13yercelebration
ঢাকা
আজকের সর্বশেষ সবখবর

ভগবান সম্পর্কে ‘রামায়ণচরিত্র মানস’ কি বলে?

admin
August 23, 2017 12:40 am
Link Copied!

দি নিউজ ডেস্কঃ লীলাময় ভাগবান শ্রীহরি একাধিকবার
অভিশাপের শিকার
হন। এক কল্পে জলন্ধর দৈত্যের উপদ্রবে
দেবতারা নাজেহাল। তখন শিব গেলেন যুদ্ধ করতে।তিনিও জলন্ধরকে পরাজিত করতে পারেননি। কারণ জলন্ধরের
স্ত্রী ছিল সতী সাধ্বী নারী। তখন শ্রীহরি ছল
করে জলন্ধরের স্ত্রীর সতীধর্ম নষ্ট করেন। সেই নারী যখন ভগবানের ছলনা
বুঝতে পারলেন, তিনি তখন ভগবানকে
অভিশাপ দেন।

আরেকবার শঙ্খচূড় নামক অসুরও তাঁর স্ত্রী
তুলসীর জন্য অবধ্য ছিলেন। দেবলোকের মঙ্গলের জন্য তিনি তুলসীর সতীত্ব হরণ করেন। তুলসী ছিলেন ভগবদ্ভক্ত।
কিন্তু ভগবানের ছলনা বুঝতে পেরে তিনিও শ্রী
হরিকে পাষাণ রূপ প্রাপ্তের জন্য অভিশপ্ত করেন। ভগবান তা-ই শিরোধার্য করে নারায়ণ শিলাতে পরিণত হলেন। উপরন্তু, তুলসীর
ভগবদ্ভক্তির মাহাত্ম্যের জন্য তিনি জন্মে
জন্মে শ্রীভগবানের শ্রীচরণ কমলে স্থান পান।
কিন্তু যদি শোনা যায় যে, দেবর্ষি নারদ
ভগবানকে অভিশাপ দিয়েছেন! তাহলে চমকে উঠতে হয়। কিন্তু ঘটনা তাই। নারদ দক্ষ কর্তৃক ‘যাযাবর’ বৃত্তির অভিশাপ পেয়েছিলেন।

হিমালয়ের গঙ্গার তীরে এক মনোরম আশ্রম
দেখে নারদের ভালো লাগল। তিনি পর্বত-নদী-কান্তারের অনবদ্য দৃশ্য অবলোকন করে রমাকান্ত ভগবানের শ্রীচরণেঅনুরাগ জন্মাল। শ্রীচরণ স্মরণ হওয়াতেই তিনি শাপমুক্ত হলেন।

তারপর সেই মনোমুগ্ধকর আশ্রমে তিনি
সমাধিস্থ হলেন। নারদের এই সমাধি দেখে ইন্দ্রের ভয় হল। তিনি ভাবলেন, নারদ হয়তো তপোবলে তাঁর ইন্দ্রত্ব (স্বর্গের রাজপদ)
কেঁড়ে নেবেন। ইন্দ্র কামদেবকে আদেশ
করলেন, “যাও! তোমার সঙ্গী-সাথী নিয়ে দেবর্ষি নারদের সমাধি ভঙ্গ করো।” মীন কেতু কামদেব “যথা আজ্ঞা” বলে তাঁর আদেশ
পালনের জন্য তৎপর হলেন। মদন সেই আশ্রমে বসন্ত সৃষ্টি করলেন। নানা রঙের ফুল ফুটল । কোকিল গান গাইল । ভ্রমর গুঞ্জন করল।
শীতল মৃদু -মন্দ সুগন্ধি বাতাস বইল । উর্বশী, রম্ভা প্রমূখ অপ্সরাগণ নানা ভঙ্গিতে শরীর আন্দোলিত করে নৃত্য .পরিবেশন করল। চির যুবতী দেব ললনাদের লাস্যময়ী দেহ –
বল্লরী আন্দোলিত হল। কামকলায় নিপুণ
অপ্সরাদের ছলা- কলায় নারদের সমাধি ভঙ্গ হল না। তখন তারা অভিশাপের ভয় পেল। সকলে দেবর্ষি নারদের চরণে ক্ষমা প্রার্থনা করল। নারদ সকলকে ক্ষমা করে দিলেন।

