13yercelebration
ঢাকা
আজকের সর্বশেষ সবখবর

চট্টগ্রাম জালালাবাদ যুদ্ধে চৌদ্দ বীর বাঙ্গালী যোদ্ধার প্রাণ বিসর্জন দিবস

ডেস্ক
April 22, 2023 8:20 am
Link Copied!

ব্রিটিশদের বিরুদ্ধে জালালাবাদ যুদ্ধে চৌদ্দ বীর বাঙ্গালী যোদ্ধার প্রাণ বিসর্জন দিবস আজ। বাঙালি জাতির আড়াই হাজার বছরের ইতিহাস শুধু নির্যাতিত হওয়ার ইতিহাস। নির্যাতন ও শোষনের চূড়ান্ত পর্যায়ে বাঙালি জাতির বিদ্রোহী সত্তা জেগে উঠেছে। প্রতিবাদ করেছে, সংগ্রাম করেছে, করেছে বিদ্রোহ। দেশ থেকে অপশক্তি বিতাড়িত করেছে।  ১৯৩০ সালের আজকের দিনে ২২ এপ্রিল চট্টগ্রামের জালালাবাদ পাহাড়ে আত্মগোপনকালে ব্রিটিশ সৈন্যবাহিনীর সঙ্গে সম্মুখযুদ্ধে নাম নাজানা অনেক বীরের মধ্যে এগারো বিপ্লবী স্বাধীনতা সংগ্রামীর প্রাণ বিসর্জন এর ইতিহাস আজ।

ভারতীয় উপমহাদেশে ব্রিটিশ শাসনের বিরুদ্ধে বাঙালিরা সংগ্রাম করেছে, তাদের সাম্রাজ্যের অবসান ঘটিয়েছে, কাঙ্ক্ষিত স্বাধীনতা পেয়েছে। ভারতবর্ষের স্বাধীনতা লাভের পেছনে বাঙালি বিপ্লবীদের ভূমিকা অনস্বীকার্য। ব্রিটিশ সাম্রাজ্যের ভিত নড়বড়ে করে দেওয়া এই বাঙালিদের হয়তো আমরা আজ স্বরণ করি না, কিন্তু ইতিহাস তাদের নাম স্বর্ণাক্ষরে লিখে রেখেছে।

চট্টগ্রাম অস্ত্রাগার দখলের অভিযান শুরু হয় রাত দশটায়। পরিকল্পনা অনুযায়ী গণেশ ঘোষের নেতৃত্বে একদল বিপ্লবী পুলিশ অস্ত্রাগারের এবং লোকনাথ বাউলের নেতৃত্বে দশজনের একটি দল সাহায্যকারী বাহিনীর অস্ত্রাগারের নিয়ন্ত্রণ নিয়ে নেয়। কিন্তু দুর্ভাগ্যজনকভাবে তারা গোলাবারুদের অবস্থান শনাক্ত করতে ব্যর্থ হন। বিপ্লবীরা সফলভাবে টেলিফোন ও টেলিগ্রাফ যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন করতে সক্ষম হন এবং রেল চলাচল বন্ধ করে দেন। ইন্ডিয়ান রিপাবলিকান আর্মি, চট্টগ্রাম শাখা – এই নামের অধীনে সর্বমোট ৬৫ জন বিপ্লবী এই বিপ্লবে অংশ নেন। সফল বিপ্লবের পর বিপ্লবী দলটি পুলিশ অস্ত্রাগারে সমবেত হন এবং সেখানে মাস্টারদা সূর্য সেনকে মিলিটারী স্যালুট প্রদান করা হয়। সূর্য সেন জাতীয় পতাকা উত্তোলন করেন এবং অস্থায়ী বিপ্লবী সরকার ঘোষণা করেন। রাত ভোর হবার পূর্বেই বিপ্লবীরা চট্টগ্রাম শহর ত্যাগ করেন এবং নিরাপদ আশ্রয়ের খোঁজে পার্বত্য চট্টগ্রামের দিকে যাত্রা করেন।

