13yercelebration
ঢাকা
আজকের সর্বশেষ সবখবর

বীরাঙ্গনা রমা চৌধুরীর ৮১তম জন্মবার্ষিকী আজ

ডেস্ক
October 14, 2022 7:12 am
Link Copied!

বাংলাদেশের স্বাধীনতা যুদ্ধে নির্যাতিত, একাত্তরের জননী, লেখক, বীরাঙ্গনা রমা চৌধুরী। যাঁদের ত্যাগের বিনিময়ে আমরা মহান স্বাধীনতাকে পেয়েছি রমা চৌধুরী তাদেরই একজন। আজ বীরাঙ্গনা রমা চৌধুরীর জন্মদিন। ১৯৪১ সালের ১৪ অক্টোবর তিনি বোয়ালখালীর পোপাদিয়া ইউনিয়নে জন্মগ্রহণ করেন। আজ তার ৮১ তম জন্মবার্ষিকী।

তিনি ১৯৬১ সালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে বাংলা ভাষা ও সাহিত্যে স্নাতকোত্তর ডিগ্রি অর্জন করেন। রমা চৌধুরী ১৯৬২ সালে কক্সবাজার বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ে প্রধান শিক্ষিকার দায়িত্ব পালনের মধ্য দিয়ে কর্মজীবন শুরু করেন। পরে দীর্ঘ ১৬ বছর তিনি বিভিন্ন উচ্চ বিদ্যালয়ে প্রধান শিক্ষিকার দায়িত্ব পালন করেন। এরই মধ্যে আসে উনিশো একাত্তর, স্বাধীনতা যুদ্ধ।

১৯৭১ সালে যখন মুক্তিযুদ্ধ শুরু হয় তখন তিনি চট্টগ্রামের বোয়ালখালীর বিদুগ্রাম উচ্চবিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষিকা হিসেবেই কমরত ছিলেন। মুক্তিযুদ্ধ রমা চৌধুরীর সামনে মূর্তিমান আতংক হয়ে দাঁড়ায়। এই সময় তাঁর স্বামী তাঁকে ছেড়ে দেশান্তরী হয়ে যান। দুই সন্তানকে নিয়ে রমা চৌধুরী পৈতৃক ভিটা পোপাদিয়ায় বসবাস শুরু করেন।

১৯৭১ সালের ১৩ মে তিনি পাকিস্তানি সেনাবাহিনীর হাতে নিজ বাড়িতে নির্যাতনের শিকার হন। তাঁর উপর চালায় শারীরিক নির্যাতন। সম্ভ্রম হারানোর পর পাকিস্তানি দোসরদের হাত থেকে পালিয়ে পুকুরে নেমে আত্মরক্ষা করেছিলেন। সেই দিনকার ভয়ঙ্কর সেই চিত্রের যে বর্ণনা তিনি তাঁর ‘একাত্তরের জননী’ গ্রন্থে লিখেছেন তা সত্যিই লোমহর্ষক। তা কখনোই ভোলার নয়।
সেখানে তিনি লিখেছেন, ‘যখন আমাকে নির্যাতন করতে উদ্যত হলো পাক সেনা, তখন জানালার পাশে দাঁড়ানো আমার মা ও দুই ছেলে বারবার আকুতি করছিলেন। ছিল আমার পোষা বিড়াল কনুও। তখন আমি মাকে আমার সন্তানদের নিয়ে সরে যেতে বলেছিলাম।’

