13yercelebration
ঢাকা
আজকের সর্বশেষ সবখবর

দ্বিগুণ বেতনের ভালো-মন্দ

admin
September 8, 2015 10:20 am
Link Copied!

স্টাফ রিপোর্টারঃ সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীদের বেতন দ্বিগুণ করে নতুন বেতন কাঠামো অনুমোদন দিয়েছে মন্ত্রিসভা। বাংলাদেশ ব্যাংকের সাবেক গভর্নর মোহাম্মদ ফরাসউদ্দিনের নেতৃত্বে গঠিত কমিশনের সদস্যরা প্রায় একবছর কাজ করে ২১ ডিসেম্বর নতুন বেতন কাঠামোর প্রতিবেদন জমা দেয়। প্রধানমন্ত্রীর অনুমোদন সাপেক্ষে চলতি বছরের ১ জুলাই থেকে এ কাঠামো কার্যকর হবে। এই বেতন কাঠামোয় মোট ২০টি গ্রেডে বেতন বাড়ানো হয়েছে। সর্বনিম্ন ও সর্বোচ্চ গ্রেডে ১০০ শতাংশ পর্যন্ত বেতন বৃদ্ধি করা হয়েছে। মাঝের গ্রেডগুলোতে বেতন বাড়বে বিভিন্ন পর্যায়ে।

নতুন বেতন কাঠামো অনুযায়ী সর্বনিম্ন মূল বেতন ৮ হাজার ২৫০ এবং সর্বোচ্চ ৭৮ হাজার টাকা নির্ধারণ করা হয়েছে। সর্বশেষ ২০০৯ সালে সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীদের বেতন বাড়ানো হয়েছিল। তখন সরকারি চাকরিজীবীদের সর্বনিম্ন বেতন ছিল ৪ হাজার ১০০ এবং সর্বোচ্চ ৪০ হাজার টাকা (বেসিক)। নতুন বেতন স্কেলের সাথে বাড়িভাড়া, গৃহনির্মাণ, চিকিৎসা ভাতার সঙ্গে যুক্ত হয়েছে বৈশাখী বোনাস ও অন্যান্য আর্থিক সুবিধা। সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীদের বেতন বাড়ানোর ফলে তাদের জীবনযাত্রায় পরিবর্তন আসবে এবং স্বাচ্ছন্দে জীবন যাপনের নিশ্চয়তাও থাকবে। তবে এভাবে হঠাৎ করে বিপুল সংখ্যক মানুষের বেতন-ভাতা বাড়ানোতে অভ্যন্তরীণ বাজার তথা অর্থনীতিতে কিছু ইতিবাচক প্রভাবের সাথে কতগুলো নতুন সমস্যার উদ্ভব হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে সেটাই বিচেনার বিষয়। প্রস্তাবিত নতুন বেতন কাঠামোর ঘোষণায় সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীদের মধ্যেও কানাঘুষা শুরু হওয়া অস্বাভাবিক নয়। কারণ নতুন বেতন কাঠামোয় প্রথম গ্রেডের কর্মকর্তারা খুশি হলেও মাঝারি গ্রেডে যারা রয়েছেন এমন কর্মকর্তারা খুব খুশি নন।

অন্যদিকে নিম্নপদের কর্মচারীরা নতুন ঘোষণায় মন্দের ভালো ছাড়া আর কিছুই দেখছেন না। এছাড়া বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষকরা আলাদা বেতন কাঠামোর দাবিতে যে আন্দোলন করে যাচ্ছেন সেটার কোনো সমাধান না করেই নতুন বেতন কাঠামো অনুমোদন করা হলো। নতুন বেতন কাঠামো কার্যরকর হওয়ার পর দেশের ১৩ লাখ সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারী এর আওতায় আসবেন। এর মধ্যে চাকরিতে সক্রিয় ১১ লাখ এবং অবসরকালীন ২ লাখ এ সুবিধার আওতায় আসবে। সোমবার মন্ত্রিপরিষদ সচিব মোশাররাফ হোসাইন ভূইঞা বলেন, মূল বেতনের বার্ষিক প্রবৃদ্ধি চক্রবৃদ্ধি হারে বাড়বে। উদাহরণ হিসেবে তিনি বলেন, ধরুন, কারও মূল বেতন ১০ হাজার টাকা। এক বছরে তার ৫ শতাংশ হারে প্রবৃদ্ধি হবে ৫০০ টাকা। প্রথম বছর শেষে ওই ব্যক্তির প্রবৃদ্ধিসহ বেতন দাঁড়াবে ১০,৫০০ টাকা। যেহেতু চক্রবৃদ্ধি হারে বাড়বে, তাই দ্বিতীয় বছরে ওই ১০,৫০০ টাকার ওপর বার্ষিক প্রবৃদ্ধি হবে। এভাবে প্রত্যেক বছরই বার্ষিক প্রবৃদ্ধি অব্যাহত থাকবে।

