13yercelebration
ঢাকা
আজকের সর্বশেষ সবখবর

প্রার্থী জট নিয়ে কৌশলী আ’লীগ পুনরুদ্ধারে সক্রিয় জাতীয় পার্টি

admin
November 24, 2017 5:11 pm
Link Copied!

সাদুল্যাপুর-পলাশবাড়ী উপজেলা নিয়ে গঠিত গাইবান্ধা-৩ আসনের সম্ভাব্য প্রার্থীরা মাঠে নেমে পড়েছেন। তবে এলাকার রাজপুত্র ছিলেন জাতীয় পার্টির সাবেক নেতা ও মন্ত্রী ড. টিআইএম ফজলে রাব্বী চৌধুরী। তিনি ১৯৮৬ থেকে ২০০৮ সাল পর্যন্ত টানা ২২ বছর রাজত্ব করেন। ‘এরশাদ ইমেজ’ কাজে লাগিয়ে তিনি হয়ে উঠেছিলেন অপ্রতিদ্বন্দ্বী। পরে কাজী জাফরের সঙ্গে হাত মেলালে মূলস্রোত থেকে ছিটকে পড়েন। জাতীয় পার্টির (কাজী জাফর) তিনি এখন ভারপ্রাপ্ত সভাপতি। ২০১৪ সালে এ আসনে সহজেই

জয়লাভ করেন আওয়ামী লীগের প্রার্থী ডা. ইউনুস আলী সরকার। আগামী নির্বাচনেও তিনি প্রার্থী। তবে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন প্রত্যাশীদের তালিকা দীর্ঘ। এদিকে সুবিধাজনক অবস্থানে আছে জাতীয় পার্টি। দলের চেয়ারম্যান ও সাবেক রাষ্ট্রপতি হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ একাধিক কর্মিসভায় দলের তরুণ প্রেসিডিয়াম সদস্য ও রাজনৈতিক উপদেষ্টা ব্যারিস্টার দিলারা খন্দকার শিল্পীকে একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে প্রার্থী হিসেবে পরিচয় করিয়ে দেন। সেই থেকে তিনি মাঠে কাজ করছেন। এ আসনে বিএনপির অবস্থা বরাবরই দুর্বল। এর পরও বিএনপি ও জোটের একাধিক প্রার্থী মাঠে রয়েছেন।

২০১৪ সালে ৫ জানুয়ারির নির্বাচনকে কেন্দ্র করে এলাকায় ব্যাপক সহিংসতা হয়। জামায়াত-বিএনপি ৫০টি ভোট কেন্দ্র জ্বালিয়ে দেয়। বিতর্কিত নির্বাচনে জাতীয় পার্টির দুর্গ দখলে নেয় আওয়ামী লীগ। আগামী নির্বাচনে আওয়ামী লীগ আসনটি ধরে রাখতে চায় এবং জাতীয় পার্টি চাচ্ছে পুনরুদ্ধার করতে। ‘এরশাদ ইমেজ’ এর সঙ্গে প্রার্থীর ইমেজ কাজে লাগিয়ে নির্বাচনী বৈতরণী পার করতে চায় জাতীয় পার্টি। স্থানীয় নেতারা বলছেন, দলের অবস্থান সুসংহত না হলেও সাধারণ মানুষের মাঝে জাতীয় পার্টি-এরশাদ প্রীতির প্রভাব রয়েছে তীব্র।

এরশাদের কাছ থেকে সবুজ সঙ্কেত পেয়ে আগে থেকেই ব্যারিস্টার দিলারা মাঠে সক্রিয় রয়েছেন। পাশাপাশি কর্মী সমাবেশেও তিনি তার পরিকল্পনা তুলে ধরছেন। সম্প্রতি বন্যার সময়ও তাকে বেশ তৎপর দেখা গেছে। বন্যার্তদের মাঝে খাবার বিতরণের পাশাপাশি টিভি টক শোতেও তাকে বেশ সক্রিয় দেখা যায়। জানতে চাইলে ব্যারিস্টার দিলারা বলেন, সৎ যোগ্য এবং নিবেদিতপ্রাণ নেতৃত্বের বড় সংকট। সাদুল্যাপুর ও পলাশবাড়ীতে প্রচুর সম্ভাবনা থাকা সত্ত্বেও অর্থনৈতিকভাবে উপজেলা দুটি পিছিয়ে পড়েছে। নির্বাচিত হলে এলাকার অর্থনৈতিক উন্নয়নে ব্যাপক পদক্ষেপ নেব। বেশ কিছু নতুন কর্মসূচিও নেয়া হবে।

