13yercelebration
ঢাকা
আজকের সর্বশেষ সবখবর

ঠাকুরগাঁও পঞ্চগড়ে লুটপাট ও দূর্নীতিতে মহিলা অধিদপ্তরের বিভিন্ন প্রকল্প ভিজিডি!

admin
March 20, 2016 11:44 am
Link Copied!

আবদুল আওয়াল, ঠাকুরগাঁও প্রতিনিধিঃ ঠাকুরগাঁওয়ের এনজিও,রা বিভিন্ন প্রকল্প দেখিয়ে ওই প্রকল্পের কাজ না করে স্থানীয় কর্মকর্তাদের সহযোগিতায় প্রকল্প উন্নয়নের টাকা গুলো ভাগ করছে এর মধ্যে অন্যতম প্রকল্প প্রত্যান্ত গ্রাম আঞ্চলের গরিব জনগোষ্ঠীর চিকিৎসা উদ্বুদ্ধ করন স্বাস্থ্য অধিদপ্তর ও ভিজিডি মহিলা অধিদপ্তর।

দুঃস্থ মহিলা কর্মসূচির ভিজিডি আওতায় উন্নয়ন প্যাকেজ সেবা প্রদানের জন্য জাতীয়/আঞ্চলিক/ স্থানীয় বেসরকারী সংস্থার নিকট হইতে প্রস্তাবনা আহবান করা হয় গত ২০১৪ সালের ২১ অক্টোবর। মহিলা ও শিশু বিষয়ক মন্ত্রনালয়ের অধিনে মহিলা বিষয়ক অধিদপ্তরের মাঠ পর্যায়ে কার্যালয় কর্তৃক সারা দেশের ইউনিয়ন পর্যায়ে  এ কাজ বাস্তবায়ন করার জন্য।

ভিজিডি কর্মসূচির দীর্ঘমেয়াদী উদ্দেশ্য হলো বাংলাদেশের দরিদ্র এবং দুঃস্থ গ্রামীন মহিলাদের আর্থ সামাজিক অবস্থার ইতিবাচক উন্নয়ন করা, যাতে তারা বিদ্যমান খাদ্য নিরাপত্তাহীনতা, পুষ্ঠীহীনতা, অর্থনৈতিক নিরাপত্তাহীনতা এবং নিম্ন সামাজিক মর্যাদার অবস্থানকে সফলভাবে অতিক্রম করে চরম দরিদ্র স্তরের উপরের অবস্থানে টিকে থাকার সক্ষমতা অর্জন করতে পারে।

এই কর্মসূচি দেশের ৬৪ টি জেলায় সর্বমোট ৭লাখ ৫০ হাজার জন উপকার ভোগীর উদ্দেশ্যে ২ বছর মেয়াদী ১ টি চক্রে ১ জানুয়ারী ২০১৫ থেকে ৩১ ডিসেম্বর ২০১৬ পর্যন্ত পরিচালিত হবে। প্রত্যেক উপকারভোগী মহিলা প্রতিমাসে ৩০ কেজি গম/চাল, পার্বত্য জেলা সমূহে এবং রাইস ফটিফিকেশন কার্যক্রম এলাকায় পুষ্টী ফটিফাইড রাইস পেয়ে থাকে। পাশাপাশি শতভাগ উপকারভোগী মহিলাগন এই উন্নয়ন প্যাকেজ সেবার অর্ন্তভুক্ত সঞ্চয় কার্যক্রম, জীবনদক্ষতা,পুষ্টী সেবা অধিকার ও সুরক্ষা সামাজিক সচেতনতা এবং ব্যবসা ব্যবস্থাপনা বিষয়ে প্রশিক্ষন পাবে।

এই প্রশিক্ষনের জন্য  প্রতি উপকারভোগী থেকে ৫শত ২৫ টাকা করে প্রতি বছর এনজিওদের ১ চক্রে ২ বার দেওয়া হবে। প্রতিটি উপজেলার প্রতি ইউনিয়নে ১জন মাঠকর্মী ও ৩শত জন উপকারভোগীর জন্য ১ জন ট্রেনার ও উপজেলায় ১ জন সুপারভাইজার থাকবে যারা এই টাকায় সরকারি নির্ধারিত ম্যানুয়ালে বেতন পাবে। কিন্তু সরজমিনে পঞ্চগড় জেলার প্রতিটি উপজলায় ও ঠাকুরগাঁও জেলার প্রতিটি উপজেলা ঘুড়ে এসে ভিজিডি’র কোন কার্যক্রম দেখা যায় নি। এ বিষয়ে পঞ্চগড় জেলার আটোয়ারীর উপজেলার রাধানগর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আবু জাহেদ জানান জানুয়ারী/ ১৫ ধেকে এ যাবৎ ভিজিডি’র কার্যক্রম ইউনিয়ন পরিষদ চালাচ্ছে ।

ঠাকুৃরগাঁও জেলার সদর উপজেলার আকচা ইউনিয়নের চেয়ারম্যান শুভ্র দেব জানান ভিজিডি’র কার্যক্রম এ চক্রের ইউনিয়ন পরিষদ সচীব ও কাউন্সিলররা চালাচ্ছে। বেসরকারি কোন সংস্থা আমাদের কাছ থেকে এখনো দায়িত্ব বুঝে নিলেও তারা প্রশিক্ষনের কোন কাজ করছে না। এ বিষয়ে ঢাকা মহিলা অধিদপ্তর জানান ১লা জানুয়ারী থেকে দেশের প্রতিটি জেলার উপজেলা গুলোতে বেসরকারি সংস্থা গুলো কাজ শুরু করেছে। ১ টি নির্ভরযোগ্য সূত্র জানান বেসরকারি সংস্থা গুলো ১ টি উপজেলা পর্যায়ে ১ চক্র কার্যক্রম চালাতে মোট বরাদ্বের ৪০ ভাগ টাকা অধিদপ্তর কে দিয়ে আসতে হয়, ওই টাকা দিয়ে ফুল চক্র স্টাফদের চালানো সম্ভব নয়।

এ বিষয়ে জেলা মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তা মোশেদ আলী খান জানান আমরা ৩০ ডিসেম্বর ঢাকা অধিদপ্তর সভায় জানিয়েছি বেসরকারি সংস্থা গুলো কাজ করেনা আমাদেরকে বলেন টাকা দিয়ে প্রজেক্ট নিয়ে আসে। যা মনে হয় মহিলা অধিদপ্তরের ওই প্রকল্পের ঘোড়া গুলো এনজিওরা যে দামে কিনে ওরা ঠিক সে দামেই বিক্রি করছে। ফলে ঠাকুরগাঁও ও পঞ্চগড়ে লুটপাট ও দূর্নীতিতে ভাসছে মহিলা অধিদপ্তরের ভিজিডি সহ অনান্য প্রকল্প।

http://www.anandalokfoundation.com/