দেবর্ষি নারদের এই ঘটনায় খুব অহঙ্কার হল।
তিনি কৈলাসে গিয়ে শিবকে বেশ গর্বের সঙ্গে এই ঘটনা বর্ণনা করলেন।

শিব বললেন, আপনি এটা যেভাবে আমাকে
বর্ণনা করলেন, তা কখনও ভগবান শ্রীহরিকে বলবেন না। কিন্তু নারদের শিবের উপদেশ ভালো লাগল না। তিনি বীণায় হরি গুণগান করতে
করতে ক্ষীরসমুদ্রে গেলেন, যেখানে
শ্রীহরি নারায়ণ রূপে বাস করেন।

নারায়ণ দেবর্ষি নারদকে আপ্যায়ন করে
বসিয়ে কুশল বিনিময় করলেন। দেবর্ষি নারদ হল শ্রী ভগবানের পরম ভক্ত। কিন্তু ভগবান তো অন্তর্যামী। তবুও গর্বের সঙ্গে নারদ
কামদেবের পরাজয়ের ঘটনা নারায়ণকে
বললেন। নারায়ণ বললেন, “তোমাকে স্মরণ করলেই অন্যের কাম-ক্রোধ- লোভ-মোহ দূরীভূত হয়ে যায়। তো কামদেব
পরাজিত হয়েছেÑ এটা আর এমন কি কথা? একথা শুনে নারদের আরও
অহঙ্কার বৃদ্ধি পেল। তারপর নারদ বিদায়
নিলেন। তখন শ্রীনারায়ণ অপূর্ব এক লীলা করলেন। তিনি ভক্ত নারদের
মঙ্গলের জন্য তাঁর মায়াশক্তিকে নির্দেশ
দিলেন নারদকে মোহিত করতে।

নারদ দেখলেন এক অপূর্ব নগর, যেখানে সুন্দর
সব নর-নারী বাস করছে। সবাই যে মদন আর রতি। সেই নগরের রাজা
শিলানিধি। বিশাল তাঁর সামরিক সজ্জা। প্রচুর
ভোগৈশ্বর্যে পরিপূর্ণ সেই নগর। নারদ
পুরবাসীদের কাছে জিজ্ঞাসা করে জানতে পারলেন যে, রাজকন্যা বিশ্বমোহিনীর স্বয়ম্বরা হবে। সেই উপলক্ষে বহু রাজা
রাজবাড়িতে সমাগত। নারদও তামাসা
দেখতে গেলেন। রাজা শিলানিধি নারদকে পাদ্যার্ঘ্য দিয়ে পূজা করলেন। তারপর
রাজকন্যাকে দেখিয়ে এর দোষ-গুণ বিচার
করতে বললেন।

