ঢাকা
আজকের সর্বশেষ সবখবর

বৃষ্টিভেজা পশুর হাটে ক্রেতা-বিক্রেতার চরম দুর্ভোগ

admin
September 23, 2015 11:16 pm
Link Copied!

বিশেষ প্রতিবেদকঃ কোরবানি উপলক্ষে জমে উঠেছে রাজধানীর গবাদি পশুর হাট। হাটে রয়েছে ছোট, বড়, মাঝারি আকারের  দেশি-বিদেশি গরু। তবে এ বছর  ছোট প্রজাতির নেপালি গরুর চাহিদা  বেশি বলে জানিয়েছে পশু বিক্রেতারা।  ক্রেতাদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, তারা ছোট বা মাঝারি আকারের গরু কিনতেই  বেশি আগ্রহী। এদিকে, বুধবারও বার দুয়েক বৃষ্টি হয়েছে। এতে করে চরম দুর্ভোগে পড়েছেন  ক্রেতা-বিক্রেতা ও  কোরবানির পশু।পানিতে ভেজার কারণে অনেক গরু কাবু হয়ে  গেছে। এছাড়া কাদার মধ্যে দাঁড়িয়ে থাকার কারণে গরুর পায়েও সমস্যা  দেখা দিচ্ছে বলে জানিয়েছেন বিক্রেতারা। কাদা-পানিতে একাকার অবস্থা রাজধানীর অন্য পশুর হাটগুলোরও।

ঘণ্টার পর ঘণ্টা বৃষ্টিতে ভিজে, কাদায় দাঁড়িয়ে ও শুয়ে থাকতে থাকতে পশুগুলো অসুস্থ হয়ে পড়ছে।গতবারের তুলনায় কোরবানির পশুর দাম এবার  বেশি বলে  ক্রেতারা অভিযোগ করলেও মন ভালো নেই বিক্রেতাদের; ঈদের দুই দিন আগে রাজধানীর হাটগুলোতে তাদের বিক্রি বাড়ার আশায় বার বার বাদ সাধছে বৃষ্টি।বুধবার সকাল  থেকে হাটে  ক্রেতাদের আনাগোনা বাড়লেও পানি-কাদা আর পশুর মলমূত্রে মাখামাখি হতে হচ্ছে তাদের। স্বচ্ছন্দ্যে পছন্দের পশুটি কিনবেন, তার উপায়  নেই।আরও একদিন হাতে এবং দাম কমার আশায় অনেকেই শুধু দরদাম করে ফিরে গেছেন। বিক্রি যা হচ্ছে, তাতে বিক্রেতাদের হতাশা কাটছে না। কুষ্টিয়ার মিরপুর  থেকে জাফর আহমেদ ও তার ভাগ্নে রাহেম উদ্দিন ১২টি গরু নিয়ে গত শনিবার গাবতলী হাটে এসেছেন।হাটের উত্তর পাশে ভালো জায়গায় গরু রাখতে পারলেও এখন পর্যন্ত তাদের গরু বিক্রি হয়েছে তিনটি। এর মধ্যে একটি নয় লাখ, একটি সাড়ে তিন লাখ এবং একটি দুই লাখ টাকায় বিক্রি করেছেন।গত বছরের তুলনায় দাম  বেশি  পেলেও সন্ত্রষ্ট হতে পারছেন না জাফর।

আমরা এই দামে পোষাতে পারতেছি না। গরুর খাবারের দাম তো বাড়ছে। তিনটা বিক্রি করছি লসে। একটা গরুও বিক্রি হবি না, এইটা  ভেবেই  বেঁচে দিয়েছি।বুধবার রাজধানীর গাবতলী পশুর হাটে গিয়ে  দেখা  গেছে  নেপালি গরুর প্রতিই বেশি আগ্রহ  ক্রেতাদের। ছোট-খাটো আকারের নেপালি গরুগুলোর দাম মধ্যবিত্ত এবং নিম্নমধ্যবিত্তের নাগালের মধ্যে থাকায় এসব গরুর প্রতি ঝুঁকছে ক্রেতারা।ঝিনাইদহের কালিগঞ্জের গরু বিক্রেতা খাদননন্দ্র রায় ছোট-মাঝারি মিলিয়ে ১৭টি  নেপালি গরু এনেছেন হাটে। বৃষ্টি-বাদলের কারণে গত  সোমবার পর্যন্ত  তেমন বেচা-বিক্রি না হলেও গতকাল  থেকে বিক্রি  বেড়েছে বলে জানান এ বিক্রেতা।

