13yercelebration
ঢাকা
আজকের সর্বশেষ সবখবর

যুগাচার্য স্বামী প্রণবানন্দ মহারাজ এর ১২৮তম জন্মদিন

ডেস্ক
January 29, 2024 7:36 am
Link Copied!

আজ যুগাচার্য সংঘ পুরুষ ভারত সেবাশ্রম সংঘ প্রতিষ্ঠাতা স্বামী প্রণবানন্দ মহারাজ এর জন্মদিন। স্বাধীনতা আনন্দোলনের স্বক্রিয় কর্মী, বিপ্লবী দল মাদারীপুর সমিতির সদস্য ছিলেন স্বামী প্রণবানন্দ মহারাজ। ১২৭তম আবির্ভাব দিবস আজ। যদিও জন্মদিনের তিথি অনুসারে ৫ ফেব্রুয়ারি মাঘী পূর্ণিমা তিথিতে অনুষ্ঠান উদ্‌যাপিত হবে। প্রণবানন্দ মহারাজ এর ১২৮তম জন্মদিন

স্বামী প্রণবানন্দজী মহারাজ বাংলাদেশের মাদারিপুর জেলায় কুমার নদী থেকে প্রায় এক মাইল দূরে বাজিতপুর গ্রামে ১৮৯৬ সালে ২৯ জানুয়ারি বুধবার মাঘীপূর্ণিমা তিথিতে জন্ম গ্রহণ করেন। তার পিতার নাম বিষ্ণুচরণ ভুঁইয়া ও মাতা সারদা দেবী। বাজিতপুর গ্রামটি ছিল সুজলা সুফলা শস্য শ্যামলা প্রাকৃতিক সৌন্দর্যে ভরা।

জমিদারের অত্যাচার থেকে প্রজাদের বাঁচাতে গিয়ে প্রণবানন্দজীর পিতা বিষ্ণুচরণ ভুঁইয়া মিথ্যা মামলায় জড়িয়ে পড়েন। বিপদ থেকে উদ্ধার পাওয়ার জন্য গৃহদেবতা নীলরুদ্রের শরণাপন্ন হন তিনি। ভক্তের কাতর প্রার্থনায় দেবাদিদেব মহাদেব শিব প্রসন্ন হয়ে তাকে দর্শন দান করেন ও বলেন “ভয় নেই আমি তোমার পুত্র রূপে জন্মগ্রহণ করবো। আমার জন্মের সঙ্গে সঙ্গে ই তোমাদের বিপদের মেঘ কেটে যাবে। “

বিষ্ণুচরণ ছেলের জন্মের পর দীর্ঘদিনের পুরোনো মামলায় জয়ী হয়েছেন, তাই ছেলের নাম রাখেন “জয়নাথ”। পরে নাম দেওয়া হয় বিনোদ। তিনি বুধবার জন্মে ছিলেন বলে তাঁর নাম হয় বুধো।

প্রণবানন্দ ছোট থেকেই পরোপকারী ছিলেন। ছোটবেলা থেকেই তাঁর মধ্যে আধ্যাত্মিক ভাবধারা স্পষ্ট হয়ে ওঠে। প্রায়শই তাঁকে ধ্যান করতে দেখা যেত এই সময়। বয়স বাড়ার সাথে সাথে ধ্যান করার প্রতি তাঁর ঝোঁক বাড়তে থাকে। এর ফলে তাঁর পড়াশোনায় ব্যাঘাত ঘটতে থাকে। তিনি শুধু ভাত এবং আলু সেদ্ধ খেতেন এবং দিনে মাত্র এক ঘণ্টা ঘুমাতেন। সেই সময় তাঁকে শ্মশানে শ্মশানে ঘুরে সাধনা করতে দেখা যেত।

গোরক্ষপুরের মহাযোগী বাবা গম্ভীরনাথজীর নিকট ১৯১৩ সালে ১৭ বৎসর বয়সে তিনি দীক্ষালাভ করেন।

