13yercelebration
ঢাকা
আজকের সর্বশেষ সবখবর

একাদশ জাতীয় সংসদের ২০২২ সালের প্রথম অধিবেশনে রাষ্ট্রপতির ভাষণ

নিউজ ডেস্ক
January 16, 2022 5:28 pm
Link Copied!

২০২২ সালের জানুয়ারি মাসে অনুষ্ঠিত একাদশ জাতীয় সংসদের প্রথম অধিবেশনকে শীতকালীন অধিবেশনও বলা হয়। বছরের প্রথম হওয়ায় রীতি অনুযায়ী অধিবেশনের প্রথম কার্যদিবসে বক্তব্য দিয়েছেন রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ। করোনাকালীন পরিস্থিতিতে অনুষ্ঠিত হতে যাওয়া এই অধিবেশনেও পূর্বের তিনটি অধিবেশনের মতো আরোপ করা হয়েছে কঠোর স্বাস্থ্যবিধি।

আজ ১৬ জানুয়ারি সোমবার বিকেল সাড়ে ৪টায় একাদশ জাতীয় সংসদের ২০২১ সালের প্রথম অধিবেশনে রাষ্ট্রপতির ভাষণ।

বিস্‌মিল্লাহির-রহ্‌মানির রহিম

জনাব স্পীকার,

আসসালামু আলাইকুম।

একাদশ জাতীয় সংসদের ২০২২ সালের প্রথম অধিবেশনে ভাষণ দেয়ার সুযোগ পাওয়ায় আমি পরম করুণাময় আল্লাহ্‌র নিকট শোকরিয়া আদায় করছি। আমি আপনাকে এবং আপনার মাধ্যমে মাননীয় সংসদ-সদস্যবৃন্দ ও প্রিয় দেশবাসীকে ইংরেজি নববর্ষের শুভেচ্ছা ও উষ্ণ অভিনন্দন জ্ঞাপন করছি।

 সময় সাশ্রয়ের জন্য ভাষণটি সংক্ষিপ্ত আকারে এই মহান সংসদে পাঠ করছি। পূর্ণাঙ্গ ভাষণ টেবিলে উপস্থাপন করা আছে। জনাব স্পীকার,
সম্পূর্ণ ভাষণটিকে পঠিত হিসাবে গণ্য করে কার্যবিবরণীতে অন্তর্ভুক্ত করার জন্য আপনাকে অনুরোধ জানাচ্ছি।

জনাব স্পীকার,

  আমি গভীর শ্রদ্ধার সঙ্গে স্মরণ করছি সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ বাঙালি, বাংলাদেশের মহান স্থপতি, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে। কৃতজ্ঞতা এবং শ্রদ্ধার সঙ্গে স্মরণ করছি সকল বীর মুক্তিযোদ্ধা এবং অমর শহিদকে, যাঁদের বীরত্ব ও আত্মত্যাগের বিনিময়ে আমরা অর্জন করেছি স্বাধীন সার্বভৌম বাংলাদেশ। আমি কৃতজ্ঞতার সঙ্গে স্মরণ করছি জাতীয়
চার নেতা – সৈয়দ নজরুল ইসলাম, তাজউদ্দীন আহমদ, এম মনসুর আলী এবং এ এইচ এম কামারুজ্জামানকে; আমি আরও শ্রদ্ধাভরে স্মরণ করছি বাঙালির অধিকার আদায়ের সংগ্রামের তিন মহান ব্যক্তিত্ব – শেরে বাংলা এ কে ফজলুল হক, হোসেন শহীদ সোহরাওয়ার্দী ও মওলানা আব্দুল হামিদ খান ভাসানীকে।

  জাতির ইতিহাসে সবচেয়ে বেদনাদায়ক অধ্যায় ১৯৭৫-এর ১৫ই আগস্টের বর্বর হত্যাকাণ্ডে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সঙ্গে শাহাদত বরণ করেছিলেন তাঁর সহধর্মিণী মহীয়সী বঙ্গমাতা
শেখ ফজিলাতুন নেছা মুজিব, তিন পুত্র শেখ কামাল, শেখ জামাল ও
শেখ রাসেলসহ পরিবারের অন্যান্য সদস্যবৃন্দ। আমি পরম করুণাময় আল্লাহ্‌র কাছে তাঁদের রুহের মাগফেরাত কামনা করছি।

 গত বছরে আমরা বীর মুক্তিযোদ্ধাসহ শিক্ষা, সংস্কৃতি, ক্রীড়া, রাজনৈতিক ও সামাজিক অঙ্গনের অনেক খ্যাতিমান ব্যক্তিত্বকে হারিয়েছি। আমি তাঁদের রুহের মাগফিরাত ও শান্তি কামনা করছি।

