13yercelebration
ঢাকা
আজকের সর্বশেষ সবখবর

কংগ্রেসের এবারের নির্বাচনী ইশতেহারে মুসলমানদের মধ্যে সম্পত্তি বণ্টন করার কথা -নরেন্দ্র মোদী

Link Copied!

“কংগ্রেস ক্ষমতায় এলে দেশের সম্পদ মুসলমানদের মধ্যে বিলি করে দেবে। পারিবারিক সোনা-রুপার সঙ্গে বিবাহিত নারীদের গলায় পরা পবিত্র মঙ্গলসূত্র পর্যন্ত তারা কেড়ে নিয়ে বাঁটোয়ারা করে দেবে। কংগ্রেসের এবারের নির্বাচনী ইশতেহারে মুসলমানদের মধ্যে সম্পত্তি বণ্টন করার কথা বলা হয়েছে ….. .” বলেছেন ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী।

রবিবার রাজস্থান রাজ্যে এক নির্বাচনী জনসভায়  তিনি এসব কথা বলেন।

জনসভায় আসা মানুষের কাছে নরেন্দ্র মোদী জানতে চান, তারা তাদের কষ্টার্জিত সম্পত্তি মুসলমানদের মধ্যে, যাদের অনেক বাচ্চাকাচ্চা হয় তাদের মধ্যে, অনুপ্রবেশকারীদের মধ্যে বাঁটোয়ারা হতে দেবেন কি না।

নরেন্দ্র মোদীর ওই ভাষণ সম্প্রচারিত হওয়ার সঙ্গে সঙ্গেই বিরোধী মহলে তীব্র প্রতিক্রিয়া দেখা দেয়। কংগ্রেস সভাপতি মল্লিকার্জুন খাড়গে বলেন, বেশ বোঝা যাচ্ছে, মোদী হতাশ হয়ে পড়েছেন। কারণ, প্রথম দফায় ‘ইন্ডিয়া’ জোট এগিয়ে গেছে। মোদি তাই ঘৃণা ভাষণের আশ্রয় নিয়েছেন। ক্ষমতার জন্য অসত্য কথা বলছেন। বিরোধীরা যা বলেনি, তা বলে মানুষকে বিপথে চালিত করছেন। আরএসএস ও বিজেপির প্রশিক্ষণই এমন।

কড়া প্রতিক্রিয়া জানিয়েছেন এআইএমআইএম নেতা আসাউদ্দিন ওয়েইসিও। এক্স হ্যান্ডেলে তিনি লেখেন, মোদী মুসলমানদের অনুপ্রবেশকারী বললেন। বহু সন্তানের জন্মদাতা বললেন। ২০০২ সালে থেকে এটাই তিনি করে আসছেন। মুসলমানদের গালি দিচ্ছেন। এটাই তার একমাত্র গ্যারান্টি। এসব করেন ভোট পাওয়ার জন্য। মোদীর আমলেই দেশের ১ শতাংশ মানুষের হাতে পুঞ্জীভূত হয়েছে ৪০ শতাংশ সম্পদ। সাধারণ হিন্দুদের তিনি মুসলমানদের ভয় দেখাচ্ছেন অথচ তাদের সম্পদ কেড়ে ঘনিষ্ঠ ব্যক্তিদের ধনী করছেন।

নরেন্দ্র মোদীর সমালোচনা থেকে পিছিয়ে পড়েননি সমাজবাদী পার্টির নেতা অখিলেশ যাদব। তিনি বলেছেন, মোদি যে মিথ্যা বলেন, তা শুধু দেশবাসীই নয়, গোটা পৃথিবী জানে। যেভাবে তিনি কংগ্রেসের ‘ন্যায়পত্র’ ও মনমোহন সিংয়ের নামে মিথ্যা অপবাদ দিলেন, তা নোংরা রাজনীতির উদাহরণ।

তৃণমূল কংগ্রেসের সংসদ সদস্য সাকেত গোখলেও সরব। জনগণের উদ্দেশে তিনি বলেছেন, ‘ক্ষমতার ব্যবহার করুন।’ প্রধানমন্ত্রীর এই ভাষণের বিরুদ্ধে নির্বাচন কমিশনের (ইসি) কাছে অভিযোগ জানানোর আবেদন জানিয়ে তিনি এক্স হ্যান্ডেলে বলেছেন, অন্তত এক হাজার বিশিষ্ট মানুষ ইসিকে বলবেন, দ্রুত প্রধানমন্ত্রীর বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেওয়া হোক। সম্মিলিত দাবি ইসি অগ্রাহ্য করতে পারবে না।

http://www.anandalokfoundation.com/