13yercelebration
ঢাকা
আজকের সর্বশেষ সবখবর

পর্যাপ্ত আমদানি ও দর নির্ধারণেও বিন্দুমাত্র প্রভাব পড়েনি রমজানের পণ্যে

রাজিব শর্মা
March 14, 2024 10:37 am
Link Copied!

রমজানকে ঘিরে অনান্য বছরের তুলনায় এ বছর সমুদ্রবন্দর ও কাস্টমস দিয়ে চাহিদার পর্যাপ্ত নিত্যপ্রয়োজনীয় আমদানির পণ্য খালাস হয়েছে। তাছাড়া বাজার সহনীয় পর্যায়ে রাখতে সরকার বেশ কিছু পণ্যের দর নির্ধারণ করে দিলেও বাজারে তার বিন্দুমাত্র প্রভাব পড়েনি, বরং অনান্য বছরের তুলনায় এবছর পন্যের দাম দ্বিগুণ থেকে তিনগুণ বেড়েছে।

সরকারী তথ্যমতে, চাহিদা অনুযায়ী দেশে রমজানের ভোগ্যপণ্য যেমন ছোলা, চিনি, খেজুর, ভোজ্যতেল ইত্যাদির আমদানি ও সরবরাহ পর্যাপ্ত পরিমাণ রয়েছে। কিন্তু ডলারের দাম বৃদ্ধি, এলসির উচ্চ মার্জিন, উচ্চ শুল্কায়নকে দামবৃদ্ধির কারন হিসেবে দেখছেন আমদানিকারক ও ব্যবসায়ীরা।

বন্দরের তথ্যমতে সেপ্টেম্বর থেকে ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত গত চার মাসে বন্দর দিয়ে খেজুর ৪১ হাজার ২৫০ মেট্রিক টন, ছোলা ৯৪ হাজার ৪৩৭ টন, সয়াবিন ৬ লাখ ১ হাজার ২৬৬ মেট্রিক টন, অনান্য ভোজ্যতেল ১ লাখ ৩ হাজার ৬২৭ টন আমদানির পণ্য খালাস হয়েছে।

আর কাস্টমসের তথ্যমতে, ডিসেম্বর থেকে পর্যন্ত গত তিন মাসে খেজুর আমদানি হয়েছে ৩৩ হাজার ৫৪০ মেট্রিক টন, ছোলা ৯১ হাজার ৩৫৪ মেট্রিক টন, চিনি ১ লাখ ৬০১ মেট্রিক টন, সয়াবিনসহ অনান্য ভোজ্যতেল ৪ লাখ ৭৫ হাজার ৩৬৪ মেট্রিক টন খালাস হয়েছে।

এ দুই সংস্থার তথ্যমতে আমদানির মোট খেজুর ৭৭ হাজার ৭৯০ মেট্রিক টন, ছোলা ১ লাখ ৮৫ হাজার ৯৯১ মেট্রিক টন, সয়াবিনসহ অনান্য ভোজ্যতেল আমদানি করেছে ১১ লাখ ৮০ হাজার ২৫৭ মেট্রিক টন ও চিনি ১ লাখ ৬০১ মেট্রিক টন আমদানির মাল খালাস হয়েছে। আরও আমদানির প্রায় ৫ শতাংশ পণ্য খালাসের প্রক্রিয়ায় আছে।

কিন্তু পর্যাপ্ত আমদানি, সরবরাহ, খাতুনগঞ্জের আড়তে মজুদ এবং খেজুর, ছোলা, চিনি, ভোজ্যতেলে সরকারের দর নির্ধারণ করে দিলেও এসব পণ্যের কোন দামই কমেনি বরং উল্টো চিত্র দেখা যাচ্ছে।