নারদ বিশ্ববিমোহিনীর অপরূপ সৌন্দর্য্যে
মোহিত হয়ে গেলেন। রাজাকে শুধু বললেন, এই কন্যা সুলক্ষণা। আর মনে
মনে নারদ চিন্তা করলেন, এই কন্যার পাণি
গ্রহণ যে করবে সে ত্রিলোকে পূজিত হবে। তাকে কেউ পরাজিত করতে পারবে না। অতএব, এই কন্যাকে পাওয়ার জন্য নারদ চিন্তা
করতে করতে বাইরে এলেন। নারদ এতটাই
মোহগ্রস্ত হলেন যে, তিনি স্বয়ং শ্রীহরিকে স্মরণ করলেন।
ভগবানকে স্মরণ
মাত্রই তিনি উপস্থিত হলেন। নারদ বললেন,
“ভগবান, এই
কন্যাকে আমার চাই-ই চাই। আর সেজন্য
তোমার রূপ
আমাকে দাও।” ভগবান বললেন, “তথাস্তু”।
যথাসময়ে স্বয়ম্বর সভা শুরু হল। শিব তাঁর দুইজন
অনুচরকে
নারদের কাণ্ড পর্যবেক্ষণ করতে ব্রাহ্মণের
বেশে
পাঠিয়েছিলেন। ভগবান স্বয়ং-ও রাজবেশ
ধারণ করে
উপস্থিত। বিশ্ববিমোহিনী নারদের দিকে
দৃষ্টিপাতই করলেন
না। স্বয়ং ভগবানকে বরমাল্যে বরণ করলেন।
এই দৃশ্য দেখে
নারদ ক্রোধে থর থর করে কাঁপতে লাগলেন।
এদিকে রাজবেশধারী ভগবান বিশ্ববিমোহিনীকে
নিয়ে চলে গেলেন।
নারদের অস্থির মতি লক্ষ্য করে শিবের অনুচর
বলল, “ঠাকুর, দর্পণে একবার নিজের মুখটা দেখ।”
নারদ তখন স্থির জলে নিজ প্রতিবিম্ব দেখে আঁতকে উঠলেন। আরে! এ-
তো বাদরের মুখ। নারদ ক্রোধে জ্বলে
উঠলেন। নারদ অহর্নিশি যাঁর নাম গুণগান করে, সেই পরমেশ্বর কিনা
নারদকে ছলনা করলেন! তিনি তক্ষুণি
বৈকুণ্ঠের দিকে ছুটলেন।
পথেই শ্রী ভগবানের দর্শন পেলেন। সঙ্গে
ল²ী এবং বিশ্ববিমোহিনী। নারদ ক্রোধে থর থর করে কাঁপতে কাঁপতে
বললেন, “তুমি পরের ভালো দেখতে পার
না। তুমি হিংসুক!
কপট! সমুদ্র মন্থনে উৎপন্ন বিষ তুমি সরলমতি
শিবকে পান করিয়েছিলে। আর কৌস্তভমণি ও ল²ীকে নিয়ে তুমি বৈকুণ্ঠে চলে গেলে। তোমার মতো কুটিল স্বভাব ও স্বার্থপর আর দ্বিতীয় কেউ নেই। তোমাকে শাসন করার কেউ নেই। তাই যা ইচ্ছা তা-ই কর। আমি তোমাকে অভিশাপ দিচ্ছি, যে বিরহে
আমি জ্বলছি, সেই বিরহে তুমিও কাতর হবে।
আর যে মর্কট মুখ আমাকে দিয়ে ছলনা করেছ, সেই বাঁদরই তোমার সহায়তাকারী বন্ধু হবে। শ্রীভগবান ভক্তের অভিশাপ মাথা
পেতে নিলেন। আর তখনই নারদের উপর
আরোপিত মায়াজাল অপসারিত করলেন। নারদ সম্বিত ফিরে পেয়ে দেখলেন, ললী বা বিশ্ববিমোহিনী কেউ কোথাও নেই। নারদ
অপরাধ বুঝতে পেয়ে শ্রীভগবানের কাছে
ক্ষমা ভিক্ষা করলেন। ভগবান বললেন, “তুমি শ্রীশঙ্করের শরণ নাও, তাহলে শান্তি পাবে। যাও, আমি রাম অবতারে পৃথিবীতে লীলা করবো।
সীতা বিরহে কাতর হব এবং বানর সেনার
সাহায্যে সীতা উদ্ধার করব। তুমি আমার পরম
ভক্ত, তোমার অভিশাপের মর্যাদা আমি রাখব।
তোমাকে শিক্ষা দেওয়ার জন্যই তোমার অহঙ্কার চুর্ণ করার জন্যই আমি মায়ার দ্বারা তোমাকে মোহাচ্ছন্ন করেছিলাম।”

অনুবাদক ঃ সাংবাদিক ও লেখক রাজিব শর্মা
(উৎসঃ রামায়ণচরিত্র মানস)

http://www.anandalokfoundation.com/