জনাব স্পীকার,

  ২০২১ সাল ছিল বাঙালি জাতি ও বাংলাদেশের জন্য এক অবিস্মরণীয় বছর। এ বছরেই আমরা উদ্‌যাপন করেছি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী, স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী ও বিজয়ের সুবর্ণজয়ন্তী। ‍উৎসবের এমন মহামিলন, গণমানুষের এমন সম্মিলন ইতিহাসে কমই দেখা যায়। যদিও করোনা মহামারির কারণে উৎসব পালনের ক্ষেত্রে প্রতিবন্ধকতার সৃষ্টি হয়েছিল। কিন্তু শেষ পh©ন্ত কোনো বাধাই বাঙালিকে দাবিয়ে রাখতে পারেনি। সাড়ম্বরে দেশে ও দেশের বাইরে জন্মশতবার্ষিকী এবং স্বাধীনতা ও বিজয়ের সুবর্ণজয়ন্তী উদ্‌যাপিত হয়েছে। এসব অনুষ্ঠানে বন্ধু দেশের রাষ্ট্র ও সরকার প্রধানগণ অংশগ্রহণ করে অনুষ্ঠানের মর্যাদা ও আনন্দ-উৎসবে নতুন মাত্রা যোগ করেছেন। এছাড়া অনেক বন্ধু দেশের রাষ্ট্র ও সরকার প্রধান এবং উন্নয়ন সহযোগী প্রতিষ্ঠানের প্রধানগণ ভিডিও বার্তার মাধ্যমে শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন জানিয়েছেন। এর ফলে দ্বিপাক্ষিক ও বহুপাক্ষিক ক্ষেত্রে বাংলাদেশের সম্পর্ক ও যোগাযোগ বহুগুণে বৃদ্ধি পেয়েছে। বহির্বিশ্বে বাংলাদেশের ভাবমূর্তিও উজ্জ্বল হয়েছে।

জনাব স্পীকার,

 বৈশ্বিক মহামারি করোনা সংক্রমণের কারণে বিগত দুবছর জনসাধারণের জীবন-জীবিকা হুমকির সম্মুখীন হয়। এ সময়ে জীবন রক্ষার পাশাপাশি আর্থসামাজিক পরিস্থিতি স্বাভাবিক রাখাই ছিল সরকারের অন্যতম চ্যালেঞ্জ। আর্থসামাজিক এ সংকট মোকাবিলায় সরকার ‘Whole of the Government Approach’ গ্রহণ করে। করোনা সংক্রমণ রোধে বিভিন্ন প্রকার বিধি-নিষেধ আরোপ ও প্রচার-প্রচারণার পাশাপাশি ১৫৬টি কোভিড ডেডিকেটেড হাসপাতালে আক্রান্তদের চিকিৎসাসেবা দেয়া হয়। এছাড়া করোনা পরীক্ষার জন্য ১৫১টি আরটি-পিসিআর ল্যাবরেটরি স্থাপন করা হয়। স্বাস্থ্যসেবা খাতে গত অর্থবছরের তুলনায় বাজেট বৃদ্ধি করা হয়েছে ১৩ শতাংশ। ইতোমধ্যে প্রায় ৭ কোটির অধিক জনগণকে টিকা দেয়া হয়েছে। শীঘ্রই দেশের অধিকাংশ জনগণকে টিকার আওতায় আনা হবে ইনশাআল্লাহ্‌। সরকারের কার্যকর পদক্ষেপ গ্রহণের ফলে পৃথিবীর অন্যান্য যেকোনো দেশের তুলনায় বাংলাদেশে করোনা সংক্রমণ এবং সংক্রমণজনিত মৃত্যুর হার অপেক্ষাকৃত কম। মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর সাহসী, দূরদর্শী নেতৃত্ব ও অনুপ্রেরণায় আমরা এখন পর্যন্ত করোনা এবং এর অভিঘাত সফলভাবে মোকাবিলা করে যাচ্ছি। তবে করোনার নতুন ভ্যারিয়েণ্ট ওমিক্রন যাতে ‍আমাদের দেশে সংক্রমণ ছড়াতে না পারে সেজন্য সরকারকে সতর্কতা অবলম্বনসহ প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করতে হবে।

 করোনার কারণে প্রান্তিক জনগোষ্ঠীর অর্থনৈতিক ঝুঁকি বৃদ্ধির পাশাপাশি বেসরকারি খাতও ক্ষতিগ্রস্ত হয়। এ সংকট মোকাবিলায় বৃহৎ এবং ক্ষুদ্র ও মাঝারি শিল্প প্রতিষ্ঠানসমূহে আর্থিক সহায়তাসহ বিভিন্ন সামাজিক নিরাপত্তা কার্যক্রমের মাধ্যমে সরকার দেশের আপামর জনসাধারণকে সুখ-স্বাচ্ছন্দে রাখতে সর্বদা সচেষ্ট রয়েছে। এ লক্ষ্যে সরকার প্রদত্ত ২৮টি প্রণোদনা প্যাকেজের মাধ্যমে ৬ কোটি ৭৪ লক্ষ ৬৩ হাজারের অধিক জনগণ এবং
১ লক্ষ ১৭ হাজারের অধিক প্রতিষ্ঠান উপকৃত হয়েছে।