তিনি বলেন, গরুর দাম কম-বেশি যাই  হোক, গতকাল  থেকে বাজারের অবস্থা ভালো।  ছোট ও মাঝারি সাইজের গরু বেশি বিক্রি হচ্ছে।বিক্রেতার সঙ্গে গরু দরদাম করছিলেন মিরপুর -৬ নম্বর  থেকে আসা মো. ফরহাদ আলম। কি ধরনের গরু কিনবেন জানতে চাইলে তিনি বলেন, গরুর বাজার চড়া। এত দাম দিয়ে গরু কেনাই কঠিন। তাই ঠিক করেছি ছোট অথবার মাঝারি আকারের গরু কিনবো। নেপালি গরু দরদাম করে  দেখছি। বাজেটের মধ্যে পছন্দমত গরু পেলেই কিনে  ফেলবো।হাট  থেকে গরু কিনে ফিরছিলেন কল্যাণপুরের জুবায়ের। তিনি বলেন, ব্যাবসায়ীরা ইনজেকশন দিয়ে গরু  মোটাতাজা করে।  সেসব গরুর দামও অনেক  বেশি। তাই আগে থেকেই সিদ্ধান্ত নিয়েছিলাম এবার বড় গরু না কিনে  ছোট  দেখে দুইটা গরু কিনবো। গতকাল ৪৮ হাজার টাকায় একটি নেপালি গরু কিনেছি। আজ আরেকটা কিনলাম, এইটার দাম পড়ছে ৫১ হাজার টাকা।

কুষ্টিয়ার গরু বিক্রেতা আজিজ জানায়, এ বছর তিনি ২৩টি  নেপালি গরু এনেছেন হাটে। ১২টি গরু ইতোমধ্যে বিক্রি হয়ে  গেছে।এ বিক্রেতা জানান, কুষ্টিয়ার  বেশির ভাগ বেপারি হাটে  নেপালি গরু এনেছেন। কেউ কেউ সরাসরি  নেপাল  থেকে এসব গরু আমদানি করে থাকেন। তবে  দেশেও ক্রস প্রজাতির নেপালি গরু উৎপাদন করা হয়।  সেগুলো  দেখতে অনেকটা দেশি গরুর মতই, তবে কান একটু বেশি লম্বা।গাবতলী গবাদি পশুর হাটের ১ নম্বর হাসিল ঘরে দায়িত্বরত এক কর্মী জানান,  বৈরী আবহাওয়া কিছুটা প্রভাব  ফেললেও পশুর হাট ক্রমেই জমে উঠছে। বড় আকারের গরুর চেয়ে মাঝারি ও ছোট আকারের নেপালি গরু  বেশি বিক্রি হচ্ছে।হাটের প্রধান  গেটে তল্লাসির দায়িত্বে থাকা  মো. সুমন এ ব্যাপারে বলেন, ‘সব ধরনের পশু ভালো বিক্রি হচ্ছে। গত কয়েকদিনের অভিজ্ঞতায় বলতে পারি ছোট ও মাঝারি ধরণের গরুই বেশি যাচ্ছে।রাজধানীর মোহাম্মদপুর জাপান গার্ডেন সিটি এলাকা  থেকে গাবতলী পশুর হাটে গরু কিনতে এসেছেন আরিফ জামান। সঙ্গে নিয়ে এসেছেন বড়  ছেলে রাফি বিন জামানকে। হাটে বাপ ও ছেলে দু’জনে বৃষ্টির কাদাপানি থেকে নিজেদের রক্ষা করতে হাঁটু পযর্ন্ত কালো গামবুট পরে এসেছেন।

গামবুট পরে হাটে আসা প্রসঙ্গে রাফি বিন জামান বলেন, হাটের যে অবস্থা তাতে নিজেকে কাদা-পানি  থেকে রক্ষা করতে এছাড়া কোনো উপায় নেই।হাটের প্রায় সব স্থানেই হাঁটু কাদা। এছাড়া বৃষ্টির পানি জমে আছে সর্বত্রই। গাবতলী হাটের সড়কগুলোতে পায়ে হেঁটে চলাফেরা করা মুশকিল। এছাড়া সামান্য বৃষ্টির পানি হলে নিরাপদে দাঁড়ানোর কোনো ব্যবস্থাও  নেই এখানে।হাজী আমিনুল ইসলাম (৫৫) মিরপুর-১ নম্বর থেকে কোরবানির পশু কিনতে এসেছেন গাবতলীতে। কিন্তু হাটের পরিস্থিতি দেখে অতিষ্ট তিনি।

