মঙ্গলবার, ২২ জুন ২০২১, ০৪:২৪ পূর্বাহ্ন

সর্বশেষ খবর :
করোনা সুরক্ষায় ইয়োগার গুরুত্ব অপরিসীম -যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী সরকারের দক্ষ পরিচালনাতেই মধ্যম আয়ে উন্নীত দেশ, মাথাপিছু আয়ে ভারতকে ছাড়িয়ে -তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রী শ্রমিক কল্যাণ তহবিল হতে আড়াই হাজার শ্রমিক সাড়ে ৯ কোটি টাকা সহায়তা পাচ্ছেন লকডাউনের যে ৭ জেলায় থামবে না ট্রেন দু‘মাস পর বেনাপোল দিয়ে চিকিৎসা সেবায় ভারত ভ্রমণের সুযোগ ঝিনাইদহ শৈলকুপা পৌরসভায় বাজেট ঘোষণা ছেলেদের সাথে ভোট দিতে এসে বোমা হামলায় লাশ হলেন বাবা “স্বাস্থ্য সেবা বিভাগের সচিব লোকমান হোসেন মিয়ার পিতা ইন্তেকাল” কালীগঞ্জ বারবাজার থেকে গাঁজাসহ দুই মাদক ব্যবসায়ী আটক জেনে নিন আবহাওয়ার পূর্বাভাস

ব্ল্যাক ফাঙ্গাস(কালো ছত্রাক) বা মিউকরমাইকোসিস আতংকিত নয়, সাবধান হোন

https://thenewse.com/wp-content/uploads/Black-Fungus.jpg

মিউকরমাইকোসিস বা ব্ল্যাক ফাঙ্গাস বিশেষ ধরনের অনুবীক্ষনিক ছত্রাকের সংক্রমণজনিত বিভিন্ন রোগকে বোঝায়। এর মধ্যে রাইজোপাস প্রজাতি হ’ল সবচাইতে বেশি দায়ী, তবে অন্যান্য জীবানু যেমন মিউকর, কানিংহামেলা, অ্যাফোফিজোমাইসেস, লিচথিমিয়া, সাকসেনিয়া, রাইজোমুকর এবং অন্যান্য প্রজাতিও এই রোগের কারন।

এই ছত্রাক সর্বব্যাপী – মাটি পানি ও বাতাসে ছড়িয়ে থাকলেও সংক্রমণ ক্ষমতা এতই কম যে ১ লাখ মানুষের মধ্যে মাত্র ১-২ জনের এই জীবানু সংক্রমণ হতে পারে। কিন্তু কোন কারনে শরীরের রোগপ্রতিরোধ ক্ষমতা কমে গেলেই কেবল এই সংক্রমণের মাত্রা বেড়ে যেতে পারে- যেটা ১ লাখে ২০ থেকে ৩০ জন হতে পারে।

অনিয়ন্ত্রিত ডায়াবেটিস রোগী, বিশেষত কিটো অ্যাসিডোসিস আক্রান্তরা উচ্চ ঝুঁকিতে থাকে। তাছাড়া ক্যান্সারে আক্রান্ত রোগী, অতিরিক্ত ব্রড-স্পেকট্রাম অ্যান্টিবায়োটিকের ব্যবহার, অন্তঃসত্ত্বা মহিলা, অত্যধিক স্টেরয়েডস গ্রহণ করা, কিডনি বা অন্য অঙ্গ প্রতিস্থাপন করা রোগী এবং চরম অপুষ্টিজনিত রোগীদের ব্ল্যাক ফাঙ্গাসের সংক্রমণ হতে পারে। চামড়ার গভীর ক্ষত ও পোড়া ঘায়েও এই রোগ হতে দেখা যায়। ইদানীং ভারতের কোন কোন স্থানে করোনা আক্রান্ত রোগীদের মধ্যে আশংকাজনক হারে ব্ল্যাক ফাঙ্গাসে আক্রান্ত হওয়ার খবর পাওয়া যাচ্ছে, কিন্তু বাংলাদেশে এখনো এই রোগের প্রাদুর্ভাবের খবর পাওয়া যায়নি।

মিউকর পরিবেশে মোল্ড হিসাবে থাকলেও শরীরে অভ্যন্তরে ঢুকে হাইফা বা তন্তু আকারে পরিণত হয়। এগুলি বৃদ্ধি পেতে শুরু করলে ছত্রাকের হাইফাগুলি রক্তনালীগুলিতে আক্রমণ করে, যা থেকে থ্রম্বোসিস ও টিস্যু ইনফার্কশন, নেক্রোসিস এবং পরিশেষে গ্যাংরিন তৈরি করে।

সুস্থ মানুষের রক্তের শ্বেতরক্তকণিকা বা নিউট্রোফিল এই ছত্রাকের বিরুদ্ধে মূল প্রতিরক্ষার কাজ করে থাকে। সুতরাং, নিউট্রোপেনিয়া বা নিউট্রোফিল কর্মহীনতায় (যেমন, ডায়াবেটিস, স্টেরয়েড ব্যবহার) আক্রান্ত ব্যক্তিরা সর্বোচ্চ ঝুঁকিতে থাকেন। একই কারনে এইডস আক্রান্ত রোগীদের মধ্যে এই সংক্রমণের হার বেশি দেখা যায়।