জনাব স্পীকার,

  করোনা সাফল্যের সঙ্গে মোকাবিলা করে ইতিবাচক অর্থনৈতিক অগ্রগতি অব্যাহত রাখা সম্ভব হয়েছে, যা সামষ্টিক অর্থনীতির গুরুত্বপূর্ণ নিয়ামকসমূহ ও সরকারের উন্নয়ন কর্মসূচি বিশ্লেষণে প্রতিফলিত হয়। করোনা মহামারি শুরুর পূর্বে ২০১৫-১৬ অর্থবছর হতে ২০১৮-১৯ অর্থবছর পর্যন্ত জিডিপির গড় প্রবৃদ্ধি ছিল ৭.৪ শতাংশ, যা করোনাকালীন হ্রাস পায়। তবে সরকারের বিভিন্ন টেকসই এবং অন্তর্ভুক্তিমূলক উন্নয়ন নিশ্চিতকল্পে নানামুখী আর্থসামাজিক ও বিনিয়োগধর্মী প্রকল্প, কর্মসূচি এবং কার্যক্রম গ্রহণের ফলে ইতোমধ্যে দেশের অর্থনীতি ঘুরে দাঁড়াতে শুরু করেছে। বর্তমান পরিস্থিতিতে বিশ্বের অধিকাংশ দেশের জিডিপির ঋণাত্মক প্রবৃদ্ধির তুলনায় সাময়িক হিসাব অনুযায়ী ২০২০-২১ অর্থবছরে বাংলাদেশের জিডিপি প্রবৃদ্ধি দাঁড়িয়েছে ৫ দশমিক চার-তিন শতাংশে, যা আশাব্যাঞ্জক।

 ২০১৯-২০ অর্থবছরে দেশের রপ্তানি আয়ের ঋণাত্মক প্রবৃদ্ধি হলেও ২০২০-২১ অর্থবছরেই রপ্তানি আয় ১৫.১ শতাংশ বৃদ্ধি পেয়েছে। প্রবৃদ্ধির এ ধারা চলতি অর্থবছরেও অব্যাহত রয়েছে। রপ্তানি আয় বৃদ্ধির লক্ষ্যে রপ্তানি পণ্য বহুমুখীকরণ এবং নতুন নতুন বাজার সৃষ্টির জন্য সময়োপযোগী এবং কার্যকর নীতি ও কৌশল প্রণয়ন করা হয়েছে। স্বল্পোন্নত দেশ হতে উন্নয়নশীল দেশে উত্তরণের চ্যালেঞ্জ মোকাবিলায় দ্বিপাক্ষিক ও আঞ্চলিক মুক্ত বাণিজ্য চুক্তি সম্পাদনের লক্ষ্যে বিভিন্ন পদক্ষেপ গ্রহণ করা হয়েছে। কোম্পানি নিবন্ধন প্রক্রিয়াসহ আমদানি ও রপ্তানি সংক্রান্ত সকল সেবা অটোমেশনের মাধ্যমে সহজিকরণ করা হয়েছে।

জনাব স্পীকার,

 রেমিটেন্স প্রেরণে নগদ প্রণোদনা এবং পদ্ধতি সহজিকরণের সুফল হিসাবে ২০২০-২১ অর্থবছরে রেমিটেন্স প্রবাহ পূর্ববর্তী অর্থবছরের তুলনায় ৩৬ দশমিক এক শতাংশ বৃদ্ধি পেয়ে দাঁড়িয়েছে ২৪ দশমিক সাত-আট বিলিয়ন মার্কিন ডলার, যা অত্যন্ত আশাব্যঞ্জক। এর ফলে বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ উল্লেখযোগ্য পরিমাণে বৃদ্ধি পেয়ে ৪৫ দশমিক দুই-ছয় বিলিয়ন মার্কিন ডলারে দাঁড়িয়েছে।

দেশের উন্নয়ন অগ্রযাত্রা অব্যাহত রাখার লক্ষ্যে ২০২১ সালের একনেক সভাসমূহে প্রায় ২ লক্ষ ৩৮ হাজার ৪৫৭ দশমিক পাঁচ-সাত কোটি টাকা প্রাক্কলিত ব্যয়ে ১৩৩টি প্রকল্প অনুমোদিত হয়েছে। করবান্ধব পরিবেশ সৃষ্টি হওয়ায় করোনা পরিস্থিতিতেও ২০২০-২১ অর্থবছরে রাজস্ব আহরণের পরিমাণ ২৩ দশমিক পাঁচ-সাত বৃদ্ধি পেয়ে প্রায় ৩ লক্ষ ২৮ হাজার ৫৮২ কোটি টাকায় উন্নীত হয়েছে। বিগত পাঁচটি অর্থবছরে অর্থনৈতিক উন্নয়ন কৌশল বাস্তবায়নে সরকার মোট ৬১ দশমিক নয়-নয় বিলিয়ন মার্কিন ডলার বৈদেশিক উৎস হতে সংগ্রহের জন্য চুক্তি স্বাক্ষর করেছে। এর মধ্যে
৩১ দশমিক পাঁচ-ছয় বিলিয়ন মার্কিন ডলারের বৈদেশিক সহায়তা ছাড় করা হয়েছে। আর্থিক খাতে পর্যাপ্ত তারল্য নিশ্চিত করার জন্য সুদের হার একাধিকবার হ্রাস করা হয়েছে। মূল্যস্ফীতির হারও সহনীয় পর্যায়ে রয়েছে।

