13yercelebration
ঢাকা
আজকের সর্বশেষ সবখবর

কমিউনিটি ক্লিনিকের মাধ্যমে মানুষের দোরগোড়ায় পৌছে দেওয়া হচ্ছে স্বাস্থ্যসেবা -স্বাস্থ্যমন্ত্রী

পিআইডি
May 29, 2024 9:14 pm
Link Copied!

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার মস্তিষ্ক নিসৃত ভিশনারী সিদ্ধান্ত কমিউনিটি ক্লিনিক। এই কমিউনিটি ক্লিনিক এখন দেশের প্রান্তিক মানুষের স্বাস্থ্যসেবায় আস্থার কেন্দ্রবিন্দুতে পরিনত হয়েছে। এর মাধ্যমেই নানারকম স্বাস্থ্যসেবাগুলো এখন বাংলাদেশের প্রান্তিক মানুষের দোরগোড়ায় পৌছে দেওয়া হচ্ছে। বলেছেন স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রী ডা সামন্ত লাল সেন।

আজ জেনেভায় বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার সদস্য রাষ্ট্রগুলোর স্বাস্থ্যমন্ত্রীদের অংশগ্রহণে Health for All, All for Health’ এই প্রতিপাদ্যকে সামনে নিয়ে World Health Assembly এর দ্বিতীয় দিনে অনুষ্ঠিত প্যানেলে স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রী, ভা: সামন্তলাল সেন, বাংলাদেশের পক্ষে এক ‘Country Statement’ উপস্থাপন করতে এসব কথা বলেন।

সম্মেলনে স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা তার ভিশনারী ও বলিষ্ঠ নেতৃত্ব এবং সরকারের সুনির্দিষ্ট কর্মপরিকল্পনা বাস্তবায়নের মাধ্যমে ২০৪১ সালের মধ্যে বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের সোনার বাংলা গড়ে তুলতে বদ্ধ পরিকর। তিনি উল্লেখ করেন, প্রাথমিক স্বাস্থ্য সেবার মান ও অবকাঠামোগত উন্নয়নসহ কমিউনিটি ক্লিনিক (শেখ হাসিনা ইনিশিয়েটিভ) স্থাপনে কৌশলগত বিনিয়োগ বৃদ্ধির মাধ্যমে প্রান্তিক জনগোষ্ঠীর দোড়গোঁড়ায় প্রাথমিক স্বাস্থ্য সেবা পৌঁছে দিতে সরকার নিরলস ভাবে কাজ করে যাচ্ছে। ইপিআই প্রোগ্রামের মাধ্যমে ১০ টি রোগের বিরুদ্ধে টিকা প্রদান, গর্ভকালীন ও প্রসব পরবর্তী মাতৃস্বাস্থ্য সেবা বাড়ানোর ফলে বিগত ২০ বছরে মাতৃ ও শিশু মৃত্যু রোধে দক্ষিণ- এশিয়া অঞ্চলে বাংলাদেশ উল্লেখযোগ্য অগ্রগতি দেখিয়েছে। মানুষের আর্থ-সামাজিক উন্নয়নের কারণে গড় আয়ু ১৯৭১ সালে ৫০ থেকে বেড়ে বর্তমানে তা ৭৩ বছরে উন্নীত হয়েছে। স্বাস্থ্য খাতে এসকল অর্জনের স্বীকৃতি হিসেবে বাংলাদেশ আন্তর্জাতিকভাবে বহু পুরষ্কারে ভূষিত হয়েছে। ২০৩০ সালের মধ্যে টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রার সূচক সমূহ অর্জনে বাংলাদেশ দৃঢ় প্রতিজ্ঞ। তথাপি সকলের জন্য স্বাস্থ্য নিশ্চিত করতে মাননীয় মন্ত্রী তার বক্তব্যে কার্যকর বিনিয়োগের মাধ্যমে প্রাথমিক স্বাস্থ্য সেবার পরিধি ও মানোন্নয়ন, সকলের জন্য স্বাস্থ্য নিশ্চিত করতে সাশ্রয়ী ও সহজলভ্য উপায়ে মানুষের দোড়গোঁড়ায় স্বাস্থ্য সেবা পৌঁছে দেয়া, জলবায়ু পরিবর্তনসহ অন্যান্য কারণে সৃষ্ট স্বাস্থ্য ঝুঁকি মোকাবেলায় সকল সেক্টরের সহযোগিতায় একটি সমন্বিত স্বাস্থ্য সেবা ব্যবস্থা গড়ে তোলা এবং সর্বোপরি কার্যকর কারিগরি জ্ঞান ও টেকনোলজি ট্রান্সফারসহ উন্নয়নশীল দেশগুলোর সক্ষমতা বাড়াতে জাতীয় ও আন্তর্জাতিক সহযোগিতা বৃদ্ধির উপর গুরুত্ব আরোপ করেন।