ব্রহ্মচারী বিনোদ দেশের স্বাধীনতা আন্দোলনকে পরোক্ষ ভাবে সমর্থন করতেন। তিনি বিপ্লবী দল মাদারিপুর সমিতির সদস্য ছিলেন এবং ১৯১৪ সালে মাদারিপুরের চারপাশে ডাকাতিতে পুলিশ ফরিদপুর ষড়যন্ত্র মামলায় (১৯১৪) বিনোদকে গ্রেফতার করে মাদারিপুর ও পরে ফরিদপুর জেলে আটক রাখা হয়। স্বাধীনতা আন্দোলনের সঙ্গে প্রত্যক্ষভাবে জড়িত থাকার দায়ে প্রণবানন্দকে কারাবন্দি করা হয়। কিন্তু ব্রিটিশ পুলিশ স্বাধীনতা আন্দোলনের সাথে তাঁর যোগাযোগ প্রমাণ করতে না পারায় পরে তাঁকে ছেড়ে দেওয়া হয়। প্রণবানন্দ স্বাধীনতা সংগ্রামীদের স্নেহ করতেন এবং সংগ্রাম চালিয়ে যাওয়ার জন্য তাঁদের সাহস যোগাতেন। এর পাশাপাশি তিনি রাতের অন্ধকারে তাঁদের খাদ্য সরবরাহ করতেন এবং আশ্রয়ও দিতেন। পুলিশের হাত থেকে বাঁচার জন্য অনেক বিপ্লবী তাঁর কাছে আশ্রয় নিতেন।

প্রণবানন্দ গ্রামের উন্নয়নের হস্তশিল্প উন্নয়ন এবং গ্রামের ঘরে ঘরে ঢেঁকির ব্যবস্থা করা সহ বেশ কিছু উদ্যোগ নিয়েছিলেন। বিভিন্ন উপজাতির পিছিয়ে পড়া মানুষদের কর্মসংস্থানের জন্য তিনি সব সময় চেষ্টা করতেন যাতে তারা স্বনির্ভর হতে পারে। প্রণবানন্দ ছোট থেকে বাংলার পিছিয়ে পড়া গরীব এবং অশিক্ষিত মানুষদের দুর্দশা দেখেছেন। তিনি এও দেখেছেন যে কোন ব্যক্তি বা সংস্থা, এমনকি ব্রিটিশ সরকারও সেই সব মানুষদের সাহায্য করতে এগিয়ে আসত না। বন্যা, খরা কিংবা মহামারীর সময় সেই সব মানুষেরা অকাতরে মারা যেত। শিক্ষিত এবং ধনী ব্যক্তিরা সেইসব পিছিয়ে পড়া মানুষদের এড়িয়ে চলত। তারা সব সময় উঁচু জাত এবং বিদেশি শাসকের দ্বারা শোষিত হত। তাই তিনি মানুষের সেবা করার জন্য ১৯১৭ সালে একটি সংস্থা ভারত সেবাশ্রম সংঘ প্রতিষ্ঠা করে একটি আশ্রম স্থাপন করেন।

১৯১৬ সালে মাত্র ২০ বৎসর বয়সে সাধনায় সিদ্ধিলাভ করেন। ১৯১৯ খ্রিষ্টাব্দে প্রচন্ড ঝড়ের ফলে বহু লোক মারা গেলে তিনি সেবার কাজে এগিয়ে আসেন। সেবাকার্য শেষে মাদারিপুরের বিশিষ্ট ব্যক্তিদের অনুরোধে “মাদারিপুর সেবাশ্রম” স্থাপিত করেন। এর কিছু বছরের মধ্যে খুলনা, নওগাঁ, আশাশুনি প্রভৃতি জায়গাতে সেবাশ্রম স্থাপিত হয়।

১৯২১ সালে পূর্ববঙ্গের ভয়াবহ দুর্ভিক্ষে লক্ষ লক্ষ মানুষের জীবন বিপন্ন হয়ে পড়লে  আচার্য প্রফুল্ল চন্দ্র রায় সেই সব মানুষদের সাহায্য করবার জন্য প্রচুর পরিমাণে অর্থ সংগ্রহ করেন। কিন্তু সেইসব মানুষদের কাছে ত্রাণ পৌঁছে দেওয়ার জন্য লোকবলের সমস্যা দেখা দিলে তিনি সেই সংগৃহীত অর্থ প্রণবানন্দের হাতে তুলে দেন এবং তাঁকে যুব সমাজকে সংগঠিত করে দুর্ভিক্ষ পীড়িত মানুষদের সাহায্য করতে বলেন। বিশিষ্টজনদের অনুরোধে প্রণবানন্দ মাদারীপুর সেবাশ্রম স্থাপন করেন। এর পরে তিনি খুলনা, নওগাঁ, আশাশুনি ও অন্যান্য জায়গায় আরো কয়েকটি আশ্রম তৈরি করেন।