জনাব স্পীকার,

 দ্রুত পরিবর্তনশীল বিশ্বের সঙ্গে তাল মিলিয়ে বিনিয়োগ আকর্ষণে সময়োপযোগী বিভিন্ন কর্মসূচি ও উদ্যোগের ফলে ২০২০-২১ অর্থবছরে দেশে নিট সরাসরি বৈদেশিক বিনিয়োগ প্রবাহ ছিল ২ হাজার ৫০৭ দশমিক তিন-এক মিলিয়ন মার্কিন ডলার। বিনিয়োগের ক্ষেত্র হিসাবে বাংলাদেশের সক্ষমতা তুলে ধরার জন্য ২৮-২৯ নভেম্বর ২০২১ মেয়াদে ঢাকায় অনুষ্ঠিত আন্তর্জাতিক বিনিয়োগ সম্মেলনের মাধ্যমে বিশ্বব্যাপী বাংলাদেশ সম্পর্কে ব্যাপক আগ্রহের সৃষ্টি হয়েছে। উক্ত আন্তর্জাতিক সম্মেলনে ২৭০ কোটি ডলার বিনিয়োগ প্রস্তাব পাওয়া গেছে। শিল্প ও ব্যবসাবান্ধব পরিবেশ সৃষ্টির লক্ষ্যে ব্যাংক ঋণের
সুদ হার সিংঙ্গেল ডিজিটে নামিয়ে আনা হয়েছে। বিভিন্ন অর্থনৈতিক অঞ্চলে শিল্প-প্রতিষ্ঠান স্থাপনের জন্য মোট ১৯৩টি বিনিয়োগকারী প্রতিষ্ঠানের অনুকূলে মোট ৭ হাজার ৩২৫ একর জমি বরাদ্দ প্রদান করা হয়েছে। যাতে প্রস্তাবিত বিনিয়োগের পরিমাণ প্রায় ২৬ বিলিয়ন মার্কিন ডলার। উক্ত বিনিয়োগের ফলে প্রায় ১০ লক্ষ লোকের কর্মসংস্থানের সুযোগ সৃষ্টি হবে। এছাড়া ইপিজেডগুলোতে স্থাপিত শিল্প-প্রতিষ্ঠানসমূহ ২০২০-২১ অর্থবছরে
৬ দশমিক ছয়-চার বিলিয়ন মার্কিন ডলার মূল্যের পণ্য রপ্তানি করেছে, যা জাতীয় রপ্তানির প্রায় ১৭ দশমিক এক-চার শতাংশ। এ পর্যন্ত ইপিজেডের আওতাধীন শিল্প-প্রতিষ্ঠানে ৪ লক্ষ ৫৪ হাজার ৭০৮ জন বাংলাদেশী নাগরিকের প্রত্যক্ষ কর্মসংস্থানের সুযোগ সৃষ্টি হয়েছে যার মধ্যে
৬৬ শতাংশই নারী।

জনাব স্পীকার,

 দেশকে শিল্প-সমৃদ্ধ করার লক্ষ্যে সরকার দৃঢ় প্রতিজ্ঞ। শিল্প-উদ্যোক্তা তৈরির জন্য বিসিক দেশে সম্ভাবনাময় ২ লক্ষ ৬৫ হাজার উদ্যোক্তা চিহ্নিত করে ১ লক্ষ ৯৬ হাজারের অধিক উদ্যোক্তাকে উন্নয়ন প্রশিক্ষণ প্রদান করেছে। দেশে প্রতিবছর গড়ে দুইশত জাহাজ পুনঃপ্রক্রিয়াজাতকরণ করা হয় যা অত্যন্ত সম্ভাবনাময় একটি শিল্প। দেশে ইউরিয়া সারের ক্রমবর্ধমান চাহিদা মেটাতে বার্ষিক ৯ লক্ষ ২৪ হাজার মেট্রিক টন ইউরিয়া সার উৎপাদন ক্ষমতাসম্পন্ন ঘোড়াশাল-পলাশ ইউরিয়া ফার্টিলাইজার প্রকল্পের কাজ দ্রুত গতিতে এগিয়ে চলছে।