প্রতি বছরের ১ জুলাই সবার জন্য একই সঙ্গে বার্ষিক প্রবৃদ্ধি হবে। সচিব বলেন, পর্যালোচনায় দেখা গেছে আগে টাইম স্কেলে অনুযায়ী যে বেতন বাড়ত, নতুন পদ্ধতিতে তার চেয়ে বেশি বেতন বাড়বে। এই বর্ধিত বেতনের অর্থ সংস্থান করতে চলতি বছরে সরকারকে ১৫ হাজার ৯০৪ কোটি ২৪ লাখ টাকা অতিরিক্ত ব্যয় করতে হবে। তবে, আগামী বছর কর্মকর্তা ও কর্মচারীরা নতুন স্কেলে বেতন ও ভাতা পাবেন। এ জন্য সরকারকে ২৩ হাজার ৮২৮ কোটি ৫৭ লাখ টাকা অতিরিক্ত খরচ করতে হবে। তাছাড়া নতুন বেতন কাঠামোতে কর্মচারী-কর্মকর্তাদের মধ্যে ব্যাপক বেতন বৈষম্যের সৃষ্টি হবে। বর্তমানে যেখানে কর্মকর্তাদের বেতন ও কর্মচারীদের বেতনে পার্থক্য ১:১০, সেখানে প্রস্তাবিত বেতন কাঠামোতে পার্থক্য হবে ২:২০ অর্থ্যাৎ পার্থক্যটা হবে বিশাল অংকের। তবে এ নিয়ে কেউ উচ্চবাচ্য করবেন না। কারণ নিজ নিজ স্বার্থ রক্ষা হচ্ছে এতেই সবাই সন্তুষ্ট। কর্মচারী ভাববে না তার স্যারের বেতনের সঙ্গে তার বেতনের অনেক ফারাক। সে দেখবে আগের চেয়ে তার জীবনমানটা বেড়েছে, এটুকুই। অবশ্য নতুন বেতন কাঠামোয় বৈষম্যের বিষয়টি যথাসম্ভব কমানোর চেষ্টা করা হয়েছে। এ লক্ষ্যেই নিচের স্তরে বেতন বৃদ্ধির হার বেশি রাখা হয়েছে।

এই নতুন বেতন কাঠামোয় একটি নির্দিষ হারে ইনক্রিমেন্ট থাকছে না জানিয়ে মন্ত্রিপরিষদ সচিব বলেন, ‘নতুন বেতন কাঠামোয় বৃদ্ধির হার বলা হয়েছে ২০ নম্বর গ্রেড থেকে ৬ নম্বর গ্রেড পর্যন্ত ৫ শতাংশ , ৫ নম্বর গ্রেডে ৪ দশমিক ৫ শতাংশ, ৩ এবং ৪ নম্বর গ্রেডে ৪ শতাংশ, ২ নম্বর গ্রেডে ৩ দশমিক ৭৫ শতাংশ হারে বেতন বৃদ্ধি পাবে।’ এবং ১ নম্বর গ্রেডে কোনো ইনক্রিমেন্ট থাকবে না বলেও জানান তিনি। তবে নিচের গ্রেডে মাত্র এক শতাংশ বেশি বৃদ্ধিতে প্রকৃতপক্ষে মূল অংকে কোনো পার্থক্য হবে না। এখন এই বেতন বৃদ্ধির প্রভাব নিয়ে নানা মহলে দুই ধরনের বক্তব্য আছে। একটি ইতিবাচক অপরটি নেতিবাচক। সাধারণ অর্থনীতির নিয়ম অনুযায়ী এতে করে দেশের অর্থনীতিতে ইতিবাচক প্রভাবই পড়ার কথা। কারণ বিপুল সংখ্যক মানুষের ক্রয়ক্ষমতা বাড়বে। ফলে চাহিদা-সরবরাহের নিয়ম অনুযায়ী ব্যবসায়ীরা লাভবান হবেন। বাজার তথা অর্থনীতি চাঙা হবে। তবে বেতন বৃদ্ধির প্রক্রিয়া ও কিছু সুযোগ সন্ধানী মহলের কারণে এই ইতিবাচক সুবিধাটা কখনো কখনো পাওয়া যায় না।

