13yercelebration
ঢাকা
আজকের সর্বশেষ সবখবর

বিনা চিকিৎসায় যেন রোগী মারা না যায়

admin
August 19, 2017 4:06 pm
Link Copied!

বাংলাদেশের কোনো পোড়া রোগী যেন বিনা চিকিৎসায় না মারা যায় এটিই আমার আশা, স্বপ্ন। এ জন্য বার্ন ইউনিটকে ইনস্টিটিউটে রূপান্তর করা হচ্ছে। বাংলাদেশে প্রতিবছর ছয় লাখ মানুষ আগুনে পোড়ে। আর এদের জন্য ডাক্তার মাত্র ৫২ জন। অন্তত ১৫০০ চিকিৎসক প্রয়োজন দেশের পোড়া রোগীদের চিকিৎসার জন্য। বর্তমানে আমার ধ্যান জ্ঞান সব ইনস্টিটিউট নিয়ে। কীভাবে একে ভালোভাবে দাঁড় করব এটাই আমার চিন্তা। রাত-দিন এটা নিয়ে আছি। প্রাইভেট প্র্যাকটিস বাদ দিয়ে দিয়েছি এর জন্য। তবে মানুষ যেন না পোড়ে সেই বিষয়ে আরো বেশি সচেতন হতে হবে।

আজ শনিবার সকালে দি নিউজ সম্পাদক প্রমিথিয়াস চৌধুরীর সাথে একান্ত সাক্ষাৎকারে কথা গুলো বললেন ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপতালের বার্ন ও প্লাস্টিক সার্জারি ইউনিটের  প্রধান সমন্বয়কারী ডা. সামন্ত লাল সেন।

অধ্যাপক সামন্ত লাল সেন বলেন, সিলেটের হবিগঞ্জ জেলার নাগুরা গ্রামে ১৯৪৯ সালের ২৪ নভেম্বর আমার জন্ম। সেটা ছিল খুব প্রত্যন্ত একটি গ্রাম। বাবা জিতেন্দ্র লাল সেন সরকারি চাকরি করতেন। পাঁচ ভাইবোন আমরা।

বাবার খুব ইচ্ছে ছিল তাঁর ছেলে চিকিৎসক হবে। আর আমিও ছোটবেলায় ডাক্তার সেজে কলাগাছে ইনজেকশন দিতাম। সেই সময় কেবল এমবিবিএস পাস চিকিৎসক ছিল। একজন চিকিৎসক ছিলেন আমাদের ওখানে। নাম ধীরেন চক্রবর্তী। তাঁকে দেখে অনুপ্রাণিত হতাম। ডাক্তার হওয়ার ইচ্ছাটা তখন থেকেই।

আমি নাগুরা ফার্ম উচ্চ বিদ্যালয় থেকে প্রাথমিকের লেখাপড়া শেষ করি। বাবা যেহেতু সরকারি চাকুরে ছিলেন, তাই তাঁর সঙ্গে বিভিন্ন জায়গায় ঘুরেছি।

মেট্রিকুলেশন পাস করেছি সেন্ট ফিলিস হাইস্কুল থেকে ১৯৬৪ সালে। ইন্টারমিডিয়েট পাস করেছি দিনাজপুরের সুরেন্দ্রনাথ কলেজ থেকে।

এরপর চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজে ডাক্তারি পড়ার জন্য ভর্তি হই। ৭২-৭৩ সালে পাস করে বের হই। আমি ভিয়েনা থেকে ১৯৮০ সালে প্লাস্টিক সার্জারিতে ডিপ্লোমা করেছি। পরে জার্মানি ও ইংল্যান্ডে প্রশিক্ষণ নিই।

ডাক্তারি পাস করার পর হবিগঞ্জের বানিয়াচংয়ে প্রথম কাজ শুরু করি। সেখানে তখন বিদ্যুৎ ছিল না। কোনো রকম যোগাযোগ ব্যবস্থা ছিল না। সাইকেল চালিয়ে, নৌকায় চড়ে যেতে হতো। তখন তো মাত্র পাস করেছি, লম্বা চওড়া, সুন্দর দেখতে ছিলাম।

আমার কাছে তখন অনেক অভিভাবক মেয়ে বিয়ে দিতে চাইত। রোগী দেখতে গেলে কাঁসার থালায় অনেক রকম খাবার দিত আর তার পাশে টাকা দিত। একদম জামাই আদর যাকে বলে!

