13yercelebration
ঢাকা
আজকের সর্বশেষ সবখবর

আপনার শিশুর সাথে এমনটা করছেন না তো? 

ডেস্ক
May 21, 2024 9:58 am
Link Copied!

শিশু-কিশোদের দেখা অনেক অনভিপ্রেত ঘটনা তার চিন্তাজগেক প্রবলভাবে নাড়া দেয়। মনে চাপ ও কষ্টের সৃষ্টি করে। এসব নেতিবাচক অভিজ্ঞতা শিশুর মানসিক বিকাশকে বাধাগ্রস্ত করে, যা পরবর্তী জীবনে নানা মানসিক রোগের কারণ হয়ে দাঁড়ায়। আপনার শিশুর সাথে এমনটা করছেন না তো? 

শৈশবের ট্রমা : মা-বাবা বা অন্য কারো দ্বারা শারীরিক নির্যাতন, মানসিক নির্যাতন ও অবহেলা শিশুর মনে ক্ষত তৈরি করতে পারে। যেকোনো ধরনের যৌন হয়রানি ও নির্যাতন শিশুর জন্য ট্রমা।

মা-বাবা ও পরিবারের বয়স্ক সদস্যদের মধ্যে সহিংসতা, ঝগড়া-মারামারি, মাদকাসক্তি শিশুর মনে প্রভাব ফেলে। মা-বাবার মৃত্যু, বিচ্ছেদ বা অন্য কোনো কারণে শৈশবে তাদের সঙ্গ বঞ্চিত হওয়া শিশুর জন্য বেদনাদায়ক। স্কুলে অনেক সময় একই বা ওপরের ক্লাসের শিশুরা অন্য শিশুকে অপদস্থ করে, ব্যঙ্গাত্মক নামে ডাকে, সামাজিকভাবে বয়কট করে। এ ধরনের ‘বুলিং’ও শিশুর জন্য নেতিবাচক অভিজ্ঞতা।

পরবর্তী জীবনে মনোসামাজিক সমস্যা : শৈশবে অনাকাঙ্ক্ষিত ঘটনা ও অভিজ্ঞতার মুখোমুখি হওয়া শিশুরা ভবিষ্যতে নানা ধরনের মানসিক সমস্যায় ভুগতে পারে। বড় কোনো দুর্যোগ, বিপর্যয় বা আঘাতের শিকার শিশু পরবর্তী সময়ে ‘পোস্ট-ট্রমাটিক স্ট্রেস ডিস-অর্ডারে’ (পিটিএসডি) আক্রান্ত হতে পারে। এই রোগে ভয়ংকর অভিজ্ঞতার দুঃসহ স্মৃতি ফিরে ফিরে আসে এবং আক্রান্ত ব্যক্তি প্রতিবার একই রকম ভয়, আতঙ্ক, বেদনা অনুভব করে। শৈশবের ক্ষত ভবিষ্যতে সুস্থ, স্বাভাবিক সম্পর্ক গড়ে তুলতে সমস্যা তৈরি করে।

অনেকে সামাজিক সম্পর্ক এড়িয়ে একাকী হয়ে পড়ে, আবার অনেকে নির্দিষ্ট কারো প্রতি অস্বাভাবিক ও মাত্রাতিরিক্ত নির্ভরশীল হয়। নিজের আবেগ-অনুভূতি যথাযথ প্রকাশ করতে পারে না অথবা অতি আবেগী আচরণ ব্যক্তিত্বের অংশ হয়ে দাঁড়ায়। মানসিক চাপে মানিয়ে নেওয়ার ক্ষমতা কমে যায়। অনেকে দীর্ঘমেয়াদি বিষণ্নতা, উদ্বেগজনিত রোগ, অহেতুক ভীতি, ডিসোসিয়েটিভ কনভারশন ডিস-অর্ডার, পার্সোনালিটি ডিস-অর্ডার প্রভৃতি রোগে ভোগে। কারো কারো মধ্যে সন্দেহ প্রবণতা দেখা দেয়।

শৈশবে ট্রমার শিকার শিশুর পরবর্তী জীবনে মাদকাসক্তি ও আত্মহত্যা প্রবণতার ঝুঁকি বেশি থাকে। অনেকের মানসিক চাপজনিত নানা শারীরিক উপসর্গ-লক্ষণ, যেমন—মাথা ব্যথা, শরীর ব্যথা, বুক ধড়ফড়, হাত-পা কাঁপা, খাওয়ায় অরুচি প্রভৃতি দেখা দেয়।

করণীয় : ট্রমার শিকার শিশুকে তার চিন্তা-ভাবনা ও আবেগ প্রকাশের সুযোগ দিতে হবে, তার কথা ও মানসিক অবস্থাকে গুরুত্ব দিতে হবে, তার মধ্যে নিরাপত্তার অভাববোধ দূর করার ব্যবস্থা নিতে হবে। তাকে মানসিক চাপ মোকাবেলা ও যেকোনো পরিস্থিতিতে খাপ খাইয়ে নেওয়ার ব্যাপারে যথাযথ প্রশিক্ষণ দিতে হবে। পরবর্তী জীবনে মানসিক সমস্যায় আক্রান্ত হলে দ্রুত মানসিক স্বাস্থ্য পেশাজীবীর সহায়তা গ্রহণ এবং চিকিৎসার ব্যবস্থা করতে হবে।

http://www.anandalokfoundation.com/