ঢাকা
আজকের সর্বশেষ সবখবর

বিনা ঔষধে অনাবিল সুস্থ স্থায়ী যৌনজীবন

Rai Kishori
April 9, 2019 9:03 am
Link Copied!

মানুষ কেবল পশু নয়, পশুর গুণ তাহার মাঝে আছে, কিন্তু তাহার পরেও তাহার মন। এই মন দিয়াই মানুষ বহির্জগতের সঙ্গে নিজেকে খাপ খাওয়াইয়া লয়। বহির্জগতকেই সে শুধু এইভাবে মনের মত করিয়া নতুন করিয়া সাজাইয়া-গুছিয়া লয় তাহাই নয়, তাহার চেয়েও বড়ো স্বপ্নের জগৎ।

পুরুষের মাঝে আছে চিৎ শক্তির প্রাধান্য, আর নারীর মধ্যে আনন্দশক্তির। সন্তানের মাঝে পিতা-মাতার ভাব ও শক্তি আছে ওতপ্রোতভাবে জড়াইয়া- সুতরাং কোনো পুরুষই পুরাপুরি পুরুষ নয়, নারীও পুরাপুরি নারী নয়; উভয়ের মধ্যে আছেন অর্ধনারীশ্বর। এই ওতপ্রোত সম্বন্ধ হইতেই নর-নারীর মিলন আকাঙ্ক্ষা জৈবস্তর হইতে উন্নীত হয় অধ্যাত্মস্তরে।

পুরুষ নারীর মধ্যে খোজে রস, খোজে আনন্দ, খোজে মাধুর্য। নারী পুরুষের মধ্যে দেখিতে চায় একটা পৌরুষের দীপ্তি, একটা মহিমা, একটা ঐশ্বর্য। পরম্পরের অধ্যাত্ম স্বভাবের প্রতি এই যে গভীর আকুতি ইহারই নাম প্রেম। নর-নারীর আদর্শ মিলনের মূলে এই প্রেমের প্রেরণা।

বিধিবিধানের অনুশাসনে অটুট চরিত্র গঠন করিয়া, চিত্তজয় করিয়া যুবকেরা মদনকে ভস্ম করিতে পারিলে ঘরে তপস্বিনী উমারও সাক্ষাৎ মিলিবে। ঘরে ঘরে তখন অসুর নিধনকারী সন্তানের আবির্ভাব হইয়া সমাজের অশুভ-অমঙ্গল বিদূরিত করিবে; তখন  নরপশু সৃষ্টি না হইয়া গৃহে গৃহে দেবশিশুর আবির্ভাব ঘটিবে; ইহাদের আবির্ভাবে আসুরিক ভাবাপন্ন মানবসমাজ দেবসমাজে রূপায়িত হইয়া উঠিবে। এই দেব সমাজ প্রতিষ্ঠাই দাম্পত্য জীবনের লক্ষ্য।

পুরুষের শরীরে যে অতিরিক্ত শুক্র সঞ্চিত হয় তাহা শুধু মাসে একদিন ব্যয়ের উপযোগী। প্রত্যহ পুষ্টিকর খাদ্য গ্রহণ করিয়া দেহে অতিরিক্ত শুক্র সৃষ্টি করা যায়। এই অতিরিক্ত শুক্রও অপব্যয় না করিলে দেহপ্রকৃতি উহা মস্তিস্ক গঠনের কার্যে নিয়োজিত করে-মানুষের নব নব উন্মেষশালিনী বুদ্ধি বা প্রতিভা গঠন করে।

সুরসিক ও সংযমী স্বামী বিশেষভাবেই জানেন’ সহবাসের চেয়ে নারীর অধিকতর প্রিয় লীলাবিলাস অর্থাৎ আদর-সোহাগ। দেহ-মনে বলিষ্ট স্বামীর প্রীতি-পরশের জন্য স্ত্রীর দেহ-মন লালায়িত হইয়া ওঠে। শুদ্ধ সংযত স্বামীর আদর-সোহাগে স্ত্রীর হৃদয় তৃপ্তিতে ও আনন্দে ভরিয়া থাকে। নারীর এই আনন্দে সংসারও আনন্দনিকেতনে পরিণত হয়।

যে সংসারে নারী নীরোগ দেহে ও মনের আনন্দে বাস করে, সেই সংসার দেবতার দ্বারা অভিনন্দিত হয় –দেবতার কৃপা সেই সংসারে বর্ধিত হয়। এইরূপ সংসারেই সুখ ও শান্তি চির বিরাজিত থাকে।

আংশিক অক্ষমতা কিংবা ধ্বজভঙ্গ কোনো ঔষধ কিংবা চিকিৎসা দ্বারা সম্ভবপর নয়। স্বাভাবিক দাম্পত্য ব্যবহারের অনুশীলনে আপনা হইতেই পুরুষ-স্ত্রীর শরীরে যৌন সক্ষমতা ফিরে আসে। যৌগিক ক্রিয়ার সাহায্যে আংশিক অক্ষমতা ও ধ্বজভঙ্গ রোগ আরোগ্য হয়। ফিরে পাওয়া যাবে।

বিশেষভাবে মনে রাখিবে-কোনো ঔষধ, এমন কি আধুনিক যুগের গ্রন্থিজাত ঔষধেও(Gland medicine) এই রোগ নির্মুলভাবে আরোগ্য করিতে পারে না; একমাত্র যৌগিক ক্রিয়াতেই এই রোগ ধীরে ধীরে সম্পূর্ণ আরোগ্য হয়।

যৌগিক ক্রিয়া শিক্ষার একমাত্র প্রতিষ্ঠান আনন্দম, ইনস্টিটিউট অব যোগ এন্ড যৌগিক হসপিটাল, ঢাকা সেন্টারঃ ১৬ হাটখোলা লেন(স্বামীবাগ), ঢাকা। মেইলঃ yogabangla@gmail.com  যৌগিক চিকিৎসার নিয়মিত তথ্য পেতে ভিজিট করতে পারেন দি নিউজ পত্রিকা  thenewse.com

যোগী পিকেবি প্রকাশ (প্রমিথিয়াস চৌধুরী), পরিচালক, আনন্দম্‌ ইনস্টিটিউট অব যোগ এন্ড যৌগিক হসপিটাল।

http://www.anandalokfoundation.com/