13yercelebration
ঢাকা
আজকের সর্বশেষ সবখবর

জেনে নেই ১২টি বাজেট পেশ করা সাবেক অর্থমন্ত্রী মুহিতের বর্ণাঢ্য জীবন

নিউজ ডেস্ক
April 30, 2022 7:09 am
Link Copied!

বাংলাদেশের সাবেক সফল অর্থমন্ত্রী, বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য, ভাষা-সৈনিক ও বীর মুক্তিযোদ্ধা আবুল মাল আব্দুল মুহিত ৮৮ বছর ৩ মাস ৪দিনে গতকাল শুক্রবার দিবাগত রাতে ১২টা ৫৬ মিনিটে রাজধানীর ইউনাইটেড হাসপাতালে তিনি শেষ নি:শ্বাস ত্যাগ করেন। জেনে নেই প্রখ্যাত রাজনীতিবিদ ১২টি বাজেট পেশ করা সাবেক অর্থমন্ত্রী মুহিতের বর্ণাঢ্য জীবন।

১৯৩৪ সালের ২৫ জানুয়ারি তৎকালীন ভারতের শ্রীহট্ট বর্তমান সিলেটে জন্ম নেন আবুল মাল আব্দুল মুহিত। বাবা অ্যাডভোকেট আবু আহমদ আব্দুল হাফিজ এবং মা সৈয়দ শাহার বানু চৌধুরী। দুইজনই রাজনীতি ও সমাজসেবায় সক্রিয় ছিলেন। সংস্কৃতিমান পারিবারিক আবহে বেড়ে ওঠা মুহিত কৈশোরেই সাহিত্য-সংস্কৃতি চর্চায় জড়িয়ে পড়েন। শিশু কিশোর সংগঠন ‘ মুকুল ফৌজ’ গঠন করে নেমে পড়েন সৃজনশীল চর্চায়। আটাশি বছর বয়সে তার সৃজনশীল চর্চা থেমে থাকেনি।

আবুল মাল আবদুল মুহিত ছাত্রজীবনে অত্যন্ত মেধাবী ছিলেন। তিনি ১৯৪৮ সালে স্কুল ছাত্র হিসেবে প্রগতিশীল ছাত্র রাজনীতিতে যোগ দেন এবং রাষ্ট্রভাষা আন্দোলনে জড়িত হন। ১৯৪৯ সালে সিলেট সরকারি পাইলট হাইস্কুল থেকে প্রবেশিকা পরীক্ষায় কৃতকার্য হন। ১৯৫১ সালে সিলেট এমসি কলেজ  থেকে আইএ পরীক্ষায় প্রথম স্থান, ১৯৫৪ সালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ইংরেজি সাহিত্যে বিএ (অনার্স) পরীক্ষায় প্রথম শ্রেণিতে প্রথম এবং ১৯৫৫ সালে একই বিশ্ববিদ্যালয় থেকে কৃতিত্বের সাথে এমএ পাশ করেন। চাকুরিরত অবস্থায় তিনি অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ে অধ্যয়নসহ হার্ভার্ড বিশ্ববিদ্যালয় থেকে এমপিএ ডিগ্রি লাভ করেন।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে ইংরেজি সাহিত্যে স্নাতকের পর পাকিস্তান সিভিল সার্ভিসে যোগ দেন ১৯৫৬ সালে। পাকিস্তান কর্মপরিকল্পনা কমিশনের প্রধান ও উপসচিব হিসেবেও তিনি পূর্ব ও পশ্চিম পাকিস্তানের বৈষম্য প্রতিবেদন আকারে তুলে ধরেন। পরে, মুক্তিযুদ্ধ চলাকালিন যুক্তরাষ্ট্রের পাকিস্তান দূতাবাসে কূটনীতিকের দায়িত্বে থাকা মুহিত পাকিস্তানের পক্ষ ত্যাগ করে বাংলাদেশকে সমর্থন করেন।

স্বাধীন বাংলাদেশে ১৯৭২ সালে তাকে পরিকল্পনা কমিশনের সচিব হিসেবে নিয়োগ দেয়া হয়। ১৯৭৭ সালে অর্থ ও পরিকল্পনা মন্ত্রণালয়ের বহি:সম্পদ বিভাগের সচিব হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন মুহিত।

১৯৮১ সালে সরকারি চাকরি থেকে স্বেচ্ছায় অবসরের পর ১৯৮২ ও ৮৩ সালে এরশাদ সরকারের অর্থ ও পরিকল্পনা মন্ত্রণালয়ে উপদেষ্টা হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন তিনি।