এদিকে আওয়ামী লীগের অবস্থান আগের যেকোনো সময়ের তুলনায় ভালো। দুই উপজেলার ৯টি ইউনিয়ন নিয়ে আসনের বর্তমান এমপি সাদুল্যাপুর উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ডা. ইউনুস আলী সরকার। এছাড়া পলাশবাড়ীর বাসিন্দা সংরক্ষিত মহিলা আসনের এমপি উম্মে কুলছুম স্মৃতিও আগামী নির্বাচনে মনোনয়ন প্রার্থী। অন্য প্রার্থীরা হচ্ছেন- পলাশবাড়ী উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আবু বকর প্রধান, সিনিয়র সহ-সভাপতি সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান একেএম মোকছেদ চৌধুরী বিদ্যুৎ, ঢাকায় শহীদ সোহরাওয়ার্দী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের সাবেক পরিচালক ডা. শাহ মো. ইয়াকুব উল আজাদ, দলের উপজেলা যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক ও গাইবান্ধা জেলা বাস মিনিবাস কোচ মাইক্রোবাস পরিবহন শ্রমিক ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক গোলাম সরোয়ার প্রধান বিপ্লব, সাংগঠনিক সম্পাদক ও ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি ফিরোজ কবীর সুমন, সাদুল্যাপুর উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক শাহারিয়ার খান বিপ্লব, সাদুল্যাপুর উপজেলা পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান ও জেলা আওয়ামী লীগের আইনজীবী পরিষদের সদস্য এমএ ওয়াহেদ মিয়া, উপজেলা আওয়ামী লীগ নেতা আজিজার রহমান বিএসসি ও জেলা আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা অ্যাডভোকেট নূরুল ইসলাম। প্রার্থী জট নিয়ে পলাশবাড়ী উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক উপাধ্যক্ষ শফিকুল ইসলাম লিখন বলেন, বড় দলে প্রার্থী সংখ্যা বেশি হওয়াই স্বাভাবিক। তবে চিন্তার কিছু নেই। সভানেত্রী ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা যাকে মনোনয়ন দেবেন দলের নেতাকর্মীরা তার পক্ষেই কাজ করবেন। তিনি বলেন, বর্তমান এমপি এলাকায় ব্যাপক কাজ করেছেন। অতীত এবং এবারের উন্নয়নের তুলনা করলে ভোটাররা অবশ্যই তফাৎটা বুঝতে পারবেন।

ডা. ইউনুস আলী রংপুর মেডিকেল কলেজে পড়ার সময় ছাত্র সংসদের ভিপি এবং পেশাজীবনে বিএমএর কোষাধ্যক্ষ এবং যুগ্ম-মহাসচিব ছিলেন। তিনি সরকারি চাকরি ছেড়ে দিয়ে আওয়ামী লীগকে সংগঠিত করার কাজে নামেন। জানতে চাইলে তিনি বলেন, দুই উপজেলায় ৮২ কিমি. সড়ক পাকাকরণের কাজ চলছে। এছাড়া ৩০টি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান ভবন, পলাশবাড়ীতে ফায়ার সার্ভিস স্টেশন নির্মাণ এবং সাদুল্যাপুরে ফায়ার সার্ভিস নির্মাণের প্রাথমিক কাজ সম্পন্ন হয়েছে। পলাশবাড়ী সরকারি কলেজে অনার্স কোর্স চালু এবং দুই উপজেলায় ৩টি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান সরকারিকরণ করা হয়েছে। তিনি বলেন, পরিচ্ছন্ন রাজনীতি এবং উন্নয়ন কর্মকাণ্ডে তিনি বিশ্বাসী। মানুষের দুঃসময়ে পাশে ছিলাম। সাম্প্রতিক বন্যার সময়ও তিনি মানুষের পাশে ছিলেন। প্রধানমন্ত্রী নিশ্চয়ই তার মনোনয়নের বিষয়টি দেখবেন।

মোকছেদ চৌধুরী বিদ্যুৎ স্কুলজীবন থেকেই ছাত্রলীগের সঙ্গে জড়িত। তিনি পাইলট হাই স্কুলের সভাপতি, পরবর্তীতে উপজেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক ও থানা যুবলীগের সম্পাদক ছিলেন। পরে আওয়ামী লীগের রাজনীতিতে সম্পৃক্ত হন। তিনি উপজেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক ও যুগ্ম-সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করেন। ২০০৯ সালে তিনি উপজেলা চেয়ারম্যান নির্বাচিত হন। ব্যক্তিগতভাবে তিনি প্রতিষ্ঠিত ব্যবসায়ী। জানতে চাইলে তিনি বলেন, দলীয় সভানেত্রী ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা তাকে মনোনয়ন দিলে তিনি নির্বাচিত হবেন এবং এলাকার উন্নয়নে নিজেকে নিয়োজিত করবেন। সাধারণ মানুষের পাশে থেকে রাজনীতি করবেন।

