13yercelebration
ঢাকা
আজকের সর্বশেষ সবখবর

জলাতঙ্কের অবসান, সকলে মিলে সমাধান প্রতিপাদ্যে পালিত হচ্ছে বিশ্ব জলাতঙ্ক দিবস

ডেস্ক
September 28, 2023 7:48 am
Link Copied!

আজ বিশ্ব জলাতঙ্ক দিবস।  বিশ্বের অন্যান্য দেশের ন্যায় ‘জলাতঙ্কের অবসান, সকলে মিলে সমাধান’ প্রতিপাদ্য নিয়ে এবার বাংলাদেশেও বিভিন্ন আয়োজেন পালিত হচ্ছে দিবসটি।

সূত্র মতে, জলাতঙ্কের টিকা আবিষ্কারক বিখ্যাত বিজ্ঞানী লুই পাস্তুর ১৮৯৫ সালের ২৮ সেপ্টেম্বর মৃত্যুবরণ করেন। তার মৃত্যুর দিনকে স্মরণীয় করে রাখতে ২০০৭ সাল থেকে এই দিনটিকে বিশ্ব জলাতঙ্ক দিবস হিসেবে পালন করা হয়।

দিবসটি উপলক্ষে রাষ্ট্রপতি মোঃ সাহাবুদ্দিন তার বাণীতে বলেন, জলাতঙ্ক বাংলাদেশে একটি পরিচিত রোগ হলেও সচেতনতা ও সঠিক পরিচর্যার অভাবে রোগটির প্রভাব অনেক বেশি। তাই জলাতঙ্কের বিরুদ্ধে জনসচেতনতা সৃষ্টির লক্ষ্যে ২০০৭ সাল থেকে বিশ্ব জলাতঙ্ক দিবস পালিত হয়ে আসছে। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার তথ্যমতে বর্তমানে বিশ্বে প্রতি ৯ মিনিটে একজন মানুষ জলাতঙ্ক রোগে মৃত্যুবরণ করে এবং প্রতি দশজন মৃত্যুবরণকারীর মধ্যে চারজনই শিশু। সঠিক সময়ে চিকিৎসা করলে জলাতঙ্ক শতভাগ প্রতিরোধযোগ্য। এ প্রেক্ষাপটে এ বছরের প্রতিপাদ্য ‘Rabbies:  All for 1, One Health for All’ অর্থাৎ ‘জলাতঙ্কের অবসান, সকলে মিলে সমাধান’ সময়োপযোগী ও যথার্থ হয়েছে বলে আমি মনে করি।

রাষ্ট্রপতি আরও বলেন, জলাতঙ্ক প্রতিরোধে সরকার বিভিন্ন মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল, সংক্রামক ব্যাধি হাসপাতাল, বিআইটিআইডি হাসপাতাল, জেলা সদর হাসপাতাল ও উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে বিনামূল্যে জলাতঙ্ক প্রতিরোধী ভ্যাকসিন সরবরাহ করছে। বাংলাদেশের সাধারণ জনগোষ্ঠীর মধ্যে জলাতঙ্কের হার পূর্বের তুলনায় হ্রাস পেলেও ভৌগোলিক অবস্থান, অসচেতনতা, ঝুঁকিপূর্ণ জনগোষ্ঠীর অনিয়ন্ত্রিত আচরণ ও ভ্রান্ত ধারণার জন্য এদেশে জলাতঙ্কের ঝুঁকি এখনও বিদ্যমান। তাই সচেতনতা বৃদ্ধি, কুসংস্কার দূরীকরণ ও মানুষের আচরণ পরিবর্তনে সরকারি কার্যক্রমের পাশাপাশি বেসরকারি প্রতিষ্ঠান ও উন্নয়ন সহযোগী সংস্থাসমূহের কার্যকরী অংশগ্রহণ অতীব জরুরি। এ লক্ষ্যে সকলের সম্মিলিত সহযোগিতা ও কার্যকর পদক্ষেপ জলাতঙ্ক নির্মূলে ইতিবাচক অবদান রাখবে বলে আমার বিশ্বাস।

