ঢাকা
আজকের সর্বশেষ সবখবর

বিশ্ব বাজারে তেলের দাম বেশী থাকায় ভর্তুকি দিচ্ছে সরকার

admin
September 4, 2015 12:29 am
Link Copied!

বিশেষ প্রতিবেদকঃ আওয়ামী লীগ সরকার সব সময়ই ব্যবসাবান্ধব, ব্যবসায়ীবান্ধব। আমরা ব্যবসা-বাণিজ্যের প্রসারে পরিবেশ সৃষ্টি করি। নিজেরা ব্যবসা করি না, অর্থনীতির উন্নয়নে বাণিজ্য সম্প্রসারণের সুযোগ করে  দেই বলে মন্তব্য করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

বৃহস্পতিবার প্রধানমন্ত্রী  শেখ হাসিনার সঙ্গে ব্যবসায়ীদের শীর্ষ সংগঠন দ্য  ফেডারেশন অব বাংলাদেশ চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ড্রাস্ট্রির (এফবিসিসিআই) নব-নির্বাচিত নেতারা সাক্ষাৎ করতে এলে তিনি এসব কথা বলেন। এফবিসিসিআইয়ের সভাপতি আবুল মতলুব আহমদ ব্যবসায়ীদের পক্ষ  থেকে সরকারকে সব ধরনের সহায়তার আশ্বাস দেন। প্রধানমন্ত্রী কার্যালয়ে এ সৌজন্য সাক্ষাৎ অনুষ্ঠিত হয়। এফবিসিসিআই সভাপতি আবদুল মাতলুব আহমাদ প্রতিনিধি দলের নেতৃত্ব দেন। পরে প্রধানমন্ত্রীর প্রেস সচিব ইহসানুল করিম এ বিষয়ে সাংবাদিকদের অবহিত করেন।

অর্থমন্ত্রী জ্বালানি  তেলের দাম সমন্বয়ের আভাস এর আগে দিলেও তা যে হচ্ছে না, তা অনেকটাই স্পষ্ট হয়েছে প্রধানমন্ত্রী  শেখ হাসিনার কথায়।তিনি বলেন, আপনারা তো এই দামে অভ্যস্ত হয়ে  গেছেন। কারও তো অসুবিধা হওয়ার কথা না। তেলের দাম না কমিয়ে বাংলাদেশ  পেট্রোলিয়াম কর্পোরেশনের (বিপিসি) পুঞ্জিভূত লোকসানের পরিমাণ আরও কমিয়ে আনার পক্ষে মত দেন প্রধানমন্ত্রী।সর্বশেষ ২০১৩ সালে আন্তর্জাতিক বাজারের সঙ্গে মূল্য সমন্বয়ের সময় বাংলাদেশে জ্বালানি  তেলের দাম বাড়ানো হয়েছিল।  সেই হারে বর্তমানে প্রতি লিটার অকটেন ৯৯ টাকা,  পেট্রোল ৯৬ টাকা, কেরোসিন ও ডিজেল ৬৮ টাকায় বিক্রি হচ্ছে।

বিশ্ব বাজারে গত এক বছর ধরে জ্বালানি তেলের দরপতন চললেও ভর্তুকির  লোকসান  থেকে বাংলাদেশ পেট্রোলিয়াম করপোরেশনকে তুলতে দাম অপরিবর্তিত রাখে সরকার।তবে গত সপ্তাহে গ্যাস ও বিদ্যুতের দাম বাড়ানোর কয়েকদিন আগে অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত বলেছিলেন,  সেপ্টেম্বরে জ্বালানি তেলের মূল্য সমন্বয়ের পরিকল্পনা সরকারের আছে।কিন্তু পরিকল্পনামন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল বুধবার এক অনুষ্ঠানে তেলের দাম না কমানোর পক্ষে মত দেন।তিনি বলেন, আবারও যে কোনও মুহূর্তে আন্তর্জাতিক বাজারে তেলের দাম বেড়ে যেতে পারে। এখন কমিয়ে দিলে তখন আবার সরকারকে তেলের দাম বাড়াতে হবে। সরকারের পক্ষে এভাবে ঘন ঘন তেলের দাম পরিবর্তন করা কঠিন কাজ।

