13yercelebration
ঢাকা
আজকের সর্বশেষ সবখবর

বিএনপির খুশি খুশি ভাব থাকলেই হয় : কাদের

admin
December 19, 2016 11:51 pm
Link Copied!

নির্বাচন কমিশন (ইসি) পুনর্গঠনের প্রস্তাব নিয়ে রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদের সঙ্গে আলোচনার পর বিএনপি যে সন্তোষের কথা জানিয়েছে, সেই ‘খুশি খুশি ভাব’ সার্চ কমিটি গঠনের পরওঅব্যাহত থাকবে কি না, তা নিয়ে সংশয় প্রকাশ করেছেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের।

রাষ্ট্রপতির সঙ্গে বিএনপির বৈঠকের একদিন পর আজ সোমবার সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘কালকে রাষ্ট্রপতি বললেন, হোপফুল। আর বিএনপি বলল, তারা ভেরি হ্যাপি। শুধু হ্যাপি না, খুব খুশি। আমরা শুধু দেখব, সংলাপ শেষ হয়ে সার্চ কমিটি গঠন করা পর্যন্ত বিএনপির এই খুশি খুশি ভাবটা থাকে কি না। এই খুশিটা যেন আবার বিষাদে পরিণত না হয়।’

সকালে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের বার্ষিক সাংস্কৃতিক উৎসবের সমাপনী অনুষ্ঠানে বক্তব্য দিতে গিয়ে ওবায়দুল কাদের এসব কথা বলেন। এ সময় তিনি নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনের নির্বাচন নিয়েও কথা বলেন।

আগামী বছরের ফেব্রুয়ারিতে কাজী রকিবউদ্দীনের আহমদের নেতৃত্বাধীন নির্বাচন কমিশনের মেয়াদ শেষ হচ্ছে। ইসি পুনর্গঠনের বিষয়টি সামনে রেখেই গত ১৮ নভেম্বর বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া ১৩ দফা প্রস্তাব দেন। সেই প্রস্তাব ধরেই গতকাল রোববার রাষ্ট্রপতির সঙ্গে বৈঠকে বসে বিএনপি। এর মধ্য দিয়ে আনুষ্ঠানিকভাবে ইসি পুনর্গঠনের প্রক্রিয়াও শুরু করেন রাষ্ট্রপতি। আইন অনুযায়ী তিনিই নির্বাচন কমিশন নিয়োগ দেবেন।

গতকাল বৈঠকের পরই বিএনপি সন্তোষ প্রকাশ করে রাষ্ট্রপতির বরাত দিয়ে জানিয়েছে, নির্বাচন কমিশনের গঠনের লক্ষ্যে আগামী জানুয়ারির মধ্যে বাছাই কমিটি গঠনের প্রক্রিয়া শেষ হবে। রাষ্ট্রপতি এ বিষয়ে যথাযথ ব্যবস্থা নেবেন বলে আশা করে দলটি।

অপরদিকে বিএনপির সঙ্গে আলোচনা দেশের গণতন্ত্রের জন্য অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ বলে মন্তব্য করেছেন রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদ। বিএনপির প্রস্তাব নির্বাচন কমিশন গঠনে সহায়ক হবে বলেও মন্তব্য করেন তিনি।

রাষ্ট্রপতি পর্যায়ক্রমে অন্য রাজনৈতিক দলগুলোর সঙ্গেও এ নিয়ে বৈঠক করবেন। এখন পর্যন্ত  জাতীয় পার্টি, এলডিপি, কৃষক শ্রমিক জনতা লীগ এবং জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দলের (জাসদ-ইনু) সঙ্গে বৈঠকের সময় চূড়ান্ত হলেও ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের সঙ্গে বৈঠকের সময় এখনো নির্ধারণ হয়নি।