আমিনুল বলেন, হাটে পায়ে হাঁটার কোনো উপায় নেই। চারিদিকে খিচ (কর্দমাক্ত) পানি। বৃষ্টি আসলে যে কোথাও দাঁড়াব সেই অবস্থাও নেই।শুধু মানুষ নয়, চরম দুর্ভোগে পড়েছে অবলা পশুগুলোও।  কোরবানির পশু পানিতে ভিজলেও খাবার পানির সংকট তৈরি হয়েছে। প্রতি বালতি পানি ১০ টাকা দরে কিনতে হচ্ছে বেপারিদের।  সেটারও সংকট হাটে।কুষ্টিয়া  দৌলতপুরের হাশেম বেপারি বলেন, গরু পানিতে ভিজিছে তো, খাবার পানি নাই, ক্যাবা লাগে (কেমন) কনতো?পানিতে ভেজার কারণে অনেক গরু কাবু হয়ে গেছে। এছাড়া কাদার মধ্যে দাঁড়িয়ে থাকার কারণে গরুর পায়েও সমস্যা দেখা দিচ্ছে বলে জানিয়েছেন বিক্রেতারা। কাদা-পানিতে একাকার অবস্থা রাজধানীর অন্য পশুর হাটগুলোরও। ঘণ্টার পর ঘণ্টা বৃষ্টিতে ভিজে, কাদায় দাঁড়িয়ে ও শুয়ে থাকতে থাকতে পশুগুলো অসুস্থ হয়ে পড়ছে।পাবনার  বেড়া উপজেলার গরু বিক্রেতা জয়নাল বলেন, আমার অনেক শখের গরু। এদের মানুষের মতো পালা লাগিচে। কোনো দিন বৃষ্টিতে গরু ভিজেনি। বড় আদরের গরু আমার। হাটে আইসে বৃষ্টিতে ভিজে গরু কাবু হইয়া গ্যাছে। কাদা পানিতি গরুর পায়ে মনে হয় ঘাঁ হইচে।এছাড়া উত্তরা ১১ ও ১৩ নম্বর সেক্টরের সোনারগাঁ জনপদ অস্থায়ী পশুর হাটসহ অন্যান্য হাটেও দুর্ভোগের শিকার হচ্ছেন ক্রেতা-বিক্রেতারা। এদের সঙ্গে কোরবানির পশুর দুর্ভোগও চরমে। আর একদিন বাদেই কোরবানির ঈদ। তবে  বুধবার দুপুর পর্যন্ত রাজধানীর অন্যতম প্রধান পশুর হাট গাবতলী ছিল ক্রেতা খরায়। স্বভাবতই গরু বিক্রেতাদের মন একটু খারাপ। তাই বলে তাঁরা যে দাম ছেড়ে দিয়েছেন, তা নয়। তাঁরা গরুর দাম ধরে রেখেছেন। তাঁদের আশা, সন্ধ্যা  থেকে হাট জমতে শুরু করবে,  বেচা-বিক্রি বাড়বে।

পশুর কমতি না থাকলেও  সকাল  থেকে দুপুর পর্যন্ত গাবতলীর পশুর হাটে  ক্রেতার ভিড় ছিল না বললেই চলে। তবে দুপুরের পর  থেকে  ক্রেতা বাড়তে শুরু করেছে। বিক্রেতারা বলছেন, আজ সকাল থেকে আবহাওয়া কিছুটা  বৈরী হওয়ায় ক্রেতা কম। এখনো হাট জমে ওঠেনি। আজ ঈদের আগে  শেষ কর্মদিবস। অফিস শেষে সন্ধ্যায় ক্রেতারা ভিড় জমাবেন।

