13yercelebration
ঢাকা
আজকের সর্বশেষ সবখবর

পরীদের হাতে তৈরি, পৃথিবীর প্রথম গ্লোবাল ব্র্যান্ড ছিল বাংলাদেশেই

Ovi Pandey
February 22, 2020 5:21 pm
Link Copied!

অভিজিৎ পান্ডে, দি নিউজ ডেস্কঃ পৃথিবীর প্রথম গ্লোবাল ব্র্যান্ড ছিল বাংলাদেশেই যা হাজার বছরের পুরোনো ঐতিহ্য ধরে রেখেছে। বিশ্বের লোকেরা মনে করত, এত সূক্ষ্ম কাজ কোনো মানুষের পক্ষে করা সম্ভব নয়, এ নিশ্চয় পরীদের কাজ

মসলিন পৃথিবীর প্রথম ‘গ্লোবাল ব্র্যান্ড’ হাজার বছরের পুরোনো ঐতিহ্য, পৃথিবীর বিস্ময় এই মসলিন কাপড় তৈরির নিয়ে নানা মিথ আছে। রোমানরা মসলিনকে বলত ‘বাতাসে গেরো দিয়ে তৈরি করা কাপড়।

ইংল্যান্ডের লোকেরা মনে করত, এত সূক্ষ্ম কাপড় কোনো মানুষের পক্ষে বানানো সম্ভব নয়, এ নিশ্চয় পরীদের কাজ। একসময় পৃথিবীর তাবত সম্রাট-সম্রাজ্ঞীদের আভিজাত্যের প্রতীক ছিল মসলিন। যুধিষ্ঠিরের রাজসূয় যজ্ঞ থেকে নেপোলিয়নের স্ত্রী জোসেফাইন হয়ে আওরঙ্গজেবের মেয়ে জেবুন্নেসা আর ফ্রান্সের রানি মেরি অ্যান্টোনিয়েটের গায়ে শোভা বাড়াত।

একটা কাপড়, যাতে ঠিক শীত নিবারণ হয় না, শরীর ঢাকে না, যা তৈরি করতে লাগে প্রচুর সময় আর পরিশ্রম, সেই কাপড়ের জন্য বিশ্বজুড়ে কেন এত উন্মাদনা।  পৃথিবী দাপিয়ে বেড়ানো সেই আশ্চর্য কাপড় মসলিন ধীরে ধীরে ঝরে পড়ে বিশ্ব বাণিজ্যের মঞ্চ থেকে। ফুটি কার্পাস নামে যে বিশেষ তুলা থেকে মসলিন হতো, তা-ও হারিয়ে যায় একসময়। কালের ধারারই বিশেষ কাপড়, জামদানি মসলিনের শেষ বংশধর হিসেবে শুধু টিকে আছে এখনো।

হাজার বছরের পুরোনো ঐতিহ্য এই মসলিন কাপড় তৈরির মূল এলাকা ছিল এই বাংলাদেশ, আমাদের এই মেঘনা আর ব্রহ্মপুত্র নদের তীর ঘিরেই। এই ঢাকা থেকেই সেই কাপড় চলে যেত চীন, ফ্রান্স, অটোমান সুলতানের প্রাসাদ থেকে রোম সাম্রাজ্যের দরবারে। গঙ্গে অঞ্চলের উৎপন্ন দামি ও সূক্ষ্ম মসলিনের উল্লেখ আমরা পেরিপ্লাসে বিপুলভাবে পাচ্ছি। এই পণ্যটি বাংলার উপকূল দিয়ে বিপুল সংখ্যায় বিদেশে যেত। অথচ মসলিনকে বলেছেন পৃথিবীর প্রথম ‘গ্লোবাল ব্র্যান্ড’।

পেরিপ্লাস অব দি এরিথ্রিয়ান সি’ শীর্ষক গ্রন্থে মসলিন সম্পর্কে বিশেষ ধরনের তথ্য পাওয়া যায়। এতে মোটা ধরনের মসলিনকে মলোচিনা, প্রশস্ত ও মসৃণ মসলিনকে মোনাচি এবং সর্বোত্কৃষ্ট মসলিনকে গেনজেটিক বা গঙ্গাজলী বলে উল্লেখ করা হয়েছে। বাণভট্টের হর্ষচরিতে পৌণ্ড্রবাস নামক একরকমের রেশমী বস্ত্রের উল্লেখ আছে। এছারা বিভিন্ন আরব, চীন ও ইতালীর পর্যটক ও ব্যবসায়ীর বর্ণনাতে মসলিনকে পাওয়া যায়।

আমাদের এই অঞ্চলের অন্যতম অর্থনৈতিক সমৃদ্ধির কারণ ছিল এই বস্ত্র। বাংলার মসলিনের পূর্বসূরীকে দেখতে পাই এখানে আমরা। কৌটিল্যের অর্থশাস্ত্র গ্রন্থে, বঙ্গ ও পুন্ড্র এলাকায় সূক্ষ্ম বস্ত্রের উল্লেখ আছে, যার মধ্যে ছিল ক্ষৌম, দুকূল, পত্রোর্ণ ও কার্পাসীএডওয়ার্ড বাইনেস তাঁর হিস্ট্রি অব দ্য কটন ম্যানুফ্যাকচার ইন গ্রেট ব্রিটেন নামের বইয়ে লিখেছেন, মসলিনের সূক্ষ্মতাই একে করে তুলেছিল কাপড়ের জগতে অনন্য।