আক্রান্ত অঙ্গের উপর ভিত্তি করে মিউকরমাইকোসিস রোগটি ৬ ধরনের। যথা: (1) রাইনো সেরেব্রাল- নাক, নাকের ও কপালের সাইনাস, চোখ ও ব্রেইন বা মস্তিষ্কের সংক্রমণ (2) ফুসফুসীয় (3) আন্ত্রিক- (4) ত্বকীয় (৫) অভ্যন্তরীণ বা ডিসেমিনেটেড এবং (6) অন্যান্য ।

এই ছত্রাক মানুষের শরীরে শ্বাসনালী ও নাকের মধ্য দিয়ে, খাবারের সাথে বা ত্বকের কোন ক্ষত বা প্রদাহের মধ্য দিয়ে প্রবেশ করে থাকে। আক্রান্ত অংশ আর নাকের শ্লেষ্মা, কফ, চামড়া ও চোখ কালো রং ধারণ করে বলে একে কালো ছত্রাক নামে ডাকা হয়। মিউকরমাইকোসিস আক্রান্ত রোগীদের মধ্যে দ্রুত এবং সঠিক চিকিৎসা না করতে পারলে ৫০% থেকে ৮০% রোগী মৃত্যু বরন করে থাকে। আর অভ্যন্তরীণ সংক্রমণের মৃত্যুর হার 100% এর কাছাকাছি।

রোগ নির্ণয় ও চিকিৎসা: ঝুঁকিপূর্ন রোগীদের ক্ষেত্রে সংক্রমণের শুরুতে রোগ সন্দেহ করা ও নির্ণয় করা অত্যাবশ্যক। রক্ত পরীক্ষা, বুকের ও সংশ্লিষ্ট অঙ্গের এক্সরে, আল্ট্রাসনো, শ্লেষ্মা, চামড়া ও মাংসের টিস্যু বায়োপসি, সিটি স্ক্যান ও এম আর আই পরীক্ষা করাতে হবে। উচ্চ মৃত্যু হারের ভয় থাকায় সময় নষ্ট না করে চিকিৎসা শুরু করতে হবে। ছত্রাক বিরোধী ঔষধ বা অ্যান্টিফাঙ্গাল ড্রাগ জরুরিভাবে শুরু করতে হবে। পাশাপাশি ঝুঁকিসমূহ যেমন ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণ ও রোগপ্রতিরোধ ক্ষমতাকে বৃদ্ধি করার চেষ্টা করতে হবে। প্রয়োজনে আক্রান্ত অঙ্গে সার্জারী করতে হতে পারে বা কোন কোন সময়ে তা কেটে ফেলে দিয়ে জীবন রক্ষা করতে হতে পারে।

ইদানিং ভারতের মহারাষ্ট্র ও অন্যান্য প্রদেশে মারাত্মক কোভিড-১৯ সংক্রমণের মধ্যে নতুন করে দেখা দিচ্ছে ব্ল্যাক ফাঙ্গাস বা মিউকরমাইকোসিস। দীর্ঘদিন রোগভোগ, অতিরিক্ত স্টেরয়েড ও এন্টিবায়োটিকের ব্যবহার এক্ষেত্রে মূখ্য ভূমিকা পালন করছে বলে মনে হয়। ভারতজুড়ে আতংক সৃষ্টি হলেও শুরুতেই ভালোমতো চিকিৎসা করলে এই রোগকে দমন করে অনাকাঙ্ক্ষিত মৃত্যু ঠেকানো সম্ভব। গত সপ্তাহে ভারতে কোভিড রোগীদের হোয়াইট বা শ্বেত ছত্রাক সংক্রমণ দেখা দেয়ায় বাড়তি আতংকের সৃষ্টি হয়েছে। কালো ছত্রাকের মত শ্বেত ছত্রাকের উপসর্গ ও চিকিৎসা একইরকম হলেও এব্যাপারে সতর্ক হওয়া প্রয়োজন।

বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রীর সঠিক পরিকল্পনায় ও বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয় সহ সংশ্লিষ্ট চিকিৎসকদের আপ্রাণ প্রচেষ্টায় আমরা কোভিড-১৯ এর বৈশ্বিক মহামারীকে যথাসাধ্য নিয়ন্ত্রণ করতে সফল হয়েছি। আমাদের দেশে ব্ল্যাক ফাঙ্গাস এর কোন রোগী এখনো পাওয়া যায়নি। হোয়াইট ফাঙ্গাসের কোন রুগীর খবরও পাওয়া যায়নি।

আশা করি সতর্কতা অবলম্বন করলে এই রোগ থেকে সবাই নিরাপদ থাকতে পারবে। তারপরও যদি সংক্রমণ ঘটে ভয়ের কোন কারন নেই। এই রোগের ঔষধ আমাদের হাতে রয়েছে, সঠিক ভাবে প্রয়োগ করে আমরা রোগীর আরোগ্য নিশ্চিত করতে পারব। সুতরাং আতংক নয়, সাবধানতা দরকার।

প্রফেসর ডাঃ মোঃ শারফুদ্দিন আহমেদ

ভাইস চ্যান্সেলর

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়

শেয়ার করুন..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

দ্যা নিউজ এর বিশেষ প্রকাশনা

পুরাতন সংবাদ পডুন

SatSunMonTueWedThuFri
   1234
19202122232425
2627282930  
       
  12345
2728     
       
   1234
       
282930    
       
      1
       
     12
       
2930     
       
    123
25262728   
       
      1
9101112131415
30      
  12345
6789101112
272829    
       
   1234
2627282930  
       
1234567
891011121314
22232425262728
293031    
       
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০১৪-২০২১ | এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি
IT & Technical Support: BiswaJit