13yercelebration
ঢাকা
আজকের সর্বশেষ সবখবর

বঙ্গবন্ধুর আইনের শাসন প্রতিষ্ঠার দর্শনকে বাস্তবে রূপ দিতে জাতীয় আইনগত সহায়তা প্রদান সংস্থা প্রতিষ্ঠা

পিঁ আই ডি
April 28, 2024 6:06 am
Link Copied!

বঙ্গবন্ধুর ন্যায়বিচার ও আইনের শাসন প্রতিষ্ঠার দর্শনকে বাস্তবে রূপ দিতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে সরকার ‘আইনগত সহায়তা প্রদান আইন ২০০০’ প্রণয়ন ও জাতীয় আইনগত সহায়তা প্রদান সংস্থা প্রতিষ্ঠা করে। ফলে আর্থিকভাবে অসচ্ছল ও দরিদ্র মানুষ ছাড়াও বিনা বিচারে আটক ব্যক্তি, প্রতিবন্ধী, এসিডদগ্ধ নারী-পুরুষ, বিধবা ও স্বামী পরিত্যক্তা মহিলা, পাচারকৃত নারী ও শিশুরা সরকারি খরচে আইনগত সহায়তা পাচ্ছে, যা বঙ্গবন্ধুর অনন্য সাংবিধানিক ভাবনারই প্রতিফলন। এছাড়া জাতীয় আইনগত সহায়তা প্রদান সংস্থা বিকল্প বিরোধ নিষ্পত্তির কেন্দ্র হিসেবে ব্যবহৃত হওয়ার পাশাপাশি বিদ্যমান মামলা জট কমাতেও গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখছে বলে জানিয়েছেন রাষ্ট্রপতি মোঃ সাহাবুদ্দিন।

২৮ এপ্রিল ‘জাতীয় আইনগত সহায়তা দিবস-২০২৪’ উপলক্ষ্যে রাষ্ট্রপতির বাণীতে এসব কথা বলেন।

রাষ্ট্রপতি বলেন, সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ বাঙালি, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান একটি বৈষম্যহীন, ন্যায়ভিত্তিক, গণতান্ত্রিক ও সমৃদ্ধ দেশ গড়ার স্বপ্ন দেখেছিলেন। জনগণের ন্যায়বিচার প্রাপ্তি নিশ্চিত করতেই বঙ্গবন্ধু ১৯৭২ সালে সংবিধান প্রণয়নের মাধ্যমে শক্তিশালী বিচারব্যবস্থা প্রতিষ্ঠা করেছেন। গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশের সংবিধানে আইনগত অধিকারকে মৌলিক অধিকার হিসেবে স্বীকৃতি দিয়ে বলা হয়েছে, ‘আইনের দৃষ্টিতে সকলেই সমান এবং আইনের সমান আশ্রয় লাভের অধিকারী।’

রাষ্ট্রপতি আরও বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার প্রাজ্ঞ নেতৃত্বে সরকার ২০৪১ সালের মধ্যে একটি উন্নত-সমৃদ্ধ ‘স্মার্ট বাংলাদেশ’ গড়ার লক্ষ্যে নিরলস কাজ করে যাচ্ছে। বিচার ব্যবস্থার আধুনিকায়ন ও স্মার্ট বিচার ব্যবস্থা প্রতিষ্ঠার মাধ্যমে বিচার বিভাগকেও এই অগ্রযাত্রায় শামিল হতে হবে। আমি বিচারক-আইনজীবীসহ বিচার প্রক্রিয়ার সাথে সংশ্লিষ্ট সকলকে সরকারি আইনগত সহায়তা কার্যক্রমের আওতাধীন মামলাসমূহ দ্রুততম সময়ের মধ্যে নিষ্পত্তির জন্য কার্যকর পদক্ষেপ গ্রহণের আহ্বান জানাচ্ছি। সমাজে আইনের শাসন ও ন্যায়বিচার প্রতিষ্ঠায় সকলে নিজ নিজ অবস্থান থেকে অবদান রাখবেন – জাতীয় আইনগত সহায়তা দিবসে এ আমার প্রত্যাশা।

http://www.anandalokfoundation.com/