13yercelebration
ঢাকা
আজকের সর্বশেষ সবখবর

জন হিতৈষী লোকমাতা রাণী রাসমণির মহাপ্রয়াণ দিবসে শ্রদ্ধাঞ্জলি

ডেস্ক
February 19, 2024 8:00 am
Link Copied!

দানে, দয়ায় ব্যাক্তিত্বে, সাহসে, বুদ্ধিমত্তায় ও ভক্তিসাধনায় অনন্যা মহীয়সী নারী রানী রাসমণি। তীক্ষ্ণ বিষয় – বুদ্ধি, জনহিতকর কর্ম এবং ধর্মচর্চার প্রতি আকর্ষণে ইতিহাসের এক বিরল চরিত্র অধিকারী রাণী রাসমণি।  মাত্র ৬৮ বছর বয়সে ১৮৬১ খ্রীস্টাব্দে র ১৯-শে ফেব্রুয়ারি,  কলকাতার দক্ষিণেশ্বর কালীমন্দিরের প্রতিষ্ঠাতা ও জন হিতৈষী লোকমাতা রাণী রাসমণির মহাপ্রয়াণ ঘটে।

১৭৯৩ খ্রীস্টাব্দের ২৮ সেপ্টেম্বর পশ্চিমবঙ্গ  উত্তর চব্বিশ পরগনা জেলার  হালিশহরের, কোণা নামক  একটি  ছোট গ্রামে এক দরিদ্র কৃষিজীবী পরিবারে  জন্মগ্রহণ  করেন  রাণী রাসমণি। রাসমণির পিতা ছিলেন হরেকৃষ্ণ দাশ ও মাতা, রাম প্রিয়া দাশি।  পিতা হরেকৃষ্ণ দাস ছিলেন পেশায় একজন সাধারন দরিদ্র কৃষক ও গৃহনির্মাণকারী । শৈশবে   রাসমণির নাম তাঁর মা রামপ্রিয়া দাসীই প্রথম ভালোবেসে “রানী” রেখেছিলেন | পরে তাদের প্রতিবেশীদের সুবাদে তাঁর নাম হয়ে যায় রানী রাসমণি ।

সাত বছর বয়সে তিনি হয়েছিলেন মাতৃহারা। অসামান্যা সৌন্দর্যের অধিকারিণী রাণী রাসমণি মাত্র এগারো বছর বয়সে কলকাতার জানবাজারের  এক ধনী জমিদার বাবু রাজচন্দ্র দাস-এর সঙ্গে  বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হন।বিবাহ পূর্বে  জমিদারবাবু  রাসমণির রূপ ও লাবন্য ছাড়াও তেজস্বীনী এবং দুয়ালু রূপের সাথেও পরিচিত হয়েছিলেন যার ফলে তিনি রানীকে গভীরভাবে ভালোবেসে ফেলেন এবং বিবাহবন্ধনে আবদ্ধ হন। বিবাহ পরবর্তী কালে  রাণী রাসমণি এক পুত্রসন্তান, (যে জন্মের কিছু পরেই মারা যায় )  এবং চার কন্যার জন্মদত্রী হন। তাঁর কন্যারা হলেন যথাক্রমে পদ্মমনি,কুমারী,করুণাময়ী ও জগদম্বা।এদের মধ্যে কন্যা করুণার বিয়ে হয় মথুরবাবুর সাথে। কিন্তু বিবাহের কয়েক মাস অতিক্রম হওয়ার পরই  করুণার মৃত্যু হয়।

মথুরামোহন বিশ্বাস তখন জগদম্বা কে বিবাহ করেন।১৮৩৬ সালে রাণি রাসমণির স্বামীর মৃত্যু হলে তিনি স্বহস্তে তাঁর স্বামীর জমিদারির সব দায়িত্ব নিজের কাঁধে তুলে নেন এবং অত্যন্ত দক্ষতার সহকারে তা পরিচালনা করতে থাকেন।  স্বামীর মৃত্যুতে গভীরভাবে ভেঙে পড়লেও রাণী রাসমণি  দমে থাকেন নি।  তাঁর  নম্র স্বভাবের কারণে তিনি দরিদ্রদের প্রতি প্রচন্ড মমত্ববোধ দেখিয়েছিলেনএবং  পরবর্তীকালে তিনি দাতব্য প্রতিষ্ঠানের জন্য প্রচুর পরিমাণে অনুদান ও দিয়েছিলেন। এক সাধারণ ধার্মিক বাঙালি হিন্দু বিধবার ন্যায়ের সরল সাদাসিধে জীবন যাপন করতেন রাণী  রাসমণি তাঁর ব্যক্তিগত জীবনে। তৎকালীন গোঁড়া বাঙালি সমাজে বাবু রাজচন্দ্র দাশের স্ত্রী ছিলেন বলে , রাণী রাসমণি-কে রাসমণি দাশী বলেও সম্বোধন করে থাকত।