চট্টগ্রাম অস্ত্রাগার লুন্ঠনের সাথে জড়িত ছিলেন তৎকালীন ব্রিটিশ শাসনাধীন পরাধীন ভারতের স্বাধীনতাকামী অসীমসাহসী বিপ্লবীরা। এই বিপ্লবীদের নেতৃত্বে ছিলেন মাষ্টারদা সূর্য্যসেন। সূর্য সেন ছাড়াও এই দলে ছিলেন গণেশ ঘোষ, লোকনাথ বল, নির্মল সেন, অনন্ত সিং, অপূর্ব সেন, অম্বিকা চক্রবর্তী, নরেশ রায়, ত্রিপুরা সেনগুপ্ত, বিধুভূষণ ভট্টাচার্য, শশাঙ্কশেখর দত্ত, অর্ধেন্দু দস্তিদার, হরিগোপাল বল, প্রভাসচন্দ্র বল, তারকেশ্বর দস্তিদার, মতিলাল কানুনগো, জীবন ঘোষাল, আনন্দ গুপ্ত, নির্মল লালা, জিতেন দাসগুপ্ত, মধুসূদন দত্ত, পুলিনচন্দ্র ঘোষ, সুবোধ দে, প্রীতিলতা ওয়াদ্দেদার এবং কল্পনা দত্ত। এদের সাথে সুবোধ রায় নামক ১৪ বছরের এক বালকও ছিলেন।

অস্ত্রাগার লুন্ঠনের কয়েক দিন পরে, পুলিশ বিপ্লবীদের অবস্থান চিহ্নিত করে। চট্টগ্রাম সেনানিবাস সংলগ্ন জালালাবাদ পাহাড়ে আশ্রয় নেয়া বিপ্লবীদের কয়েক হাজার সৈন্য ঘিরে ফেলে ২২ এপ্রিল ১৯৩০ সালে।দুই ঘন্টার প্রচন্ড যুদ্ধে ব্রিটিশ বাহিনীর ৭০ থেকে ১০০ জন এবং বিপ্লবী বাহিনীর ১২ জন শহীদ হন।এঁরা হচ্ছেন, নরেশ রায়, ত্রিপুরা সেনগুপ্ত, বিধুভূষণ ভট্টাচার্য, হরিগোপাল বল, মতিলাল কানুনগো, প্রভাসচন্দ্র বল, শশাঙ্কশেখর দত্ত, নির্মল লালা, জিতেন দাসগুপ্ত, মধুসূদন দত্ত, পুলিনচন্দ্র ঘোষ, এবং অর্ধেন্দু দস্তিদার।

জালালাবাদ পাহাড়ের যুদ্ধে অংশ নিয়ে পলায়ন করতে সক্ষম হলেও পরবর্তীকালে পুলিসের আক্রমণে দুজন শহীদ হন, এঁরা হচ্ছেন অপূর্ব সেন এবং জীবন ঘোষাল।

সূর্য সেন ছোট ছোট দলে বিভক্ত করে তার লোকজনকে পার্শ্ববর্তী গ্রামে লুকিয়ে রাখে এবং বিপ্লবীরা পালাতে সক্ষম হয়। কলকাতা পালিয়ে যাওয়ার সময় কয়েকজন গ্রেফতার হয়। কয়েকজন বিপ্লবী পুনরায় সংগঠিত হয়। ২৪ সেপ্টেম্বর, ১৯৩২ সালে প্রীতিলতা ওয়াদ্দেদারের নেতৃত্বে দেবপ্রসাদ গুপ্ত, মনোরঞ্জন সেন, রজতকুমার সেন, স্বদেশরঞ্জন রায়, ফণিভূষণ নন্দী এবং সুবোধ চৌধুরী ইউরোপিয়ান ক্লাব আক্রমণ করে এবং এক মহিলা মারা যায়। কিন্তু তাদের পরিকল্পনায় বিপর্যয় ঘটে এবং দেবপ্রসাদ গুপ্ত, মনোরঞ্জন সেন, রজতকুমার সেন, স্বদেশরঞ্জন রায় নিহত হয় এবং ফণিভূষণ নন্দী এবং সুবোধ চৌধুরী আহত হন এবং ধরা পড়েন। ১৯৩০ থেকে ১৯৩২ সাল পর্যন্ত ২২ কর্মকর্তা ২২০ জন বিপ্লবী দ্বারা নিহত হয়। দেবী প্রসাদ গুপ্তের ভাই আনন্দ প্রসাদ গুপ্তকে বিচারের মাধ্যমে নির্বাসন দেয়া হয়।

আসুন স্বাধীনতা অর্জনে এই বিপ্লবীদের অবদান ইতিহাসের পাতা থেকে ১৯৩০ সালের আজকের দিনে ২২ এপ্রিল চট্টগ্রামের জালালাবাদ পাহাড়ে দেশপ্রেমে প্রাণ বিসর্জনকারীদের সম্পর্কে জেনে নিই।