পরবর্তিতে ফোর্ড ফাউন্ডেশন, বিশ্বব্যাংক, আইডিবি, আন্তর্জাতিক মুদ্রা তহবিল, আন্তর্জাতিক কৃষি উন্নয়ন সংস্থা-ইফাদ সহ জাতিসংঘের বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে নানা পদে দায়িত্ব পালন করেন আবুল মাল আবদুল মুহিত।

২০০৯ সালের নবম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগের নেতৃত্বাধীন মহাজোটের পক্ষ থেকে সিলেট-১ আসন থেকে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন তিনি। নবম জাতীয় সংসদের সব কয়টি বাজেটই প্রণয়ন করেন মুহিত। দশম জাতীয় সংসদে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় সাংসদ নির্বাচিত হয়ে আবারও অর্থ মন্ত্রনালয়ের দায়িত্ব পান প্রবীন এই রাজনীতিবিদ।

আওয়ামী লীগ সরকারের টানা দশম এবং তার জীবনে ১২তম বাজেট পেশ করবেন আমলা থেকে রাজনীতিতে যোগ দেয়া এই বর্ষিয়ান এই নেতা।

বাংলাদেশের সফল সাবেক অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত আর নেই। শুক্রবার দিবাগত রাতে ১২টা ৫৬ মিনিটে রাজধানীর ইউনাইটেড হাসপাতালে তিনি শেষ নি:শ্বাস ত্যাগ করেন।

এখন পর্যন্ত ঘোষিত ৫০টি বাজেট সংসদে পেশ করেছেন ১২ জন। তাদের একজন রাষ্ট্রপতি, ৯ জন অর্থমন্ত্রী ও ২ জন অর্থ উপদেষ্টা এসব বাজেট পেশ করেন। তাদের মধ্যে ১২টি করে বাজেট দিয়ে যৌথভাবে শীর্ষে রয়েছেন বিএনপি সরকারের প্রয়াত অর্থমন্ত্রী এম সাইফুর রহমান এবং আওয়ামী লীগ ও এরশাদ সরকারের অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত। এম সাইফুর রহমান জিয়াউর রহমানের নেতৃত্বাধীন সরকারের আমলে দুইটি এবং খালেদা জিয়ার নেতৃত্বাধীন দুই পূর্ণ মেয়াদে আরও ১০টি বাজেট উত্থাপন করেন।

অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত ১২টি বাজেট পেশ করেছেন। তিনি টানা ১০টি বাজেট উপস্থাপনের রেকর্ডও গড়েছেন। ২০১৮-১৯ অর্থবছরে জাতীয় সংসদের ৪৮তম, নিজের ১২তম ও শেষ বাজেট উপস্থাপন করেন মুহিত।

২০১৮-১৯ সালে বাজেট পেশের আগে গণমাধ্যমে আবুল মাল আবদুল মুহিত বলেছিলেন, ইতোমধ্যে বাজেট উপস্থাপনের ক্ষেত্রে রেকর্ড করে ফেলেছি। টানা ৯টি বাজেট দিয়েছি।  বাকি আছে আর একটি বাজেট। এটি দিলে টানা ১০টি। আর মোট বাজেট উপস্থাপন হবে ১২টি। তাতে অতীতের রেকর্ড ছুঁয়ে ফেলব।

স্বাধীনতার পর বাজেটের আকার এবং অর্থমন্ত্রীর তালিকা

১৯৭২-৭৩ তাজউদ্দীন আহমদ ৭৮৬ কোটি টাকা।

১৯৭৩-৭৪ তাজউদ্দীন আহমদ ৯৯৫ কোটি টাকা।

১৯৭৪-৭৫ তাজউদ্দীন আহমদ ১০৮৪.৩৭ কোটি টাকা।

১৯৭৫-৭৬ ড. আজিজুর রহমান ১৫৪৯.১৯ কোটি টাকা।

১৯৭৬-৭৭ মেজর জেনারেল জিয়াউর রহমান ১৯৮৯.৮৭ কোটি টাকা।

১৯৭৭-৭৮ লে. জেনারেল জিয়াউর রহমান ২১৮৪ কোটি টাকা।

১৯৭৮-৭৯ রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমান ২৪৯৯ কোটি টাকা।