সাদুল্যাপুর উপজেলার ভাতগ্রাম ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক আজিজার রহমান বিএসসি দীর্ঘ ২৮ বছর ধরে আওয়ামী লীগের রাজনীতির সঙ্গে জড়িত। এছাড়া তিনি বাংলাদেশ শিক্ষক সমিতি সাদুল্যাপুর উপজেলা কমিটির যুগ্ম-আহ্বায়ক হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন। জানতে চাইলে আজিজার রহমান জানান, তিনি আওয়ামী লীগের মনোনয়ন চাইবেন। কেন্দ্রীয় কমিটির সঙ্গে যোগাযোগ রয়েছে। দল আমাকে মনোনয়ন দিলে বিজয়ী হতে পারব ইনশাআল্লাহ।

নির্বাচনী মাঠে সক্রিয় বিএনপির মনোনয়ন প্রত্যাশী জেলা বিএনপির সভাপতি ও শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজের সাবেক পরিচালক অধ্যাপক ডা. মইনুল হাসান সাদিক। খ্যাতনামা এই চিকিৎসক সম্প্রতি গাইবান্ধা প্রেস ক্লাবে সাংবাদিকদের সঙ্গে জেলার উন্নয়নসহ বিভিন্ন বিষয়ে মতবিনিময় করেন। সেখানে বিএনপি প্রার্থী হওয়ার আগ্রহ ব্যক্ত করে বলেন, দলের চেয়ারপারসন তাকে মনোনয়ন দিলে তিনি মানুষের সমর্থন নিয়ে বিজয়ী হবেন। ডা. মইনুল হাসান বিএনপি সমর্থিত ড্যাবের কেন্দ্রীয় নেতা। ১৯৯০ সালে তৎকালীন সরকারবিরোধী আন্দোলনে তিনি চিকিৎসক সংগ্রাম পরিষদের সদস্য সচিব ছিলেন। ২০০৬ সালে সরকারি চাকরি ছেড়ে রাজনীতিতে নামেন। জানতে চাইলে তিনি বলেন, সৎ নিষ্ঠাবান ব্যক্তিদের রাজনীতিতে আসা প্রয়োজন। তিনি কুড়ি বছরেরও বেশি সময় ধরে উন্নয়ন পরিষদের ব্যানারে মানুষের কল্যাণে কাজ করছেন। এলাকায় তার বিপুল জনসমর্থন রয়েছে। তার একটি ভোট ব্যাংক রয়েছে বলে দাবি করেন। নির্বাচিত হলে শুধু নিজ এলাকা নয়, গোটা জেলার উন্নয়নে কাজ করতে পারবেন বলে তিনি জানান। এছাড়া পলাশবাড়ী থানা বিএনপির সভাপতি শাহ আলম সরকার, কেন্দ্রীয় ছাত্রদলের সাবেক নেতা ড. মাসুম মিজান মনোনয়ন প্রত্যাশী।

এদিকে ড. টিআইএম ফজলে রাব্বি চৌধুরীও জোটের প্রার্থী হিসেবে নির্বাচন করতে ইচ্ছুক। যোগাযোগ করেও তার বক্তব্য পাওয়া যায়নি। তবে তার ভাই এবং রাজনৈতিক সহচর বাদশা চৌধুরী বলেন, তিনি জোট থেকে নির্বাচন করবেন বলে তাকে জানিয়েছেন।

জামায়াতের জেলা শূরা সদস্য পলাশবাড়ী উপজেলা চেয়ারম্যান আবুল কাওছার মো. নজরুল ইসলাম লেবুও এ আসনের প্রার্থী। জাসদের কেন্দ্রীয় কমিটির বিজ্ঞান ও প্রযুক্তিবিষয়ক সম্পাদক সাদুল্যাপুর উপজেলা পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান এসএম খাদেমুল ইসলাম খুদি দলের মনোনয়ন চাইবেন। তিনি তদানীন্তন পূর্ব পাকিস্তান পার্লামেন্টের সেক্রেটারি আতাউর রহমান বাদশা মিয়ার ছেলে। খুদি ২০০৩ সালে সাদুল্যাপুরের ফরিদপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান নির্বাচিত হন। তিনি দেশের কনিষ্ঠতম চেয়ারম্যান ছিলেন। মহাজোটের শরিক হিসেবে তিনি ১৪ দলের প্রার্থী হতে চান। এ আসনে জাসদের আরেক সম্ভাব্য প্রার্থী দলের উপজেলা সভাপতি বিশিষ্ট সাংবাদিক নুরুজ্জামান প্রধান।

http://www.anandalokfoundation.com/