নির্ধারিত দরের খেজুর বাজারে নেই

বুধবার দেশের অন্যতম ভোগ্যপণ্যের আড়ত খাতুনগঞ্জ ও চাক্তাই ঘুরে দেখা যায়, গতবছর রমজানের শুরুতে যে মানের খেজুর আড়ত পর্যায়ে কেজিপ্রতি বিক্রি হয়েছিল ১২০ থেকে ১৫০ টাকা তা বর্তমানে ৩০০ থেকে ৪৫০ টাকা। আর যে মানের খেজুর ৩০০ থেকে ৪৫০ টাকায় বিক্রি হয়েছিল তা বর্তমানে ৭০০ থেকে ১৫০০ টাকা পর্যন্ত বিক্রি হয়েছে। হিসেব মতে বছরের ব্যবধানে খেজুরের দাম বেড়েছে প্রায় দ্বিগুন। সরকারের পক্ষ থেকে অতি নি¤œমানের খেজুর ১৫০ থেকে ১৬৫ টাকা, জায়েদি খেজুর ১৭০ থেকে ১৮০ টাকা নির্ধারণ করলেও ঐ খেজুর খুচরা পর্যায়ে বিক্রি হচ্ছে ২৮০ থেকে ৩৮০ টাকায়।

চিনির বাজারে আগুন

সরকারের পক্ষ থেকে চিনির দর ১৪০ টাকা নির্ধারণ করলেও গত সপ্তাহে এস আলমের সুগার কারখানায় আগুন লাগার ঘটনায় রাতারাতি বেড়ে যাওয়ায় প্রশাসনের পক্ষ থেকে খাতুনগঞ্জে অভিযানের পরও চিনির দরের বাড়তি প্রভাব এখনো কাটেনি। বাজারে সাদা চিনি বিক্রি করছে কেজি প্রতি ১৫০ ও লাল চিনি ১৭০ টাকা।

আরও দাম বেড়েছে ছোলার
ছোলার বাজার ঘুরে দেখা যায়, পাইকারি আড়তে গত সপ্তাহে যে মানের ছোলা বিক্রি হয়েছিল ৮৮ থেকে ৯২ টাকায় তা এখন বিক্রি হচ্ছে ৯৫ থেকে ৯৬ টাকা। আর খুচরা পর্যায়ে গত সপ্তাহে যে ছোলা ১০৫ টাকা বিক্রি হয়েছিল তা এখন কেজিপ্রতি ১০ টাকা বেড়ে ১১৫ টাকায় বিক্রি করছে।

বাজারে নেই নির্ধারিত দরের সয়াবিন
ভোজ্যতেলের বাজার ঘুরে দেখা যায়, সরকারের পক্ষ ১লা মার্চ থেকে সয়াবিনে ১০ টাকা কমে লিটার প্রতি খোলা সয়াবিন ১৪৯ টাকা ও বোতলজাত সয়াবিনে ১৬৩ টাকা নির্ধারণ করে দিলেও ঐ দরে বাজারে কোথাও সয়াবিন বিক্রি করছে না ব্যবসায়ীরা। এমনকি ঐ দরের কোন সয়াবিনের মোড়তজাত পণ্য দেখা যায়নি। পাইকারি পর্যায়ে খোলা সয়াবিন ১৫৫ টাকা যা খুচরায় ১৬০ টাকা এবং বোতলজাত সয়াবিন বিক্রি করছে পূর্বের মোড়কজাত পণ্যের দরে। বলা যায় পহেলা মার্চ থেকে নির্ধারণ করলে নতুন দরের ঐ পণ্য বাজারে নেই।

জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের (এনবিআর) তথ্য বলছে, চাহিদা অনুযায়ী রমজানের ভোগ্যপণ্যের আমদানি পর্যাপ্ত। বিশেষ করে, সর্বশেষ তিন মাসে (ডিসেম্বর- ফেব্রুয়ারি) যে পরিমাণ খেজুর, ছোলা, ডাল, ভোজ্যতেল, চিনি, মসলা আমদানি হয়েছে, তা দিয়ে রমজানের চাহিদা ভালোভাবেই মেটানো যাবে। এবং এসব পণ্য ভোক্তা পর্যায়ে পৌঁছেছে।

চট্টগ্রাম বন্দর কর্তৃপক্ষের সচিব মো. ওমর ফারুক বলেন, জাহাজ দিয়ে খালাসের মালামাল প্রক্রিয়া সচল রয়েছে। এবং শুল্কায়ণের কাজ শেষে কয়েকঘন্টার মধ্যে ডেলিভারি নিতে পারছে আমদানিকারকরা। বন্দর দিয়ে কোন জঠিলতা নেই।