পাবনা  থেকে ১৭টি গরু নিয়ে গত শুক্রবার গাবতলী হাটে এসেছেন  মোহাম্মদ খলিল। তিনি জানালেন, গতকাল পর্যন্ত মাত্র দুটি গরু বিক্রি হয়েছে। তাঁর সবচেয়ে বড় গরুটির দাম হেঁকেছেন আট লাখ টাকা। গত শনিবার একজন ক্রেতা সাড়ে ছয় লাখ টাকা দাম বলেছিলেন। এরপর আজ দুপুর পর্যন্ত কেউ গরুটি নিয়ে দামাদামি করেনি। সবাই শুধু দাম জিজ্ঞাসা করে চলে যায়।কুষ্টিয়া  থেকে ১০টি গরু নিয়ে গত শনিবার গাবতলী এসেছেন রহমত আলী। এরই মধ্যে চারটা বিক্রি করেছেন। তাঁর মতে, এবার বেচা-বিক্রি ভালো হচ্ছে না। আজ বিকেলের পর  থেকে মানুষ গরু কেনা শুরু করবে। একই এলাকার জাহিদ বলেন, বুধবার সকাল  থেকেই হাট জমে উঠবে বলে তাঁদের ধারণা ছিল। কিন্তু বৃষ্টি হওয়াতে  সেটি হয়নি।আর একদিন পর কোরবানির ঈদ। তবে আজ মঙ্গলবার দুপুর পর্যন্ত রাজধানীর অন্যতম প্রধান পশুর হাট গাবতলী ছিল ক্রেতা খরায়। ক্রেতা কম হলেও বেচা-বিক্রি একেবারে যে হচ্ছে না, তা নয়। ক্রেতাদের অনেকের অভিযোগ, বিক্রেতারা গরুর দাম হাঁকছেন অনেক বেশি। তাঁরা দাম ধরে বসে আছেন।

মিরপুর  থেকে গরু কিনতে হাটে এসেছিলেন কামাল আহমেদ। তিনি বললেন, প্রায় দুই ঘণ্টা ঘুরেছেন। কিন্তু তাঁর বাজেট মতো গরু মিলছে না। এখনো একদিন বাকি থাকায় বিক্রেতারা দাম ধরে বসে আছেন।বিক্রেতাদের অনেকে আবার এই যুক্তি মানতে নারাজ। ঝিনাইদহের শওকত আলী ব্যাপারী একটি গরু  দেখিয়ে কসম কেটে বললেন, গরুটির  পেছনে তাঁর খরচ হয়েছে ৯১ হাজার টাকা। কিন্তু এখন পর্যন্ত দাম উঠেছে সর্বোচ্চ ৮০ হাজার টাকা। ক্রেতা-বিক্রেতার পাল্টাপাল্টি অভিযোগের মধ্যেও  থেমে নেই বেচা-বিক্রি। যাঁরা গরু বা ছাগল কিনে ফেলেছেন, তাঁদের মুখে বিজয়ের হাসি।  তেমনই একজন ষষ্ঠ শ্রেণির ছাত্র ফারহান। গরু কেনার খবরটি উত্তেজিত হয়ে ফোনে কাউকে জানাচ্ছিল  সে। ফারহান জানাল, এর আগেও সে গরুর হাটে এসেছে। কিন্তু এবার প্রথম সে বাবার সঙ্গে পছন্দ করে গরু কিনেছে।জাফর এখন তার সবচেয়ে বড় গরুটির দাম হাঁকচ্ছেন সাড়ে ৪ লাখ টাকা।এই গরুটা দেড় লাখ টাকা দিয়া এক বছর আগে কিনছি। এক বছরে খাবারেই খরচ গেছে এক লাখ টাকা। এর  পেছনে মানুষ খাটছে। চাইর লাখ টাকায় যদি বেচতে না পারি, তাইলে  পোষাব কেমনে?নিজের পালা পাঁচটি গরু নিয়ে এই হাটে এসেছেন সিরাজগঞ্জের তাড়াশ উপজেলার সগুনা ইউনিয়নের সগির  হোসেন।তিনি বলেন, আশা করছিলাম ৭০-৮০ হাজার টাকা করে গরু বিক্রি করব। কিন্তু মানুষ ৪০ হাজার টাকার বেশি আগায় না। বাজারে মানুষও কম।তবে শেষ পর্যন্ত ভারতীয় গরু না এলে ভালো দাম পাওয়া যাবে বলে আশা করছেন অনেক বিক্রেতা।কুষ্টিয়ার হরিনারায়ণপুর থেকে ছয়টি গরু নিয়ে আসা মহিউদ্দিন বলেন, আমরা তো দাম পাচ্ছি না বলে ছাড়ছি না। তবে এলসি (ভারতীয় গরু) যদি না চাপে (না আসে), তাইলে পরে সব গরু বিক্রি হয়ে যাবে।

