ঢাকা
আজকের সর্বশেষ সবখবর

চট্রগ্রাম জুড়ে হিজড়ার উৎপাত

admin
September 5, 2015 4:46 pm
Link Copied!

চট্টগ্রাম সংবাদঃ বন্দর নগরী চট্রগ্রামে বর্তমানে অন্যতম লক্ষনীয় বিষয় হচ্ছে হিজড়া। নগরীর সকল এলাকা, পাড়া, মহল্লাতে প্রতিনিয়ত লক্ষনীয় বস্তু হিসেবে এদের দেখা যায়। চট্রগ্রামের হিজড়ারা সবার দৃষ্টিতে আসার কারন হচ্ছে চাঁদাবাজি। ছোট থকে শুরু করে বড় যে কোন ব্যবসা প্রতিষ্ঠান, দোকান, প্লাট বাসা সবাইকে মাসিক চাঁদা দিতে হচ্ছে। যে কোন ছোট দোকানে ২০Ñ৫০ টাকা চাঁদা নিচ্ছে, বড় দোকান বা যে কোন ব্যবসা প্রতিষ্ঠান অথবা অফিস হলে দিতে হচ্ছে ৫০ টাকা থেকে ২০০ টাকা পর্যন্ত।

সব থেকে বড় চাঁদা বাজি হচ্ছে বিয়ে এবং কোন পরিবারে নতুন সন্তান জন্ম নিলে। বিয়ে বা গায়ে হলুদে ১০ থেকে ১৫ জনের এক দল হিজড়া এসে মোটা অংকের চাঁদা দাবি করে। টাকা না দেওয়া হলে বা চলে যেতে বললে, বিয়ের অনুষ্ঠান নষ্ট করে দেওয়া বা গেষ্টদের সাথে খারাপ ব্যাবহারের হুমকি দিতে থাকে এরা। চাঁদা হিসেবে দাবি করে ৪০০০-৫০০০ টাকা। আবার কোথাও কোথাও টাকার পাশাপাশি ভাল কাপড়ের দাবি করে। একই ধরনের ব্যাবহারের শিকার হচ্ছে যে পরিবারে নতুন সন্তান এসেছে তারাও। পুত্র সন্তান হলে চাহিদা বেড়ে যায় আরও বেশি।

টাকা দিতে না চাইলে খারাপ ব্যাবহার ও যে কোন প্রকার নোংরামি করতে দিধা করে না ওরা। হিজড়াদের থানা এবং এলাকা ভিত্তিক লিডার রয়েছে। এক একটি এলাকার সব হিজড়ার লিড এক এক জন দিয়ে থাকে। যেমন বলা যেতে পারে, পাহাড়তলী থানা এবং এর আসে পাশে সকল এলাকার হিজড়াদের লিডার হচ্ছেন পাখি হিজড়া। যিনি ২০০ এর অধিক এটি দল নিয়ে পুরো এলাকাতে চাঁদা বাজি করে যাচ্ছেন। এই ব্যাপাটিতে প্রশাসন কোন প্রকার ভূমিকা রাখছে না।

২০১১ সালের আই সি সি বিশ্ব কাপ এবং ২০১৪ সালের টি টুয়েন্টি বিশ্ব কাপ চলাকালীন চট্রগ্রামে হিজড়াদের রাস্তায় চাঁদাবাজি না করার জন্য সাবেক সিটি মেয়র মনজুরুল আলম টাকা দিয়ে এক মাসের জন্য রাস্তায় বের হওয়া বন্ধ করে ছিলেন। চট্রগ্রামে বর্তমানে এটি একটি নিরব চাঁদাবাজি হচ্ছে, যা দেখার জন্য কেউ নাই এবং দিন দিন এই চাঁদাবাজি বৃদ্ধি পাচ্ছে।

http://www.anandalokfoundation.com/