13yercelebration
ঢাকা
আজকের সর্বশেষ সবখবর

স্কুলের শিশুর ৭৭ভাগ পর্নোগ্রাফি দেখে

admin
October 1, 2016 9:48 pm
Link Copied!

বিশেষ প্রতিবেদকঃ রাজধানীর স্কুলগামী শিশুদের প্রায় ৭৭ শতাংশ পর্নোগ্রাফি দেখে। বেশির ভাগ ক্ষেত্রে দেশে তৈরি এই পর্নোগ্রাফিগুলোয় যাদের ভিডিও দেখানো হচ্ছে, তাদের বয়স ১৮ বছরের কম।

আজ শনিবার জাতীয় প্রেস ক্লাবের ভিআইপি লাউঞ্জে বেসরকারি সংস্থা মানুষের জন্য ফাউন্ডেশন আয়োজিত ‘বাংলাদেশ শিশু পরিস্থিতি’বিষয়ক প্রতিবেদনের প্রকাশনা অনুষ্ঠানে এ তথ্য তুলে ধরা হয়েছে।

অনুষ্ঠানে শিশু অধিকার বিশেষজ্ঞরা রাজনীতিতে শিশুদের ব্যবহার বন্ধের সুপারিশ করেন।

অনুষ্ঠানে সংস্থার নির্বাহী পরিচালক শাহীন আনাম বলেন, ২০১৫ সালে রাজনৈতিক সহিংসতায় শিশু নির্যাতনের ঘটনা আগের বছরের তুলনায় দ্বিগুণ হয়ে যায়। তাই কঠিন আইন করে রাজনীতিতে শিশুদের ব্যবহার বন্ধ করতে হবে এবং সব রাজনৈতিক দলকে শিশুদের সাথে আচরণবিধি মেনে চলতে বাধ্য করতে হবে।

অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন মানুষের জন্য ফাউন্ডেশনের পরিচালক গভর্ন্যান্স ড. তোফায়েল আহমেদ, বোর্ড সদস্য পারভীন মাহমুদ এবং কর্মসূচি সমন্বয়ক আবদুল্লাহ আল মামুন।

শাহীন আনাম বলেন, কিছু টাকায় শিশুদের দিয়ে ঢিল ছোঁড়া, অস্ত্র ব্যবহার এবং মারামারির রাজনীতিতে শিশুদের ব্যবহার করা হয়। রাজনীতিতে শিশু ব্যবহার বন্ধে সরকারি উদ্যোগের প্রয়োজনীয়তা উল্লেখ করে তিনি বলেন, ইতোমধ্যে সরকার বেশ কিছু ইতিবাচক উদ্যোগ গ্রহণ করেছে। ভবিষ্যতে এর ধারাবাহিকতা রক্ষায় সবাইকে সচেতন হতে হবে।

প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়, ২০১৫ সালের সংবাদপত্রে প্রকাশিত খবর অনুযায়ী রাজনৈতিক সহিংসতার শিকার হয়ে ক্ষতিগ্রস্ত শিশুর সংখ্যা ১০৪ জন। এর মধ্যে ১৫ শিশু মৃত্যুবরণ করে এবং আহত হয় ৯১ জন শিশু। ২০১৪ সালে রাজনৈতিক সহিংসতায় ক্ষতিগ্রস্ত শিশুর সংখ্যা ছিল ৫১ জন।

এতে সংবাদপত্রে শিশুবিষয়ক ইতিবাচক ও নেতিবাচক সংবাদের একটি তুলনামূলক পরিসংখ্যান তুলে ধরা হয়। ২০১৪-১৫ সালে ছয়টি জাতীয় সংবাদপত্রে প্রকাশিত সংবাদের ভিত্তিতে উপস্থাপিত পরিসংখ্যানে দেখানো হয়, ২০১৪ সালের তুলনায় ২০১৫ সালে নেতিবাচক সংবাদ কম প্রকাশিত হয়েছে। ২০১৫ সালে নেতিবাচক সংবাদ প্রকাশিত হয়েছে দুই হাজার ৮২০টি এবং ২০১৪ সালে এর সংখ্যা ছিল তিন হাজার ১৬১টি। একই সময় ইতিবাচক সংবাদও আগের তুলনায় কম প্রকাশিত হয়েছে। ২০১৫ সালে ইতিবাচক সংবাদ প্রকাশিত হয়েছে এক হাজার ৬০৪টি এবং ২০১৪ সালে এক হাজার ৬৬৭টি।

প্রতিবেদনে নেতিবাচক ঘটনার সংবাদ বিশ্লেষণে সড়ক দুর্ঘটনা, দুর্ঘটনা, শিক্ষা, স্বাস্থ্য, যৌননির্যাতন, ধর্ষণ, হত্যা, বাল্যবিয়ে, অপহরণ, পাচার, অ্যাসিড নিক্ষেপ, রাজনৈতিক সহিংসতা ইত্যাদি বিষয়কে প্রাধান্য দেয়া হয়েছে। সংস্থার শিশু সুরক্ষা কার্যক্রমের কর্মসূচি ব্যবস্থাপক আবদুল্লাহ আল মামুন বলেন, ৫০০ স্কুলগামী শিক্ষার্থীর ওপর পরিচালিত জরিপে দেখা গেছে, ৭৭ শতাংশ শিশু নিয়মিত পর্নোগ্রাফি দেখে। তারা সুস্থ যৌনশিক্ষার বিপরীতে বিকৃত যৌনশিক্ষার মধ্যে বেড়ে উঠছে।

তিনি আরো বলেন, বিশ্বের বিভিন্ন দেশে পর্নোগ্রাফির সাথে সম্পর্কিত ২০০ শব্দের ওপর সংরক্ষণ দেয়া আছে। কেউ ওই শব্দগুলো লিখে দিলে সার্ভারে নোটিফিকেশন যায়। অনুমোদন ছাড়া ওই সব সাইটে ঢোকা যায় না। বাংলাদেশেও এ ধরনের উদ্যোগ নেয়া জরুরি। সংস্থার গবেষণায় দেখা যায়, চারটি পদ্ধতিতে অশ্লীল ভিডিও তৈরি হচ্ছে। এর মধ্যে বাণিজ্যিকভাবে তৈরি পর্নোগ্রাফির চেয়ে ব্যক্তিগত সম্পর্ককে ঘিরে তৈরি পর্নোভিডিও মানুষ বেশি দেখছে। এই ভিডিওগুলোয় ১৮ বছরের কমবয়সী স্কুল-কলেজপড়ুয়া শিক্ষার্থীদের দেখা যাচ্ছে।

এক প্রশ্নের জবাবে আবদুল্লাহ আল মামুন বলেন, জাতীয় পরিচয়পত্র ছাড়া সিম নিবন্ধন নিষিদ্ধ। তার অর্থ ১৮ বছরের নিচে মোবাইল ফোন ব্যবহার করতে হলে শিশুকে অভিভাবকের নামে নিবন্ধন করা সিম ব্যবহার করতে হবে। অভিভাবকেরা শিশুদের দামি মোবাইল ফোন, ট্যাব এবং সেগুলোয় ইন্টারনেট সংযোগ দিচ্ছেন; কিন্তু শিশুরা কী কাজে এগুলো ব্যবহার করছে, সে সম্পর্কে খোঁজখবর রাখছেন না। এদিকে নজর দেয়া জরুরি।

http://www.anandalokfoundation.com/