বলে বর্ণনা করেছে আদানি গ্রুপ। তাদের মতে, ভুয়া তথ্যের ওপর ভিত্তি করে অসৎ উদ্দেশ্যে এই প্রতিবেদন প্রকাশ করা হয়েছে। প্রতিবেদনে আর্থিক তথ্য গোপনের যে অভিযোগ করা হয়েছে তা ডাহা মিথ্যা। আদানি গ্রুপের দাবি, এটি নিছক কোনো নির্দিষ্ট সংস্থার ওপর একটি অযৌক্তিক আক্রমণ নয়। বরং ভারত, ভারতীয় প্রতিষ্ঠানের স্বাধীনতা, সততা এবং গুণমান ও ভারতের সমৃদ্ধির গল্প এবং উচ্চাকাঙ্ক্ষার ওপর ‘পরিকল্পিত আক্রমণ’।

তবে হিনডেনবার্গ আদানির বক্তব্যের কড়া জবাব দিয়েছে। বলেছে, ভারতের ভবিষ্যৎ আদানি গ্রুপ অবরুদ্ধ করে রেখেছে। কোম্পানিটি নিজেকে ভারতীয় পতাকায় আচ্ছাদিত করে পদ্ধতিগতভাবে জাতিকে লুট করছে। হিনডেনবার্গ জানায়, আদানির ৪১৩ পৃষ্ঠার জবাবের মধ্যে মাত্র ৩০ পৃষ্ঠা প্রতিবেদনের সঙ্গে সম্পর্কিত। অবশিষ্ট অংশে অপ্রাসঙ্গিক করপোরেট উদ্যোগের বিবরণ রয়েছে। যেমন এটি কীভাবে মহিলা উদ্যোক্তা ও নিরাপদ সবজি উৎপাদনকে উৎসাহিত করে সেই তথ্য।

http://www.anandalokfoundation.com/