13yercelebration
ঢাকা
আজকের সর্বশেষ সবখবর

চীন-ভারত সীমান্ত সংঘাত নিয়ে কি তৃতীয় বিশ্বযুদ্ধ বেঁধে যাওয়ার সম্ভাবনা!

Rai Kishori
June 28, 2020 6:42 pm
Link Copied!

দেবাশীষ মুখার্জী, কূটনৈতিক বিশ্লেষকঃ  চীন-ভারত সীমান্ত সংঘাত নিয়ে কি তৃতীয় বিশ্বযুদ্ধ বেঁধে যাওয়ার সম্ভাবনা আছে?

অগণতান্ত্রিক চীনের আগ্রাসী নীতির কারণে বিশ্ব বিবেক ভীষণ শঙ্কিত। পূর্ব লাদাখে ভারত-চীন  উভয় পক্ষই সৈন্য সমাবেশ ঘটানোয় চরম উত্তেজনা বিরাজ করছে। এই জটিল পরিস্থিতিতে ভঙ্গুর অর্থনীতি পাকিস্তান, চিন-কে সমর্থন জানিয়েছে এবং বিভিন্ন গণমাধ্যম সূত্রে জানা গেছে, পাকিস্তানের সামরিক ঘাঁটিগুলোতে চীনের যুদ্ধংদেহী উপস্থিতি পরিলক্ষিত হচ্ছে। এখন যদি আমেরিকা তার ঘনিষ্ঠ মিত্র ভারতের পাশে দাঁড়ায়, তা হলে অবধারিত ভাবেই তৃতীয় বিশ্বযুদ্ধ বেধে যাওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে

গলওয়ান সংঘর্ষ-উদ্ভুত ঘটনা প্রবাহে বহু রাষ্ট্রের অংশগ্রহণে বড়সড় যুদ্ধের যে সমূহ সম্ভাবনা বিদ‍্যমান, তা বিশ্বের শক্তিধর অনেক দেশই বুঝতে পেরেছে। কিন্তু, কেউ-ই প্রকাশ্যে চিন-এর আগ্রাসন নিয়ে কোন উচ্চবাচ্য করছে না। ভারত সাম্প্রতিক উত্তেজনার মধ্যে রাশিয়ার কাছ থেকে যুদ্ধ বিমানসহ এত সমরাস্ত্র কিনলো, অথচ রাশিয়ার মুখ একেবারে বন্ধ। গলওয়ান সংঘাতের পর চীন ও ভারতকে  নিয়ে একটি বৈঠকের চেষ্টা করলেও শেষ পর্যন্ত পিছিয়ে যায় রাশিয়া। কারণ, চীন বা ভারত কেউ-ই তৃতীয়পক্ষের হস্তক্ষেপ মেনে নিতে রাজি হয়নি। ফলে রাশিয়া হয়তো বুঝে গেছে যে, তাদের সেই আগের অর্থাৎ সোভিয়েত আমলের প্রভাব-প্রতিপত্তি এখন আর নেই।

চীন-ভারত যুদ্ধ যদি শেষ পর্যন্ত বেধেই যায় – সেক্ষেত্রে শুধু আমেরিকা নয়, জাপান এবং অস্ট্রেলিয়াও ভারতের পক্ষ নিয়ে যুদ্ধের ময়দানে নেমে পড়তে পারে। এখন পর্যন্ত যা পরিস্থিতি, তাতে  যুদ্ধ এড়ানো মুশকিল – যদিনা চীন তার লোলুপ দৃষ্টি সংযত না করে। কৃটনৈতিক ও সামরিক স্তরে আলোচনার মাধ্যমে ভারত আপোষ-মীমাংসায় আগ্রহ প্রকাশ করলেও, চিন কিন্তু ভারতের জমি আঁকড়ে বসে রয়েছে। গলওয়ান উপত্যকায় প্রকৃত নিয়ন্ত্রণরেখা থেকে ৮০০ মিটার দূরে অবস্থান করছে বলে চীন দাবি করলেও, উপগ্রহ চিত্রে দেখা গেছে – ভারতীয় ভূখণ্ডের যে অংশ চীন অবৈধ ভাবে দখল করে স্থায়ী কাঠোমো গড়ে তুলেছে, সেখান থেকে সরার নাম করছে না।

