13yercelebration
ঢাকা
আজকের সর্বশেষ সবখবর

চীনের সাম্প্রতিক অর্থনৈতিক সমস্যাকে শ্রীলংকা ও পাকিস্তানের সঙ্গে তুলনা করা কী ঠিক?

Rai Kishori
August 31, 2023 4:09 pm
Link Copied!

ক’দিন ধরে ভারতের বেশ কয়েকটি মিডিয়া দাবি করছে, চীনের অর্থনীতি পাকিস্তান ও শ্রীলংকার মতো বেহাল হয়ে পড়েছে। আন্তর্জাতিক মিডিয়ায় দেখেছি, সারা পৃথিবীতে নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্যের দাম বাড়ছে – উল্টো চীনে প্রতিটি পণ্যের দাম কমছে। আবার মার্কিন ডলারের বিপরীতে বিশ্বের প্রতিটি দেশের মুদ্রার মূল্যমান কমছে, অথচ চীনের মুদ্রার মান বাড়ছে।

অর্থনীতিবিদদের মতে, এটা একটা অভিনব সমস্যা। চীনে পণ্যমূল্যের দাম কমে যাওয়ার প্রধান কারণ হচ্ছে – অতিরিক্ত উৎপাদন এবং চাইনিজদের সঞ্চয়ী প্রবণতা। অর্থনীতিবিদদের মতে, চাইনিজ মুদ্রামান বেড়ে যাওয়ার ফলে – চীনে যে রাষ্ট্রগুলো পণ্য রপ্তানি করে, তারা দেশীয় মুদ্রায় অনেক কম দাম পাচ্ছে। তাছাড়া চীনের সস্তা লোকাল পণ্যের সঙ্গে তীব্র প্রতিদ্বন্দ্বিতায় পড়তে হচ্ছে- বিদেশী পণ্যগুলোর। আবার যে দেশগুলো চীন থেকে পণ্য আমদানি করে, তারা সস্তা পেয়ে অতিরিক্ত চাইনিজ পণ্য আমদানি করছে; ফলে তাদের স্বদেশী পণ্যগুলো বাজার হারাচ্ছে। অর্থাৎ বিদ্যমান সংকট- চীনের চেয়েও বেশি ভোগাবে অন্য অনেকগুলো রাষ্ট্রকে।

ভারতীয় বিশ্লেষকরা বলছেন, চীনের প্রবৃদ্ধির হার কমেছে। কমবে এটাই তো স্বাভাবিক। একটা গাছ বাড়তে বাড়তে একটা পর্যায়ে গিয়ে থেমে যায়। চীনের অর্থনীতি কী বাড়তে বাড়তে একাই সমস্ত কিছু গ্রাস করে ফেলবে নাকি!

আন্তর্জাতিক বিশ্লেষকরা বলছেন, আগামী ১০ বছরের মধ্যে চীনের জিডিপি আমেরিকাকে অতিক্রম করে যাবে। কিন্তু জিডিপির সাইজ নির্ভর করে জনসংখ্যার উপর। কাজেই জিডিপির সাইজ বড় হলেই- সেই দেশটা ধনী দেশ হয়ে যায় না। দেখতে হবে দেশটির মাথাপিছু আয় কত।

আইএমএফ-এর ২০২৩ সালের সর্বশেষ হিসেব অনুযায়ী, বিশ্বের বৃহৎ পাঁচটি অর্থনীতির নমিনাল জিডিপির সাইজ ও মাথাপিছু আয় তুলে ধরছি; সঙ্গে জনসংখ্যা  :―

                    জনসংখ্যা         জিডিপি         মাথাপিছু আয়
আমেরিকা   ৩৩.৫ কোটি      ২৬.৮৫ ট্রি.         ৮০,০৩৪ ড.

চীন             ১৪১ কোটি        ১৯.৩৭ ট্রি.        ১৩,৭২১ ড.

জাপান        ১২.৪ কোটি       ৪.৪০ ট্রি.          ৩৫,৩৮৫ ড.

