ঢাকা
আজকের সর্বশেষ সবখবর

জেনে নিন জল খাওয়ার কতগুলি নিয়ম

Link Copied!

বৈজ্ঞানিক ভাষায় পৃথিবীর তিন ভাগ জল ও এক ভাগ স্থল তেমন আমাদের শরীরেও ৭০%ই জল অর্থাৎ জলই জীবন। দেহের তাপমাত্রা নিয়ন্ত্রণ, দূষিত পদার্থের অপসারণ, পরিপাক, বিপাক, সংবহন, হাড় ও অঙ্গপ্রত্যঙ্গ এর কাজ বজায় রাখতে জলের প্রয়োজন। আবার দেহে জলের মাত্রা কমলেও আরেক বিপদ! শরীরের ওজন অনুযায়ী জল খাওয়া প্রয়োজন। কিন্তু এই জল যদি অনিয়মে খাওয়া হয়, তাহলে আবার অনিষ্টের কারণ হয়ে দাড়ায়। জল খাওয়ার যে বেশ কতগুলি নিয়ম রয়েছে, সে সম্পর্কে খোঁজ রাখেন কি? আয়ুর্বেদ শাস্ত্র মতে,পানি খানাহে আর খানা পিনাহে। অর্থাৎ খাবারের ন্যায় মুখে চিবিয়ে পানি পান এবং খাবার দাত দিয়ে চিবিয়ে রস বানিয়ে পান করা উচিত। জেনে নিন জল খাওয়ার কতগুলি নিয়ম।

১। বসে জল পান করিবে

বসে জল খেলে শরীরে প্রতিটি পেশি এবং নার্ভাস সিস্টেম অনেকটাই রিল্যাক্সড মোডে থাকে। ফলে হজম ক্ষমতার উন্নতি ঘটে। সেই সঙ্গে কিডনির ক্ষমতাও বাড়ে,যে কারণে শরীরে টক্সিক উপাদান জমে থাকার আশঙ্কা আর থাকে না। আমাদের দাঁড়ানো অবস্থায় জোলশোষক জালিকাগুলি সংকুচিত থাকে, ফলে জলের ক্ষতিকর উপদানগুলিও ভেতরে প্রবেশ করে ক্ষতি সাধন করে। আর দাঁড়িয়ে জলপান করলে জল জোর গতিতে পাকস্থলীতে ধাক্কা মারে এবং পাকস্থলীর পর্দাকে আঘাত করে, শরীরের fluid balance বিগড়ে যায়,যে কারণে আর্থ্রাইটিসের মতো রোগের খপ্পরে পড়ার আশঙ্কা থাকে।

২। এসাথে বেশি জল পান(ওয়াটার পয়জনিং) করিবে না

জলের পিপাসা পেলে একসাথে বেশি জল খাওয়ার অভ্যাস একেবারেই ঠিক নয়। তাতে শরীরের ক্ষতি হয়। তাই তো অল্প অল্প করে জল খাওয়া উচিত। বিশেষ করে খাবার খাওয়ার কতক্ষণ পরে জল খেলে শরীরের কাজে লাগবে, সে সম্পর্কেও একটু জেনে নেওয়া প্রয়োজন রয়েছে। অনেকক্ষণ পর জল পান করা ও মাত্রাতিরিক্ত পরিমানে জল পান করা খুবই ক্ষতিকর৷ আমাদের শরীরে জল ধরে রাখার একটি নির্দিষ্ট পরিমাপ রয়েছে ৷ তাই অধিক পরিমান জল পানে, আমাদের শরীরের রক্তে জলের আধিক্য ঘটে৷ ফলে রক্তের ইলেকট্রোলাইট সমুহ, বিশেষত সোডিয়ামের ঘনত্ব কমে যায়। কোষের ভেতর জল ঢোকে এবং কোষ ফুলতে থাকে। একসাথে অধিক জলপানকে বিজ্ঞানের ভাষায়, ”ওয়াটার পয়জনিং” বলা হয়।

আয়ুর্বেদ বিশেষজ্ঞদের মতে যাঁদের বায়ু দোষে ভুগছেন,তাঁদের খাবার খাওয়ার ঘন্টা খানেক পরে জল খাওয়া উচিত। এদিকে পিত্ত দোষ থাকলে খাওয়ার সময় অল্প পরিমাণে জল খাওয়া চলতে পারে। আর যাঁদের কফ দোষ, তাঁরা কী করবেন? এদের খাওয়ার খাওয়ার আগেই অল্প করে জল খেয়ে নেওয়া উচিত।

