13yercelebration
ঢাকা
আজকের সর্বশেষ সবখবর

কোনও ভয় বা চাপের কাছে নতি স্বীকার করে না ভারত -নরেন্দ্র মোদী

Link Copied!

গোটা বিশ্ব যখন দুটি দলে ভাগ হয়ে গেছে তখন ভারত নিজের অবস্থানে নির্ভয়ে মানবিকতার কথা বলছে। আজ ভারত কোনও ভয় বা চাপের কাছে নতি স্বীকার করে না। নিজের স্বার্থ বজায় রাখাই দেশের মানুষের কাছে প্রধান হয়ে দাঁড়িয়েছে। এখন ভারত একটি জাতি হিসেবে আত্মপ্রকাশ করেছে বলে জানিয়েছেন ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী।

আজ   ৬ এপ্রিল(বুধবার) বিজেপির ৪২ তম প্রতিষ্ঠা দিবস উপলক্ষে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে দলের কর্মীদের উদ্দেশ্যে ভাষণে এসব কথা বলেন।

প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী এদিন বলেন, বিজেপির এই প্রতিষ্ঠা দিবস ভারতের স্বাধীনতার ৭৫তম বার্ষিকী উদযাপনের সঙ্গে মিলে যাচ্ছে। ভারত স্বাধীনতার ৭৫ তম বার্ষিকী পালন করছে ‘আজাদি কা অমৃত মহোৎসব’ প্রকল্পের মাধ্যমে। প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী বলেন অনুপ্রেরণা নেওয়ার জন্য দেশের স্বাধীনতা দিবস একটি বড় উপলক্ষ্য। তিনি বলেছেন বর্তমান বিশ্বে দ্রুত বদবে যাচ্ছে চালচিত্র। এই অবস্থা ভারতের সামনে একাধিক নতুন সুযোগ ও সুবিধে নিয়ে এসেছে। দলের  প্রতিষ্ঠা দিবস অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী পাঁচ রাজ্য বিধানসভা নির্বাচনে জয়ের জন্য বিজেপির নেতা ও কর্মীদেরও প্রশংসা করেছেন। তিনি বলেনে নেতা ও কর্মীদের আগামী দিনে আরও ভালো কাজ করতে হবে।

প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী বলেন, কয়েক সপ্তাহ আগে পর্যন্ত বিজেপি মাত্র চারটি রাজ্যে ডবল ইঞ্জিন সরকারের শাসন প্রতিষ্ঠা করতে পরেছে। তিন দশক পরে রাজ্যসভায় কোনও দলের আসন সংখ্যা ১০০ ছুঁল। যা দলের কাছে অন্যন্য গৌরব। প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী এদিন বলেন, একটা সময় হতাশা মানুষকে গ্রাস করেছিল। দেশের মানুষ মনে করতে শুরু করেছিল যে দলই দিল্লির সিংহাসনে বসুক না কেন তারা দেশের জন্য় কিছুই করবে না। কিন্তু আজ দেশের প্রতিটি মানুষের সেই ভুল ভেঙে গেছে। বর্তমান দেশে দ্রুত এগিয়ে যাচ্ছে বলেও দাবি করেন তিনি। গেরুয়া শিবিরের কর্মীদের প্রশংসা করে তিনি বলেন, দলের প্রতিটি কর্মীই দেশের স্বপ্নের প্রতিনিধি। এক ভারত শক্তিশালী ভারত- এই অঙ্গীকারই কাশ্মীর থেকে কন্যাকুমারিকা , কচ্ছ থেকে কোহিমা পর্যন্ত গোটা দেশকেই শক্তিশালী করেছে।

বিজেপি আজ ৪২তম প্রতিষ্ঠা দিবস উদযাপন করছে। বিজেপি আগে ছিল ভারতীয় জনসংঘ। ১০৫১ সালে শ্যামাপ্রসাদ মুখোপাধ্যায় প্রতিষ্ঠা করেছিলেন এই সংগঠন। পরে বিজেএস জনতা পার্টি গঠনের জন্য ১৯৭৭ সালে বিভিন্ন দলের সঙ্গে এক হয়ে যায়। ১৯৮০ সালে জনতা পার্টির জাতীয় কার্যনির্বাহী পরিষদ তার সদস্যগের দল, রাষ্ট্রীয় স্বয়ম সেবক সংঘএর দ্বৈত সদস্যপথ বাতিল করে দেয়। তারপর ৬ এপ্রিল ১৯৮০ সালে জনসংঘের প্রাক্তন সদস্যরা বিজেপিতে যোগ দেন।

প্রসঙ্গত রাশিয়া-ইউক্রেন ইস্যুতে আমেরিকার শত পরোক্ষ হুমকি সত্ত্বেও যুদ্ধ-বিরোধী নিরপেক্ষ অবস্থানে অনড় থেকেছে ভারত৷ এবং এই সিদ্ধান্তের সারা বিশ্বে তো বটেই এমনকি প্রতিবেশি দেশ পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানও প্রশংসা করেছেন।

http://www.anandalokfoundation.com/