13yercelebration
ঢাকা
আজকের সর্বশেষ সবখবর

তোমার সমাধি ফুলে ফুলে ঢাকা -শেখর রায়

admin
August 16, 2017 5:42 pm
Link Copied!

কে বলে আজ তুমি নাই
তুমি আছো মন বলে তাই।

আজ অনেকে ঘটা করে শোকের প্রকাশ করছেন। কেউ বলেন জাতির পিতা, কেউ বঙ্গবন্ধু, কেউ আরও কত কিছু বলেন। যিনি আজ থেকে বছর দশ আগেও প্রচারের আলো থেকে প্রায় হারিয়ে গিয়েছিলেন। সেনা শাসন, জিয়া শাসনে তিনি ছিলেন অবলুপ্ত প্রায় এক স্মৃতি। ডান বাম কেউ না। ভারতে বসে আমরা মনে করতাম যে কত অকৃতজ্ঞ একটি জাতির নাম বাংলাদেশী হতে পারে ভাবা যায় না। আওয়ামী লীগের নাম অস্তিত্ব হারিয়ে গিয়েছিল। তিনি শেখ মুজিবর রহমান। তার একমাত্র জীবিত বংশধর কখনো জেলে, কখনো আক্রান্ত, কখনো ভারতে প্রনব মুখারজির দিল্লীর বাসায় অবস্থান করে প্রান বাচাচ্ছেন। তার একমাত্র পুত্র সন্তানকে রক্ষা করতে আমেরিকাতে রেখেছেন। বোনেদের আস্তানা লন্ডন। তিনি শেখ হাসিনা।

বঙ্গবন্ধু নাকি কিছুই করেননি। সব করেছিলেন জেনারেল জিয়াউর রহমান, তিনিই স্বাধিনতা ঘোষণা দিয়েছিলেন বেতারে, তিনি ছিলেন মুক্তিযুদ্ধে লড়াইয়ের ময়দানে। আর শেখ সাহেব পাক জেলে বসে নাকি আরাম করে দিন কাটিয়েছেন। জিয়া ও তার সহধর্মিণী, জামায়তি ইসলাম আর ফৌজি এরসাদ ছিলেন দেশপ্রেমিক আর বঙ্গবন্ধু ও তার পরিবার ছিলেন দেশদ্রোহী ও ভারতপন্থী। ইসলামকে রক্ষা করেছিলেন এই লীগ বিরোধী শাসকেরা আর লিগাররা ইসলামের সর্বনাশকারী। সৌদি আরব, পাকিস্তান হয়ে উঠেছিল প্রানের মিত্র আর প্রতিবেশী ভারত হল দুশমন।

ভারত বিরোধী প্রচার চলেছিল লাগাতার। জামায়তি ও বামপন্থীরা পাকিস্তান ভাগের জন্য ভারত ও তার দালাল শেখ পরিবারকে দায়ি করেছিল। আওয়ামী লীগের সেকুলার নীতির মাধ্যমে বাংলাদেশ থেকে ইসলামকে ধংস করে দিতে চেয়েছিল, নাস্তিকতাবাদকে, বিধর্মী হিন্দু ও অন্যান্যদের অন্যায় প্রশ্রয় দিয়েছিল। সেই অন্ধকারের ২৪ টি বছর ছিল সত্যকে মিথ্যা ও মিথ্যাকে সত্য করার ছলাকলা। ইসলামের নামে ভারতের নামে সমগ্র জাতিকে বেকুব বানিয়ে দীর্ঘদিন অপশাসন করে গেছে।

