শ্রীকৃষ্ণের জন্মস্থান মথুরা উদ্ধারের শপথই হোক জন্মাষ্টমীর মূল প্রেরণা

    Rai Kishori
    August 11, 2020 12:08 pm
    Link Copied!

    রাই কিশোরীঃ ভগবান শ্রীকৃষ্ণ শুধুমাত্র প্রেমিক ছিলেন না। আমরা তাকে বীর, তেজস্বী, অসাধারণ রাজনীতিবিদ, দূরদর্শী, ধর্মরক্ষাকারী ও দুস্কৃতির বিনাশকারী হিসাবে জানি।

    আজ শ্রীকৃষ্ণের জন্ম তিথিতে দই হলুদে মাখামাখি, বাহু তুলে কীর্তন আর লীলারসে ডুবে না থেকে সকল কৃষ্ণভক্ত তথা সনাতন ধর্মাবলম্বীদের উচিত মথুরায় যেখানে কৃষ্ণ জন্মেছিলেন সেই জায়গা উদ্ধার করার সংকল্প করা।

    ভগবান শ্রীকৃষ্ণ জীবনের বেশীর ভাগ সময় লড়াই আর যুদ্ধ করে কাটিয়েছেন। একের পর এক দুর্বৃত্তকে বিনাশ করেছেন। দানব, অসুরদের হাত থেকে বিভিন্ন রাজ্য, নারীদের উদ্ধার করে ধর্মকে প্রতিষ্ঠা করেছেন। ভগবান শ্রীকৃষ্ণের সমগ্র জীবনী পড়ে এটা স্পষ্ট যে শুধুমাত্র লীলাকীর্তন করে ধর্মকে প্রতিষ্ঠা বা রক্ষা করা যায় না।

    তিনি নিজেও প্রেমিক পুরুষ ছিলেন। গোপিনীদের সাথে বিভিন্ন সময়ে রসিকতা করেছেন কিন্তু  রাজ্য, দেশ, জাতি, ধর্ম রক্ষার্থে তার থেকে তেজস্বী বীর যোদ্ধা দ্বিতীয় মেলা ভার। তিনি অর্জুনের মাধ্যমে বার বার বুঝিয়েছেন ক্ষত্রিয়ের কাজ যুদ্ধ করা। কর্ণকে বধ করার সময় বলেছেন নিজেদের অস্তিত্ব ও ধর্ম রক্ষার্থে প্রয়োজনে ছল করা পাপ নয়। কিন্তু কাপুরুষের মোট রণক্ষেত্র ছেড়ে পালানো পাপ। আমরা কি করি? আমরা কতজন চেষ্টা করি ভগবানের সেই আদেশ পালন করে নিজেদের বীর হিসেবে তৈরি করে যবন অসুরদের হাত থেকে নিজের ধর্ম, জাতি, নারী, রাজ্য, অস্তিত্ব রক্ষা করতে?

    ভগবান শিব, পরশুরাম, রাম, শ্রীকৃষ্ণসহ সকলে যতদিন অস্ত্র হাতে যুদ্ধ করেছে ততদিন কোন অসুর, বাইরের শত্রু আমাদের ভাঙতে পারেনি। যখন থেকে আমরা শুধুমাত্র কৃষ্ণের প্রেমিক আর লীলারসাত্মক রুপই খুঁজতে শুরু করেছি তখন থেকে সনাতন ধর্মে অবক্ষয় শুরু হয়েছে। কৃষ্ণ বলেছেন তিনি দুষ্টের দমন আর শিষ্টের পালন করতে আসেন। কিন্তু বর্তমানে আমরা তা প্রচার করিনা কারণ দুষ্কৃতি বিনাশ বা ধর্ম সংস্থাপন করতে গেলে সাহস দরকার পৌরুষ দরকার। তার চেয়ে লীলা অনেক সহজ, রস আছে।

    শ্রীকৃষ্ণ যেখানে জন্মেছিলেন সেই মথুরার কারাগার আমাদের প্রাণের ধর। সেই প্রাণের ধর পুনরায় উদ্ধার করতে আজ কৃষ্ণের জন্মদিনে অন্যরকম শপথ নেওয়ার কথা ছিলো। মুসলিমদের লক্ষ্ জীবনে অন্তত একবার হলেও মক্কায় হজ করতে যাওয়া। তেমনই প্রত্যেক কৃষ্ণভক্তের উচিত অন্তত জীবনে একবার ভগবানের জন্মস্থানে যাওয়া। কিন্তু যাবেন কোথায়? যে কারাগারে তাঁর জন্ম হয়েছিলো সেটাইতো এখন অন্যদের দখলে। আমরা সকলে উপবাস থেকে জন্মাষ্টমীতে দুহাত তুলে নেচে নেচে কাঁদতে পারি। কিন্তু কৃষ্ণের জন্মস্থান উদ্ধারের কোন চেষ্টা করতে পারি না, করি না।

    যদি সত্যিকারেই কোন কৃষ্ণভক্ত থাকে তাহলে তাদের উচিত এই পুন্যলগ্নে শপথ গ্রহণ করা যে, ভগবান শ্রীকৃষ্ণ যেভাবে আমাদের দিক নির্দেশনা দিয়েছেন গীতার মাধ্যমে আমরা সেই সঠিক ব্যখ্যা বুঝে প্রত্যেকে সেভাবে নিজেকে তৈরি করে মনে এই বাক্য আওড়াবো “স্বধর্মে নিধনং শ্রেয়; পরধর্ম ভয়াবহ”।