13yercelebration
ঢাকা
আজকের সর্বশেষ সবখবর

ঐতিহাসিক বৈদ্যনাথতলা দিবস বনাম মুজিবনগর দিবস

ডেস্ক
April 17, 2023 9:22 am
Link Copied!

আজ ঐতিহাসিক মুজিবনগর দিবস। ১৯৭১ সালের ১৭ই এপ্রিল কুষ্টিয়া জেলার মেহেরপুরে বৈদ্যনাথ তলার এক আমবাগানে  গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ অস্থায়ী সরকারের মন্ত্রিপরিষদের সদস্যদের শপথ গ্রহণ অনুষ্ঠিত হয়। সাম্য,মানবিক মর্যাদা ও সামাজিক সুবিচারের ঘোষণা দিয়ে গঠিত প্রবাসী সরকারের শপথ অনুষ্ঠানের পবিত্র পাললিক ভূমির নাম ঐতিহাসিক বৈদ্যনাথতলা। ঐদিন থেকে বৈদ্যনাথ তলার নাম মুছে দিয়ে দেয়া হয় ঐতিহাসিক মুজিবনগর।

১৯৭১ সালের ৪ এপ্রিল দিল্লীতে ভারতের প্রধানমন্ত্রী ইন্দিরা গান্ধীর সাথে বাংলাদেশের পক্ষে বঙ্গবন্ধুর ঘনিষ্ঠতম সহযোদ্ধা ও তৎকালীন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক তাজউদ্দীন আহমেদ এর বৈঠকে আওয়ামী লীগের এমএনএ (M.N.A) এবং এমপিএদের (M.P.A) কুষ্টিয়া জেলার সীমান্তে অধিবেশন আহ্বান করেন।

ইন্দিরা গান্ধীর সাথে তাজ উদ্দিন আহমেদের বৈঠকের পর ১৯৭১ সালের ১৭ এপ্রিল তারিখে মেহেরপুরের বৈদ্যনাথতলার আম্রকাননে বাংলাদেশের স্বাধীনতার সনদ ঘোষণা দিয়ে প্রথম সরকারের শপথ অনুষ্ঠিত হয়। এ যেন প্রবাসী সরকারের প্রথম পথচলা। মুক্তিযুদ্ধকালীন প্রবাসী সরকারের ভারপ্রাপ্ত রাষ্ট্রপতি সৈয়দ নজরুল ইসলাম, প্রধানমন্ত্রী তাজউদ্দীন আহমদসহ মন্ত্রিসভার অন্য সদস্যরা এখানেই শপথগ্রহণ করে এই মাটিকে ইতিহাসের পাতায় উর্বর করেছেন। যে উর্বরতা পরবর্তী সময়ে জন্ম দিয়েছে একটি স্বাধীন রাষ্ট্র এবং আমাদের হাতে তুলে দিয়েছে একটি পতাকা।

বাংলাদেশের স্বাধীনতা সংগ্রাম এবং মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাসে এক অনন্য দিন ১৭ এপ্রিল। অনন্য হলেও অসাধারণ হয়ে উঠতে পারেনি। অসাধারণ হয়ে উঠতে পারেনি বলেই স্থানটি এখনো একটি নান্দনিক কমপ্লেক্স হিসেবে বেড়ে উঠতে পারেনি। যে কমপ্লেক্সের আকর্ষণ হতে পারত মুক্তিযুদ্ধ এবং যুদ্ধের বস্তুনিষ্ঠ দলিলগুলো। মুক্তিযুদ্ধভিত্তিক একটি গবেষণাকেন্দ্র। একটি নিরীক্ষাধর্মী পাঠাগার। অর্থাৎ কমপ্লেক্সেও আকর্ষণ বাড়ানোর জন্য যা যা প্রয়োজন অগ্রাধিকার ভিত্তিতে তা গড়ে তোলা। হতে পারে এটিই একটি আন্তর্জাতিক মানসম্পন্ন উচ্চবিদ্যাপীঠ। যেখান থেকে আমরা আমাদের অহংকারকে বিশ্ব মানচিত্রের সঙ্গে কমিউনিকেট করতে পারি।

কিন্তু তার কিছুই হয়নি। বিষয়টি তুলনামূলক বিচারে। ১৯৭১ থেকে ২০২৩। মাঝখানে ৫১ বছর। সময় ও পরিবেশের দিক থেকে ফারাকটা অনেক। চিন্তার তফাৎটাও আকাশ-পাতাল। আমাদের চিন্তার সঙ্গে বর্তমান প্রজন্মের চিন্তার পাটাতনে পা রাখলে পার্থক্যটা ধরা পড়ে। বর্তমান প্রজন্মে প্রযুক্তির উল্লম্ফন হয়েছে ঠিকই কিন্তু অবনমন হয়েছে বোধের ক্ষেত্রে। এখন সমাজের কোথাও যেন মানবিকতার ছোঁয়া পাওয়া যায় না। যে মানবিকতার কারণে একসময় এ মাটির আপমর জনগণ এক কাতারে এসে একটি স্বাধীন পতাকার কথা বলতে পেরেছিল। যুদ্ধও ময়দানে জীবন বাজি রাখতে পরোয়া করেনি। কিন্তু বর্তমান!

বোধের দরজায় যেন তালা পড়েছে। সহসা খোলার কোনো সম্ভাবনা নেই। বাস্তবতা সে কথাই বলছে। আমরা এমন বাস্তবতা দেখার জন্য মুক্তিযুদ্ধে অংশগ্রহণ করেনি। দেশকে স্বাধীন করিনি। আত্মত্যাগের উদাহরণ সৃষ্টি করিনি। যা কিছু করেছি বৈদ্যনাথতলার মাটিতে দাঁড়িয়ে এবং ঘোষণা দিয়ে। ঘোষণায় বলেছি, ‘সাম্য, মানবিক মর্যাদা ও সামাজিক সুবিচারের নিশ্চয়তা প্রতিষ্ঠিত করার প্রশ্নে অঙ্গীকারবদ্ধ হলাম’। এখন দেখার বিষয়, আমরা আমাদের ঘোষণা থেকে কতটা দূরে অথবা কাছে অবস্থান করছি।

http://www.anandalokfoundation.com/