৭১এর মুক্তিযুদ্ধে ভারতের মহান অবদান কুৎসার জোরে ভুলিয়ে দেয়া হয়েছিল। তাদের মোক্ষম অস্ত্র ছিল মসজিদ, মাদ্রাসা ও হিন্দু বিদ্বেষ ও হিন্দুদের উপর লাগাতার নির্যাতন, হিন্দু সম্মত্তি লুণ্ঠন, হিন্দু নারী ধর্ষণ, বলপূর্বক ধরমান্তকরন। ১৯৪৬ এ নোয়াখালীতে হিন্দু গনহত্যা দিয়ে যার শুরু, ১৯৭১এ পাক সেনা-রাজাকারের সংগঠিত গনহত্যায় ত্রিশ লক্ষ হিন্দুর রক্তে ভেসে গেছে বাংলাদেশ, চার লক্ষ হিন্দু নারী বলাৎকার ও হত্যা বিশ্বের বিবেককে নাড়িয়ে দিয়েছিল। ১৯৭৫ এ পরিবার সমেত বঙ্গবন্ধুকে হত্যা করে বাংলাদেশে তৈরি হয়েছিল এক জঙ্গল রাজ। সেদিন থেকে আজ পর্যন্ত চলমান সংখ্যালঘু নির্যাতন ও অতীত বর্তমানের শাসক গুষ্টির প্রত্যক্ষ পরোক্ষ মদত সমগ্র বিশ্বে বাংলাদেশকে প্রশ্নবিদ্ধ করেছে।

সংবাদ মাধ্যমের প্রকাশিত তথ্য থেকে জানা যায় যে শেখ হাসিনা শাসনের বিগত নয়টি বছরে বিগত বিএনপি শাসনে হিন্দু নির্যাতনকে ছাড়িয়ে গেছে। প্রতিবাদে ভারতে বিশ্ব হিন্দু পরিষদ দিল্লী ও কলকাতায় বাংলাদেশ দুতাবাসের সামনে বিক্ষোভ জানিয়ে বাংলাদেশ প্রধান মন্ত্রীর কুশপুত্তলিকা দাহ করে। যদিও ভারতের নরেন্দ্র মোদী সরকার হাসিনা সরকারকে সর্বদিক দিয়ে সর্বতভাবে সহায়তা দান করে চলেছে। কিন্তু আওয়ামী লীগের ভিতরে ও বাহিরে উগ্র ইসলামি মৌলবাদকে নিয়ন্ত্রন করা যাচ্ছে না যা খুবই উদ্বেগের বিষয়। হাসিনা সরকার হেফাজতি ইসলাম, ওলামা লীগ নামে ওয়াহাবি কট্টর ইসলামি চেতনায় লালিত শক্তির সাথে আপোষ রফা করে ওদের শান্ত করার চেষ্টা করেছে। ওদের দাবী মত স্কুল পাঠ্য সিলেবাসের ইসলামিকরন করেছে, রবীন্দ্রনাথসহ হিন্দু লেখকদের লেখা বাদ দিয়েছে, আদালত প্রাঙ্গন থেকে বাঙ্গালি ভাস্কর মৃণাল হকের নারী মূর্তি সরিয়ে দিয়েছে, সংবিধান সংশোধন করে ফৌজি শাসনে বেআইনি ভাবে সংশোধিত ‘বিসমিল্লা রহিম এ রহিম’ ইসলামি রিপাবলিকের সংবিধানে রেখে দেয়ার প্রতিশ্রুতি দিয়েছে। এই ভাবে গোটা দেশে এক ভয় আতংকের পরিবেশ তৈরি করে নির্যাতিত হিন্দু নাগরিকদের ভারতমুখি করে তুলেছে। অসাম্প্রদায়িক মুসলমান মানুষ নিরাপত্তার অভাব বোধ করছেন প্রতিনিয়ত।