রাণী রাসমণির জনহিতকর কাজঃ রাসমণির এই বিশাল জনহিতকর কার্যাবলীর   পিছনে তাঁর স্বামী রাজচন্দ্রের অবদান ছিলো বিশাল। রাজচন্দ্র তাঁর স্ত্রীকে জনহিতকর কাজ করার ক্ষেত্রে সর্বদাই  উৎসাহ দিতেন এবং  পাশাপাশি, নিজের স্ত্রীর পাশেও থেকেছেন একজন বন্ধুর মতন করে।

একদা গঙ্গায় অসহায় জেলেদের মাছ ধরার উপর জলকর আরোপ করেছিলেন দুর্বৃত্ত  ইংরেজ সরকার । নিরুপায় হয়ে জেলেরা রাণীমার কাছে আবেদন করলে রাণীমা ইংরেজ সরকারকে ১০ হাজার টাকা কর প্রদান করেন এবং  ঘুসুড়ি থেকে মোটিয়াবুরুজ অঞ্চলের সমস্ত গঙ্গা জমা  হিসেবে নেন এবং জেলেদের সুবিধার্থে  রশি টানিয়ে জাহাজ ও নৌকো চলাচল বন্ধ করে দিয়েছিলেন।  ইংরেজ সরকার  রানি রাসমণির এই কার্যকলাপে আপত্তি জানায়।তবে রাসমণির বক্তব্য ছিল যে জাহাজ চলাচল করলে মাছ অন্য জায়গায় চলে যাবে আর যার ফলে জেলেদের ক্ষতি হতে পারে। এই পরিপ্রেক্ষিতে  ইংরেজ সরকার রাণী রাসমণির ১০ হাজার টাকা তাঁকে প্রত্যাবর্তন করেন এবং  জলকর  ও তুলে নেন।

এছাড়া এক নীলকর সাহেব সাধারণ প্রজাদের ওপর নির্যাতন শুরু করেছিল মকিমপুর পরগণায়।রাণী রাসমণি এই নিপীড়ন বন্ধ করেছিলেন। পরবর্তীতে তিনি এক লক্ষ টাকা ব্যয় করে স্টোনার খাল খনন করিয়েছিলেন যাতে মধুমতী নদীর সাথে নবগঙ্গার সংযোগ ঘটে।  তদুপরি রাণী রাসমণি সোনাই, বেলিয়াঘাটা ও ভবানীপুরে সাধারণ মানুষের সুবিধার্থে  বাজার স্থাপন করেছিলেন এবং কালীঘাটের নির্মাণ করেন ।

রাণী  রাসমণির মহৎ কাজের মধ্যে অন্যতম এবং সর্বোৎকৃষ্ট ছিল ধর্মচর্চার উদ্দেশ্যে দক্ষিণেশ্বরে কালী মন্দির নির্মাণ করা। দক্ষিণেশ্বর কালী মন্দিরের নির্মান কাজ শেষ হলে সেই মন্দিরের প্রধান পুরোহিত হিসাবে শ্রী রামকৃষ্ণ পরমহংসকে নিযুক্ত করেন রাণী রাসমণি।কথিত আছে যে, ১৮৪৭ খ্রীস্টাব্দে  রাণী রাসমণি মনস্থির করেছিলেন যে তিনি কাশীতে গিয়ে মা অন্নপূর্ণা ও বিশ্বনাথের পূজা দেবেন। যাত্রার জন্য ২৪টি নৌকো সমেত দাস-দাসী,  আত্মীয়-স্বজন সবকিছুই প্রস্তুত ছিল কিন্তু  যাত্রার পূর্ববর্তী রজনীর শেষ প্রহরে স্বয়ং মা ভবতারিণী রাণী রাসমণিকে স্বপ্নে দেখা দিয়ে জানিয়েছিলেন যে  কাশী যাওয়ার কোনো প্রয়োজন নেই, রাণীমা যেন দক্ষিণেশ্বরের গঙ্গার তীরে ই মায়ের মন্দির প্রতিষ্ঠা করে  ভক্তিভরে পূজা করেন ।