সমুদ্র বন্দর উদ্ভিদ সংঘনিরোধ সংঘের উপপরিচালক মো. শাহ আলম বলেন, ‘অনান্য বছরের তুলনায় এ বছর সমুদ্র বন্দর দিয়ে পর্যাপÍ ছোলা, ভোজ্যতেল ও খেজুর খালাস হয়েছে। কোন ধরনের জঠিলতা নেই। আরও পণ্য পাইপলাইনে রয়েছে।’

নিত্যপণ্যের চড়া বাজার নিয়ে কনজ্যুমার অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ (ক্যাব)-এর ভাইস প্রেসিডেন্ট এস এম নাজের হোসাইন বলেন, ‘অনান্য বছরের তুলনায় এবার পর্যাপ্ত আমদানি হয়েছে। কোন ধরনের বাজার ঘাটতি নেই। কিন্তু সে অনুযায়ে কোন পণ্যের দাম কমেনি। সরকারের নির্ধারিত দরে কেউ পণ্য বিক্রি করছে না। প্রশাসন দুয়েকটা অভিযান পরিচালনা করলেও ব্যবসায়ীরা তাদের মনগড়া দরে বিক্রি করা থেকে সরে আসেননি। প্রশাসনের তদারকি আরও জোরদার করতে হবে।

রমজানে পর্যাপÍ মালামাল আমদানি ও সরকার দর নির্ধারণ করে দিলেও ঐ দরে পাওয়া না যাওযার বিষয়ে খাতুনগঞ্জের আড়তদার সমিতির সভাপতি জাহাঙ্গীর আলম চৌধুরী বলেন, ‘গত বছর আমদানিকারকরা ডলার প্রতি ৯৩ টাকায় এলসি বুকিং, ২০ শতাংশ মার্জিন দিয়ে আমদানির পণ্য আনতে পেরেছে। এবছর আড়তে মালামাল আসলেও যেসব পণ্যের তিন মাস আগের ডলার প্রতি খরচ হয়েছে ১২০ টাকার উপরে। তার মধ্যে শতভাগ মার্জিন ও পণ্যভেদে উচ্চ শুল্কায়ন দিয়ে পণ্য খালাস করতে হয়েছে ব্যবসায়ীদেরকে এছাড়া সরকারের পক্ষ থেকে এখন যেসব পণ্যের দাম কমানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছে ঐসব পণ্যের কেনা অনেক বেশি। এত বড় লোকসানের দায় কোন ব্যবসায়ী নেবে?’

উল্লেখ্য বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের তথ্য অনুযায়ী, দেশে প্রতিবছর ছোলার বাার্ষিক চাহিদা ১ লাখ ৪০ হাজার মেট্রিক টন। এরমধ্যে সবচেয়ে বেশি চাহিদা হয় রোজার মাসকে কেন্দ্র করে। রমজানে ছোলার চাহিদা ১ লাখ টন। গত তিন মাসে চাহিদার চেয়ে আরও ৮৫ হাজার টন ছোলা বেশি আমদানি হয়েছে। প্রতিমাসে দেশে ভোজ্যতেলের চাহিদা দেড় লাখ মেট্রিক টন। রমজানে এই চাহিদা গিয়ে দাঁড়ায় ৩ লাখ মেট্রিক টনে। গত চার মাসের আমদানিতে চাহিদার চেয়ে আরও ৭ লাখ মেট্রিক টন বেশি আমদানি হয়েছে ভোজ্যতেল। একইভাবে দেশে খেজুরের বার্ষিক চাহিদা প্রায় ৯০ হাজার টন। এর মধ্যে শুধু রমজান মাসেই ৪০ হাজার টন খেজুর প্রয়োজন হয়। এবছর চাহিদার চেয়ে আর ৩৭ হাজার টন বেশি খেজুর আমদানি করা হয়েছে। পাশাপাশি চিনিও পর্যাপ্ত আমদানি হয়েছে।

http://www.anandalokfoundation.com/