বুড়িগঙ্গা, শীতলক্ষ্যার পারের বিশেষ আবহাওয়া, এখানকার মাটির বিশেষ গুণে জন্ম নেওয়া ব্যতিক্রমী তুলা, বাঙালি মেয়েদের হাতের সূক্ষ্ম কাটুনির দক্ষতা, এখানকার তাঁতিদের অপরিসীম ধৈর্য ইত্যাদি মিলিয়ে তৈরি হয়েছে এই বিরল কাপড়। মসলিনের ইতিহাস অন্বেষণে প্রাচীনকালের হেরোডোটাস, স্ট্র্যাবো থেকে টলেমি, প্লিনি পর্যন্ত অনেক ইতিহাসবিদের রচনায় ঢাকাই মসলিনের উল্লেখ পাওয়া যায়।

মসলিনের সূক্ষ্মতার কথা ইতিহাসের বিভিন্ন ঘটনা থেকে জানা যায়। যেমন— প্লিনি অভিযোগ করেছেন যে, মসলিনের ক্ষীণ আব্রুর ফাঁকে রোমান সুন্দরীরা দেহের বঙ্কিম রেখা প্রকাশ করতেন। শুধু তাই নয়, ঢাকার ‘ঝুনা’ মলমল নামের বিশেষ ধরনের মসলিন পরার কারণে গ্রিক যুবকরা সেখানকার দার্শনিক ও ব্যঙ্গকাব্য লেখক-কবিদের কঠোর সমালোচনার পাত্র হয়েছিলেন।

অরেলিয়সের রাজত্বকালে সোনার ওজনে রেশম বিক্রয়ের উল্লেখ ঐতিহাসিকগণের গ্ৰন্থপত্ৰে দেখতে পাওয়া যায়। এছাড়াও চিনা রেশমের লাছা, সুতো এবং চিনাংশুক গঙ্গে এলাকা হয়ে দ্রাবিড় অঞ্চলে যেত। চৈনিক রেশম স্থানীয় উৎপাদন মসলিনের মতই অত্যন্ত দামি পণ্য এবং ধনীভোগ্য এবং এটাও বাংলার অন্যতম ট্রানজিট পণ্য হিসেবে গণ্য হত।

ঢাকাই মসলিনের স্বর্ণযুগ বলা হয় মুঘল আমলকে। এ সময় দেশে-বিদেশে মসলিন, জামদানির চাহিদা বাড়তে থাকে এবং শিল্পেরও ব্যাপক উন্নতি সাধিত হয়। কিন্তু মসলিন নামের রহস্যময় সেই কাপড়ের জয়যাত্রা থেমে যায় একসময়। থেমে যায় মূলত ব্রিটিশ ঔপনিবেশিক শাসকদের হাতে আঠারো শতকে ইংল্যান্ডে যে কাপড়ের শিল্প গড়ে উঠেছিল, তার বাজার প্রসারে একটা বড় বাধা ছিল মসলিন। মসলিনের প্রতিপত্তিকে ধ্বংস করতে ব্রিটিশরা নেয় নানা কৌশল।

জানা যায়, ব্রিটিশরা নকল মসলিন বানিয়ে কী করে তাতে লাগিয়ে দিত মসলার গন্ধ, যাতে ক্রেতাদের ধোঁকা দেওয়া যায়, ব্রিটিশদের ছাড়া ভিন্ন দেশের এক ক্রেতার কাছে মসলিন বিক্রি করার কারণে বাংলার এক তাঁতিকে মাথার চুল কামিয়ে ঘোরানো হয়েছিল গ্রামের হাটে। ব্রিটিশ করের চাপে নিঃস্ব হতে বসা তাঁতি পরিবারের একজন কাটুনি নারী আঠারো শতকে সমাচার দর্পণ পত্রিকায় যে মর্মস্পর্শী চিঠি লিখেছিলেন, তাতে যে নির্মম ঘটনার নজির পাওয়া যায়।

ভারতবর্ষের শাসক হিসেবে মসলিন শিল্পকে ধ্বংস করতে এ কাপড়ের তাঁতিদের আঙুল কেটে ফেলার মতো ঘটনাও সামনে এসেছে। জানা যায় মসলিনের তৈরি একটা শাড়ি অনায়াসে একটা ম্যাচ বাক্সে ঢুকিয়ে ফেলা যায়। ভুলনকাঠি, বোয়াল মাছের দাঁত, চিতল মাছের চামড়া, কাছিমের খোল ইত্যাদির সাহায্য নিয়ে তৈরি হচ্ছে মসলিন সুতা। সেই সুতার কাপড় নিয়ে তাঁতিদের ভেতর প্রচলিত গান, পুঁথিরও।

এক সময় বাংলার মসলিন কাপড়ের কদর ছিল আকাশচুম্বি। তখনকার উচ্চ শ্রেণির নারীদের কাছে এই বস্ত্র প্রথম স্থান অধিকার করেছিল। বিশ্বে ইতিহাসের বস্ত্র খাতে মসলিনের ব্র্যান্ড আমাদেরকে গর্বিত করে। যা আজ শুধু গল্পের মত মনে হয়।

http://www.anandalokfoundation.com/