 বাংলাদেশের অর্থনীতিতে বস্ত্র এবং পাট খাতের গুরুত্ব অপরিসীম। পাটখাতের পাশাপাশি বস্ত্রখাত দেশের অর্থনীতি, কর্মসংস্থান এবং দারিদ্র্য বিমোচনে অবদান রাখছে। ২০২০-২১ অর্থবছরে তৈরি পোষাক খাত
থেকে ৩১ দশমিক চার-ছয় বিলিয়ন মার্কিন ডলার অর্জিত হয়েছে।
২০২০-২১ অর্থবছরে ৭২ লক্ষ ৮৬ হাজার বেল পাট উৎপাদিত হয়েছে এবং পাট ও পাটজাত পণ্য রপ্তানি করে ৫০৮ দশমিক তিন-সাত মিলিয়ন মার্কিন ডলার আয় হয়েছে।

জনাব স্পীকার,

 কৃষি উন্নয়নে সরকারি সহযোগিতা ও কৃষিবান্ধব নীতির কারণে করোনা পরিস্থিতিতেও বিভিন্ন ফসল উৎপাদনে অগ্রগতির ধারা অব্যাহত রয়েছে। খাদ্যশস্য উৎপাদন বৃদ্ধি পেয়ে বর্তমানে ৪৫৫ দশমিক শূন্য-পাঁচ লক্ষ মেট্রিক টনে উন্নীত হয়েছে, যা ২০০৯ সালে ছিল ৩২৮ দশমিক নয়-ছয় লক্ষ মেট্রিক টন। বাংলাদেশ আজ বিশ্বে ধান, সবজি ও পেঁয়াজ উৎপাদনে তৃতীয়, আলু ও আম উৎপাদনে সপ্তম এবং পেয়ারা উৎপাদনে অষ্টম স্থানে রয়েছে। আমাদের কৃষি ‘জীবন নির্বাহী’ হতে ‘বাণিজ্যিক’ কৃষিতে রূপান্তরিত হচ্ছে। দেশের কৃষি উন্নয়নের এ ধারা অব্যাহত রেখে আমাদের ‘রপ্তানিমুখী কৃষি’ অর্থনীতি গড়ে তুলতে হবে।

 অভ্যন্তরীণ উৎস হতে সরকারিভাবে খাদ্যশস্য সংগ্রহের ক্ষেত্রে বর্ধিত হারে সংগ্রহ লক্ষ্যমাত্রা ও মূল্য নির্ধারণের কৌশল অবলম্বনের ফলে কৃষকগণ স্মরণকালের মধ্যে ধানের সর্বোচ্চ মূল্য পেয়েছেন। চাল উৎপাদনে দেশ স্বয়ংসম্পূর্ণ হলেও আম্ফান ও বন্যায় ধানের উৎপাদন কিছুটা ক্ষতিগ্রস্ত হওয়ায় সময়মত খাদ্যশস্য আমদানির ফলে বাজারদর স্থিতিশীল রাখার পাশাপাশি সামাজিক নিরাপত্তা কর্মসূচি অব্যাহত রাখা সম্ভব হয়েছে।

 মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর প্রাজ্ঞ ও দূরদর্শী নেতৃত্বে ইতোমধ্যে বাংলাদেশ মাছ, মাংস ও ডিম উৎপাদনে স্বয়ংসম্পূর্ণতা অর্জন করেছে। করোনায় ক্ষতিগ্রস্ত ৬ লক্ষ ৭৯ হাজারের অধিক মৎস্যচাষী, খামারি ও উদ্যোক্তাকে প্রায় ৮১৯ কোটি টাকা নগদ আর্থিক সহায়তা প্রদান করা হয়েছে। মুজিববর্ষ উপলক্ষ্যে কার্প জাতীয় মাছের বৃহত্তম প্রাকৃতিক প্রজননক্ষেত্র হালদা নদীকে ‘বঙ্গবন্ধু মৎস্য হেরিটেজ’ ঘোষণা করা হয়েছে।

জনাব স্পীকার,

অর্থনৈতিক উন্নয়নের পাশাপাশি মানব-উন্নয়নে বাংলাদেশের প্রভূত অগ্রগতি সাধিত হয়েছে। মানুষের গড় আয়ু ৭২ দশমিক আট বছর, অনূর্ধ্ব পাঁচ বছর এবং অনূর্ধ্ব এক বছর বয়সি শিশু মৃত্যুহার হ্রাস পেয়ে প্রতি হাজারে যথাক্রমে ২৮ জনে এবং ১৫ জনে নেমে এসেছে।

দারিদ্র্য বিমোচনে সরকারের অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ মাধ্যম সামাজিক নিরাপত্তা খাত। এ খাতে ২০২১-২২ অর্থবছরে বাজেট বরাদ্দ ১২ দশমিক পাঁচ শতাংশ বৃদ্ধি করে ১ লক্ষ ৭ হাজার ৬১৪ কোটি টাকা করা হয়েছে যা মোট বাজেটের ১৭ দশমিক আট-তিন শতাংশ। সামাজিক নিরাপত্তা বেষ্টনী কর্মসূচিসমূহে বর্তমান অর্থবছরে বয়স্ক ভাতা, বিধবা ও স্বামী নিগৃহীতা মহিলা ভাতা, অসচ্ছল প্রতিবন্ধী ভাতা এবং প্রতিবন্ধী শিক্ষার্থীদের জন্য শিক্ষা উপবৃত্তি কর্মসূচির উপকারভোগীর সংখ্যা ৮৭ লক্ষ ৫০ হাজার থেকে বৃদ্ধি করে ১ কোটি ২ লক্ষ ৮৪ হাজার জন করা হয়েছে।

