13yercelebration
ঢাকা
আজকের সর্বশেষ সবখবর

কাসেম সোলাইমানির ঘনিষ্ঠ ছিলেন ইরানের নিহত পররাষ্ট্রমন্ত্রী হোসেইন আব্দুল্লাহিয়ান

Link Copied!

ইরানের প্রেসিডেন্ট ইব্রাহিম রাইসির সঙ্গে হেলিকপ্টার দুর্ঘটনায় মারা যাওয়া দেশটির পররাষ্ট্রমন্ত্রী হোসেইন আব্দুল্লাহিয়ান ছিলেন কাসেম সোলাইমানির ঘনিষ্ঠ। কাসেম সোলাইমানি যুক্তরাষ্ট্রের হামলায় নিহত হয়েছিলেন।

সোমবার সকালে পূর্ব আজারবাইজান প্রদেশের পাহাড়ি ও তুষারাবৃত এলাকায় রাইসিকে বহনকারী হেলিকপ্টারের ধ্বংসাবশেষ খুঁজে পায় অনুসন্ধানী দল। দেশটির রাষ্ট্রীয় টেলিভিশনে জানানো হয়, সেখানে প্রাণের কোন চিহ্ন নেই। পরে দেশটির সরকারের পক্ষ থেকে রাইসি ও আব্দুল্লাহিয়ানের মৃত্যুর বিষয়টি নিশ্চিত করা হয়।

আব্দুল্লাহিয়ানকে ইরানের শাসন ব্যবস্থার ‘বিশ্বস্ত ব্যক্তি’ বলে বিবেচনা করা হত। তিনিই ছিলেন প্রথম ইরানি কর্মকর্তা যাকে ইরান, ইরাক ও যুক্তরাষ্ট্রের মধ্যে প্রকাশ্য ত্রিপক্ষীয় সমঝোতায় অংশ নিতে দেখা গেছে।

তেহরানে ব্রিটিশ অ্যাম্বাসি চালুর পর প্রথম উচ্চ পদস্থ ব্যক্তি হিসেবে তিনি লন্ডন সফর করেন এবং তৎকালীন ব্রিটিশ পররাষ্ট্রমন্ত্রী ফিলিপ হ্যামন্ডের সঙ্গে সাক্ষাৎ করেন। ইরানের রিভ্যুলশনারি গার্ডসের সঙ্গে আব্দুল্লাহিয়ান ওতপ্রোতভাবে জড়িত ছিলেন। বিশেষ করে জেনারেল কাসেম সোলায়মানির সঙ্গে ঘনিষ্ঠ সম্পর্ক ছিল তার।মধ্যপ্রাচ্যে ইরানের প্রক্সি গ্রুপগুলোর সঙ্গে যোগাযোগ রাখতেন তিনি।

রোববার আজারবাইজানের সীমান্তের কাছে দুটি বাঁধ উদ্বোধন করেন প্রেসিডেন্ট রাইসি। এরপর হেলিকপ্টারে ইরানের উত্তর-পশ্চিমে তাবরিজ শহরের দিকে যাচ্ছিলেন তিনি। তার সঙ্গে পররাষ্ট্রমন্ত্রী আমির আবদুল্লাহিয়ান ছাড়াও আরো ছিলেন ধর্মীয় নেতার (খামেনি) প্রতিনিধি ও তাবরিজের ইমাম সৈয়েদ মোহাম্মদ আল হাশেম, পূর্ব আজারবাইজানের গভর্নর মালিক রাহমাতি, প্রেসিডেন্ট প্রোটেকশন ইউনিটের কমান্ডার সরদার সৈয়েদ মেহদি মৌসভি, কয়েকজন নিরাপত্তারক্ষী এবং ক্রুরা। তাবরিজ থেকে ৫০ কিলোমিটার দূরে দুর্ঘটনার কবলে পড়ে হেলিকপ্টারটি। কিন্তু ভারি কুয়াশা থাকায় অনুসন্ধান অভিযান চালানো কঠিন হয়ে পড়ে। প্রেসিডেন্টের বহরে মোট তিনটি হেলিকপ্টার ছিল। অন্য দুটি হেলিকপ্টার নিরাপদে অবতরণ করে।

পূর্ব আজারবাইজানের ডেপুটি গভর্নর ফর ডেভেলপমেন্ট আলি জাকারি স্থানীয় গণমাধ্যমকে জানান ওই বহরে তিনটি হেলিকপ্টার ছিল এবং অন্য দুটি নিরাপদে অবতরণ করতে পেরেছে। একটি বিধ্বস্ত হয়েছে।

নিরাপদে ফেরা হেলিকপ্টারে জ্বালানি মন্ত্রী আলী আকবর মেহরাবিয়ান এবং আবাসন ও পরিবহণমন্ত্রী মেহরদাদ বজরপাশ ছিলেন। ইরানের আধা সরকারি তাসনিম নিউজ এজেন্সি বলছে, হেলিকপ্টারের ভেতরে প্রেসিডেন্টের সঙ্গে থাকা লোকজন জরুরি কল করতে সক্ষম হয়েছিলেন।

২০২০ সালের ৩ জানুয়ারি বাগদাদ আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে যুক্তরাষ্ট্রের হামলায় ইরানের বিপ্লবী গার্ডস বাহিনীর এলিট কুদস ফোর্সের কমান্ডার মেজর জেনারেল কাসেম সোলাইমানিসহ পাঁচজন নিহত হন। খোদ মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের নির্দেশে ওই হামলা চালানো হয়েছে বলে পেন্টাগন নিশ্চিত করেছে।

ইরানের বিপ্লবী গার্ডসও জেনারেল কাসেমের মৃত্যুর কথা স্বীকার করেছে। তারা বলেছে, মার্কিন হেলিকপ্টার থেকে হামলা চালিয়ে তাকে হত্যা করা হয়। পেন্টাগন জানিয়েছে, ইরানপন্থি বিক্ষোভকারীরা চলতি সপ্তাহে বাগদাদের মার্কিন দূতাবাস ঘেরাও করার পর তাকে হত্যার নির্দেশ দিয়েছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। সোলাইমানির মৃত্যুর পর মার্কিন পতাকার একটি চিত্র টুইটারে পোস্ট করেন ট্রাম্প। তবে বিস্তারিত কিছু বলেননি।

http://www.anandalokfoundation.com/