ঢাকা
আজকের সর্বশেষ সবখবর

বাংলাদেশ ভ্রমণের সতর্কবার্তা ভুলভাবে প্রচার

admin
October 9, 2015 11:47 pm
Link Copied!

দি নিউজ ডেস্কঃ বিদেশীদের বাংলাদেশ ভ্রমণের ক্ষেত্রে ভ্রমণ সতর্ক বার্তায় বিভিন্ন দেশ তাদের নাগরিকদের সাবধানে ভ্রমণ করার পরামর্শ দিয়েছে। তবে বাংলাদেশ থেকে বিদেশীদের চলে যেতেও বলা হয়নি আবার বাংলাদেশ ভ্রমণ থেকে বিরত থাকতেও বলা হয়নি।

বাংলাদেশের পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী মো. শাহরিয়ার আলম বৃহস্পতিবার তার দফতরে বলেন, ‘বাংলাদেশ ভ্রমণের ক্ষেত্রে ভ্রমণ সতর্ক বার্তার পরামর্শ ভুলভাবে প্রচার করা হচ্ছে। এটা নিয়ে একটা ভুল ধারণার সৃষ্টি হচ্ছে। যেমন অস্ট্রেলিয়ার ভ্রমণ বিষয়ক সতর্ক বার্তা হচ্ছে চারটি। এগুলো হচ্ছে— ভ্রমণের ক্ষেত্রে সাধারণ সতর্কতা, সাবধানী সতর্কতা, ভ্রমণের বিষয়টি পুনরায় বিবেচনা করা এবং ভ্রমণ থেকে বিরত থাকা। ওই সতর্ক বার্তায় কখনোই বাংলাদেশ ভ্রমণ থেকে বিরত থাকার পরামর্শ বা বাংলাদেশ ছেড়ে যাওয়ার পরামর্শ দেওয়া হয়নি। বাংলাদেশ ভ্রমণের ক্ষেত্রে সাবধানে থাকার পরামর্শ দেওয়া হয়েছে।

পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী বলেন, ‘অনাকাঙ্ক্ষিত ঘটনায় দুইজন বিদেশী হত্যার পর বাংলাদেশ বিদেশীদের নিরাপত্তায় বিশেষ ব্যবস্থা নিয়েছে। আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি সরকারের নিয়ন্ত্রণে রয়েছে। এই বিষয়টিও ঢাকায় অবস্থান করা সকল বিদেশী কূটনীতিকদের আনুষ্ঠানিকভাবে ডেকে ব্যাখ্যা করা হয়েছে। বর্তমান নিরাপত্তা ব্যবস্থা নিয়ে তারা সন্তোষও প্রকাশ করেছেন। তিনি আরও বলেন, ‘শুধুমাত্র পার্বত্য অঞ্চল ছাড়া বাংলাদেশের কোথাও সফর করতে কূটনীতিকদের বাধা নেই। আগে থেকে অনুমতি নেওয়ারও কোনো প্রয়োজন নেই। বিদেশীদের বাংলাদেশ ভ্রমণের বিষয়ে তিনি শক্ত অবস্থান ব্যক্ত করে বলেন, ‘কোনো দেশই বাংলাদেশ ভ্রমণে তাদের নাগরিকদের নিষেধ করেনি। পর্যালোচনায় দেখা গেছে, গত ৫ জানুয়ারির সাধারণ নির্বাচনের আগে-পরেও বিদেশীরা বাংলাদেশ ভ্রমণের ক্ষেত্রে একই সতর্ক বার্তা প্রকাশ করেছিল।

এই বিষয়ে শাহরিয়ার আলম বলেন, ‘এর আগেও এমন সতর্কতা ছিল। কিন্তু এভাবে কখনো তৎপরতা দেখা যায়নি। আর এখন এটা নিয়ে ভুল ধারণার সৃষ্টি করা হচ্ছে। আমরা বিদেশী ব্যবসায়ীসহ সকলকে এই বিষয়ের সঠিক তথ্য জানিয়ে দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছি। তিনি বলেন, ‘এই বিষয়ে টেনশন রিডিউস (দুশ্চিন্তা প্রশমন) হচ্ছে। আমরা কাজ করছি। প্রতিনিয়ত সংশ্লিষ্টদের সঙ্গে কথা বলছি। যদি কোনো দেশের ভ্রমণ সকর্ত বার্তায় কোনো অযৌক্তিক প্রতিক্রিয়া (আউট অব প্রোপরশন) দেখি তাহলে সঙ্গে সঙ্গে ওই দেশের রাষ্ট্রদূতকে সরাসরি জানিয়ে দেব যে এটা ঠিক না। এদিকে, গণমাধ্যমকর্মীদের সঙ্গে চলতি সপ্তাহে আলাপের সময় বর্তমান নিরাপত্তা ব্যবস্থা নিয়ে যুক্তরাজ্য ও যুক্তরাষ্ট্রের বাংলাদেশ মিশন প্রধান সন্তোষ প্রকাশ করেন।