দিবসটি উপলক্ষে প্রধানমন্ত্রী তার বাণীতে বলেন, দেশে জলাতঙ্ক রোগে মৃত্যু শূন্যের কোঠায় নিয়ে আসতে আমরা বদ্ধপরিকর। ২০০৯ সাল থেকে আওয়ামী লীগ সরকার ধারাবাহিকভাবে সরকার পরিচালনার দায়িত্ব পেয়ে বিভিন্ন কর্মসূচি গ্রহণ ও বাস্তবায়ন করে আসছে। বাংলাদেশের প্রান্তিক জনগোষ্ঠীর স্বাস্থ্যসেবা নিশ্চিত করার লক্ষ্যে সরকারের আন্তরিক প্রচেষ্টায় বিভিন্ন মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল, বিআইটিআইডি হাসপাতাল, চট্টগ্রাম ও সংক্রামকব্যাধি হাসপাতাল, মহাখালী এবং জেলা সদর হাসপাতাল ও উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে বিনামূল্যে জলাতঙ্ক প্রতিরোধী টিকা সরবরাহ করা হচ্ছে। এছাড়াও ব্যাপক হারে জনসচেতনতা বৃদ্ধি, আক্রান্তদের চিকিৎসা ও টিকা প্রদানের পাশাপাশি কুকুরের টিকা দান (এমডিভি) এবং কুকুরের জন্ম নিয়ন্ত্রণ মাধ্যমে দেশকে জলাতঙ্কের ঝুঁকি থেকে মুক্ত করতে সর্বাত্মক প্রচেষ্টা অব্যাহত রেখেছি। এ ক্ষেত্রে সরকারি কার্যক্রমের পাশাপাশি বেসরকারি প্রতিষ্ঠান ও উন্নয়ন সহযোগী সংস্থাসমূহের কার্যকরী ভূমিকা আহ্বান করছি। জলাতঙ্ক বিষয়ক Global Strategy তে ২০৩০ সালের মধ্যে জলাতঙ্কমুক্ত বিশ্ব গড়ার অঙ্গীকার বাস্তবায়নের লক্ষ্যে আমরা নিরলস কাজ করে যাচ্ছি।

জলাতঙ্ক হলো ভাইরাসজনিত একটি মারাত্মক সংক্রামক রোগ। এটি এক প্রকার নীরব ঘাতক। সংশ্লিষ্টরা বলছেন, জলাতঙ্ক রোগে মৃত্যু অনিবার্য হলেও এ রোগ শতভাগ প্রতিরোধযোগ্য। গবেষণায় দেখা গেছে, আক্রান্তদের ৭৮ ভাগই আধুনিক চিকিৎসা নেন না। এর মধ্যে ৭০ ভাগই পুরুষ। আর ৪৭ ভাগ শিশু, যাদের বয়স ১৫ বছরের কম। ৮২ ভাগই গ্রামে থাকেন এবং ৯০ ভাগ কুকুরের কামড়ে সংক্রমিত।

বিড়াল, শেয়াল ও বেজি দ্বারা সংক্রমিত জলাতঙ্কের হার যথাক্রমে ৬ শতাংশ, ৩ শতাংশ ও ও ১ শতাংশ। প্রাণীর কামড়ে আক্রান্তের হার ৯৫ শতাংশ এবং আঁচড়ে ৫ শতাংশ। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা বলছে, দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ায় ৯৬ শতাংশ জলাতঙ্ক সংক্রমণের জন্য কুকুর দায়ী। কুকুরদের গণহারে টিকাদান, অভিভাবকত্ব প্রসারণ, জন্ম নিয়ন্ত্রণ ও জনসচেতনতা বাড়িয়ে জলাতঙ্ক নিয়ন্ত্রণ সম্ভব। স্বাস্থ্য বিভাগ থেকে বলা হচ্ছে, দেশে ২০১০ সালের আগে জলাতঙ্ক রোগে ২ হাজারের বেশি মানুষের মৃত্যু হতো। ২০২৩ সালের জুন মাসে এসে তা কমে দাঁড়িয়েছে মাত্র ২৭ জনে।

২০১০ সাল থেকে বাংলাদেশ সরকার জলাতঙ্ক রোগ নিয়ন্ত্রণ ও নির্মূলকে একটি গুরুত্বপূর্ণ কর্মসূচি হিসেবে নেয়। স্বাস্থ্য বিভাগ, প্রাণিসম্পদ ও স্থানীয় সরকার বিভাগের যৌথ উদ্যোগে ২০১১-১২ সাল থেকে জলাতঙ্ক রোগ নির্মূল কার্যক্রম ব্যাপকভাবে শুরু করার পরিকল্পনা নেয়া হয়। জলাতঙ্ক রোগ নিয়ন্ত্রণে জাতীয় কৌশলপত্র প্রস্তুত করে দেশকে জলাতঙ্ক মুক্ত করার অঙ্গীকার নিয়ে এবং তা বাস্তবায়নে রোডম্যাপ তৈরি করা হয়। আর এসব বাস্তবায়নে নিরলসভাবে কাজ করছে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের রোগ নিয়ন্ত্রণ শাখার জুনোটিক ডিজিজ কন্ট্রোল প্রোগ্রাম। এর মাধ্যমে সারাদেশে সব জেলা সদর হাসপাতাল ও ৩৩৮টির বেশি উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে জলাতঙ্ক নিয়ন্ত্রণ ও প্রতিরোধ কেন্দ্র স্থাপন করা হয়েছে। পর্যায়ক্রমের দেশের সব উপজেলায় জলাতঙ্ক নিয়ন্ত্রণ ও প্রতিরোধ কেন্দ্র স্থাপন করা হবে। মহাখালীর সংক্রামক ব্যাধি হাসপাতাল ও ঢাকাস্থ ৫টি সরকারি মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল এবং কামরাঙ্গীরচর ৩১ শয্যা বিশিষ্ট হাসপাতালে জলাতঙ্কের আধুনিক চিকিৎসা কার্যক্রমও পরিচালিত হচ্ছে।

http://www.anandalokfoundation.com/