মুক্তিযুদ্ধের উত্তাল সময়ে তাঁর ছেলে সাগর ছিল সাড়ে পাঁচ বছরের। দুরন্ত সাগর মিছিলের পেছনে পেছনে ‘জয় বাংলা, জয় বাংলা’ বলে ছুটে বেড়াত। রোদে পুড়ে বৃষ্টিতে ভিজে একসময় সাগর নিউমোনিয়ায় আক্রান্ত হয়ে ১৯৭১ সালের ২০ ডিসেম্বর মারা যায়। সাগরের মৃত্যুর ১ মাস ২৮ দিনের মাথায় ৩ বছরের ‍টগরও মারা যায়। ছেলেদের হিন্দু সংস্কারে না পুড়িয়ে তিনি মাটি চাপা দেন। দুই সন্তানের দেহ মাটিতে আছে বলে রমা চৌধুরী জুতা পড়া বন্ধ করে দেন। ছেলেদের মৃত্যুর স্মৃতি কখনোই তিনি ভুলতে পারেননি। খালি পায়ে হাঁটতে হাঁটতে একসময় তাঁর পায়ে ঘা হয়ে যায়। আত্মীয়স্বজনদের অনেক অনুরোধে তিনি অনিয়মিতভাবে তখন জুতা পড়া শুরু করেন। পর পর দুইটি সন্তান হারিয়ে রমা চৌধুরীর প্রায় পাগলের মতো হয়ে গিয়েছিলেন। সন্তান হারানোর কষ্ট যে কতটা কঠিন তা একমাত্র মা’ই জানেন। সেই কঠিন সময়ও তিনি পার করেছেন। প্রিয় সন্তানদের শোক তাকে ভয়ানক কাতর করে তোলে।

প্রথম সংসারের পরিসমাপ্তি ঘটলে রমা চৌধুরী দ্বিতীয় বারের মতো সংসার বাঁধার স্বপ্ন দেখেন। দ্বিতীয় বার সংসার বাঁধতে গিয়ে প্রতারণার শিকার হন। দ্বিতীয় সংসারের ছেলে টুনু ১৯৯৮ সালের ১৬ ডিসেম্বর বোয়ালখালীর কানুনগোপাড়ায় সড়ক দুর্ঘটনায় মারা যায়। টুনুর মৃত্যুর পর রমা চৌধুরী একেবারের মতো জুতা ছেড়ে দেন।

শেষ বয়সের বেশ কটি বছর তিনি যাপন করেছেন একাকী জীবন। পরিবারের বাইরে। সময় কাটিয়েছেন লেখালেখি করে। বইগুলো তিনি ফেরি করে ফিরতেন। সংসার চালাতেন বই বিক্রির টাকায়। তাঁর প্রায় আঠারোটি প্রকাশিত গ্রন্থ রয়েছে। চট্টগ্রামস্থ লুসাই ভবনের ৪০৮ কক্ষটি ছিলো তার আবাসস্থল সাথে ছিলেন বেশকিছু বিড়াল। তার বিড়ালদেও আলাদা নাম ছিলো। তাদের নিয়ে বইও লিখেছেন। লেখালেখির পাশাপাশি তিনি একই সঙ্গে পরিচালনা করেছেন ‘দীপংকর স্মৃতি অনাথালয়’ নামের একটি অনাথ আশ্রম। প্রচণ্ড কষ্টের জীবন কাটলেও তাঁর দু’চোখে স্বপ্ন ছিল সুখ সমৃদ্ধ বাংলাদেশের।

সাধারণ জীবন-যাপন করা এ বীরাঙ্গনার সঙ্গে ২০১৩ সালে দেখা করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। সাক্ষাতের সময় রমা চৌধুরীকে ‘কি চান’ জিজ্ঞেস করেছিলেন প্রধানমন্ত্রী। কিন্তু তিনি কিছুই চাননি। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা তাঁকে সাহায্য করতে চেয়েছিলেন। তিনি গ্রহণ করেননি; বরং উল্টো তাঁকে উপহার দিয়ে এসেছিলেন নিজের লেখা একাত্তরের জননী গ্রন্থটি। তাঁকে সাহায্য করতে চেয়েছিলেন আরও অনেকেই। কিন্তু তিনি রাজি হননি, কারও দয়া-দাক্ষিণ্যে বাঁচতে শেখেননি।

তিনি মরণোত্তর ‘বেগম রোকেয়া পদক’সহ অনেক সম্মাননা পেয়েছেন।

২০১৮ সালের ৩ সেপ্টেম্বর ৭৬ বছর বয়সে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন তিনি।

http://www.anandalokfoundation.com/