13yercelebration
ঢাকা
আজকের সর্বশেষ সবখবর

বঙ্গবন্ধুই প্রথম দুর্যোগের পূর্বপ্রস্ত্ততিমূলক ব্যবস্থার গুরুত্ব অনুভব করেন -ত্রাণ প্রতিমন্ত্রী

Rai Kishori
August 26, 2019 6:09 pm
Link Copied!

দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ প্রতিমন্ত্রী ডাঃ মোঃ এনামুর রহমান বলেছেন, ভৌগলিক অবস্থানের কারণে বাংলাদেশ ঘুর্ণিঝড়ের মতো দুর্যোগের ক্রমাগত শিকার হয়ে আসছে। দুর্যোগের নিয়মিত ক্ষয়ক্ষতি সত্ত্বেও ষাটের দশক পর্যন্ত দুর্যোগ ব্যবস্থাপনার ধারণা ছিল মূলতঃ ত্রাণ ও পুনর্বাসন সংক্রান্ত। দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা মানেই ছিল দুর্যোগ পরবর্তী পদক্ষেপ।

১৯৭০ সালে এ ভূখন্ডে ঘটে যাওয়া ইতিহাসের অন্যতম মর্মান্তিক ঘূর্ণিঝড়ে ১০ লক্ষের অধিক মানুষ মারা যায়। তৎকালীন পাকিস্তানী শাসকদের বাঙালীদের প্রতি মমত্ববোধের অভাব, বৈষম্যমূলক আচরণ এবং অত্যন্ত দুর্বল দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা কৌশল বাঙালী জাতির অবিসংবাদিত নেতা জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে মর্মাহত করে। তিনি ১৯৭০ সালের নির্বাচন, যা এ দেশের মুক্তির জন্য রাজনৈতিকভাবে অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ ছিল, নির্বাচনী প্রচার কাজ ফেলে ঘূর্ণিদুর্গত অবহেলিত মানুষের মাঝে ছুটে যান। তখনই তিনি দুর্যোগের পূর্বপ্রস্ত্ততিমূলক একটি ব্যবস্থার গুরুত্ব অনুভব করেন। দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ধারণার প্যারাডাইম শিফটের সূচনা মূলতঃ সেখানেই।

প্রতিমন্ত্রী আজ ঢাকায় বাংলাদেশ রেড ক্রিসেন্ট সোসাইটি প্রাঙ্গনে আয়োজিত যুব রেড ক্রিসেন্ট স্বেচ্ছাসেবক সামাবেশে প্রধান অতিথির বক্তৃতা করছিলেন। বাংলাদেশ রেড ক্রিসেন্ট সোসাইটি চেয়ারম্যান হাফিজ আহমদ মজুমদার, এমপি এর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সমাবেশে বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তৃতা করেন সোসাইটির ভাইস চেয়ারম্যান প্রফেসর ডাঃ মোঃ হাবিবে মিল্লাত, এমপি এবং দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সচিব মোঃ শাহ্ কামাল।

প্রতিমন্ত্রী আরো বলেন, বাংলাদেশের উপকুলীয় ১৩ টি জেলা চট্রগ্রাম, কক্সবাজার, ফেনী, নোয়াখালী, লক্ষীপুর, ভোলা, বরিশাল, পিরোজপুর, পটুয়াখালী, বরগুনা, খুলনা, সাতক্ষীরা, বাগেরহাট এই ১৩ টি জেলার ৪০টি উপজেলায় সিপিপি (ঘূর্ণিঝড় প্রস্তুতি কর্মসূচি)’র কার্যক্রম চলমান আছে। এছাড়া দুর্যোগ ঝুঁকিপূর্ণ নদী তীরবর্তী ৬টি জেলা- ফরিদপুর, মাদারীপুর, শরিয়তপুর, গোপালগঞ্জ, চাঁদপুর এবং ঝালকাঠি জেলায় স্বেচ্ছাসেবক নিয়োগসহ কার্যক্রম বিস্তৃতি চলমান রয়েছে। সিপিপির কার্যক্রম আরো শক্তিশালী ও গাতিশীল করতে সরকার বিভিন্ন পদক্ষেপ গ্রহণ করেছে। এরই অংশ হিসেবে সরকার ঢাকার বড় মগবাজার এলাকায় বাংলাদেশ রেড ক্রিসেন্ট সোসাইটি  প্রাঙ্গনে একটি আধুনিক ভবন নির্মাণের পরিকল্পনা গ্রহণ করেছে। যেখানে প্রশাসনিক ও সাংগঠনিক কার্যক্রম পরিচালনার জন্য পর্যাপ্ত স্থান, সভাকক্ষ, মঞ্চসহ মিলনায়তন, অত্যাধুনিক অয়্যারলেস স্টেশন, অপারেশন/নিয়ন্ত্রণকক্ষ, নামাজকক্ষ, সংরক্ষণাগার, আবাসিক সুবিধাসহ প্রশিক্ষণ ইনস্টিটিউট, লাইব্রেরি, পার্কিংসহ প্রয়োজনীয় সুযোগ-সুবিধা থাকবে। এটিকে একটি ‘সেন্টার অব এক্সিলেন্স’ হিসেবে গড়ে তোলা হবে।

পরে “বঙ্গবন্ধু সিপিপি ভবন” নির্মানের লক্ষ্যে সমঝোতা স্মারক্ষ স্বাক্ষরিত হয়। মন্ত্রণালয়ের পক্ষে দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রণালয়ের সিনিয়ির সচিব মোঃ শাহ্ কামাল এবং সোসাইটির পক্ষে রেড ক্রিসেন্ট সোসাইটির মহাসচিব মোঃ ফিরোজ সালাহ্ উদ্দিন সমঝোতা স্মারকে স্বাক্ষর করেণ। এ সময় দুর্যোগ ব্যবস্থপানা ত্রাণ প্রতিমন্ত্রী ডাঃ মোঃ এনামুর রহমান উপস্থিত ছিলেন।

http://www.anandalokfoundation.com/