13yercelebration
ঢাকা
আজকের সর্বশেষ সবখবর

পৃথিবীতে ৭ হাজার ১৬৮টি ভাষার মধ্যে সবচেয়ে বেশি মানুষ কথা বলে ইংরেজি ভাষায়

Link Copied!

যুক্তরাষ্ট্রভিত্তিক সামার ইন্সটিটিউট অফ লিঙ্গুইস্টিক্‌স (এসআইএল) ইন্টারন্যাশনাল-এ র ভাষা নিয়ে গবেষণাকারী প্রতিষ্ঠান ‘এথনোলগ’ বলছে, পৃথিবীতে বর্তমানে ৭ হাজার ১৬৮টি ভাষা আছে। কিন্তু, এর ৪২ শতাংশ ভাষাই ‘ঝুঁকিপূর্ণ’ অবস্থায় আছে; অর্থাৎ, তিন হাজার ৪৫টি ভাষা এখন বিলুপ্তির পথে। এর আগেও সময়ের সাথে সাথে বাংলাদেশসহ বিশ্বের বিভিন্ন দেশ থেকে অনেক ভাষা চিরতরে হারিয়ে গেছে।

পৃথিবীতে খুব অল্প কয়েকটি দেশের মাতৃভাষা ইংরেজি, কিন্তু পৃথিবীতে এমন দেশ বিরল যেখানে মাতৃভাষার পর ইংলিশকে প্রাধান্য দেয়া হয় না। এথনোলগ-এর তথ্য অনুযায়ী, ৮০০ কোটি মানুষের পৃথিবীতে প্রায় ১৫০ কোটি মানুষই ইংলিশে কথা বলে। যদিও পৃথিবীর মাত্র ৩৮ কোটি মানুষের মাতৃভাষা ইংলিশ এবং মাতৃভাষাভাষীর সংখ্যার বিচারে এর অবস্থান বিশ্বে তৃতীয়। এই ভাষার আঁতুড়ঘর হলো যুক্তরাজ্য, অর্থাৎ ইউনাইটেড কিংডম।

বিপুল সংখ্যক জনগোষ্ঠীর মাতৃভাষা না হওয়া সত্ত্বেও পৃথিবী জুড়ে ইংলিশের এত বিস্তৃতির পেছনে মূল ভূমিকা রেখেছে কয়েকশো বছর ধরে পৃথিবীজুড়ে চলা ব্রিটিশ উপনিবেশবাদ। ঐ সময় ব্রিটিশরা আফ্রিকা, দক্ষিণ আমেরিকা, এশিয়া এবং ক্যারিবীয় অঞ্চলে তাদের উপনিবেশ স্থাপন করে। সাধারণত উপনিবেশ প্রতিষ্ঠার পেছনে উদ্দেশ্য থাকে ঐ অঞ্চলে ওপর অর্থনৈতিক আধিপত্য তৈরি করা। ভারতীয় উপমহাদেশসহ পৃথিবীর অন্যান্য দেশগুলো থেকে ব্রিটিশ সাম্রাজ্যের অবসান ঘটলেও উপনিবেশবাদের প্রভাব রয়ে গেছে। ইংলিশের জনপ্রিয়তা হিসেবে এই প্রভাবকে উদাহরণ হিসেবে দেখা হয়।

ব্রিটিশ সাম্রাজ্যের পতনের পর সারাবিশ্বে যুক্তরাষ্ট্র একক আধিপত্য বিস্তার করে। যুক্তরাষ্ট্রের মাতৃভাষাও ইংলিশ হওয়ায় মার্কিন সংস্কৃতির অংশ হিসেবেই সেটি বিশ্বের বিভিন্ন অঞ্চলে আরও প্রভাবশালী হয়ে উঠে। এথনোলগ অনুযায়ী, পৃথিবীর মোট ১৪৬টি দেশে ইংলিশ ভাষাভাষী মানুষ পাওয়া যায়। এর মাঝে উল্লেখযোগ্য হলো অস্ট্রেলিয়া, যুক্তরাষ্ট্র, যুক্তরাজ্য, কানাডা এবং ইউরোপ ও এশিয়ার অনেক দেশ। উল্লেখ্য, ইংলিশ বা ইংরেজি ইন্দো-ইউরোপীয় ভাষা পরিবারের একটি ভাষা।

জেনে নিন উল্লেখ্যযোগ ভাষায় কথা বলা মানুষের সংখ্যা

বিশ্বে সবচেয়ে বেশি ব্যবহৃত ভাষা মান্দারিন। চীনের এই ভাষায় ১৩০ কোটি মানুষ কথা বলে। সেই হিসাবে বিশ্বের প্রতি ছয়জনের মধ্যে একজন এই ভাষায় কথা বলে। এটি চীনের রাষ্ট্রভাষাও।