 বীর মুক্তিযোদ্ধারা জাতির শ্রেষ্ঠ সন্তান, তাঁদের ঋণ আমরা কখনও শোধ করতে পারব না। ২০২১-২২ অর্থবছরে বীর মুক্তিযোদ্ধাদের সম্মানী ভাতা
১২ হাজার টাকা থেকে ২০ হাজার টাকায় উন্নীত করা হয়েছে। বর্তমানে জিটুপি প্রক্রিয়ায় বাংলাদেশ ব্যাংক থেকে সরাসরি বীর মুক্তিযোদ্ধাদের ব্যাংক হিসাবের মাধ্যমে মুক্তিযোদ্ধা সম্মানি ভাতা প্রেরণ করা হচ্ছে।
বীর মুক্তিযোদ্ধাদের বিনা খরচে সরকারি ও বিশেষায়িত হাসপাতালে পূর্ণ চিকিৎসার ব্যবস্থা করা হচ্ছে।

জনাব স্পীকার,

সরকার কর্তৃক ২০২০-২১ অর্থবছরে ১০টি সামাজিক নিরাপত্তা কর্মসূচির মাধ্যমে ২ হাজার ৮৮৩ কোটি টাকায় ২০ লক্ষ ৯৪ হাজারের অধিক দুস্থ নারী উপকৃত হন। শিশুদের মানসম্মত পরিচর্যা প্রদানকারী শিশু দিবাযত্ন কেন্দ্র প্রতিষ্ঠা এবং এর সুষ্ঠু পরিচালনা নিশ্চিতকল্পে ‘শিশু দিবাযত্ন কেন্দ্র আইন, ২০২১’ প্রণয়ন করা হয়েছে। গত ৮ আগস্ট ২০২১ তারিখে বঙ্গমাতা
শেখ ফজিলাতুন নেছা মুজিব-এর ৯১তম জন্মবার্ষিকী উপলক্ষ্যে প্রথমবারের মতো দেশে এবং বিদেশে যথাযোগ্য মর্যাদায় দিবসটি উদ্‌যাপন করা হয়েছে।
উক্ত দিবসে পাঁচ জন বিশিষ্ট নারীকে ‘বঙ্গমাতা বেগম ফজিলাতুন নেছা মুজিব পদক-২০২১’ প্রদান করা হয়েছে।

 তরুণদের জাতীয় উন্নয়নে সম্পৃক্ত করার লক্ষ্যে ‍সরকার ব্যাপক কর্মসূচি গ্রহণ করেছে। দেশের শিক্ষিত বেকার যুবদের কর্মসংস্থান সৃষ্টির লক্ষ্যে সরকার ন্যাশনাল সার্ভিস কর্মসূচি বাস্তবায়ন করছে। মুজিববর্ষ উপলক্ষ্যে প্রশিক্ষিত বেকার যুবদের জন্য ‘বঙ্গবন্ধু যুবঋণ’ কর্মসূচি, অভিবাসী কর্মী ও পরিবারবর্গের জন্য ‘বঙ্গবন্ধু অভিবাসী বৃহৎ পরিবার ঋণ’ কর্মসূচি, শিক্ষার্থীদের নিরাপত্তার জন্য ‘বঙ্গবন্ধু শিক্ষা বীমা’ ও জনসাধারণের আর্থিক ও স্বাস্থ্য নিরাপত্তায় ‘বঙ্গবন্ধু সুরক্ষা বীমা’ কর্মসূচি বাস্তবায়িত হচ্ছে।

 বিদেশে জনশক্তি রপ্তানি সরকারের অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ একটি খাত। ২০২১ সালে ৬ লক্ষ ১৭ হাজার ২০৯ জন কর্মী বৈদেশিক কর্মসংস্থান লাভ করেছেন। প্রত্যাগত ২ লক্ষ অভিবাসী কর্মীদের কর্মসংস্থান সৃজনে আত্মকর্মসংস্থানসহ আর্থসামাজিক বিভিন্ন বিষয়ে পর্যায়ক্রমে প্রশিক্ষণ প্রদান করা হবে। শ্রমজীবী মানুষের অধিকার ও কল্যাণ নিশ্চিতে প্রায় ৮ হাজার শ্রমিক ও শ্রমিক পরিবারকে প্রায় ১০৪ কোটি ৯৬ লক্ষ টাকা আর্থিক সহায়তা প্রদান করা হয়েছে।