প্রধানমন্ত্রী বলেন,  কেউ কেউ বললেন, বিশ্ববাজারে  তেলের দাম কমে গেছে,  দেশের বাজারে কেন তেলের দাম কমানো হয় না।বিদেশ  থেকে বেশি দামে  তেল কিনে দেশের বাজারে ভর্তুকি দিয়ে কম দামে বিক্রি করার কথা মনে করিয়ে দিয়ে তিনি বলেন, বিশ্ববাজারে যখন তেলের দাম বেড়েছে, আমাদের কিন্তু ওই দামেই কিনতে হয়েছে। আর, এখানে আমরা দিয়েছি কম দামে। ফলাফল হচ্ছে, ৩৮ হাজার কোটি টাকার লায়াবিলিটিস।

বিশ্ববাজারে তেলের দাম কমে যাওয়ায় সরকার এখন কিছু অর্থ উপার্জন’ করতে পারছে মন্তব্য করে  শেখ হাসিনা ব্যবসায়ী  নেতাদের বলেন, তেলের দামটা কমার ফলে যেটা হচ্ছে, আমরা কিছুটা অর্থ উপার্জন করতে পারছি। ধীরে ধীরে আমরা দায় দেনাটা  শোধ দিতে পারছি।

তারপরও বিপিসির ২৯ হাজার কোটি টাকা পুঞ্জিভূত লোকসান রয়েছে জানিয়ে তিনি বলেন, এ পর্যন্ত খুব বেশি হয় নাই। মাত্র আট হাজার কোটি টাকার মতো আমি শোধ দিতে  পেরেছি। শেখ হাসিনা প্রশ্ন করেন, এই লায়াবিলিটিসটা কেন কাঁধে রাখব?অবশ্য পুঞ্জিভূত লোকসানের এই অর্থ ব্যবসায়ীরা দিয়ে দিলে সরকার তেলের দামও কমিয়ে দেবে বলে মন্তব্য করেন প্রধানমন্ত্রী।তিনি বলেন, যদি দিয়ে দেন, সবাই মিলে.. আমরা সাথে সাথে তেলের দাম কমিয়ে দেব।ব্যবসায়ীদের ব্যাংক ঋণের সুদের হার কমানোর পক্ষেও অনুষ্ঠানে কথা বলেন প্রধানমন্ত্রী।তিনি বলেন, সুদ হার একটা লিমিটে আনা হয়েছে। চেষ্টা করব, সিঙ্গেল ডিজিটে আনতে।মুসলিম  দেশগুলোতে হালাল মাংস রপ্তানির জন্য ব্যবসায়ীদের আরও উদ্যোগী হতে তাগিদ দেন  শেখ হাসিনা।গভীর সমুদ্রে  তেল-গ্যাস ও মৎস্য আহরণের সুযোগ সৃষ্টি হওয়ার কথা মনে করিয়ে দিয়ে প্রধানমন্ত্রী ব্যবসায়ী নেতাদের বলেন, গভীর সমুদ্রে মৎস্য আহরণে আগ্রহী হতে হবে দেশের অভ্যন্তরে নতুন বাজার সৃষ্টির জন্যও ব্যবসায়ীদের কাজ করতে বলেন তিনি।শুধু রপ্তানি নয়, অভ্যন্তরীণ বাজার সৃষ্টি করতে হবে। মানুষের ক্রয় ক্ষমতা যত বাড়বে, অভ্যন্তরীণ বাজার তত বাড়বে।সবাইকে আয়কর দিতে উৎসাহ দিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ট্যাক্স দিলে তো আপনাদের কাজেই লাগে। আপনারা যখন ইনসেনটিভ চান, তখন কোথা থেকে দেব?