মান্দারিনের পর বিশ্বে সবচেয়ে বেশি ব্যবহৃত হওয়া ভাষা স্প্যানিশ। বিশ্বের প্রায় ৪৭ কোটি মানুষের মাতৃভাষা এটি। স্পেন ছাড়াও দক্ষিণ আমেরিকা, মধ্য আমেরিকা ও যুক্তরাষ্ট্রের বিশাল অংশে রয়েছে এর ব্যবহার।

স্প্যানিশ ভাষার পর সবচেয়ে বেশি ব্যবহৃত হওয়া মাতৃভাষা ইংরেজি। এটি বিশ্বের প্রায় ৩৭ কোটি মানুষের মাতৃভাষা। তবে ৯৭ কোটি ৮০ লাখের বেশি মানুষ দ্বিতীয় ভাষা হিসেবে এটি ব্যবহার করে।

ইংরেজির পরই রয়েছে হিন্দির অবস্থান। ভারতে ২৩টি সরকারি ভাষা রয়েছে। এর মধ্যে একটি হিন্দি। প্রায় ৩৪ কোটি মানুষ এই ভাষায় কথা বলেন। এর সঙ্গে উর্দু ও পারস্য ভাষার মিল রয়েছে।

সবচেয়ে বেশি ব্যবহৃত মাতৃভাষা মধ্যে পঞ্চম স্থানে রয়েছে আরবি। মধ্যপ্রাচ্য ও আফ্রিকার কিছু দেশে এটি মাতৃভাষা হিসেবে ব্যবহৃত হয়। বিশ্বে আরবিতে কথা বলা মানুষের সংখ্যা প্রায় ৩২ কোটি।

মাতৃভাষা হিসেবে ষষ্ঠ স্থানে রয়েছে পর্তুগিজ ভাষা। এই ভাষা মূলত ঔপনিবেশিক কারণে বিশ্বের বিভিন্ন দেশে ছড়িয়েছে। ব্রাজিল, অ্যাঙ্গোলা, মোজাম্বিক, কেপ ভার্দে, গিনি-বিসাও, সাও টোমে অ্যান্ড প্রিন্সিপে এবং ম্যাকাওর মতো দেশে এটি মাতৃভাষা হিসেবে ব্যবহৃত হয়। বিশ্বের প্রায় ২৩ কোট ২০ লাখ মানুষ একে মাতৃভাষা হিসেবে ব্যবহার করে।

বিশ্বের অন্যতম বেশি ব্যবহৃত ভাষার মধ্যে রয়েছে বাংলা। এটি বাংলাদেশ, ভারতের পশ্চিমবঙ্গ, আন্দামান দ্বীপে ব্যবহৃত হয়। বিশ্বের প্রায় ২২ কোটি ৯০ লাখ মানুষের মাতৃভাষা বাংলা।

জাতিসংঘের তালিকায় বিশ্বের সবচেয়ে কথিত ভাষার মধ্যে রয়েছে রুশ ভাষাও। বিশ্বের প্রায় ১৫ কোটি ৪০ লাখ মানুষ এই ভাষায় কথা বলেন। দস্তইয়েভস্কি, নাবোকভ, চেখভ, গোগল, তলস্তয় ও পুশকিনের মতো সাহিত্যিকেরা রুশ ভাষাতেই রচনা করেছেন কালজয়ী সব সাহিত্য।

শীর্ষ ১০ মাতৃভাষার তালিকায় নবম অবস্থানে রয়েছে জাপানের ভাষার নাম। বিশ্বের প্রায় ১২ কোটি ৬০ লাখ মানুষ একে মাতৃভাষা হিসেবে ব্যবহার করে। জাপান ছাড়াও যুক্তরাষ্ট্র, ফিলিপাইন ও ব্রাজিলে জাপানের ভাষা ব্যবহার করা হয়।

এ তালিকায় দশম স্থানে রয়েছে লহন্ডা ভাষা। পাকিস্তান ও ভারতের পাঞ্জাবের পশ্চিমাঞ্চলে এটি ব্যবহার হয়। একে মাতৃভাষা হিসেবে ব্যবহার করে বিশ্বের প্রায় ১১ কোটি ৮০ লাখ মানুষ। ব্রিটিশরা যখন চলে যায় তখন পাঞ্জাব দুই টুকরো হয়ে যায়। পরে লাখ লাখ লোক তাদের বাড়িঘর, ব্যবসা ও পরিবার পরিত্যাগ করে ব্রিটেনে চলে যায়। ব্রিটেনের পাশাপাশি বলিউডেও বেশ প্রভাব রয়েছে এই ভাষার।

http://www.anandalokfoundation.com/