আওয়ামী লীগের শাসনে বাংলাদেশে খিলাপতি শরীয়তী শাসন কায়েম করতে ইসলামি সন্ত্রাসবাদ মাথা চাড়া দিয়ে উঠেছে। প্রগতি চিন্তাশীল, বুদ্ধিজীবী ও নাস্তিক ইত্যাদি অগুন্তি মুসলিম যুবকের রক্তে রক্তাক্ত বাংলাদেশ। রবীন্দ্রনাথ, নজরুল প্রেমী মুসলিম হিন্দু বাঙ্গালি আগামিদিনে বঙ্গ সংস্কৃতি ও বাঙ্গালিত্ব আর বজায় থাকবে কিনা ভেবে উদ্বিগ্নতায় দিন যাপন করছে। যদিও হাসিনা সরকারের প্রচার ‘ধর্ম যার যার, দেশ সবার’ এর উপর আর সাধারন ও দরিদ্র হিন্দু ও অন্যান্য প্রান্তিয় মানুষ আস্থা রাখতে পারছে না। যদিও দেশের আইন শৃঙ্খলা বাহিনী জঙ্গিবাদ বিরোধী অভিযান অব্যাহত রেখেছে। ৭১এর হিন্দু ও স্বাধীনতাকামি মুসলমান নাগরিকদেরকে গনহত্যায় অভিযুক্ত রাজাকার নেতাদের একের পর এক মৃত্যুদণ্ড দেয়া হয়েছে। তথাপি ভয় ও আতংকের পরিবেশ কাটিয়ে উঠা যাচ্ছে না। রাষ্ট্র ক্ষমতা থেকে প্রত্যক্ষ মদত না পেয়ে এই বিদেশী সাহায্য পুষ্ট ইসলামি সন্ত্রাসীরা দিন দিন আরও মরিয়া হয়ে উঠছে ও পাকিস্তান থেকে বিচ্ছিন্ন একটি স্বাধীন দেশে এক চরম বিশৃঙ্খলা ও নৈরাজ্যের পরিবেশ তৈরি করতে চাইছে, যেমন এদের বিদেশী আকারা করেছে সিরিয়া, লেবানন, ইরাক, আফঘানিস্তান, পাকিস্তান ও কাশ্মীরে। শেখ হাসিনা সরকার যে সমস্ত উন্নয়ন মুলক কাজ কর্ম করেছে, যার সুফল পাচ্ছেন দেশবাসী, সমাজে অরাজকতা সৃষ্টি সেই ভাল কাজগুলিকে ভুলিয়ে দিতে উদ্যোগী হয়েছে।

জেল থেকে মুক্ত হয়ে কলকাতার জনসমুদ্রের এক প্রকাশ্য সভায় বঙ্গবন্ধুকে আত্মপ্রত্যয়ের সাথে ভাষণ দিতে দেখেছিলাম তাকে খুব কাছে থেকে। তিনি স্বপ্ন দেখেছিলেন তার সাধের বাংলাদেশ নিয়ে, প্রানের বাঙ্গালি জাতিকে নিয়ে। তিনি ধর্ম নির্বিশেষে বঙ্গ জাতির অবিসংবাদিত নেতা হয়ে উঠেছিলেন। তার বেঁচে থাকা ও স্বদেশ প্রত্যাবর্তনের সব কৃতিত্ব তিনি শ্রীমতি ইন্দিরা গান্ধীকে দিয়েছিলেন। ৭১এ যুদ্ধে দেশ ছেড়ে আসা কয়েক কোটি বাংলাদেশী শরণার্থীকে আশ্রয় দেবার জন্য দুর্দিনের বন্ধু ভারত ও ভারতের মানুষের প্রতি কৃতজ্ঞতা জানিয়েছিলেন। তিনি যুদ্ধোত্তর এক শ্মশান ও কবরস্থানে পরিণত এই বাংলাদেশকে সর্বাত্মক সাহায্য দানের আবেদন করেছিলেন। ভারতবর্ষ তার কথা রেখেছে, কিন্তু কথা রাখেনি অকৃতজ্ঞ ইসলামি মৌলবাদ ও তার দোসর ভারত বিদ্বেষী বঙ্গবন্ধু পরবর্তী শাসকবর্গ।

http://www.anandalokfoundation.com/