 

জনাব স্পীকার,

 প্রাথমিক শিক্ষা হচ্ছে সুনাগরিক তৈরির মূল ভিত্তি। প্রাথমিক শিক্ষাকে বাধ্যতামূলক ও সর্বজনীন করতে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের পদাঙ্ক অনুসরণ করে তাঁর সুযোগ্য উত্তরসুরি মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা কর্তৃক ২৬ হাজার ১৯৩টি প্রাথমিক বিদ্যালয়সহ প্রায় ৩ লক্ষ শিক্ষককে সরকারিকরণ করায় এ খাতে প্রভূত উন্নয়ন সাধিত হয়েছে। আইসিটির ব্যবহার, শিক্ষক নিয়োগ ও প্রশিক্ষণ, ঝরে পড়া রোধ, বিনামূল্যে পাঠ্যপুস্তক বিতরণ এবং উপবৃত্তি প্রদান ইত্যাদি কার্যক্রমের মাধ্যমে মানসম্মত শিক্ষা নিশ্চিত করা হয়েছে।

 মাননীয় প্রধানমন্ত্রী ভার্চুয়ালি ৩০ ডিসেম্বর ২০২১ তারিখে ২০২২ শিক্ষাবর্ষের ৪ কোটি ১৭ লক্ষ ২৬ হাজার ৮৫৬ জন শিক্ষার্থীর মধ্যে
৩৪ কোটি ৭১ লক্ষ ৩৯ হাজার ৪৬৬ কপি পাঠ্যপুস্তক বিতরণ কার্যক্রম উদ্বোধন করেন। করোনাকালীন শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকায় মার্চ ২০২০ হতে মাধ্যমিক পর্যায়ে সংসদ টেলিভিশনে শ্রেণিভিত্তিক ক্লাস সম্প্রচারের পাশাপাশি মাধ্যমিক, উচ্চ মাধ্যমিক এবং বিশ্ববিদ্যালয় পর্যায়ে অনলাইনে ক্লাস নেয়া হয়। করোনা সংক্রমণ হ্রাসের পরিপ্রেক্ষিতে সার্বিক অবস্থা বিবেচনা করে সীমিত পর্যায়ে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খুলে দেয়া হয়েছে। দক্ষ মানবসম্পদ সৃষ্টির লক্ষ্যে সরকার কারিগরি শিক্ষায় গুরুত্বারোপ করায় কারিগরি শিক্ষায় এনরোলমেণ্টের হার বৃদ্ধি পেয়ে ১৭ দশমিক এক-চার শতাংশে দাঁড়িয়েছে।

চিকিৎসা-শিক্ষার সম্প্রসারণ ও গুণগত মান-উন্নয়নে দেশে ৩৭টি সরকারি মেডিকেল কলেজ স্থাপন করা হয়েছে। উচ্চতর চিকিৎসা শিক্ষা ও গবেষণার উদ্দেশ্যে ৪টি বিভাগে ৪টি মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় স্থাপনের কার্যক্রম চলমান রয়েছে। চিকিৎসা শিক্ষা প্রদানকারীদের মান তদারকি ও নিয়ন্ত্রণের লক্ষ্যে ‘বাংলাদেশ চিকিৎসা শিক্ষা অ্যাক্রেডিটেশন আইন, ২০২০’ প্রণয়নের কার্যক্রম চূড়ান্ত পর্যায়ে রয়েছে।

জনাব স্পীকার,

‘মুজিববর্ষে দেশের একজন মানুষও গৃহহীন থাকবে না’ মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার এ ঘোষণার পরিপ্রেক্ষিতে আশ্রয়ণ-২ প্রকল্পের আওতায় ১ লক্ষ ৪৮ হাজার ৩৯৭টি ভূমিহীন ও গৃহহীন পরিবারকে ২ শতক সরকারি খাস জমি বন্দোবস্ত প্রদানপূর্বক দ্বিকক্ষ বিশিষ্ট সেমি-পাকা গৃহ নির্মাণ করে বিনামূল্যে উপকারভোগী স্বামী-স্ত্রীকে এর যৌথ মালিকানা প্রদান করা হয়েছে। সকলের জন্য পরিকল্পিত আবাসন সুনিশ্চিতকরণে সরকারের প্রতিশ্রুতি বাস্তবায়নের অংশ হিসাবে বস্তিবাসীদের জন্য ৩০০টি ফ্ল্যাট হস্তান্তর করা হয়েছে। মুজিববর্ষ উপলক্ষ্যে ভূমিহীন ও গৃহহীনদের জন্য ৫০০টি গৃহনির্মাণে তিন পার্বত্য জেলা পরিষদের অনুকূলে ৮ কোটি ৯৩ হাজার টাকা বরাদ্দ প্রদান করা হয়েছে। ‘মুজিববর্ষ’ এবং ‘স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী’
উদ্‌যাপন উপলক্ষ্যে অসচ্ছল বীর মুক্তিযোদ্ধাদের মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর উপহার হিসাবে ৪ হাজার ১২২ কোটি টাকা ব্যয়ে ৩০ হাজার বাসস্থান প্রদান করা হবে। এ সকল কার্যক্রমের মাধ্যমে বিশাল একটি জনগোষ্ঠীকে পুনর্বাসন বিশ্বে সর্ববৃহৎ ও সর্বপ্রথম। দেশের ভূমিহীন, গৃহহীন, ছিন্নমূল ও অসহায় মানুষের দারিদ্র্য বিমোচনের ধারণা মানবিকতার নতুন ইতিহাস সৃষ্টি করেছে।
মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর এ ধারণা ‘অন্তর্ভুক্তিমূলক উন্নয়নের শেখ হাসিনা মডেল’ হিসাবে পরিচিতি পেয়েছে। এজন্য আমি মাননীয় প্রধানমন্ত্রীকে আন্তরিক অভিনন্দন ও ধন্যবাদ জানাচ্ছি।