৩। পিপাসা না পেলে জল পান নয়

যখন পিপাসা পাবে, তখন অল্প অল্প করে অনেকটা জল পান করবে। অনেক সময় শরীরে জলের মাত্রা কমে গেলে ঠোঁট শুকিয়ে যাওয়া অথবা প্রস্রাব হলুদ হওয়ার মতো লক্ষণ দেখা দেয়। সে সময় জল খেতে ভুলবেন না যেন! মোট কথা তেষ্টা পেলে জল খান এবং খেয়াল রাখুন দিনে কতটা পরিমাণ জল খাচ্ছেন। যদি দেখেন লিটার তিন-চারেক জল খেয়েই ফেলেছেন, তাহলে তো আর কোনও চিন্তাই নেই!

৪। দুপুরে জল বেশি পান

আয়ুর্বেদ শাস্ত্রে দুপুরের সময়টাকে ‘পিত্ত কাল’ বলা হয়। এই সময় বেশি মাত্রায় জল খেলে শরীরের তাপমাত্র ঠিক থাকে। ফলে ছোট-বড় নানা রোগ-ব্যাধি ঘাড়ে চেপে বসার আশঙ্কা কমে। প্রসঙ্গত উল্লেখ্য, পিত্ত কালে প্রতি গ্লাস জলে যদি অল্প করে লেবুর রস, মৌরি অথবা গোলাপের পাপড়ি ফেলে খেতে পারেন, তাহলে আরও বেশি মাত্রায় উপকার পাবেন।

৫। যুবক-যুবতীদের জন্য বিশেষ টিপস 

এডাল্ট বয় থেকেই কিন্তু শরীরে বিভিন্ন রোগ-ব্যাধি হওয়ার সম্ভাবনা প্রবল। বিশেষত বংশগত (heridity) যে সমস্ত রোগ রয়েছে ।কেননা , এই সময় তারা যথেষ্ট বে-হিসেবি-বেপরোয়া-উদাসীন হয় ৷ রাস্তা ঘাটে বের হলেই বন্ধু বান্ধবদের সাথে বিভিন্ন খাবার খাওয়া। পাশাপাশি চা, কফি, কোলড্রিঙ্ক জাতীয় পানীয় পান করে৷ একটা কথা মনে রাখবে, তুমি রোজ দু-লিটার জল পান করছ, তারসাথে দিনের বিভিন্ন সময় চা, কফি, কোলড্রিঙ্কস পান করছ ৷ এই সবটা মিলে কিন্তু , তোমার সারাদিনের তরল পানের হিসেব ।

৬। কখনো ঠাণ্ডা জল পান নয়

আমাদের অনেকেই গরমে কিংবা পরিশ্রমের পরে ঠান্ডা জল পানে যেন স্বস্তির নিঃশ্বাস পাই। কিন্তু আয়ুর্বেদ শাস্ত্র মতে ঠান্ডা জল খাওয়া একেবারেই উচিত নয়। তাতে হজম ক্ষমতা বিগড়ে যাওয়ার আশঙ্কা থাকে। এমনকী, ঠান্ডা জলের কারণে কোষ্ঠকাঠিন্যের মতো রোগের খপ্পরে পড়ার আশঙ্কাও থাকে। ঠান্ডা জলের পরিবর্তে যদি হালকা গরম জল খেতে পারেন, তাদের তো কোনও কথাই নেই! তাতে কী উপকার মিলবে? সারা দিন ঈষদুষ্ণ গরম জল খেলে হজম ক্ষমতার উন্নতি ঘটার পাশাপাশি খারাপ কোলেস্টেরলের মাত্রাও কমতে থাকে। ফলে হার্টের কোনও ধরনের ক্ষতি হওয়ার আশঙ্কা আর থাকে না।

সুতরাং জল পানের ক্ষেত্রে এসব বিষয়গুলো নিয়ম করে মেনে চললে , অবশ্যই শরীর ও স্বাস্থ্যে সুদূর প্রসারী ভালো ফল তুমি পাবেই পাবে। মোটকথা তুমি ভালো থাকবে । আমাদের ফেসবুক পেজ এ এস কমেন্ট করে জানাও আরো কোন কোন বিষয় তোমরা জানতে চাও বা কী ধরণের লেখা চাও, বন্ধুদের মাঝে শেয়ার করে সঙ্গে থেকো।

http://www.anandalokfoundation.com/