ভারত যে চীনের এই দখলদারি এবার মেনে নেবে না, সে বিষয়টি লাদাখ সীমান্তে যুদ্ধের প্রস্তুতিতেই সুস্পষ্ট ভাবে প্রতিভাত। আমেরিকা যদি যুদ্ধে নামে, তাহলে শুধু গলওয়ানের ভূমি নয়, লাদাখ থেকে কেড়ে নেওয়া আকসাই চীনের জমিও এবার ফিরে পাওয়ার সুযোগ আসতে পারে ভারতের কাছে। ১৯৬২ সালের যুদ্ধের পর থেকেই আকসাই চীন দখল করে রেখেছে বেজিং।

কেবল আমেরিকার শক্তিতে ভরসা করে যে ভারত যুদ্ধে নামবে, তা কিন্তু মোটেও নয়। চীনের মোকাবিলায় ভারতের শক্তি একেবারে কম নেই। লাদাখে ইতোমধ্যেই তিন বাহিনীর ১৫ হাজারের বেশি সৈন্য মোতায়েন রয়েছে। দুর্গম পার্বত্য এলাকায় যুদ্ধের উপযোগী ভারতের এই বিশেষ প্রশিক্ষিত ১৫ হাজার সৈন্যের মোকাবিলায় চিনের অনেক বেশি সৈন্য লাগবে – এমনটাই মনে করেন সমর বিশেষজ্ঞরা। চীনের বিরুদ্ধে তোপ দাগাতে ভারতের অত্যন্ত শক্তিধর ভীষ্ম ট্যাংকও লাদাখে অপেক্ষা করছে।  যুদ্ধ-প্রস্তুতি পর্যবেক্ষণ করতে ভারতীয় সেনাপ্রধান নিজে কয়েক দিন আগে লাদাখ সীমান্ত ঘুরে গিয়েছেন। ফিল্ড কম্যান্ডারদের সঙ্গে কথা বলেছেন। এখন শুধু উপরতলার নির্দেশের অপেক্ষা।

এর মধ্যে চীন যদি আবার প্ররোচানা দেয়, তাহলে তা বারুদে আগুন লাগার মতোই হবে। সেনাকে স্বাধীনভাবে সিদ্ধান্ত নেওয়ার ক্ষমতা দিয়ে রেখেছেন ভারতের প্রতিরক্ষামন্ত্রী রাজনাথ সিং।

চীনকে বারবার মৌলিক ভাবে সতর্ক করে থেমে নেই আমেরিকা। মার্কিন সেনা কিন্তু ইউরোপ ছেড়ে চীনের কাছাকাছি চলে আসছে। আমেরিকার মাথায় শুধু ভারত নয় ; একইসঙ্গে তার মিত্র মালয়েশিয়া, ইন্দোনেশিয়া ও ফিলিপাইন রয়েছে। ভারতের মতো এই দেশগুলিও  চীনের সম্প্রসারণবাদী হুমকির শিকার। চীনের আগ্রাসন থেকে মালয়েশিয়া, ইন্দোনেশিয়া ও ফিলিপাইনকেও সুরক্ষা দিতে চায় আমেরিকা।