যুক্তরাষ্ট্রের রাষ্ট্রদূত মার্শা ব্লুম বার্নিকাট বলেন, ‘আমরা বাংলাদেশে কাউকে আসতে নিষেধও করিনি, আবার চলে যেতেও বলিনি। তবে সতর্ক থাকতে বলেছি। যুক্তরাজ্যের হাইকমিশনার রবার্ট গিবসন বলেন, ‘সারা দেশব্যাপী যে নিরাপত্তা ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে তা সরকারের তরফ থেকে আমাদের জানানো হয়েছে। পররাষ্ট্রমন্ত্রী ও সচিব, স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী ও সচিবসহ সংশ্লিষ্ট সকলেই আমাদেরকে নিরাপত্তার বিষয়ে আশ্বস্ত করেছেন। আমরা এতে সন্তুষ্ট। গত ২৮ সেপ্টেম্বর ঢাকার কূটনীতিক পাড়ায় তেভেলা সিজার নামে ইতালির এক নাগরিক দুর্বৃত্তের গুলিতে নিহত হন। এরপর ইতালি, যুক্তরাষ্ট্র, যুক্তরাজ্য, অস্ট্রেলিয়াসহ আরও কয়েকটি দেশ তাদের নাগরিকদের বাংলাদেশ ভ্রমণের ক্ষেত্রে সতর্কতা জারি করে। কিন্তু ওই সতর্ক বার্তায় বাংলাদেশ ছেড়ে যেতে বা ভ্রমণ না করা সংক্রান্ত কোনো পরামর্শ ছিল না। এরপর ৩ অক্টোবর রংপুর কুনিও হোশি নামে জাপানের এক নাগরিক নিহত হন। পরপর দুই বিদেশী নাগরিক হত্যার এ ঘটনায় বাইরের দেশগুলো তাদের নাগরিকদের বাংলাদেশ ভ্রমণের ক্ষেত্রে আবারও সতর্কতা জারি করে। কিন্তু তাদের সে সব বার্তায়ও বিদেশী নাগরিকদের বাংলাদেশ ছেড়ে যেতে বা ভ্রমণ না করা সংক্রান্ত কোনো পরামর্শ ছিল না।

অস্ট্রেলিয়ার সতর্ক বার্তা পর্যবেক্ষণ করে দেখা গেছে, দেশটি চার স্তরের সতর্ক বার্তা জারি করে থাকে। এর মধ্যে বাংলাদেশে দ্বিতীয় স্তরের সতর্ক বার্তা জারি করা হয়েছে। এই স্তরের সতর্ক বার্তায় তাদের নাগরিকদের সাবধানে ভ্রমণ করার পরামর্শ দেওয়া হয়েছে। বাংলাদেশ থেকে বিদেশীদের চলে যেতেও বলা হয়নি, আবার বাংলাদেশ ভ্রমণ থেকে বিরত থাকতেও বলা হয়নি।

অস্ট্রেলিয়ার ভ্রমণ সংক্রান্ত দ্বিতীয় স্তরের সতর্ক বার্তায় বাংলাদেশের সঙ্গে ভারত, থাইল্যান্ড, ইন্দোনেশিয়া, জর্ডান, কেনিয়া, মিয়ানমার, কুয়েত, মেক্সিকো, মরক্কো, রাশিয়া, ফিলিপাইন, নেপাল, তুরস্ক, শ্রীলংকা, জিম্বাবুয়ে, ভেনিজুয়েলা, পানামাসহ আরও কয়েকটি দেশ রয়েছে। বাংলাদেশের মতো ওই দেশগুলোও ভ্রমণের জন্য অস্ট্রেলিয়া একই সতর্ক বার্তা জারি করেছে। স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় থেকে জানা গেছে, বাংলাদেশে অবস্থানরত ২ লাখ ২৪ হাজার বিদেশীর নিরাপত্তা নিশ্চিতে তাদের বাসস্থান, কর্মস্থল এবং সার্বিকভাবে সব জায়গায় নিরাপদে কাজ করতে পারেন সে জন্য এরই মধ্যে যথাযথ নিরাপত্তা ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে।

http://www.anandalokfoundation.com/