১৯২২ খ্রিষ্টাব্দে কলিকাতার বাগবাজারে ডিস্পেনসারী লেনে ঘর ভাড়া করে কলকাতায় প্রথম আশ্রম স্থাপন করা হয়। ঐ বৎসরেই ভাদ্র মাসে ১১৮নং শোভাবাজার ষ্ট্রীটে ১৮ টাকা ভাড়ায় দুইখানি কোঠা ঘর ভাড়া লইয়া সেখানে কলিকাতা আশ্রম স্থানান্তরিত করা হয়। এই সংস্থাটির মূল কাজ হল বাংলার বিভিন্ন গরিব মানুষদের সাহায্য করা, শিশুদের শিক্ষা প্রদান করা এবং মানুষের অসুখ বিসুখে তাদের সেবা করা।

দুস্থ মানুষের পাশে দাঁড়ানো থেকে শুরু করে বন্যার ত্রাণ, চিকিৎসা ব্যবস্থা, শিক্ষা প্রদান, বস্ত্র বিনিময় এবং আরো নানান কর্মকাণ্ডের মধ্য দিয়ে ভারত সেবাশ্রম মানুষের সেবা করে থাকে। ভারত সেবাশ্রমের শাখা পৃথিবীর বিভিন্ন প্রান্তে ছড়িয়ে পড়েছে যেমন বাংলাদেশ, নেপাল, আমেরিকা, কানাডা, ইংল্যান্ড, নিউ গিনি ইত্যাদি জায়গায়।

১৯২৪ খ্রীঃ জুন মাসে ২৭নং বহুবাজার ষ্ট্রীটে আশ্রম উঠিয়া আসে। ইং ১৯২৬ খ্রীঃ ১৬২ কর্ণওয়ালিশ স্ট্রীটে আশ্রম স্থানান্তরিত হয়। ইং ১৯২৭ খ্রীঃ জুলাই মাসে ২৪/৩, মীর্জ্জাপুর স্ট্রীটে (বতর্মানে সূর্য্যসেন স্ট্রীট) আশ্রম উঠিয়া আসে। পরে বালিগঞ্জে ডিহি শ্রীরামপুর লেনে কয়েক মাস থাকার পর ইং ১৯৩২ খ্রীঃ মে মাসে সঙ্ঘের প্রধান কার্য্যালয় ২১১, রাজবিহারী এভিনিউ, বালিগঞ্জে নিজস্ব জমি ও বাড়ীতে স্থাপিত হয়।

সিদ্ধি লাভের দীর্ঘ ৮ বৎসর পর ১৯২৪ সালের জানুয়ারি মাসে প্রয়াগধামের অর্ধকুম্ভের সময় স্বামী গোবিন্দানন্দ গিরি মহারাজের কাছ থেকে থেকে ব্রহ্মচারী সন্ন্যাস দীক্ষা গ্রহণ করেন। তখন তার নাম হয় “আচার্য স্বামী প্রণবানন্দ।” উক্ত বছরেই মাঘি পূর্ণিমা তিথিতে তিনি চিহ্নিত প্রথম সাত জন সঙ্ঘ সন্তানকে সন্ন্যাস দীক্ষায় দীক্ষিত করনে।

আচার্য স্বামী প্রণবানন্দ জানতেন তীর্থস্থান গুলি ভারতের অখণ্ডতার সূত্র ধরে আছে, হিন্দু সমাজ সমন্বয়ের মধ্য দিয়ে হিন্দুজাতি গঠন তার লক্ষ ছিল, তাই মিলন মন্দির ও রক্ষিদল গঠন এবং বহুবিধ জনহিতকর সেবামূলক কাজ তিনি তার প্রতিষ্ঠিত ভারত সেবাশ্রম সঙ্ঘের মাধ্যমে করেছেন। জনকল্যাণে তিনি যে সব কাজ করেছেন তার অন্যতম তীর্থ সংস্কার। ভণ্ড ধর্মব্যবসায়ী দের দারা দখল হয়ে যাওয়া তীর্থস্থান গুলি উদ্ধারের জন্য তিনি অন্দোলন চালিযেছিলেন। তীর্থসংস্কার আদির দ্বারা ভারতের পবিত্র তীর্থ গুলির জবরদখল মুক্ত করার জন্য প্রয়াশ করেন। সেখানে তীর্থ গুলিতে দরিদ্র অবহেলীত শ্রেণীর প্রবেশের জন্য দ্বারোদ্ঘাটন করেছিলেন তিনি।

