13yercelebration
ঢাকা
আজকের সর্বশেষ সবখবর

এসএমই উদ্যোক্তাদের এগিয়ে আসার উপযুক্ত পরিবেশ গড়ে তুলতে বদ্ধপরিকর সরকার -প্রধানমন্ত্রী

পিআইডি
May 19, 2024 5:51 am
Link Copied!

সমৃদ্ধ ও টেকসই অর্থনীতির ভিত গড়তে হলে দেশে শ্রমঘন ও স্বল্প পুঁজির এসএমই উদ্যোক্তা তৈরি করার বিকল্প নেই। ব্যবসা-বাণিজ্যের প্রসারসহ এসএমই উদ্যোক্তাদের এগিয়ে আসার উপযুক্ত পরিবেশ গড়ে তুলতে আমাদের সরকার বদ্ধপরিকর। বলেছেন  প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

আজ ১৯ মে ‘১১তম জাতীয় এসএমই পণ্য মেলা ২০২৪’ উপলক্ষ্যে প্রধানমন্ত্রীর বাণীতে তিনি এসব কথা বলেন।

প্রধানমন্ত্রী বলেন,    “ক্ষুদ্র ও মাঝারি শিল্প ফাউন্ডেশন (এসএমই ফাউন্ডেশন) ‘১১তম জাতীয় এসএমই পণ্য মেলা ২০২৪’ আয়োজন করছে জেনে আমি আনন্দিত। এ উপলক্ষ্যে আমি সংশ্লিষ্ট সকলকে জানাই আন্তরিক শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন।

সরকার প্রধান বলেন, সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ বাঙালি, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের শিল্প উন্নয়ন ভাবনার পরিস্ফুটন হয় ১৯৫৪ সালে যুক্তফ্রন্টের নির্বাচনি ইশতেহারে যা তিনি নিজেই প্রস্তুত করেছিলেন। ইশতেহারটির ২১ দফা ঘোষণাপত্রের চারটি দফার ছিল তাঁর শিল্প উন্নয়ন পরিকল্পনা। তিনি ১৯৫৬ সালে তৎকালীন পূর্ব পাকিস্তানের শিল্প, বাণিজ্য, শ্রম, দুর্নীতি দমন ও গ্রাম সহায়তা মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রী ছিলেন। এসময় তিনি বাংলাদেশে শিল্প প্রসারের উদ্যোগ গ্রহণ করেন। স্বাধীনতার পর জাতির পিতা ১৯৭৩ সালে দেশের প্রথম শিল্প ও বিনিয়োগনীতি ঘোষণা করেন এবং শিল্পপ্রতিষ্ঠান জাতীয়করণ করেন। তিনি শিল্প মন্ত্রণালয়ের আওতায় প্রয়োজনীয় দপ্তরসমূহ গঠন করেন।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, জাতির পিতার উন্নয়ন দর্শনের আলোকে বিগত ১৫ বছর আমরা শিল্পখাতের উন্নয়নে ব্যাপক কর্মসূচি বাস্তবায়ন করেছি। ফলে দেশের শিল্পখাত ক্রমেই সমৃদ্ধির পথে এগিয়ে যাচ্ছে। জিডিপিতে শিল্পখাতের অবদান ইতোমধ্যে ৩৭ শতাংশ ছাড়িয়ে গেছে। বাংলাদেশের শতকরা প্রায় ৯৯ ভাগ শিল্প ও ব্যবসা কুটিরশিল্প এসএমই খাতের আওতাভুক্ত। এ খাত দেশের অর্থনৈতিক কর্মকান্ডের ৭০ শতাংশই নিয়ন্ত্রণ করে যা মোট শিল্প কর্মসংস্থানের শতকরা প্রায় ৮০ থেকে ৮৫ ভাগ। এসএমই খাত মোট অভ্যন্তরীণ শিল্প পণ্য চাহিদার শতকরা ৩০ থেকে ৩৫ ভাগের যোগান দিয়ে থাকে। আমাদের সরকার এবছরকে ‘জাতীয় হস্তশিল্প বছর’ হিসেবে ঘোষণা দিয়েছে। ক্ষুদ্র ও মাঝারি শিল্পের সুষ্ঠু বিকাশে আমরা বিভিন্ন ব্যবসাবান্ধব নীতি প্রণয়ন ও কর্মসূচি বাস্তবায়ন করছি। এরই ধারাবাহিকতায় শিল্পনীতি ২০২২ ও এসএমই নীতিমালা ২০১৯ প্রণয়ন করা হয়েছে। আমরা এসডিজি ২০৩০, রূপকল্প ২০৪১, অষ্টম পঞ্চবার্ষিকী, বিভিন্ন নীতিমালা ও কৌশলপত্রে এসএমই খাতকে গুরুত্ব দিয়েছি। করোনা মহামারির প্রভাব মোকাবিলায় আমরা এসএমই শিল্পে আর্থিক প্রণোদনা এবং রপ্তানিখাতে অবদানের জন্য নগদ সহায়তা প্রদান করেছি। তৃণমূল পর্যায়ে ক্লাস্টারভিত্তিক শিল্প  বিকাশের ফলে অধিক জনবল শ্রমখাতে নিযুক্ত হচ্ছে এবং নারী উদ্যোক্তা ও কর্মী সংখ্যা বাড়ছে। এসএমইএফ কর্তৃক নতুন নারী উদ্যোক্তা তৈরি ও স্টার্টআপ বিষয়ে ১৫০টি প্রোগ্রামের মাধ্যমে ৩০ হাজার উদ্যোক্তা তৈরি করা হয়েছে। গত ১৫ বছরে ক্রেডিট হোলসেলিং মডেল ব্যবহার করে ৭১৬ কোটি টাকা ৮ হাজার ২৮৬ জন উদ্যোক্তাকে ঋণ বিতরণ করা হয়েছে, যার ২৩ শতাংশ নারী।

