13yercelebration
ঢাকা
আজকের সর্বশেষ সবখবর

ফরিদপুরে নিহত অন্তরের পরিবারের পাশে সংসদ উপনেতার পুত্র

admin
June 29, 2018 8:25 pm
Link Copied!

আবু নাসের হুসাইন, সালথা (ফরিদপুর) প্রতিনিধি: ফরিদপুরের তালমায় চাঞ্চল্যকর স্কুলছাত্র অন্তর হত্যার ঘটনায় শোকাহত পরিবারের পাশে মাননীয় সংসদ উপনেতা সৈয়দা সাজেদা চৌধুরী এমপির কনিষ্টপুত্র শাহদাব আকবার চৌধুরী লাবু। শুক্রবার সকাল ১০টায় নিহত অন্তরের পরিবারকে সমবেদনা জানাতে লাবু চৌধুরী নেতাকর্মীদের নিয়ে ছুটে আসেন নগরকান্দা উপজেলার তালমা ইউনিয়নের পাগলপাড়া গ্রামে। এসময় অন্তরের মা ও তার পরিবার কান্নায় ভেঙ্গে পড়েন। নিহতের পরিবারকে সমবেদনা জানাতে গিয়ে আবেগ-আপ্লুত হয়ে পড়েন লাবু চৌধুরী।

তিনি এসময় বলেন, তালমা নাজিমুদ্দিন উচ্চ বিদ্যালয়ের ৮ম শ্রেনীর ছাত্র আলাউদ্দীন মাতুব্বার অন্তরকে যারা নৃসংশভাবে হত্যা করেছে তাদেরকে বিচারের আওতায় এনে কঠিন শাস্তির ব্যবস্থা করতে হবে। এটা মাননীয় সংসদ উপনেতার এলাকা, এখানে কোন খুনীদের ঠাই হবে না। খুনি যদি মাটির নিচেও থাকে, তাহলে তাকে সেখান থেকে বের করে আনতে হবে। অন্তরের হত্যাকারীরা যত বড় শক্তিশালী হোক না কেন, তাদেরকে বিন্দুমাত্র ছাড় দেওয়া হবে না।

এসময় অন্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন, জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি মনিরুজ্জামান সর্দার, সংসদ উপনেতার সহকারী একান্ত সচিব মো. শফি উদ্দীন, সালথা উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি দেলোয়ার হোসেন, সাংগঠনিক সম্পাদক চৌধুরী সাব্বির আলী, আওয়ামী লীগ নেতা ওদুদ মাতুব্বার, যুবলীগ নেতা দেলোয়ার হোসেন ফকির, আজাদ হোসেন, সোহেল মাহমুদ, জেলা ছাত্রলীগের সহ-সভাপতি দেবাশীষ নয়ন প্রমূখ।

উল্লেখ্য, গত ৭জুন তারাবী নামাজ পড়তে গিয়ে অপহরণ হয় পাগলপাড়া গ্রামের গ্রীস প্রবাসী আবুল হোসেন মাতুব্বারের ছেলে ও স্কুল ছাত্র অন্তর। অপহরণের পরে নগরকান্দা থানায় একটি মামলা দায়ের করেন। গত ১৪জুন রাতে অন্তরের মায়ের কাছে মুক্তিপন দাবী করে পুলিশের উপস্থিতিতে ১ লক্ষ ৪০ টাকা নিয়ে যায় অপহরনকারীরা। পুলিশের প্রচেষ্টায় মোবাইল ইএম এর মাধ্যমে বুধবার দুপুরে অপহরনকারীদেরকে আটক করে। আটককৃতদের জিজ্ঞাসাবাদের সুত্রধরে ঐদিন রাত ১২ টার দিকে তালমা ইউনিয়নের মানিকদি গ্রামের চকের মধ্যে কাটাখালী খাড়ের পাড়ে মাটি চাপা দেওয়া অবস্থায় অন্তরের অর্ধগলিত লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। পুলিশ জানায়, অপহরনের আধা ঘন্টা পরেই গলায় গামছা পেচিয়ে অন্তরকে হত্যা করে তাকে মাটিতে পুতে রাখে হত্যাকারীরা।

http://www.anandalokfoundation.com/