এরপর ঢাকায় বদলি হয়ে আসি। তখন সোহরাওয়ার্দী হাসপাতালে কাজ শুরু করি। ইমার্জেন্সিতে কাজ করি। ১৯৭১ সালের পর বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ডা. গাস্টকে এ দেশে নিয়ে এসেছিলেন মুক্তিযোদ্ধাদের সেবা দেওয়ার জন্য।

১৯৭৫ সালে ডা. গাস্ট  ভারতের প্লাস্টিক সার্জন ডা. বেজলিলকে নিয়ে আসেন এ দেশে কাজ করতে। এরপর ডা. গাস্ট আমায় বললেন, ‘তুমি প্লাস্টিক সার্জারিতে কাজ করো।’ এরপর আমার প্লাস্টিক সার্জারির লেখাপড়া শুরু হলো।

তখন স্বপ্ন দেখতাম প্লাস্টিক সার্জারি করে মানুষের চেহারা সুন্দর করব। আর অনেক টাকা রোজগার করব।

পরে ১৯৮২ সালে ঢাকা মেডিকেল কলেজে বদলি হয়ে এলাম। তখন আমার বস ছিলেন অধ্যাপক মো. শহীদুল্লাহ। তিনি বাংলাদেশের প্রথম প্লাস্টিক সার্জন। তিনি আর নেই। তাঁর তত্ত্বাবধানে কাজ শুরু করলাম। তাঁরা তখন আমাকে চাপ দিলেন পোড়া রোগীদের জন্য কোনো কাজ করতে।

পোড়া রোগীদের খুব কাতর অবস্থা দেখতাম। তারা মাটিতে পরে থাকত, পথে পড়ে থাকত। এদের দেখে আমি চিন্তা করলাম এ দেশে মানুষের চেহারা সুন্দর করার চেয়ে পোড়া রোগীদের চিকিৎসা করা বেশি জরুরি। আমার মানসিকতার পরিবর্তন হলো। এরপর তাদের নিয়ে পুরোদমে কাজ শুরু করে দিলাম।

আমার একটি মেয়ে, একটি ছেলে। মেয়ের একবার মুখে মিজেলস হলো। সে বলল, বাবা এগুলো ঠিক করার জন্য চিকিৎসা তুমি করে দাও। তখন তাকে পোড়া রোগী দেখালাম। সে দেখল এবং আমার কাজের বিষয়টি বুঝল। আমি তাকে বোঝালাম আমার কাজ এখন এই মানুষদের নিয়ে। সেও আমাকে অনেক উৎসাহ দিয়েছে।

দেশের পোড়া রোগীদের সাহায্যের জন্য, হাসপাতাল করার জন্য যখন মন্ত্রণালয়ে ঘুরেছি, তখন নিজেকে খুব অসহায় লাগত। ফাইল ছুড়ে দিত।

১৯৮৬ সালে পোড়া রোগীদের জন্য সরকারের কাছে বার্ন ও প্লাস্টিক সার্জারি বিভাগ তৈরি করার প্রস্তাব দিই। ১৯৯৬ থেকে ২০০১ সালে বার্ন ইউনিট তৈরির কাজ চলে। ২০০৩ সালে ইউনিটটি উদ্বোধন হলো। আমি ইউনিট তৈরি করতে পেরেছি। পাঁচটি বেড নিয়ে ইউনিট চালু করেছিলাম। আর এখন বার্ন অ্যান্ড প্লাস্টিক ইনস্টিটিউট তৈরি করার বিষয়ে কাজ শুরু করে দিয়েছি। তবে আজ আমি সফল।

 

http://www.anandalokfoundation.com/