ঢাকা
আজকের সর্বশেষ সবখবর

বেসরকারিকরণ কমিশন-বিনিয়োগ বোর্ড নিয়ে হচ্ছে বাংলাদেশ বিনিয়োগ উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ

admin
September 1, 2015 12:10 am
Link Copied!

স্টাফ রিপোর্টারঃ বেসরকারিকরণ কমিশন ও বিনিয়োগ বোর্ড (বিওআই) একীভূত করে বাংলাদেশ বিনিয়োগ উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ গঠনে আইনের খসড়া নীতিগত অনুমোদন দিয়েছে মন্ত্রিসভা।

সচিবালয়ে সোমবার মন্ত্রিপরিষদ কক্ষে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে মন্ত্রিসভা বৈঠকে ‘বাংলাদেশ বিনিয়োগ উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ আইন, ২০১৫’ এর খসড়া নীতিগত অনুমোদন দেওয়া হয়। বৈঠক শেষে মন্ত্রিপরিষদ সচিব মোহাম্মদ মোশাররাফ হোসাইন ভূইঞা প্রেস ব্রিফিংয়ে এ অনুমোদনের কথা জানান। তিনি বলেন, ‘বেসরকারিকরণ কমিশন গঠনের পর প্রত্যাশা অনুযায়ী কাজ করতে পারেনি। এ প্রেক্ষাপটে সরকার বেসরকারিকরণ কমিশন ও বিনিয়োগ বোর্ড একীভূত করার নীতিগত সিদ্ধান্ত নেয়।

বাংলাদেশ বিনিয়োগ উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ হবে বিনিয়োগ বোর্ডের আধুনিক সংস্করণ। দুটি প্রতিষ্ঠান একীভূত হলেও কেউ চাকরিচ্যুত হবেন না জানিয়ে মন্ত্রিপরিষদ সচিব বলেন, ‘বিনিয়োগ বোর্ডে ২৯৩ ও বেসরকারিকরণ কমিশনে ৭০ লোকবল রয়েছে। একীভূত করে নতুন প্রতিষ্ঠানের জনবল হবে ৩৬৩ জন। সবাই নতুন প্রতিষ্ঠানের কর্মী হিসেবে বিবেচিত হবেন। মন্ত্রিপরিষদ সচিব বলেন, ‘১৯৮৯ সালের বিনিয়োগ বোর্ড আইন অনুযায়ী বিনিয়োগ বোর্ড প্রতিষ্ঠিত হয়। বিনিয়োগ বৃদ্ধি করাই হচ্ছে এর প্রধান কাজ। এ জন্য তারা প্রমোশনাল কাজ করে। কোন কোন ক্ষেত্রে তারা রেগুলেটরি কাজও করে। তারা রেজিস্ট্রেশন, পরামর্শ, অনুমোদন, ইউটিলিটি সেবাসহ ওয়ানস্টপ সার্ভিসের কাজ করে। এ ছাড়া বিনিয়োগের ব্যাপারে তারা সরকারকে পলিসি অ্যাডভাইস দেয়।

একটি পরিচালনা বোর্ডের নির্দেশ অনুযায়ী বিনিয়োগ বোর্ড পরিচালিত হয়, যে বোর্ডের প্রধান হচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী। বোর্ডের চিফ এক্সিকিউটিভ অফিসার হচ্ছেন নির্বাহী চেয়ারম্যান। অপরদিকে, ১৯৯৩ সালে মন্ত্রিসভার রেজুলেশন বলে বেসরকারিকরণ বোর্ড গঠিত হয়। এরপর ২০০০ সালে প্রাইভেটাইজেশন আইনের বলে বোর্ড বিলুপ্ত হয়ে বেসরকারিকরন কমিশন গঠিত হয়। প্রাইভেটাইজেশন কমিশনে একজন চেয়ারম্যান আছেন, দু’জন সার্বক্ষণিক সদস্য আছেন। কয়েকজন খন্ডকালীন সদস্য আছেন বলে জানান তিনি।

মোশাররাফ হোসাইন বলেন, ‘প্রাইভেটাইজেশন কমিশনের প্রধান কাজ ছিল সরকারি অলাভজনক প্রতিষ্ঠানগুলো চিহ্নিত করে বিক্রি করে দেওয়া। কিন্তু কাজটি খুব বেশি এগোতে পারেনি। ১৫ বছরে এর কার্যক্রম প্রত্যাশিত মাত্রায় আমরা দেখতে পাচ্ছি না। ১৯৯৩ সাল থেকে এ পর্যন্ত মাত্র ৫৮টি সরকারি প্রতিষ্ঠান বেসরকারিকরণ হয়েছে। ২৩টি প্রতিষ্ঠানের সরকারি শেয়ার অফলোড করা হয়েছে। গত ৪ বছরে তারা মাত্র একটি প্রতিষ্ঠান প্রাইভেটাইজ (ব্যক্তি মালিকানায় হস্তান্তর) ও একটি প্রতিষ্ঠানের শেয়ার অফলোড করতে পেরেছে। নতুন প্রতিষ্ঠানের বিভিন্ন দিক তুলে ধরে মন্ত্রিপরিষদ সচিব বলেন, ‘বিনিয়োগ উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের গভর্নিং বোর্ড থাকবে। এ বোর্ডের প্রধান হবেন প্রধানমন্ত্রী, অর্থমন্ত্রী থাকবেন ভাইস চেয়ারম্যান। ১৭ সদস্যের এ গভর্নিং বোর্ডে শিল্পমন্ত্রী, বাণিজ্যমন্ত্রী, বিদ্যুৎ জ্বালানি ও খনিজ সম্পদমন্ত্রী, বস্ত্র ও পাটমন্ত্রী, পরিকল্পনামন্ত্রী ও কর্তৃপক্ষের নির্বাহী চেয়ারম্যান থাকবেন। তিনি বলেন, ‘কর্তৃপক্ষের প্রধান নির্বাহী হবেন চেয়ারম্যান। নির্বাহী পরিষদে চেয়ারম্যান ছাড়া আরো সর্বোচ্চ ছয়জন নির্বাহী সদস্য থাকতে পারবেন। তারা সরকার থেকে আসতে পারেন বা বাইরে থেকে উপযুক্ত কাউকে সরকার নিয়োগ দিতে পারেন।