১৯৭৯-৮০ ড. এম এন হুদা ৩৩১৭ কোটি টাকা।

১৯৮০-৮১ এম সাইফুর রহমান ৪১০৮ কোটি টাকা।

১৯৮১-৮২ এম সাইফুর রহমান ৪৬৭৭ কোটি টাকা।

১৯৮২-৮৩ আবুল মাল আবদুল মুহিত ৪৭৩৮ কোটি টাকা।

১৯৮৩-৮৪ আবুল মাল আবদুল মুহিত ৫৮৯৬ কোটি টাকা।

১৯৮৪-৮৫ এম সাইদুজ্জামান ৬৬৯৯ কোটি টাকা।

১৯৮৫-৮৬ এম সাইদুজ্জামান ৭১৩৮ কোটি টাকা।

১৯৮৬-৮৭ এম সাইদুজ্জামান ৮৫০৪ কোটি টাকা।

১৯৮৭-৮৮ এম সাইদুজ্জামান ৮৫২৭ কোটি টাকা।

১৯৮৮-৮৯ মেজর জেনারেল (অব.) মুনিম ১০৫৬৫ কোটি টাকা।

১৯৮৯-৯০ ড. ওয়াহিদুল হক ১২৭০৩ কোটি টাকা।

১৯৯০-৯১ মেজর জেনারেল (অব.) মুনিম ১২৯৬০ কোটি টাকা।

১৯৯১-’৯২ এম সাইফুর রহমান ১৫৫৮৪ কোটি টাকা।

১৯৯২-৯৩ এম সাইফুর রহমান ১৭৬০৭ কোটি টাকা।

১৯৯৩-৯৪ এম সাইফুর রহমান ১৯০৫০ কোটি টাকা।

১৯৯৪-৯৫ এম সাইফুর রহমান ২০৯৪৮ কোটি টাক।

১৯৯৫-৯৬ এম সাইফুর রহমান ২৩১৭০ কোটি টাকা।

১৯৯৬-৯৭ এসএএমএস কিবরিয়া ২৪৬০৩ কোটি টাকা।

১৯৯৭-৯৮ এসএএমএস কিবরিয়া ২৭৭৮৬ কোটি টাকা।

১৯৯৮-৯৯ এসএএমএস কিবরিয়া ২৯৫৩৭ কোটি টাকা।

১৯৯৯-০০ এসএএমএস কিবরিয়া ৩৪২৫২ কোটি টাকা।

২০০০-০১ এসএএমএস কিবরিয়া ৩৮৫২৪ কোটি টাকা।

২০০১-০২ এসএএমএস কিবরিয়া ৪২৩০৬ কোটি টাকা।

২০০২-০৩ এম সাইফুর রহমান ৪৪৮৫৪ কোটি টাকা।

২০০৩-০৪ এম সাইফুর রহমান ৫১৯৮০ কোটি টাকা।

২০০৪-০৫ এম সাইফুর রহমান ৫৭২৪৮ কোটি টাকা।

২০০৫-০৬ এম সাইফুর রহমান ৬১০৫৮ কোটি টাকা।

২০০৬-০৭ এম সাইফুর রহমান ৬৯৭৪০ কোটি টাকা।

২০০৭-০৮ এবি মির্জ্জা আজিজুল ইসলাম ৯৯৯৬২ কোটি টাকা।

২০০৮-০৯ এবি মির্জ্জা আজিজুল ইসলাম ৯৯৯৬২ কোটি টাকা।

২০০৯-১০ আবুল মাল আবদুল মুহিত ১১৩,৮১৫ কোটি টাকা।

২০১০-১১ আবুল মাল আবদুল মুহিত ১৩২,১৭০ কোটি টাকা।

২০১১-১২ আবুল মাল আবদুল মুহিত ১৬৫,০০০ কোটি টাকা।

২০১২-১৩ আবুল মাল আবদুল মুহিত ১৯১,৭৩৮ কোটি টাকা।

২০১৩-১৪ আবুল মাল আবদুল মুহিত ২ লাখ ২২ হাজার ৪৯১ কোটি টাকা।

২০১৪-১৫ আবুল মাল আবদুল মুহিত ২ লাখ ৫০ হাজার ৫০৬ কোটি টাকা।

২০১৫-১৬ আবুল মাল আবদুল মুহিত ২ লাখ ৯৫ হাজার ১০০ কোটি টাকা।

২০১৬-১৭ আবুল মাল আবদুল মুহিত, ৩ লাখ ৪০ হাজার ৬০৫ কোটি টাকা।

২০১৭-১৮ আবুল মাল আবদুল মুহিত, ৪ লাখ ২৭০ কোটি টাকা।

২০১৮-১৯ আবুল মাল আবদুল মুহিত, ৪ লাখ ৬৪ হাজার ৫৭৩ কোটি টাকা।

২০১৯-২০ আ ফম মুস্তফা কামাল, ৫ লাখ ২৩ হাজার ১৯০ কোটি টাকা।

২০২০-২১ আ ফম মুস্তফা কামাল, ৫ লাখ ৬৮ হাজার কোটি টাকা।

২০২১-২২  আ ফম মুস্তফা কামাল, ৬ লাখ ৩ হাজার ৬৮১ কোটি টাকা।

২০২২-২৩ (চলতি)  আ ফম মুস্তফা কামাল, ৬ লাখ ৮০ হাজার কোটি।

http://www.anandalokfoundation.com/