স্বাধীনতা সংগ্রামী বিপ্লবী ত্রিপুরা সেনগুপ্ত 

ভারত উপমহাদেশের ব্রিটিশ বিরোধী স্বাধীনতা আন্দোলনের একজন অন্যতম ব্যক্তিত্ব ত্রিপুরা সেনগুপ্ত কুমিল্লা জেলায় ১৯১৩ সালের ১২ মে জন্মগ্রহণ করেন। তার পিতার নাম নিবারণচন্দ্র সেনগুপ্ত। ১৯২৯ এর মে মাসে আয়োজিত চট্টগ্রাম জেলা কংগ্রেসের সম্মেলনে সভাপতিত্ব করতে আসেন নেতাজী সুভাষচন্দ্র বসু। এই সম্মেলনে মাস্টারদা সূর্য সেন, অনন্ত সিংহ, গনেশ ঘোষের সাথে কিশোর ত্রিপুরা সেনগুপ্ত কংগ্রেসের অহিংস নীতি সমর্থন না করার কথা এবং তারা সশস্ত্র বিদ্রোহের প্রস্তুতির কথা জানান সুভাষ বসুকে। নেতাজী এতে নৈতিক সমর্থন জানিয়েছিলেন।

বিপ্লবী দলের সদস্য হিসেবে ১৮ এপ্রিল, ১৯৩০ সালে চট্টগ্রাম অস্ত্রাগার দখলের কার্যক্রমে তিনি অংশগ্রহণ করেন। তার আগে প্রস্তুতি পর্বে টেলিগ্রাফ, টেলিফোন অফিসের সংবাদ সংগ্রহের দায়িত্ব দেওয়া হয় তার ওপর। সেই দায়িত্ব সুচারুরূপে পালন করেন বিপ্লবী ত্রিপুরা দাশগুপ্ত। অস্ত্রাগার লুন্ঠনের ৪ দিন পর সংগঠিত জালালাবাদ পাহাড়ের সম্মুখ যুদ্ধে মাত্র সতের বছর বয়স হলেও বিজয়ী বাহিনীর একজন সেনাপতির দায়িত্ব পালন করেন। জালালাবাদ পাহাড়ে ব্রিটিশ সৈন্যবাহিনীর সংগে যুদ্ধে শহীদ হন।

স্বাধীনতা সংগ্রামী বিপ্লবী হরিগোপাল বল(টেগরা)

ভারত উপমহাদেশের ব্রিটিশ বিরোধী স্বাধীনতা আন্দোলনের একজন অন্যতম ব্যক্তিত্ব হরিগোপাল বল (টেগরা)। চট্টগ্রামের ধোরালায় জন্ম গ্রহণ করেন। তার পিতার নাম প্রাণকৃষ্ণ বল।

চট্টগ্রাম অস্ত্রাগার আক্রমণের বীর বিপ্লবী লোকনাথ বল তার অগ্রজ। মৃত্যুর সময় তাঁর আনুমানিক বয়স ছিল ১৩ বছর।

বিপ্লবী ১৯৩০ সালের ১৮ এপ্রিল চট্টগ্রাম অস্ত্রাগার লুন্ঠনের কার্যক্রমে অংশগ্রহণ করেন। ৪ দিন পর ২২ এপ্রিল সংগঠিত জালালাবাদ পাহাড়ে আত্মগোপনকালে ব্রিটিশ সৈন্য তাদের গ্রেপ্তারের চেষ্টা করলে তারা সম্মুখযুদ্ধে ব্রিটিশ সৈন্যদের পর্যুদস্ত করেন। জালালাবাদ পাহাড়ে ব্রিটিশ সৈন্যবাহিনীর সংগে যুদ্ধে তিনি প্রাণ বিসর্জন দেন।

ব্রিটিশবিরোধী যোদ্ধা, স্বাধীনতা সংগ্রামী বিপ্লবী মধুসূদন দত্ত 

ভারত উপমহাদেশের ব্রিটিশ বিরোধী স্বাধীনতা আন্দোলনের একজন অন্যতম ব্যক্তিত্ব মধুসূদন দত্ত

। তিনি চট্টগ্রামের বিদগ্রামে জন্মগ্রহণ করনে। তার পিতার নাম মণীন্দ্রকুমার দত্ত। সারোয়াতলী গ্রামের ছাত্র রামকৃষ্ণ বিশ্বাসের প্রেরণায় বিপ্লবী দলে যোগ দেন। ১৯২৪ সালে নেতারা জেলে গেলে তিনি স্কুলে স্কুলে গিয়ে বিপ্লবের মন্ত্র প্রচার করতেন। তখন বাড়ি থেকে জোর করে তাকে জামশেদপুর পাঠালে তিনি সেখানে চাকরি করে পার্টিকে অর্থসাহায্য করেন। বাড়ি থেকে অর্থ-অলঙ্কারাদি এনে দলের হাতে দিয়েছিলেন।