অর্থনীতিবিদরা মনে করেন, নিয়মিত না হয়ে হঠাৎ করে বেতন বৃদ্ধির কারণে মূল্যস্ফীতির আশঙ্কা থাকে। এই সুযোগ নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্যের দাম বাড়িয়ে দেয় অনেক অসাধু ব্যবসায়ী। এছাড়া আমাদের দেশের বাজারে স্বাভাবিক চরিত্র হচ্ছে- চাহিদা বাড়লে সঙ্গে সরবরাহ ও মান না বাড়িয়ে দাম বাড়িয়ে দেয়া। এছাড়া ২০০৯ সালের অভিজ্ঞতার কারণেও রাজধানীর মধ্যবিত্তদের জন্য একটি ভীতির সংবাদ আছে। সেই সময় বাড়িওয়ালারা বাসাভাড়া বাড়িয়েছেন অযৌক্তিকভাবে। এবারো সেরকমটি হবে না সেটা নিশ্চয়তা কি সরকার দিতে পারবে? এইসব কারণেই বেসরকারি চাকরিজীবীদের জন্য প্রাপ্ত বেতনে জীবিকা নির্বাহ কঠিন হয়ে পড়বে। এই স্থানে সরকারি কর্মচারীদের বেতন দ্বিগুণ করা হলেও প্রকৃতপক্ষে তারা উপকৃত হওয়ার সম্ভাবনা কম। যেখানে রাষ্ট্রের মোট কর্মক্ষম জনশক্তির প্রায় ১০০ ভাগের ১ ভাগ সরকারি কাজে নিয়োজিত।

এটা প্রতিষ্ঠিত সত্য যে, রাষ্ট্রের অধিকাংশ দুর্নীতির সাথে সরকারি কর্মকর্তা ও কর্মচারীরাই জড়িত। সরকারি আমলাদের বেতন কম তাই তারা দুর্নীতি করে সামাজিক স্ট্যাটাস মেইনটেন করে চলেন- এতোদিনের এই অজুহাত এবার হয়তো আর খাটবে না। কিন্তু এটাই কি একমাত্র সত্য যে, শুধু এই কারণেই সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীরা দুর্নীতি করেন? তবে এবার সরকার দুর্নীতি লাগাম টানার একটা শক্ত নৈতিক ভিত্তি পেল এটা বলা যায়। তার মানে কিন্তু এও নয় যে এতোদিন সেই নৈতিক ভিত্তিটা ছিল না। বরং কম বেতন সরকারের একটা দুর্বল পয়েন্ট ছিল শুধু। কাজেই এ বেতন কাঠামো বাস্তবায়ন করার আগে প্রজাতন্ত্রের কর্মকর্তা-কর্মচারীদের দুর্নীতি প্রতিরোধে সরকারের আরো কঠোর হওয়া উচিৎ। একই সঙ্গে বাজার ও বাড়িভাড়া নিয়ন্ত্রণেও নজর দিতে হবে। এর সঙ্গে আরো একটি গুরুত্বপূর্ণ দিক আছে সেটা হলো সরকারি চাকরিতে ঘুষ বাণিজ্য। এখন যেখানে দ্বিতীয় শ্রেণীর কোনো চাকরিতে কমপক্ষে ৫ থেকে ৭ লাখ টাকা ঘুষ দিতে হয় সেখানে এবার দ্বিগুণ দিতে হতে পারে। এই বিষয়গুলো সরকার যদি দক্ষতার সঙ্গে নিয়ন্ত্রণ করতে না পারে তাহলে সৎ উদ্দেশ্যে বেতন বাড়ানো হচ্ছে তা বিফলে যাবে।

http://www.anandalokfoundation.com/