13yercelebration
ঢাকা
আজকের সর্বশেষ সবখবর

তিন বছর আগের অবস্থানে দেশের শেয়ারবাজার, টানা দরপতনে বাজার ছাড়ছেন বিনিয়োগকারীরা

Link Copied!

ঈদের পর ফের টানা দরপতনের মধ্যে পড়েছে পুঁজিবাজার। দিন যতই যাচ্ছে পুঁজিবাজারের প্রতি বিনিয়োগকারীদের আস্থা সংকট ততই বেড়েছে। ফলে পুঁজিবাজারের প্রতি অনাহী হয়ে বাজার ছাড়ছেন বিনিয়োগকারীরা। আর টানা দরপতনে অভিবাভকহীন শুন্য পুঁজিবাজার। কারণ পুঁজিবাজারে টানা পতন ঠেকাতে ব্যর্থ হচ্ছে নিয়ন্ত্রক সংস্থা বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশন (বিএসইসি)।

বিএসইসির কোনো উদ্যোগই বাজারে পতন ঠেকাতে কার্যকর হচ্ছে না। কিছুদিন পরপর অনিয়ন্ত্রিত উত্থান-পতন বাজার নিয়ন্ত্রণে বিএসইসির ব্যর্থতাকে বারবার সামনে নিয়ে এসেছে। বাজার নিয়ন্ত্রণের ব্যর্থতার পাশাপাশি সংস্থাটি কারসাজি রোধেও দৃষ্টান্তমূলক ব্যবস্থা নিতে পারেনি। ফলে বিনিয়োগকারীদের মধ্যে চরম আস্থার সঙ্কট তৈরি হয়েছে। একাধিক বিনিয়োগকারীর সাথে আলাপ কালে জানা যায়, মূলত দুই কারণে বাজার ছেড়ে যাচ্ছেন তারা। এর মধ্যে প্রথম কারণ বাজারে স্থিতিশিল পরিবেশ না থাকা। অথাৎ পুঁজির নিরাপত্তা পাচ্ছেন তারা। লাভের বদলে লোকসানের হিসাব কষতে হচ্ছে তাদের।

২০২১ সালের ১১ মে প্রধান শেয়ারবাজার ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের (ডিএসই) প্রধান সূচক ছিল ৫ হাজার ৭২৪ পয়েন্টে। আজ আবারও পতনের কাঁপন ধরিয়ে ডিএসই’প্রধান সূচক নেমে গেছে ৫ হাজার ৬৮৬ পয়েন্টে। অর্থাৎ ডিএসই’র সূচক ফিরে গেল ২ বছর ১১ মাসের আগের অবস্থানে। যদিও এই সময়ের মধ্যে শেয়ারবাজারে যুক্ত হয়েছে নতুন ২৪টির বেশি আইপিও শেয়ার।

বাজার বিশ্লেষকরা বলছেন, গত তিন বছরে অভিহিত মূল্যে ১৩টি এবং বুক বিল্ডিং পদ্ধতিতে ৯টি কোম্পানির আইপি’র শেয়ার সূচকে যুক্ত হয়েছে। এসব কোম্পানির শেয়ার সূচক থেকে বাদ দিলে ডিএসই’র সূচক৫ হাজারের নিচে নেমে যাবে।

বাজার বিশ্লেষণে দেখা যায়, দুই দিন বিরতি দিয়ে আজ বৃহস্পতিব (১৮ এপ্রিল) আবারও শেয়ারবাজারে কাঁপন ধরানো পতন হয়েছে। আজ ডিএসই’র প্রধান সূচক কমেছে ৭৭ পয়েন্টের বেশি। এর আগে গত সোমবার ডিএসই’র সূচক কমেছিল ৯০ পয়েন্ট। গত দুই কর্মদিবসে কমেছে যথাক্রমে ৪ পয়েন্ট ও ১১ পয়েন্ট। অর্থাৎ চলতি সপ্তাহের চার কর্মদিবসে ডিএসই’র সূচক থেকে উধাও হয়ে গেছে ১৮২ পয়েন্ট।

সপ্তাহের চতুর্থ কর্মদিবস আজ বৃহস্পতিবার (১৮ এপ্রিল) ডিএসই’র প্রধান সূচক ডিএসইএক্স ৭৭.০৮ পয়েন্ট কমে অবস্থান করছে ৫ হাজার ৬৮৬ পয়েন্টে। অন্য দুই সূচকের মধ্যে ডিএসই শরীয়াহ সূচক ১৫.৮৫ পয়েন্ট কমে অবস্থান করছে ১ হাজার ২৪৬ পয়েন্টে এবং ডিএসই-৩০ সূচক ২২.৭৭ পয়েন্ট কমে অবস্থান করছে ১ হাজার ৯৮৪ পয়েন্টে।

আজ ডিএসইতে ৫২২ কোটি ৫১ লাখ টাকার শেয়ার ও ইউনিট লেনদেন হয়েছে। আগের কর্মদিবসে লেনদেন হয়েছিল ৪৮২ কোটি ৫৩ লাখ টাকার। আগের দিনের চেয়ে লেনদেন বেড়েছে ৩৯ কোটি ৯৮ লাখ টাকা। আজ ডিএসইতে ৩৯৫টি প্রতিষ্ঠানের ও ইউনিট লেনদেন হয়েছে। এর মধ্যে দর বেড়েছে ২৯টির, কমেছে ৩৪২টির এবং অপরিবর্তিত রয়েছে ২৪টির।

অপর শেয়ারবাজার চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জে (সিএসই) আজ ১৮ কোটি ০৫ লাখ টাকার শেয়ার ও ইউনিট লেনদেন হয়েছে। আগের দিন লেনদেন হয়েছিল ১১ কোটি ৮৬ লাখ টাকার শেয়ার ও ইউনিট। আজ সিএসইতে ২১১টি প্রতিষ্ঠান লেনদেনে অংশ নিয়েছে। এর মধ্যে দর বেড়েছে ৩৬টির, কমেছে ১৫৭টির এবং অপরিবর্তিত রয়েছে ১৮টি প্রতিষ্ঠানের। আগের দিন সিএসইতে ২০৩টি প্রতিষ্ঠানের শেয়ার ও ইউনিট লেনদেন হয়েছে। যার মধ্যে দর বেড়েছিল ৭০টির, কমেছিল ১০৬টির এবং অপরিবর্তিত ছিল ২৭টি প্রতিষ্ঠানের।

বাজার সংশ্লিষ্টরা বলছেন, গত সোমবার ইসরায়েলে ইরানের রকেট হামলার প্রেক্ষিতে বিশ্বের অন্যান্য শেয়ারবাজারের মতো বাংলাদেশের শেয়ারবাজারেও বড় পতন হয়েছে। কিন্তু পরের দিন থেকে বিশ্বের শেয়ারবাজার ঘুরে দাঁড়িয়েছে। কিন্তু বাংলাদেশের শেয়ারবাজার পতনের বৃত্তেই আটকে আছে।

http://www.anandalokfoundation.com/