বিপ্লবী দলের সদস্য হিসেবে ১৮ এপ্রিল, ১৯৩০ সালে চট্টগ্রাম অস্ত্রাগার লুন্ঠনের কার্যক্রমে তিনি অংশগ্রহণ করেন। ৪ দিন পর আজকের দিনে ২২ এপ্রিল সংগঠিত জালালাবাদ পাহাড়ের যুদ্ধে বিজয়ী বাহিনীর অন্যতম ছিলেন তিনি। জালালাবাদ পাহাড়ে ব্রিটিশ সৈন্যবাহিনীর সংগে যুদ্ধে আত্মোৎসর্গ করেন তিনি।

ব্রিটিশবিরোধী যোদ্ধা, স্বাধীনতা সংগ্রামী বিপ্লবী পুলিনচন্দ্র ঘোষ 

ভারত উপমহাদেশের ব্রিটিশ বিরোধী স্বাধীনতা আন্দোলনের একজন অন্যতম ব্যক্তিত্ব  ছিলেন পুলিনচন্দ্র ঘোষ। পুলিনচন্দ্র ঘোষের জন্ম চট্টগ্রামের গোঁসাইডাঙ্গাতে। তার পিতার নাম জগৎচন্দ্র ঘোষ।

বিপ্লবী দলের সদস্য হিসেবে ১৯৩০ সালের ১৮ এপ্রিল চট্টগ্রাম অস্ত্রাগার আক্রমণের কার্যক্রমে অংশগ্রহণ করেন তিনি। ৪ দিন পর সংগঠিত জালালাবাদ পাহাড়ের যুদ্ধে বিজয়ী বাহিনীর অন্যতম ছিলেন। জালালাবাদ পাহাড়ে ব্রিটিশ সৈন্যবাহিনীর সংগে যুদ্ধে আহত হয়ে ঐদিনই দেশের জন্য প্রাণ বিসর্জন দেন তিনি।

স্বাধীনতা সংগ্রামী বিপ্লবী নির্মল লালা 

ভারত উপমহাদেশের ব্রিটিশ বিরোধী স্বাধীনতা আন্দোলনের একজন অন্যতম ব্যক্তিত্ব নির্মল লালা। তিনি চট্টগ্রামের বোয়ালখালী উপজেলার পোপাদিয়া ইউনিয়নের হাওলায় জন্মগ্রহণ করেন। তার পিতার নাম যাত্রামোহন লালা। তিনি তৎকালীন কক্সবাজার ইংরেজি উচ্চ বিদ্যালয়ের বিদ্যালয়ের অষ্টম শ্রেণির ছাত্র ছিলেন।

তিনি বিপ্লবী দলের সদস্য হিসেবে ১৮ এপ্রিল, ১৯৩০ সালে চট্টগ্রাম অস্ত্রাগার লুন্ঠনের কার্যক্রমে অংশগ্রহণ করেন। ৪ দিন পর ২২ এপ্রিল সংগঠিত জালালাবাদ পাহাড়ের যুদ্ধে বিজয়ী বাহিনীর অন্যতম ছিলেন। জালালাবাদ পাহাড়ে ব্রিটিশ সৈন্যবাহিনীর সংগে যুদ্ধে গুলিবিদ্ধ হয়ে ঐদিনই দেশের জন্য প্রাণ বিসর্জন দেন তিনি।

বিপ্লবী মাস্টারদা সূর্যসেনের নেতৃত্বে চট্টগ্রামের জালালাবাদ পাহাড়ে ব্রিটিশ সৈন্যদের সঙ্গে রক্তক্ষয়ী সম্মুখযুদ্ধ হয়। চট্টগ্রাম অস্ত্রাগার লুট করার পর সূর্যসেন ও তার সহযোদ্ধারা জালালাবাদ পাহাড়ে আশ্রয় নিলে গোপনে সংবাদ পেয়ে ব্রিটিশবাহিনী সেখানে বড় ধরনের সামরিক হামলার চালায়। এ যুদ্ধে ব্রিটিশ সেনাবাহিনীর ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হয়। শহীদ হন ১৪ জন বিপ্লবী।

এদের মধ্যে প্রভাস বল, নরেশ রায়, ত্রিপুরা সেন, বিটু ভট্টাচার্য, বিধুভূষণ ভট্টাচার্য, শশাঙ্কশেখর দত্ত, মতি কানুনগো, অশোক দত্ত আরও নাম না জানা  অনেক বীর শহীদ।

http://www.anandalokfoundation.com/