হরিজনদের বলপূর্বরক মন্দিরে প্রবেশ করাতে চাইলে তিনি তার বিরোধ করে বলেন যে – মন্দির সামাজিক কোঁদলের স্থান নয়। জোর করে মন্দিরে প্রবেশ করালেই অবহেলিত সমাজ রাতারাতি বড় হয়ে জায় না, তার জন্য সকলের পথ উন্মুক্ত করে হিন্দু মিলন মন্দির প্রতিষ্ঠা করেন । তিনি হিন্দু দের কে ব্রাহ্মণ ক্ষত্রিয় বৈষ্য চণ্ডাল নমঃশুদ্র ইত্যাদি কোন নামে ডাকেননি তিনি হিন্দু দের হিন্দু নামেই ডেকে ছিলেন। সুন্দর সমাজ গঠনের জন্য তাৎক্ষণিক সমাধানের পথে না গিয়ে তিনি ব্যক্তি চরিত্র নির্মাণ, আদর্শ পরিবার গঠন ইত্যাদিকে সোপান হিসাবে ব্যবহার করেছেন তিনি। জন্মজাত শুদ্রত্বের তিনি বিরোধ করেছিলেন। তিনি শুদ্রদের “পকান্ন” চেয়ে খেয়েছেন। তাঃদের সংঙ্গে পঙ্‌ক্তি ভোজন, “ঔঁ স্বাহা” মন্ত্রোচ্চার পূর্বক বৈদিক যজ্ঞ তিনি তাদেরকে সঙ্গে নিয়ে করেছিলেন। তিনি বলেছিলেন – হিন্দুদের মধ্যে ব্রাহ্মণ, ক্ষত্রিয়, বৈশ্য, চণ্ডাল আদির কোন ভেদ নেই।

বঙ্গভঙ্গ পরবর্তী সময়ে মানুষে মানুষে বিভেদ তৈরি হলে প্রণবানন্দ সাম্যের বাণী প্রচার করেন। তিনি বাঙালি হিন্দুদের এক জোট করার পরিকল্পনা করেন এবং গ্রামে গ্রামে সামাজিক মিলন ক্ষেত্র তৈরি করতে উদ্যত হন। ইট কাঠ পাথরের তৈরি মন্দির নয় তিনি টুকরো টুকরো হয়ে ভেঙে দেওয়া বাঙালি হিন্দু সমাজকে একত্র করে মহা হিন্দু মন্দির তৈরি করতে চেয়েছিলে। তাঁর মতে সেই মন্দির হবে হিন্দুদের সামাজিক মিলনক্ষেত্র।

শ্যামাপ্রসাদ মুখোপাধ্যায় বাংলার হিন্দু মহাসভা কে নেতৃত্ব দিতে এগিয়ে আসেন এবং তিনি স্বামী প্রণবানন্দের সমর্থন লাভ করেন। স্বামী প্রণবানন্দ  ভারত সেবাশ্রম সংঘ এবং হিন্দু মহাসভাকে একে অপরের পরিপূরক করে তুলতে চেয়েছিলেন। তিনি হিন্দু মহাসভার জনভিত্তিক প্রসারে সচেষ্ট হন। মাঝে মাঝেই তিনি হিন্দু মহাসভার অন্যতম সদস্য শ্যামাপ্রসাদ মুখোপাধ্যায়, মন্মথনাথ মুখোপাধ্যায় এবং এন সি চ্যাটার্জির সাথে হিন্দুদের উন্নতির ব্যাপারে আলোচনা করতেন।

প্রণবানন্দ জীবনের শেষ কিছু বছর  হিন্দুদের পুনঃসংগঠিত করতে অতিবাহিত করেন। হিন্দু সমাজের জাগরণ ঘটানোর জন্য তিনি বাংলার বিভিন্ন প্রান্তে ছুটে বেড়াতেন। সেখানে বহু মানুষদের নিয়ে তিনি সভা করতেন। জীবনের শেষ শিবরাত্রির দিন তিনি একটি মহাসভায় নিজের গলার মালা শ্যামাপ্রসাদ মুখোপাধ্যায়ের গলায় পরিয়ে দিয়ে তাঁকে তাঁর উত্তরসূরি  ঘোষণা করেন। স্বামী প্রণবানন্দের ১৯৪১ সালে ৮ জানুয়ারি মাত্র ৪৫ বৎসর বয়সে তিনি কলকাতায় দেহ ত্যাগ করেন। প্রণবানন্দের ১২৫ তম জন্মদিন(১৯২১) উপলক্ষে সম্প্রতি ভারত সেবাশ্রম সংঘ এবং ভারত সরকার যুগ্মভাবে ১০০, ৫০ এবং ১০ টাকার তিনটি বিশেষ স্মারক মুদ্রা প্রকাশিত করেছে। স্বামী প্রণবানন্দ তিরোভাব দিবস

http://www.anandalokfoundation.com/