জগজ্জননী ভবতারিণী মা সেই পুজোই গ্রহণ করবেন বলে রাণীমাকে আশ্বস্ত করেছিলেন।  মা ভবতারিণীর এই  স্বপ্নাদেশ পেয়ে রাসমণি প্রতিষ্ঠা করেছিলেন দক্ষিণেশ্বরে মা ভবতারিণীর মন্দির ১৮৫৫ খ্রীস্টাব্দের ৩১ মে বৃহস্পতিবারে স্নান যাত্রার পুণ্য লগ্নে ।  এক লক্ষেরও বেশি টাকা ব্যয় করে রাণী রাসমণি রুপোর রথ বানিয়েছিলেন এবং তাঁর গৃহদেবতা রঘুবীরকে সাথে নিয়ে কলকাতার পথে শোভাযাত্রায় সামিল হয়েছিলেন ।

রাণী রাসমণি কর্তৃক প্রচলিত সেই রথযাত্রা আজও রথের দিনে দক্ষিণেশ্বরে মহা ধুমধাম সহকারে  পালিত হয়ে আসছে । মনে করা হয় যে  রথে আরোহণ করে জগন্নাথদেব পুরো দক্ষিণেশ্বর প্রদক্ষিণ করেন।

১৮২০ সালে বাংলায় ভয়াবহ বন্যা হয়। সেইসময় বহু সাধারণ মানুষ বন্যার কবলে পড়ে নিজের বাড়ি-ঘর সহ সকল সম্পদ হারিয়ে ফেলেছিল।   দয়াময়ী রানী রাসমণি  জনসাধারণের এই অসহায়তার দিনে তাদের সাহায্যের উদ্দেশ্যে প্রচুর অর্থ ব্যয় করেছিলেন।জানা যায় সেই বছরেই রানী রাসমণির বাবা হরেকৃষ্ণ দাসের ও মৃত্যু হয়। হরেকৃষ্ণের দাসের কোনো পুত্র সন্তান না থাকার কারণে রাণী রাসমণিই, মেয়ের কর্তব্যানুসারে বাবার পরলৌকিক ক্রিয়া সম্পাদন করেছিলেন গঙ্গার ঘাটে গিয়ে।

রাণী রাসমণির অবদানঃ  মানুষের জন্য উৎসর্গীকৃত প্রাণ রাণী রাসমণি তাঁর   বিবিধ জনহিতৈষীকর কীর্তির  জন্য প্রভূত খ্যাতি  অর্জন করেছিলেন। তিনি তীর্থযাত্রীদের সুবিধার কথা মাথায় রেখে  সুবর্ণরেখা নদী থেকে পুরী অবধি একটি সুদূর প্রসারিত  সড়ক পথ নির্মাণ করেছিলেন। কলকাতাবাসীদের  গঙ্গাস্নানের সুবিধার্থে  তিনি কলকাতার বিখ্যাত বাবুঘাট, আহিরীটোলা ঘাট ও নিমতলা ঘাটের নির্মাণে তাঁর অবদান রেখে গেছেন। ইম্পিরিয়াল লাইব্রেরি যা অধুনা ভারতের জাতীয় গ্রন্থাগার ও হিন্দু কলেজ যা অধুনা প্রেসিডেন্সি বিশ্ববিদ্যালয়  প্রতিষ্ঠার সময়কালেও  তিনি যথাসাধ্য অর্থসাহায্য করেছিলেন।

মাত্র ৬৮ বছর বয়সে ১৮৬১ খ্রীস্টাব্দে র ১৯-শে ফেব্রুয়ারি,  রাণী রাসমণি  কালীঘাটে নিজের বাড়িতে শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন। মৃত্যুর পরবর্তীকালে তাঁর পার্থিব   দেহ কেওড়াতলা মহাশ্মশানে, চন্দনকাঠে দাহ করা হয়ে থাকে।  রাণীমার অসীম মমত্ববোধ এবং সাধারণ মানুষের প্রতি দয়াসুলভ ব্যবহারের জন্য  তিনি ‘লোকমাতা’ সম্মানে ভূষিত হয়েছিলেন।শোনা যায় যে  ভারত সরকার রাণী  রাসমণির  স্মৃতি রক্ষার্থে এক স্মারক ডাকটিকিট প্রকাশ করেছিলেন তাঁর মৃত্যু পরবর্তীকালে।

http://www.anandalokfoundation.com/