সম্মেলনে ‘Country Statement’ উপস্থাপন করার পাশাপাশি স্বাস্থ্যমন্ত্রীর নেতৃত্বে বাংলাদেশ প্রতিনিধিদল একই দিনে বেশ কিছু গুরুত্বপূর্ণ দ্বি-পাক্ষিক ও সাইড মিটিং এ অংশ নেন। এশিয়া পেসিফিক অঞ্চলের দেশ সমুহে এন্টিমাইক্রোবিয়াল রেজিসষ্টেন্সের বিরুদ্ধে কার্যকর ও সমন্বিত উদ্যোগ গ্রহণের লক্ষ্যে জাপান সরকারের আমন্ত্রণে একটি ব্রেকফাস্ট মিটিং এ অংশ নিয়ে স্বাস্থ্যমন্ত্রী এন্টিমাইক্রোবিয়াল রেজিসষ্টেন্সের বিরুদ্ধে বাংলাদেশ সরকারের সদিচ্ছা, দৃঢ় অবস্থান, কার্যকরী পদক্ষেপসহ আন্তর্জাতিকভাবে নেতৃত্ব দেয়ার কথা পূণর্ব্যক্ত করেন। UNICEF এর ডেপুটি নির্বাহী পরিচালক ডা: টেডের সাথে দ্বি-পাক্ষিক বৈঠকে বাংলাদেশ প্রতিনিধি দল খাদ্যে সীসা সহ অন্যান্য কারণে শিশু স্বাস্থ্যের ঝুঁকি মোকাবিলা ও তাদের সুরক্ষা নিশ্চিতকণ এবং মাতৃমৃত্যু ও শিশুমৃত্যু রোধে বাংলাদেশের উল্লেখযোগ্য পদক্ষেপের কথা তুলে ধরেন।

দক্ষিণ-পুর্ব এশিয়া অঞ্চলের আঞ্চলিক পরিচালক সায়মা ওয়াজেদের সাথে বৈঠকে স্বাস্থ্যমন্ত্রী ও স্বাস্থ্য সেবা বিভাগের সচিব মো: জাহাঙ্গীর আলম বাংলাদেশের স্বাস্থ্য ব্যবস্থা অগ্রগতির চিত্র সহ সরকারের বিভিন্ন পদক্ষেপের চিত্র তুলে ধরেন। আঞ্চলিক পরিচালক আগামী সেপ্টেম্বরে অনুষ্ঠিতব্য জাতিসংঘের সাধারণ সভায় এন্টিমাইক্রোবিয়াল রেজিষ্টেন্সের বিরুদ্ধে বাংলাদেশ দৃঢ় অবস্থান তুলে ধরার বিষয়ে দিকনির্দেশনা প্রদান করেন। এছাড়া তিনি ৭-১০ অক্টোবর, দক্ষিণ-পুর্ব এশিয়া অঞ্চলের আঞ্চলিক কমিটির ৭৭ তম সভা বাংলাদেশে আয়োজনে সম্মত হওয়ায় ধন্যবাদ জানিয়ে তা সফল করতে সকল প্রকার উদ্যোগ গ্রহণের জন্য নির্দেশনা দেন।

সাসাকাওয়া ফাউন্ডেশনের সাথে আরেকটি দ্বি-পাক্ষিক বৈঠকে স্বাস্থ্যমন্ত্রী বাংলাদেশ থেকে লেপরোসী নির্মূলে ফাউন্ডেশনের সহযোগিতার জন্যে ধন্যবাদ জানিয়ে তা অব্যাহত রাখার আহ্বান জানান।

অসংক্রামক রোগ প্রতিরোধ ও নিয়ন্ত্রণে খাদ্যে লবণের পরিমাণ কমানো বিষয়ক একটি সাইড ইভেন্টে অংশ নিয়ে অতিরিক্ত মহাপরিচালক (পরিকল্পনা ও উন্নয়ন) বলেন, খাদ্যে অতিরিক্ত লবণ কমানোর জন্য সচেতনতা বৃদ্ধির পাশাপাশি লবণের বিকল্প তৈরির বিষয়টি গুরুত্বের সাথে বিবেচনার জন্য সকলের দৃষ্টি আকর্ষণ করেন। বৈঠক সমূহে স্বাস্থ্যমন্ত্রীর নেতৃত্বে স্বাস্থ্যসেবা বিভাগের সচিব, অতিরিক্ত মহাপরিচালক (পরিকল্পনা ও উন্নয়ন), যুগ্মসচিব (স্বাস্থ্য সেবা বিভাগ), পরিচালক (পরিকল্পনা ও গবেষণা), মিশনের ভারপ্রাপ্ত স্থায়ী প্রতিনিধি সহ মন্ত্রণালয়, অধিদপ্তর ও মিশনের অন্যান্য সদস্যবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

http://www.anandalokfoundation.com/