চীনের পিপল’স লিবারেশন আর্মির (PLA) মোকাবিলায় কত সংখ্যক মার্কিন সেনা এশিয়ায় মোতায়েন করা প্রয়োজন – সে হিসাব কষতে বসেছে আমেরিকা। বছরের পর বছর ধরে রাশিয়ার আগ্রাসন সামল দিতে ইউরোপের একাধিক দেশে সামরিক ঘাঁটি গড়ে তুলেছে আমেরিকা। এখন রাশিয়া নয়,  সাম্রাজ‍্যবাদী চীন-কেই সবাই বিশ্ব সভ‍্যতার প্রধান হুমকি মনে করছে। তাই জার্মানিতে মার্কিন ফোর্স ৫২ হাজার থেকে কমিয়ে ২৫ হাজারে নামিয়ে আনার সিদ্ধান্ত নিয়েছে আমেরিকা। ওই ২৭ হাজার মার্কিন সেনা চলে আসছে চীনকে ঘিরে ফেলতে।

বর্তমানে দক্ষিণ চীন সাগর এবং পূর্ব চীন সাগর উভয় ক্ষেত্রেই আঞ্চলিক বিরোধে জড়িয়ে রয়েছে চীন। সীমান্ত নিয়ে ভারতের মতো, জাপান-তাইওয়ান-ভিয়েতনাম প্রভৃতি দেশের সঙ্গে চীনের প্রচণ্ড কলহ-বিবাদ রয়েছে। জাপান ও ফিলিপাইনের কয়েকটি দ্বীপ সম্পূর্ণ বেআইনি ভাবে চীন দখল করে নিয়েছে।

গলওয়ানে চীনাসেনা ভারতের বিরুদ্ধে হিংসাত্মক সামরিক সংঘাতে জড়ানোর পরেই আমেরিকা নড়েচড়ে বসেছে। উল্লেখ্য, বিগত ১৫ জুন রাতে ওই সংঘর্ষে বিহার রেজিমেন্টের একজন কর্ণেল-সহ ২৩ জন ভারতীয় সেনা শহীদ হয়েছেন। ভারতীয় বাহিনীর পাল্টা হামলায়, মেজর জেনারেল পর্যায়ের একজন অফিসারসহ চীনের কমপক্ষে ৩৪ জন সৈন্য নিহত হয়েছে। ভারতের তুলনায় চীনের নিহত সৈন‍্যের সংখ্যা বেশি হওয়ায় – চীন লজ্জায় নিহত সৈন‍্যের সংখ্যা প্রকাশ করছে না।

প্রশ্ন হচ্ছে, তৃতীয় বিশ্বযুদ্ধের সম্ভাবনা কেন সৃষ্টি হলো? কেনই বা গোটা বিশ্ব এক হয়ে চীনের সম্প্রসারণবাদী নীতি এবং আগ্রাসী সামরিক কার্যক্রমের বিরুদ্ধে প্রশ্ন তুলছে না?  যেখানে চীন পরিকল্পিতভাবে গোটা পৃথিবীতে করোনাভাইরাস ছড়িয়ে দিয়ে, বিশ্ব অর্থনীতির পূর্ণ নিয়ন্ত্রণ নিজের হাতের মুঠোয় নিয়ে নেওয়ার অসৎ-ষড়যন্ত্রের জাল বিছিয়েছে।

যদি সত্যিই তৃতীয় বিশ্বযুদ্ধ বেধে যায়, তার প্রভাব যে কেবল চীন-ভারত গণ্ডি বা শুধু এশিয়ার মধ্যে সীমাবদ্ধ থাকবে – এমনটা না-ও হতে পারে। চীনকে চারপাশ থেকে ঘিরে রাখাই  আমেরিকার প্রধান কৌশল এবং সে ইঙ্গিত মার্কিন বিদেশসচিব মাইক পম্পেও আগেই দিয়ে রেখেছেন। পম্পেওর সুস্পষ্ট আভাস দিয়েছেন যে, দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ায় চীঅবরোধের মুখে পড়তে চলেছে।