জার্মানি       ৮.৪ কোটি          ৪.৩০ ট্রি.          ৫১,৩৮৩ ড.

ভারত         ১৪২ কোটি         ৩.৭৩ ট্রি.           ২,৬০১ ড.

চীন এক সময় খেতে পেত না। না খেয়ে মানুষ মারা যেত। এই চীনকে টেনে তুলেছে আমেরিকা। এখন সেই চীন, কিছু দেশকে নিয়ে আমেরিকার বিরুদ্ধে পাল্টা ব্লক গড়ে তুলতে চাইছে; তাও কতগুলো ধ্বজভঙ্গ রাষ্ট্র সাথে নিয়ে!

চীনকে রাষ্ট্রসঙ্ঘে ভেটো পাওয়ার সহ স্থায়ী সদস‍্যপদ দিয়েছে আমেরিকা। চীনের ম্যান্ডারিন চাইনিজ ভাষা, পৃথিবীর ছ’টি আন্তর্জাতিক ভাষার মধ্যে স্থান পেয়েছে। অপর পাঁচটি আন্তর্জাতিক ভাষা হচ্ছে ইংরেজি, ফ্রেঞ্চ, স্প্যানিশ, আরবি ও রুশ। এছাড়াও চীনের মুদ্রা, আন্তর্জাতিক মুদ্রার স্বীকৃতি পেয়েছে। অপর আন্তর্জাতিক মুদ্রাগুলো হচ্ছে মার্কিন ডলার, ব্রিটিশ পাউন্ড, ইউরো ও জাপানি মুদ্রা। তবে পৃথিবীর আশি পার্সেন্ট বৈদেশিক লেনদেন সম্পন্ন হয় মার্কিন ডলারে।

আমেরিকার পরে চীন পৃথিবীর দ্বিতীয় সম্পদশালী দেশ। শিল্প উৎপাদন ও খাদ্য উৎপাদনে চীন নাম্বার ওয়ান। চীনের রপ্তানি আয়, রিজার্ভ ও বৈদেশিক বিনিয়োগ বিশ্ব রেকর্ড। চীনের ইনফ্রাস্ট্রাকচার ডেভেলপমেন্ট বিশ্বের বিস্ময়। পৃথিবীর দুই তৃতীয়াংশ বুলেট ট্রেন চীনের মাটিতে চলে। আফ্রিকা ও লাতিন আমেরিকার দুর্নীতিগ্রস্ত সরকার গুলোকে হাত করে, সেই সব দেশের মহামূল্যবান খনিজ সম্পদ ও চাষযোগ্য জমি কিনে ফেলেছে চীন। আমেরিকা যদি খাদের কিনারা থেকে চীনকে টেনে না তুলতো, তাহলে চীন আজ এই জায়গায় আসতে পারতো না কিছুতেই।

চীনের মতো একটি সম্পদশালী ও প্রভাবশালী অর্থনৈতিক পরাশক্তিকে যারা পাকিস্তান ও শ্রীলংকার সঙ্গে তুলনা করে – তাদের উচিত সশরীরে চীনে গিয়ে গ্রাম ও শহর ঘুরে দেখা। তাহলে এই বিশেষজ্ঞরা বুঝতে পারবে, চীনের সঙ্গে তাদের নিজেদের দেশের মৌলিক পার্থক্যগুলো কোন কোন জায়গায় এবং চীন তাদের তুলনায় কতটা এগিয়ে।

এই গ্রহের সমস্ত দেশের অর্থনীতিও যদি বসে যায়, তাহলেও আমেরিকা ও চীনের দাপট একটুও কমবে না। এই দু’টো দেশের ধারেকাছেও আসতে পারবে না- অন্য কোন দেশ। তবে বিজ্ঞান-প্রযুক্তি ও মহানুভবতার মানদণ্ডে, সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ রাষ্ট্র আমেরিকা। চীন অনেক ধনী হয়েছে ঠিকই; কিন্তু দেশটিতে পর্যাপ্ত সামাজিক ও কালচারাল উন্নয়ন ঘটে নি।

http://www.anandalokfoundation.com/