গাবতলী  থেকে ১ লাখ ২০ হাজার টাকায় গরু কিনে  ফেরার সময় মিরপুরের ব্যবসায়ী রফিকুল ইসলাম বলেন, ব্যবসা রেখে তো প্রতিদিন আসা যায় না। তাছাড়া আজ কাদা মাড়িয়েছি, তাই আজই কিনে নিলাম।এবার গরুর দাম চড়া মন্তব্য করে তিনি বলেন, এ ধরনের গরু গত বছর ৮০-৯০ হাজার টাকায় পাওয়া  গেছে।গরুর বাজারে ক্রেতা-বিক্রেতা হতাশার মধ্যেও খাসির দাম নিয়ে সন্তোষ প্রকাশ করেছেন কয়েকজন বিক্রেতা।২০ হাজার টাকায় একটি খাসি বিক্রির পর বিক্রমপুর থেকে আসা ইয়াসিন আলী জানান, এতে ২৫-৩০  কেজি মাংস হতে পারে।তবে  ক্রেতাদের চড়া দামের অভিযোগ খাসিতেও রয়েছে। পশুর দরদাম নিয়ে কথার মধ্যে বিক্রেতারা হাটের ব্যবস্থাপনা নিয়েও নানা অভিযোগ তুলে ধরেন।পাবনার ভাঙ্গুরা  থেকে আসা  মেশকাত হোসেন পাশে গো-খাদ্যের বস্তার উপর ঘুমিয়ে থাকা ভাইকে দেখিয়ে বলেন,  দেখেন আমরা ক্যামনে ঘুমাই। থাকা, খাওয়া, বাথরুম- এগুলাতো কেয়ামতের ময়দানের মতো অবস্থা। সরকার, ইজারাদার কেউ দেখে না।অভিযোগের বিষয়ে কথা বলতে সকাল ৯টা  থেকে  বেলা ১টার মধ্যে তিন বার ইজারাদারের অফিসে গিয়েও কাউকে পাওয়া যায়নি।একই অবস্থা যাত্রাবাড়ীর দনিয়ার গোয়ালবাড়ি মোড়ে বর্ণমালা স্কুল সংলগ্ন হাটে। এই হাটের এক নম্বর কাউন্টারে হাট পরিচালনা কমিটির সদস্য  মো.ওসমান গনি বলেন, ভাই প্রকৃতির সঙ্গে যুদ্ধ করে হাট চালাচ্ছি। বৃষ্টির কারণে হাটে পানি জমে, সেগুলো সরানোর পাশাপাশি পশুগুলো  যেন সুস্থ থাকে ওই চেষ্টাও করছি।

এই হাটে ফরিদপুর  থেকে আসা গরুর ব্যাপারী সেলিম জানান, বৃষ্টির কারণে তাদের যেমন থাকার অসুবিধা হচ্ছে, তেমনি গরুগুলো অসুস্থ হয়ে পড়তে পারে বলে আশঙ্কায় আছেন।বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের কর্মকর্তা ফয়সাল আহমেদ বলেন, এ হাটেও অন্যবারের চেয়ে গরুর দাম ‘কিছুটা বেশি’ চাইছেন ব্যবসায়ীরা।তবে বাজারে যেহেতু গরু অনেক, তাই শেষ সময়ে দাম কমে যেতে পারে।কুষ্টিয়ার ব্যবসায়ী আলমগীর জানান, এবার ক্রেতারা দেশি ও ছোট জাতের গরু  বেশি  দেখছেন।ঈদের আগে ভারতীয় গরু এলে ব্যবসায়ীরা ক্ষতির মুখে পড়বেন বলে মনে করেন তিনি। মেরাদিয়ার হাটের ইজারাদার মো.আমিনুল ইসলাম মিঠু জানান, বুধবার  ক্রেতার সংখ্যা বেড়েছে, বাড়ছে বেচাকেনাও। তবে বৃষ্টির কারণে নাকাল হচ্ছেন সবাই।জামালপুর থেকে আসা হারিছ বলেন, বৃষ্টির কারণে পশুর অনেক সমস্যা হচ্ছে। ত্রিপল টাঙানো হলেও বৃষ্টির সময় গরুগুলোকে হাটের আশপাশের শুকনা জায়গায় নেওয়ার চেষ্টা করি। হাটের শুরুর দিকে ক্রেতা না থাকলেও বুধবার দুপুরের আগে লোকজনের আনাগোনা শুরু হয়েছে জানিয়ে তিনি বলেন, তারা এখনো গরু দেখছেন, কেনা শুরু করেননি।এভাবে বৃষ্টি চলতে থাকলে  বেচাকেনায় ভাটা পড়বে না বলে মনে করেন তিনি ।

http://www.anandalokfoundation.com/