13yercelebration
ঢাকা
আজকের সর্বশেষ সবখবর

ক্রেতাশূন্য যশোর হকার্স মার্কেট কপাল পুড়েছে ব্যবসায়ীদের

Link Copied!

বেশির ভাগ দোকান বন্ধ। চালুগুলোরও মোটেই বেচাকেনা নেই। যেন নিভৃতে কাঁদে পৌর হকার্স মার্কেট। রাস্তা-ফুটপাথ ছেড়ে ছাদতলায় এসেও বদল হয়নি ভাগ্য। পুনর্বাসন তাদের করেছে নির্বাসিত! খদ্দের নেই যশোর পৌর হকার্স মার্কেটে। এমনও দিন যায় এক টাকারও বেচাকেনা হয় না।
বছর পাঁচ-ছয় হতে চলল যশোর শহরের রাস্তায়-ফুটপাথে পোশাক সামগ্রি ও জুতা-স্যান্ডেল বিক্রিকারী হকারদের উচ্ছেদ করা হয়। পরে তাদের এই মার্কেটটিকে পুনর্বাসন করা হয়। জেলা তথ্য অফিসের পাশেও একসময় হকাররা পোশাক বিক্রি করতেন। তাদেরও পৌর হর্কার্স মার্কেটে দোকান বরাদ্দ দেয়া হয়। আর রাস্তা-ফুটপাথ থেকে উঠে আসার পর থেকেই তাদের দুর্দিন শুরু হয়।
যশোর স্টেডিয়ামের বাস্কেট গ্রাউন্ডের সামনে সোহাগ বস্ত্রালয়। দোকানটিতে লুঙ্গি-গেঞ্জি বিক্রি হয়। দেখা গেল পোশাকের পাশাপাশি সেখানে চলে চায়ের ব্যবসাও। বিক্রি হয় কলম বিস্কুট পাউরুটিও। দোকান মালিক আব্দুর রহমান বলেন, বাধ্য হয়ে চা, পান বিড়ি, সিগারেট, বিস্কুট ও পাউরুটি বিক্রি করছি। তার দাবি, এখানে কোন কাস্টমার (খরিদদার) নেই। এমনও দিন গেছে একটাকারও লুঙ্গি গেঞ্জি বিক্রি হয়নি। তাই বাধ্য হয়ে লুঙ্গি গেঞ্জির দোকানের পাশাপাশি চায়ের স্টলও দিয়েছেন।

সরেজমিন পৌর হকার্স মার্কেটে গিয়ে দেখা যায়, বেশির ভাগ দোকান বন্ধ। যেগুলো চালু আছে কোন কাস্টমার নেই। মার্কেটের অনেক দোকানে সেলুন, সরবত, ছোলা-মুড়িসহ অন্যান্য দোকান গড়ে উঠেছে। দোকানিদের কেউ কেউ জানান, এখানে এসে ব্যবসায়িক মন্দার মুখে অনেকে প্রতিষ্ঠান বন্ধ করে দিয়েছেন। আবার অনেকে অগ্রিম টাকা নিয়ে মাসিক ভাড়ায় অন্যদের কাছে দোকান ভাড়া দিয়ে দিয়েছেন।
নিউ প্রান্ত ফ্যাশনের সত্বাধীকারী ফজলুর রহমান জানান, ৩৫ বছর ধরে কালেক্টরেট মার্কেট সংলগ্ন রাস্তা ফুটপাথে পোশাক বিক্রি করে জীবিকা নির্বাহ করছিলেন। সেখানে ব্যবসা করে পরিবার পরিজন নিয়ে জীবন ভালোই কাটছিলো। কিন্তু এখানে এসে তিনি ক্ষতির শিকার হয়েছেন। বেচাকেনা একদম নেই। এমনও দিন যায় সারা দিনেও একজনও ক্রেতা আসে না। তিনি বলেন, হকার্স মার্কেটে এসে সঞ্চিত মূলধনের সবটুকু শেষ। অনেক কষ্টে দিনাতিপাত করছি।

যশোর পৌর হকার্স মার্কেটের সাধারণ সম্পাদক মনিরুজ্জামান লাভলু বলেন, বেশ কিছু দিন ধরে ফের যশোর শহরের রাস্তা ও ফুটপাথে অস্থায়ী কাপড়ের দোকান বসছে। ভ্যানে ও ঠেলা গাড়িতে করে তারা বিভিন্ন ধরনের পোশাক বিক্রি করছেন। শার্ট, শাড়ি, লুঙ্গি, গেঞ্জি থেকে শুরু করে জুতো স্যান্ডেলও বিক্রি হচ্ছে ভ্যানে ও ঠেলা গাড়িতে করে

তিনি বলেন, আমাদের মার্কেটের কাস্টমারদের ওইসব ব্যবসায়ীরা টেনে নিচ্ছে। ফলে পৌর হকার্স মার্কেট একেবারে ক্রেতা শুন্য হয়ে পড়েছে। তিনি জানান, বর্তমানে ১৫০ দোকানের মধ্যে অর্ধেকেরও বেশি বন্ধ হয়ে গেছে। কেউ কেউ অন্যদের কাছে দোকান ভাড়া দিয়েছেন। হকার্স মার্কেটের ব্যবসায়ীরা জানান, এক লাখ টাকা করে জামানত দিয়ে এসব দোকান বরাদ্দ নিয়েছেন। এখানে দোকান নিয়ে বড় ধরণের বিপাকে পড়েছেন। কাস্টমার নেই বললেই চলে। মাসিক দোকান ভাড়া মাত্র তিনশ টাকা। তাই রক্ষা তাদের। পুঁজি বাঁচাতে কেউ কেউ অন্যের কাছ থেকে অগ্রিম টাকা নিয়ে দোকান ভাড়া দিয়ে দিয়েছেন।

খুরশিদা বেগম নামে এক নারী মাসিক ১৫০০ টাকা ভাড়ায় মার্কেটটির একটি দোকান নিয়ে চায়ের দোকান করেছেন। ব্যবসায়ীরা জানান, বেচকেনার অবস্থা খারাপ থাকায় ওই দোকানের মালিক চায়ের দোকানির কাছে সেটি ভাড়া দিয়েছেন। তারা ফ্যাশনের সত্বাধীকারী সাগর রহমান, ভালো মানের পোশাক তাদের সংগ্রহে আছে। বাজারের দোকান থেকেও সেগুলো দাম কম। কিন্তু এখানে কাস্টমার নেই একদম। আশাপাশের শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের কিছু ছাত্র-ছাত্রী ছাড়া বাইরের কেউ এখানে পোশাক কিনতে আসেন না। ফলে তাদের ব্যবসায়ের অবস্থা একদম খারাপ।

http://www.anandalokfoundation.com/