সরকার ব্যাংক  লোনে সুদের হার সিঙ্গেল ডিজিটে নিয়ে আসতে চেষ্টা করছে বলে জানান প্রধানমন্ত্রী  শেখ হাসিনা। বলেন, ব্যবসা ও শিল্পায়নের প্রসারে ব্যাংক  লোনের সুদ কমিয়ে একটি নির্দিষ্ট সীমার মধ্যে নিয়ে আসার কথা।প্রধানমন্ত্রী ব্যবসায়ীদের রফতানি নির্ভর না হয়ে অভ্যন্তরীণ বাজার সৃষ্টিতেও জোর দিতে বলেন। মানুষের ক্রয় ক্ষমতা যত বাড়বে দেশিয় বাজার তত বড় হবে বলে উল্লেখ করেন তিনি। প্রধানমন্ত্রী ব্যবসায়ীদের বিশাল সমুদ্র সম্পদ ও গভীর সমুদ্রে মৎস্য আহরণে এগিয়ে আসার আহ্বান জানান।ব্যবসায়ীদের ট্যাক্স দিতে আরও উৎসাহী হওয়ার আহ্বান জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, এই ট্যাক্স ব্যবসায়ীদের সহযোগিতায় কাজে লাগবে। সরকার এ দিয়ে ব্যবসায়ীদের প্রণোদনা দিতে পারবে। জেলায় জেলায় বিশেষ অর্থনৈতিক অঞ্চল প্রতিষ্ঠায় সরকারের উদ্যোগের কথা তুলে ধরে শেখ হাসিনা বলেন, এ উদ্যোগ স্থানীয় বিনিয়োগ বৃদ্ধি করবে।

বিদ্যুৎ ও গ্যাসের দাম বাড়ানো প্রসঙ্গে তিনি বলেন, বিদ্যুৎ উৎপাদনে সরকার শুরু  থেকে উচ্চ মূল্যে জ্বালানি কিনে আসছে। এতে ৩৮ হাজার কোটি টাকা ঋণ করতে হয়েছে। যার মধ্যে ৮ হাজার কোটি টাকা পরিশোধ করা  গেছে। নতুন অনেক গ্যাস সঞ্চালন লাইন স্থাপনসহ বিদ্যুৎ ও জ্বালানিখাতে সরকারের নানান পদক্ষেপের কথা তুলে ধরেন প্রধানমন্ত্রী।এলপিজি আমদানি শুল্ক প্রত্যাহারের কথা তুলে ধরে প্রধানমন্ত্রী বলেন, সিলিন্ডার  তৈরিতে সরকার ব্যবসায়ী ও উদ্যোক্তাদের কাছ থেকে খুব একটা সাড়া পায়নি।ব্যবসা-বাণিজ্যের প্রসারে ঢাকা-চট্টগ্রাম, ঢাকা-ময়মনসিংহ, ঢাকা-সিলেট চারলেন মহাসড়কসহ সারাদেশের সড়ক ও রেলপথে যোগাযোগ ব্যবস্থার উন্নয়নে সরকারের বিভিন্ন পদক্ষেপের কথা তুলে ধরেন প্রধানমন্ত্রী।বাংলাদেশ, ভুটান, ইন্ডিয়া অ্যান্ড  নেপাল (বিবিআইএন) এবং বাংলাদেশ, চীন, ইন্ডিয়া অ্যান্ড মায়ানমার (বিসিআইএম) কানেকটিভির উদ্যোগের কথা তুলে ধরে প্রধানমন্ত্রী বলেন, আঞ্চলিক এ কানেকটিভিটি ব্যবসা-বাণিজ্যের সম্প্রসারণে সহায়তা করবে।

রূপকল্প-২০২১ বাস্তবায়নে ব্যবসায়ীরা সরকারের সঙ্গে কাজ করে যাবে বলে জানান এফবিসিসিআই সভাপতি আবদুল মাতলুব আহমাদ। তিনি অর্থনৈতিক উন্নয়নে সরকারের  নেওয়া বিভিন্ন প্রদক্ষেপ ও সফলতার প্রশংসা করেন।

http://www.anandalokfoundation.com/