13yercelebration
ঢাকা
আজকের সর্বশেষ সবখবর

তিন দিনেও পরিচয় মেলেনি ময়লার স্তুপ থেকে উদ্ধার হওয়া বৃদ্ধার

admin
September 19, 2016 11:42 am
Link Copied!

নারায়ণগঞ্জ প্রতিনিধিঃ জেলার সোনারগাঁওয়ে মোগরাপাড়া চৌরাস্তা এলাকার মহাসড়কের পাশে ময়লা স্তুপ থেকে উদ্ধার হওয়ার তিন দিনেও বৃদ্ধার পরিচয় জানতে পারেনি পুলিশ। গত বৃহস্পতিবার গভীর রাতে সোনারগাঁও থানা পুলিশের একটি টহল দল হাত-পা ভাঙ্গা ও মাথা ফাটা অবস্থায় ওই বৃদ্ধাকে উদ্ধার করে। পরে তাকে সোনারগাঁও উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়।

পরবর্তীতে রোববার সকালে সোনারগাঁও থানার সহকারী উপ-পরিদর্শক (এএসআই) আবুল কালাম আজাদ তার পরিচিত এক রোগীকে দেখতে গিয়ে ওই বৃদ্ধাকে মহিলা ওয়ার্ডের ফ্লোরে ব্যথার যন্ত্রণায় ছটফট করতে দেখে চিকিৎসার দায়িত্ব নেন। হাসপাতালে চিকিৎসাধীন ওই বৃদ্ধা কিছু বলতে পারেন না বলে জানা যায়। কেউ তার পরিচয় জানতে পারলে তার সাথে যোগাযোগ করার জন্য তিনি অনুরোধ করেছেন।

এএসআই আবুল কালাম আজাদ জানান, বৃহস্পতিবার গভীর রাতে সোনারগাঁও থানা পুলিশ মোগরাপাড়া চৌরাস্তার মহাসড়কের পাশে বাজারের ময়লার স্তুপ থেকে অচেতন অবস্থায় বৃদ্ধাকে উদ্ধার করে সোনারগাঁও উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করে। এসময় তার হাত-পা ভাঙ্গা ও শরীরের বিভিন্ন স্থানে যখমের চিহ্ন ছিল। সোনারগাঁও উপজেলা স্বাস্থ্য কর্তৃপক্ষ পরীক্ষা-নিরীক্ষার যন্ত্রপাতি না থাকায় যথাযথ চিকিৎসা দিতে পারেনি। রোববার সকালে তিনি সোনারগাঁও উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে তার এক পরিচিত রোগী দেখতে গিয়ে ওই বৃদ্ধাকে ফ্লোরে ছটফট করতে দেখেন।

তিনি আরো জানান, অসুস্থ ওই বৃদ্ধা কিছুই বলতে পারেন না। শুধু তার নাম বেগম বলে বলতে পারেন। ধারণা করা হচ্ছে, এ বৃদ্ধাকে কে বা কাহারা হাত-পা ভেঙ্গে চলন্ত গাড়ি থেকে ফেলে যায় অথবা তার কোন আপনজন এ অবস্থা করে তাহার মৃত্যু নিশ্চিত ভেবে মায়লার স্তুপে ফেলে রেখে যেতে পারেন।

তিনি জানান, সোনারগাঁও উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে রোগীর পরীক্ষা নিরীক্ষা করার কোন যন্ত্রপাতি নেই। ফলে তিনি মোগরাপাড়া চৌরাস্তায় এক বেসরকারী হাসপাতালে তার পরীক্ষা-নিরীক্ষা করিয়েছেন। বর্তমানে ওই বৃদ্ধা সোনারগাঁও উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের দ্বিতীয় তলায় মহিলা ওয়ার্ডে চিকিৎসাধীন রয়েছে। কেউ এ বৃদ্ধার কেউ পরিচয় জানতে পারলে ০১৭৭৭৫১৩৬৮১ মোবাইল ফোনে যোগাযোগ করার অনুরোধ করেন।

সোনারগাঁও উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে গতকাল সন্ধ্যায় গিয়ে দেখা যায়, মহিলা ওয়ার্ডে চিকিৎসাধীন ওই বৃদ্ধার পাশে কোন নার্স বা চিকিৎসক ছিলেন না। এসময় নার্সকে ডেকেও পাওয়া যায়নি। তবে ওই হাসপাতালের পুরুষ ওয়ার্ডে চিকিৎসাধীন থাকা লাট মিয়া নামের এক রোগী তাকে দেখশুনা করছেন।

লাট মিয়া জানান, পাঁচ দিন ধরে আমি এ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন। গত বৃহস্পতিবার ভোর রাতে পুলিশ এ মহিলাকে হাসপাতালে ভর্তি করে রেখে যায়। এ বৃদ্ধা মাকে দেখার কেউ নেই। হাসপাতালের নার্স ও ওয়ার্ড বয়েরাও তাকে দেখা শোনা করে না। আমি তাকে মা ভেবে তার সকল প্রকার সেবা যত্ন করে যাচ্ছি।

সোনারগাঁও উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের চিকিৎসাধীন নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক রোগী জানান, এ মহিলাকে পুলিশ হাসপাতালে দেয়ার পর থেকে তার কাছে কোন নার্স বা ডাক্তার চিকিৎসা দিতে আসেনি। প্রথমদিন একজন নার্স এসে শুধু একটি ইনজেকশন দিয়েছেন। তারপর থেকে কেউ চিকিৎসা দিতে আসেনি।

সোনারগাঁও উপজেলা স্বাস্থ্য স্বাস্থ্য কর্মকর্তা (টিএইচও) ইকবাল বাহার চৌধুরীর সাথে মোবাইল ফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, এ বিষয়টি তিনি অবগত নন। তিনি ছুটিতে রয়েছেন। তাছাড়া এ হাসপাতালের আরএমও ছুটিতে রয়েছেন। তবে তিনি থাকলে হয়তো এ অবস্থা হতো না। আমি হাসপাতালে খোঁজ নিয়ে ব্যবস্থা গ্রহণ করব।

http://www.anandalokfoundation.com/