বিনিয়োগ উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ বেসরকারি খাতে প্রতিষ্ঠিত সকল শিল্প-প্রতিষ্ঠান, বিদেশী বাণিজ্যিক লিয়াজো ব্রাঞ্চ ও রিপ্রেজেন্টেটিভ অফিস নির্ধারিত পদ্ধতিতে নিবন্ধন করবে জানিয়ে মন্ত্রিপরিষদ সচিব বলেন, ‘বাংলাদেশ রফতানি প্রক্রিয়াকরণ এলাকা কর্তৃপক্ষ (বেপজা), বাংলাদেশ অর্থনৈতিক অঞ্চল কর্তৃপক্ষ (বেজা) ও বেসরকারি ইপিজেড, বিসিকের বিনিয়োগ, হাইটেক পার্কের বিনিয়োগের বিষয়গুলো কর্তৃপক্ষের আওতার মধ্যে থাকবে না। এ ছাড়া বিভিন্ন মন্ত্রণালয়ের আওতাধীন শিল্প প্রকল্পগুলো এ প্রতিষ্ঠানের আওতায় আসবে না বলেও জানান তিনি। নির্ধারিত ফরম পূরণ ও পদ্ধতি অনুসরণ করে কর্তৃপক্ষ আবেদন বিবেচনা করে আমদানি স্বত্ত্ব নির্ধারণ ও সে অনুযায়ী ছাড়পত্র দেবে। কর্তৃপক্ষ গেজেট বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে কোনো নির্দিষ্ট এলাকাকে শিল্প এলাকা হিসেবে ঘোষণা করতে পারবে। নিবন্ধিত কোনো শিল্প প্রতিষ্ঠানের জন্য জমি অধিগ্রহণে সহযোগিতা দেবে কর্তৃপক্ষ’ বলেন মন্ত্রিপরিষদ সচিব। নতুন কর্তৃপক্ষ সরকারি শিল্প প্রতিষ্ঠানের অব্যবহৃত জমির তালিকা তৈরি ও নীতিমালা করবে জানিয়ে মোশাররাফ হোসাইন বলেন, ‘প্লট তৈরি করবে। এরপর হস্তান্তর ও বরাদ্দের মাধ্যমে এগুলো ব্যবহারের অনুমতি দেবে। কিভাবে এ জমি বরাদ্দ দেওয়া হবে সে গাইডলাইন আইনে আছে। বিনিয়োগ বোর্ড বর্তমানে একটি ওয়ান স্টপ সার্ভিস পরিচালনা করছে জানিয়ে মন্ত্রিপরিষদ সচিব বলেন, ‘কর্তৃপক্ষ এটা আরো কার্যকরভাবে পরিচালনা করবে। এক্ষেত্রে একটি আন্তঃমন্ত্রণালয় কমিটিও থাকবে। মোশাররাফ হোসাইন বলেন, ‘সরকার অনুভব করছে, আমাদের যে শিল্প-কারখানাগুলো বন্ধ আছে, এর মধ্যে যেগুলো লাভজনকভাবে চালানো সম্ভব সেগুলো চালানো হবে। এ ছাড়া অব্যবহৃত জায়গাগুলো অধিকতর অর্থনৈতিকভাবে লাভজনক কাজে লাগানো যায় সে ব্যবস্থা করবে— এটাই সরকারের পলিসি। এ প্রেক্ষাপটে সরকারের নীতিগত সিদ্ধান্ত হয়েছিল বিনিয়োগ বোর্ড ও প্রাইভেটাইজেশন কমিশনকে একীভূত করে নতুন প্রতিষ্ঠান গড়ে তোলা। মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের একটি কমিটি নতুন প্রতিষ্ঠানের জন্য খসড়া আইন ও জনবল কাঠামোর খসড়া করে দিয়েছে, সেটিকে ভিত্তি ধরে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় আইনটি চূড়ান্ত করে মন্ত্রিসভা বৈঠকে পাঠিয়েছে বলে জানান মন্ত্রিপরিষদ সচিব।

http://www.anandalokfoundation.com/