13yercelebration
ঢাকা
আজকের সর্বশেষ সবখবর

পুরানো ঢাকাবাসীর কাছে একটি আবেগের নাম কাউন্সিলর ছোটন

admin
October 4, 2017 11:06 am
Link Copied!

পুরান ঢাকার প্রভাবশালী কাউন্সিলর ৪৩ নং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সংগ্রামী সাধারন সম্পাদক ও ঢাকা-৬ এর জনগনের নয়নের মণি ও ভাগ্য পরিবর্তনকারী সকলের আস্থাভাজন প্রানপ্রিয় নেতা আলহাজ্ব মোঃ আরিফ হোসেন ছোটন।

ঢাকা সিটি কর্পোরেশনের ৯২টি ওয়ার্ডের মধ্যে সবচাইতে তরুণ কাউন্সিলর আলহাজ্ব আরিফ হোসেন ছোটন। ঢাকা মহানগর দক্ষিণ, ৪৩ নং ওয়ার্ডের জনপ্রতিনিধিত্ব করছেন তিনি। জনকল্যাণমুখী এই কাউন্সিলরকে এলাকার গরীব-দুঃখীরা ভালবেসে ডাকেন ‘ছোটন ভাই’ বলে।

আলহাজ্ব আরিফ হোসেন ছোটন ছাত্র রাজনীতি থেকেই মূল ধারার রাজনীতিতে এসেছেন। বর্তমানে জনপ্রতিনিধি হয়ে হাল ধরেছেন ৪৩ নং ওয়ার্ডের। ২০১৫ সালের কাউন্সিলর নির্বাচনে তিনি ছিলেন স্বন্তত্র প্রার্থী। নির্বাচনে তিনি বিশাল ব্যবধানে হারান পুরানো ঢাকার হেভিওয়েট নেতা ও ঢাকা মহানগর দক্ষিণ সুত্রাপুর থানা আওয়ামী লীগের সাবেক সাধারন সম্পাদক ও বর্তমান সভাপতি হাজী মোঃ সাহিদকে।

জনপ্রতিনিধি হওয়ার পর তিনি তার নিজের মেধা, যোগ্যতা, সাংগঠনিক দক্ষতা আর মানুষকে ভালোবেসে সর্বস্তরের জনগণের আস্থা অর্জন করেছেন। তার গ্রামের বাড়ী নরসিংদী হলেও ছোটবেলা থেকেই বড় হয়েছেন পুরানো ঢাকার পাতলাখান লেনে। ঢাকাতেই ছাত্র রাজনীতি দিয়ে তার রাজনৈতিক জীবনের শুরু। বর্তমানে তিনি ৪৩ নং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সংগ্রামী সাধারন সম্পাদক, সভাপতি (বাংলাদেশ পুস্তক প্রকাশক ও বিক্রেতা মালিক সমিতি), সাধারণ সম্পাদক, (ফরাশগঞ্জ স্পোর্টিং ক্লাব)। ব্যাক্তিগত জীবনে তিনি এক কন্যা ও দুই পুত্র সন্তানের জনক।

দায়িত্ব গ্রহণের পর থেকেই তিনি নানাভাবে এলাকার উন্নয়নে কাজ করে যাচ্ছেন। অত্র ওয়ার্ডে তার দৃষ্টিনন্দন কাজগুলোর মূল পরিকল্পনা ও তার নিজ চিন্তা ও মনন্‌শীল দৃষ্টি দিয়ে নিজের সৃষ্টি। তার এই উদ্যোগে খুশি এলাকার জনগন।

এলাকাবাসী বলেন, আমাদের কাউন্সিলর কাজ কর্মে যেমন তড়িৎকর্মা, চিন্তা চেতনাতেও তেমন উন্নত। এটি আমাদের মুগ্ধ করেছে।

এলাকাবাসী জানান প্রানপ্রিয় নেতা, আলহাজ্ব মোঃ আরিফ হোসেন ছোটন, পুরো ঢাকা শহরের যুব রাজনীতিকদের জন্য এক অনুসরণীয় ব্যক্তিত্ব। যার জনপ্রিয়তা আকাশ ছোঁয়া।

স্থানীয় বাসিন্দারা জানান, গত দুই বছরে অত্র এলাকার ব্যাপক রাস্তাঘাটের উন্নতি হয়েছে। নিরাপত্তা জোরদার হয়েছে। মাদক এবং ইভটিজিংকে কাউন্সিলর সবসময় জিরো টলারেন্স দেখিয়ে আসছেন। এজন্য এলাকায় মা-বোনরা নির্ভয়ে চলাচল করতে পারেন। ৪৩নং ওয়ার্ডে মাদকের প্রভাব এবং ইভটিজিং কমে যাওয়ার বিষয়টি স্বীকার করেছেন সুত্রাপুর থানা-পুলিশও।

ফেসবুক টামলাইন ঘাঁটলেই বোঝা যায় তিনি ঠিক কতোখানি জনপ্রিয়। যিনি কিনা সবসময় নিজের এলাকার মানুষের কথা চিন্তা করেন, ঘুমোনোর আগেও একবার জনগনের কথা চিন্তা করে ঘুমান..।

কাউন্সিলর ছোটন এলাকার তরুণদের কাছে একটি আবেগের নাম। কখনো তিনি ছুটে যান মাঠে, ব্যাট হাতে তরুণদের সঙ্গে নেমে যান ক্রিকেট খেলতে। কখনো বৃষ্টিতে ভিজে, রোদে পুরে চলে যান মেহনতি মানুষের পাশে। বংশগতভাবে অর্থবিত্ত, প্রতাপ থাকার পরও সাধারণ মানুষের সঙ্গে মেশেন বন্ধুর মতো।

কাউন্সিলর আলহাজ্ব আরিফ হোসেন ছোটন বলেন, ‘আমি স্বপ্ন দেখি ৪৩ নম্বর ওয়ার্ডটি হবে একটি একান্নবর্তী পরিবারের মতো। যেখানে সকল ধর্মবর্ণের মানুষ মিলেমিশে বসবাস করবে। আমি জনগণের কল্যানের জন্য কাজ করে যেতে চাই। জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের আদর্শ বুকে ধারণ করে সন্ত্রাসমুক্ত, মাদকমুক্ত, জঙ্গিবাদমুক্ত অসাম্প্রদায়িক বাংলাদেশ গড়ার একজন কর্মী হতে চাই।

সম্পাদনায়ঃ বিশেষ প্রতিবেদক ডাঃ মনোরঞ্জন মজুমদার ও অসিত কুমার ঘোষ বাবু।

http://www.anandalokfoundation.com/