শেখ হাসিনা আরও বলেন,  আমাদের সরকার শিল্পখাতে সফল উদ্যোক্তা/প্রতিষ্ঠানকে স্বীকৃতি প্রদান, প্রণোদনা ও সৃজনশীলতাকে উৎসাহিতকরণে রাষ্ট্রপতির শিল্প উন্নয়ন পুরস্কার, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব শিল্প পুরস্কার, সিআইপি (শিল্প) সম্মাননা প্রদান চালু করেছে। ফলে বিগত ৬২ বছরের মধ্যে সর্বোচ্চ ২২ দশমিক ৩৩ লাখ মে. টন লবণ উৎপাদন, বার্ষিক উন্নয়ন কর্মসূচির ১১২ দশমিক ২৪ শতাংশ বাস্তবায়ন এবং চামড়া শিল্পে ১ দশমিক ২৫ বিলিয়ন ইউএস ডলার রপ্তানি আয় অর্জন উল্লেখযোগ্য। যার মধ্যে এসএমই খাতের অবদান ৩২ শতাংশ। ২০৩১ সালের মধ্যে এসএমই খাতের অবদান ৪০ শতাংশে উন্নীত করার লক্ষ্যে শিল্প মন্ত্রণালয় তথা এসএমই ফাউন্ডেশন কাজ করে যাচ্ছে।

প্রধানমন্ত্রী বলেন,  এসএমই পণ্যের বাজারজাতকরণে এসএমই পণ্য মেলা গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখে। এ মেলা দেশের বিভিন্ন প্রান্তে ছড়িয়ে থাকা মাইক্রো, ক্ষুদ্র ও মাঝারি শিল্প উদ্যোক্তাদের তৈরি দেশীয় পণ্যের পরিচিতি ও চাহিদা বাড়াবে।

প্রধান মন্ত্রী আরও বলেন, দেশের তরুণ-যুবসমাজকে দক্ষ জনশক্তিতে রূপান্তর করা ও তাঁদের কর্মসংস্থানের সুযোগ বৃদ্ধিকরণে এসএমই খাত ও জাতীয় এসএমই মেলা অগ্রণী ভূমিকা রাখছে। আর এভাবেই গড়ে উঠবে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ক্ষুধা-দারিদ্র্যমুক্ত, সুখী-সমৃদ্ধ স্বপ্নের সোনার বাংলাদেশ তথা তথ্যপ্রযুক্তি সম্পন্ন জ্ঞানভিত্তিক স্মার্ট বাংলাদেশ।

http://www.anandalokfoundation.com/