আজকের আলোচনায় আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের এ প্রসঙ্গে আরো বলেন, ‘৫ জানুয়ারির নির্বাচনের আগে প্রধানমন্ত্রীর আমন্ত্রণে গণভবনে না গিয়ে রাজনৈতিকভাবে ভুল করেছিল বিএনপি। পরবর্তী সময়ে নির্বাচনে বিএনপি এমন ভুল করবে না।’

এ সময় ওবায়দুল কাদের নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশন নির্বাচন নিয়েও কথা বলেন। তিনি বলেন, সরকার ও আওয়ামী লীগ এ নির্বাচনে হস্তক্ষেপ করবে না, আর নির্বাচন সুষ্ঠু এবং নিরপেক্ষ করতে প্রধানমন্ত্রী নির্দেশ দিয়েছেন।

নারায়ণগঞ্জ সিটি নির্বাচনকে সুষ্ঠু ও গ্রহণযোগ্য করতে সরকার আন্তরিক বলেও জানান ওবায়দুল কাদের। তিনি বলেন, ‘এ ব্যাপারে প্রধানমন্ত্রীর সুস্পষ্ট নির্দেশ রয়েছে। যেকোনো অবস্থায় ফ্রি অ্যান্ড ফেয়ার ইলেকশন করতে হবে। এবং সরকারের কোনো বাধা, কোনোপ্রকার হস্তক্ষেপ আমাদের দল আওয়ামী লীগ, আমাদের সরকার শেখ হাসিনার সরকারের কোনো প্রকার হস্তক্ষেপ থাকবে না।’

জনগণের মনের ভাষা বুঝে রাজনীতি করতে রাজনীতিকদের পরামর্শও দেন আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক।

আগামী ২২ ডিসেম্বরের নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশন নির্বাচনে আওয়ামী লীগের মেয়র পদপ্রার্থী সেলিনা হায়াৎ আইভী এবং বিএনপির প্রার্থী অ্যাডভোকেট সাখাওয়াত হোসেন খানের মধ্যে মূল প্রতিদ্বন্দ্বিতা হবে বলে ধারণা করা হচ্ছে। এর বাইরে আরো পাঁচজন মেয়র পদপ্রার্থী নির্বাচনে লড়ছেন।

এর মধ্যে আছেন বিপ্লবী ওয়ার্কার্স পার্টির মেয়র পদপ্রার্থী অ্যাডভোকেট মাহবুবুর রহমান ইসমাইল (কোদাল), ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের প্রার্থী মুফতি মাসুম বিল্লাহর (পাখা), ইসলামী ঐক্যজোটের মুফতি এজহারুল ইসলাম (মসজিদের মিনার), এলডিপির কামাল প্রধান (ছাতা), কল্যাণ পার্টির মেয়র পদপ্রার্থী রাসেল ফেরদৌস সোহেল মোল্লা (হাতঘড়ি)।

এখানে আওয়ামী লীগের নেতৃত্বাধীন ১৪ দণ জোটগতভাবে নির্বাচন করছে। ফলে জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দলের (জাসদ-ইনু) মেয়র প্রার্থী মনোনয়নপত্র দাখিলের পরও তা প্রত্যাহার করে নেন।

অপরদিকে বিএনপি নেতৃত্বাধীন ২০ দলীয় জোট নারায়ণগঞ্জে একসঙ্গে নির্বাচনের ঘোষণা দিলেও লড়াইয়ের ময়দানের আছেন জোটসঙ্গী এলডিপি ও কল্যাণ পার্টির দুই মেয়র পদপ্রার্থী। তাঁদের মনোনয়নপত্র প্রত্যাহারের জন্য নির্দেশ দেওয়া সত্ত্বেও তাঁরা ভোটের মাঠ ছাড়েননি। নিয়েছেন দলীয় প্রতীকও। পরে কেন্দ্র থেকে সংবাদ সম্মেলন করে এই দুই মেয়র পদপ্রার্থীকে দল থেকে বহিষ্কার করার কথা জানানো হয়।

 

 

http://www.anandalokfoundation.com/