13yercelebration
ঢাকা
আজকের সর্বশেষ সবখবর

বাংলাদেশি অনুপ্রবেশ নিয়ে হিমন্তের অশোভন মন্তব্য, নিন্দায় মুখর বিরোধীরা

Link Copied!

চলতি সপ্তাহে ভারতের আসাম রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী হিমন্ত বিশ্বশর্মা বলেছেন, ৪০ বছর আগে বাংলাদেশ থেকে যে অনুপ্রবেশ শুরু হয়েছিল, তার জেরে আজ আসাম বিধানসভার ১২৬ সদস্যের মধ্যে ৪০ জনই ‘অনুপ্রবেশকারী’। তিনি আরও বলেছেন, হিন্দুদের যেন আর ‘মাথা ঠান্ডা রাখতে বলা না হয়।’ নির্বাচন চলাকালে ভারতে সংখ্যালঘু সম্প্রদায়বিরোধী মন্তব্য করে বিতর্কে জড়িয়েছেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। এখন সেই একই কাজ করছেন হিমন্ত বিশ্বশর্মা।

গত বুধবার পূর্ব ভারতের ঝাড়খন্ড রাজ্যের হাজারীবাগের বিজেপি প্রার্থীর হয়ে নির্বাচনী প্রচারের পরে এক সংবাদ বৈঠকে বিশ্বশর্মা বলেন, আসামে বাংলাদেশ থেকে অনুপ্রবেশ শুরু হয় ৪০ বছর আগে। তখন ক্ষমতায় ছিল কংগ্রেস। ৪০ বছর পর কী ঘটবে, তা তারা বুঝে উঠতে পারেনি। আসামে এখন অনুপ্রবেশকারীর সংখ্যা ১ কোটি ২৫ লাখ। এটি একটি বড় সমস্যা হয়ে দাঁড়িয়েছে। অসমিয়ারা তাদের পরিচয় হারিয়েছে।

কংগ্রেস থেকে বিজেপিতে যাওয়া এই নেতা বলেন, ‘আমি ঝাড়খন্ডে দাঁড়িয়ে বলছি, আমাদের মতো ভুল করবেন না। আমরা ৪০ বছর আগে একটি ভুল করেছি, আমরা আমাদের সীমান্ত রক্ষা করিনি। আপনারা রোহিঙ্গাদের আসতে দেবেন না। পশ্চিমবঙ্গ ও আসাম ভুল করেছে। সে সময় আমাদের যা করা উচিত ছিল, আমরা তা করতে পারিনি। সেই সময়, আমাদের নরেন্দ্র মোদি ছিলেন না…এখন মোদিজি ঝাড়খন্ডের সঙ্গে আছেন।’

হিমন্ত বলেছেন, ‘হিন্দুদের ঠাণ্ডা হতে বলবেন না। এত বছর পর হিন্দুরা “জয় শ্রী রাম” স্লোগান দিচ্ছে। তথাকথিত ধর্মনিরপেক্ষরা আমাদের “জয় শ্রী রাম” বলতে বাধা দেয়। তারা কি নামাজ বন্ধ করতে পারে? ভারত হিন্দুদের জন্য! ভারত-পাকিস্তান ম্যাচে যারা পাকিস্তানের জন্য করতালি দেয়, তাদের বিরুদ্ধে “জয় শ্রী রাম” বলতে হবেই।’

হিমন্ত আরও বলেন, ‘অনুপ্রবেশকারীদের থামান, অন্যথায় ২০ বছরের মধ্যে ঝাড়খন্ডজুড়ে আদিবাসীরা সংখ্যালঘু হয়ে যাবে। এটাই আসামের পরিণতি…। এখন অনুপ্রবেশকারীরা আমাদের বিধানসভায় ৪০টি আসন দখল করে নিয়েছে। তারা মন্ত্রী, স্পিকার, ম্যাজিস্ট্রেট, ডিস্ট্রিক্ট কালেক্টর হয়ে উঠেছে। আমরা এখন অস্তিত্বের জন্য লড়াই করছি। আমরা প্রতিদিন লড়াই করছি।’

হিমন্ত বিশ্বশর্মা বাংলাদেশি অনুপ্রবেশ ও হিন্দুত্ববাদী আবেগ বাড়ানোর প্রয়োজনীয়তা নিয়ে যে মন্তব্য করেছেন, তার নিন্দা জানিয়েছে রাজ্যের বিভিন্ন রাজনৈতিক দল। আসামের ১৪ আসনে নির্বাচন শেষ হলেও পূর্ব ভারতের বিভিন্ন রাজ্যে নির্বাচন চলছে। এই সময়ে তার এই মন্তব্যের তীব্র সমালোচনা করে বিরোধীরা বিষয়টি নিয়ে আদালতে যাওয়ার কথা ভাবছেন। রাজনৈতিক পর্যবেক্ষকেরা মনে করছেন, আসামের নির্বাচন চলাকালে বাঙালি মুসলমানদের ভোট টানার লক্ষ্যে মুখ্যমন্ত্রী কিছুটা নিয়ন্ত্রিতভাবে কথাবার্তা বললেও, আসামে নির্বাচন শেষের সঙ্গে সঙ্গে অন্য রাজ্যে ভোট মেরুকরণের লক্ষ্যে সংখ্যালঘু সম্প্রদায়কে তীব্র আক্রমণ শুরু করেছেন।

http://www.anandalokfoundation.com/