১৯৮৮ সাল থেকেই ফিলিপাইনের সঙ্গে আমেরিকার সামরিক সহায়তার চুক্তি রয়েছে। চীনের ক্রমাগত হুমকির প্রেক্ষিতে ভিয়েতনামও আমেরিকার ঘনিষ্ঠ হয়ে উঠেছে। উপকূলবর্তী সীমান্ত-রেখার সুরক্ষায় মার্কিন নৌসেনা ভিয়েতনামকে সাহায্য করছে। বছর কয়েক আগে, ভিয়েতনামের সমুদ্র-তলবর্তী তেল সম্পদ চীন লুট করতে এলে, ভারতীয় নৌ-বাহিনী ভিয়েতনামকে কার্যকর সহায়তা করেছিল। ইন্দোনেশিয়া ও মালয়েশিয়ার সঙ্গেও প্রতিরক্ষা সহযোগিতা বাড়িয়েছে আমেরিকা। সিঙ্গাপুরের বিমান ও নৌঘাঁটি ব্যবহারেও আমেরিকা চুক্তি করে রেখেছে। এই দেশগুলিতে মার্কিন সেনা সমারোহ বাড়লে,চীন চারদিক থেকে ঘেরাটোপের মধ্যে পড়ে যাবে। এ ছাড়া তাইওয়ানে সরাসরি যুদ্ধবিমান পাঠিয়ে,চীনকে চাপে রেখেছে আমেরিকা। তাইওয়ানে মার্কিন সেনার পাকাপাকি কোনও ঘাঁটি না-থাকলেও প্রশিক্ষণ ও নজরদারি চালাতে মার্কিন যুদ্ধ বিমান প্রায়শই তাইওয়ানে যাতায়াত রয়েছে। তিনটি মার্কিন বিমানবাহী রনতরী তাইওয়ানের শ্বাস ফেলা দূরত্বে অবস্থান করছে।

চীন ও তার স্বৈরাচারী দোসর উত্তর কোরিয়ার মোকাবিলায়, এশিয়া-প্রশান্ত মহাসাগরীয় অঞ্চলে, মার্কিন সামরিক ঘাঁটিগুলি রয়েছে উন্নত দেশ দক্ষিণ কোরিয়া এবং জাপানে। শুধু দক্ষিণ কোরিয়ায় তিন বাহিনী মিলিয়ে ২৮ হাজার মার্কিন সেনা রয়েছে। জাপানে ছোট-বড় মিলিয়ে ২৩ টি সামরিক ঘাঁটি রয়েছে আমেরিকার। যেখানে অবস্থান করছে ৫৪ হাজার সৈন্য। জাপানে ৫০টি মার্কিন যুদ্ধজাহাজ এবং ২০ হাজার মার্কিন নৌসেনা সবসময় তৈরি রয়েছে। এ ছাড়া গুয়াম নামে ছোট্ট একটা দ্বীপে আরও ৫০০০ মার্কিন সৈন‍্য অবস্থান করছে।

আধুনিক উচ্চপ্রযুক্তির অধিকারী জাপান ও দক্ষিণ কোরিয়া, চীনের সম্প্রসারণবাদী আগ্রাসন মোকাবিলায় তাদের সামরিক শক্তি ক্রমাগত বৃদ্ধি করে চলেছে। জাপান ও দক্ষিণ কোরিয়া ভারতের ঘনিষ্ঠ মিত্র দেশ। চীন কর্তৃক ভারত আক্রান্ত হলে এই প্রভাবশালী দুই দেশ নিশ্চয়ই চুপচাপ হাত গুটিয়ে বসে থাকবে না।

কাজেই চীন যদি তার আগ্রাসী অপতৎপরতা বন্ধ না করে, তাহলে তৃতীয় বিশ্বযুদ্ধ শুরু করার দায় চীনকেই বহন করতে হবে। ভারত-মার্কিন বিশাল শক্তি জোটের মোকাবেলায়, নড়বড়ে পাকিস্তান ছাড়া চীন আর যে দেশটির সহায়তা পেতে পারে, সে দেশটি হচ্ছে হতোদরিদ্র উত্তর কোরিয়া। এই সম্ভাব্য মহাযুদ্ধের ফলাফল কি হতে পারে, সেটা সহজেই অনুমেয়।

http://www.anandalokfoundation.com/