13yercelebration
ঢাকা
আজকের সর্বশেষ সবখবর

সর্দি-কাশিতে আক্রান্ত শিশুদের ঘরোয়া চিকিৎসা

ডেস্ক
February 3, 2024 1:25 pm
Link Copied!

আবহাওয়া পরিবর্তনের কারণে এবং বড়দের তুলনায় শিশুদের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা কম থাকার জন্য এ সময়ে খুব দ্রুতই তারা সর্দি-কাশিতে আক্রান্ত হয়। অনেক শিশু এ মৌসুমে বারবারই ঠান্ডাজনিত সমস্যায় ভোগে। কারো কারো ক্ষেত্রে সর্দি হলে শ্বাসকষ্টও দেখা দেয়। সর্দি-কাশিতে আক্রান্ত শিশুদের ঘরোয়া চিকিৎসা

সর্দি হলেই আমরা নিউমোনিয়া ভেবে শিশুকে অহেতুক অ্যান্টিবায়োটিক খাওয়ানো শুরু করি। অতিরিক্ত অ্যান্টিবায়োটিকে শিশুর স্বাস্থ্যঝুঁকি তৈরি হতে পারে। সর্দি-কাশির সমস্যা দেখা দিলে প্রাথমিক অবস্থাতেই কড়া কড়া অ্যান্টিবায়োটিক না দিয়ে সহজ কিছু ঘরোয়া চিকিৎসার মাধ্যমে শিশুকে সুস্থ রাখার চেষ্টা করতে পারেন।

কিছু ঘরোয়া টিপস্‌

১। আধা চা চামচেরও কম পরিমাণ কালো জিরা, দুই কোয়া রসুন এবং এক কাপ সরিষার তেল গরম করে শিশুর বুক-পিঠ মালিশ করুন।

২। মাঝারি মাপের পেঁয়াজ কুচি কুচি করে কেটে পানিতে ছয়-আট ঘণ্টা ভিজতে দিন। এর সঙ্গে দুই-তিন চামচ মধু মিশিয়ে দিনে দুইবার করে খাওয়ান। ১ বছরের কম বয়সী শিশুদের ক্ষেত্রে এই পরামর্শ প্রযোজ্য নয়।

৩। প্রতিদিন সকালে খালি পেটে দুই কোয়া কাঁচা রসুন চিবিয়ে খাওয়াতে পারলে ভালো।

৪। লেবু পানিতে এক চা চামচ মধু মিশিয়ে বাচ্চাকে খাওয়ান। মধু শ্বাসযন্ত্রের ব্যাকটিরিয়া ধ্বংস করে, বুক থেকে কফ দূর করে গলা পরিষ্কার রাখে।

৫। কাশি হলে গরম স্যুপ খাওয়াতে পারেন। এতে কাশি কমতে পারে এবং গলা ব্যথাও কমে যাবে।

৬। কাশি থেকে মুক্তি পেতে শিশুকে মিশ্রি দিতে পারেন। মিশ্রি গলার আর্দ্রতা বজায় রাখে, গলার জ্বালাপোড়া কমায়।

৭। আদা, তুলসী পাতা থেঁতো করে মধু মিশিয়েও খেতে পারেন।

৮। হলুদ মেশানো গরম দুধ সর্দি-কাশি, জমা কফের সমস্যা দূর করে।

সর্দি-কাশির সময় যেসব বিষয়ে খেয়াল রাখবেন

শিশুকে আলো-বাতাসপূর্ণ ঘরে রাখুন।

খেয়াল রাখবেন যেন শিশুর শ্বাস নিতে কষ্ট না হয়।

সব সময় শিশুর নাক পরিষ্কার রাখুন।

পুষ্টিসম্পন্ন খাবার খাওয়ানোর চেষ্টা করুন।

শিশু পর্যাপ্ত পরিমাণে ঘুমাচ্ছে কি না, সে ব্যাপারে খেয়াল রাখতে হবে।

রাতে ঘুমানোর সময় শিশুর মাথার নিচে অতিরিক্ত একটা বালিশ দিন যেন নাকের ভেতরে জমে থাকা শ্লেষ্মা বের হতে পারে।

ঘরে এ সময় কোনো পোষা প্রাণী রাখবেন না।

শিশুকে পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন রাখার চেষ্টা করুন।

সর্দি-কাশির সময় যেসব সতর্কতা মেনে চলবেন

যেই পদ্ধতিই অবলম্বন করেন না কেন, খেয়াল রাখতে হবে যেন তা আপনার শিশুর বয়স অনুপাতে হয়। শিশুর বয়স যদি এক বছরের নিচে হয়, তবে তাকে গরম পানির ভাপ নেওয়াতে পারবেন না। এর পরিবর্তে গরম তেল মালিশ করলে কাজে দেবে।

শিশুকে প্রতিদিন কিছু সময়ের জন্য রোদে রাখুন। এতে ভিটামিন ডি শরীরে ঢুকবে এবং শিশুর রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতাও বাড়বে।

পাতলা জ্যাকেট বা সোয়েটার পরিয়ে রাখুন, বিশেষ করে রাতে ও ভোরের সময়।

এ সময় ঠান্ডা জাতীয় কোনো খাবার বা পানীয় দেবেন না।

কখন ডাক্তারের শরণাপন্ন হতে হবে?

শিশুর যদি খিঁচুনি উঠে।

জ্বর ১০৪° ফারেনহাইট এর ওপরে চলে যায়।

ঠোঁট ও মুখ নীল হয়ে গেলে।

পানিশূন্যতা দেখা দিলে।

সজাগ অবস্থাতেও পুরোপুরি সচেতন না থাকলে।

দ্রুত শ্বাস নিলে অথবা শ্বাসকষ্ট দেখা দিলে।

শ্বাস-প্রশ্বাসের সঙ্গে পাঁজরের হাড় ভেতরে ঢুকে গেলে।

http://www.anandalokfoundation.com/