জনাব স্পীকার,

 সরকার অন্তর্ভুক্তিমূলক উন্নয়নে বিশ্বাসী। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী
শেখ হাসিনার উদ্যোগে স্বাক্ষরিত ‘শান্তি চুক্তির’ ফলে অনগ্রসর পার্বত্য অঞ্চল মূল জাতীয় উন্নয়নে যুক্ত হওয়ায় জাতি, ধর্ম, বর্ণ নির্বিশেষে সকলের মধ্যে সৌহার্দ্য ও সম্প্রীতি বিরাজ করছে। সরকারের অন্যতম প্রধান প্রতিশ্রুতি ‘আমার গ্রাম-আমার শহর’ কর্মসূচির আওতায় প্রতিটি গ্রামে শহরের সুবিধাদি এবং প্রতিটি ঘরে বিদ্যুৎ পৌঁছে দেয়ার ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে। এলজিইডি কর্তৃক এ পর্যন্ত ৬৬ হাজার ৭৫৫ কিলোমিটার সড়ক, ৩ লক্ষ ৯৪ হাজার ৮০৭ মিটার ব্রিজ/কালভার্ট, ১ হাজার ৭৬৭টি ইউনিয়ন পরিষদ কমপ্লেক্স ভবন,
১ হাজার ২৫টি ঘূর্ণিঝড় আশ্রয়কেন্দ্র এবং ৩২৬টি উপজেলা কমপ্লেক্স ভবন নির্মাণ ও সম্প্রসারণ করা হয়েছে। ৭ লক্ষ ৮৬ হাজার ৬০০টি নিরাপদ পানির উৎস স্থাপন করা হয়েছে। জলাবদ্ধতা দূরীকরণার্থে ঢাকা মহানগরীর খালসমূহের সংস্কার এবং উন্নয়নের উদ্যোগ গ্রহণ করা হয়েছে।

 সরকার পল্লী উন্নয়নে দক্ষ মানবসম্পদ ও ক্ষুদ্র উদ্যোক্তা সৃজন, গবেষণার মাধ্যমে পল্লী উন্নয়নে বিভিন্ন মডেল উদ্ভাবন, বাজার সংযোগ স্থাপন, দরিদ্র জনগোষ্ঠীর আত্ম-কর্মসংস্থান সৃষ্টি ও জীবনযাত্রার মান উন্নয়ন, বহুমুখী সমবায় কার্যক্রম, দুগ্ধ ও দুগ্ধজাত পণ্য উৎপাদনসহ বিভিন্ন কার্যক্রম বাস্তবায়ন করছে। মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর স্বপ্নপ্রসূত ‘আমার বাড়ি আমার খামার’ প্রকল্পের মাধ্যমে ৫৬ লক্ষ ৭৭ হাজার দরিদ্র পরিবারকে সংগঠিত করে স্থায়ীভাবে দারিদ্র্য বিমোচন করার লক্ষ্যে সরকার পল্লী সঞ্চয় ব্যাংক প্রতিষ্ঠা করেছে।

জনাব স্পীকার,

নিরবচ্ছিন্ন, নিরাপদ ও সময়-সাশ্রয়ী সড়ক যোগাযোগ নিশ্চিত করার লক্ষ্যে সরকার নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছে। নিরবচ্ছিন্ন মহাসড়ক নেটওয়ার্ক ও আর্থসামাজিক উন্নয়নে ২৬টি মেগা প্রকল্প বাস্তবায়নাধীন রয়েছে। ২০২০-২১ অর্থবছরে ৯৬২ কিলোমিটারের অধিক মহাসড়ক মজবুতিকরণ, ১ হাজার ১০৭ কিলোমিটার মহাসড়ক প্রশস্তকরণ,
৭৪ কিলোমিটার মহাসড়কে রিজিড পেভমেণ্ট নির্মাণ, ১৯২টি সেতু ও ৭৭৯টি কালভার্ট নির্মাণ এবং প্রায় ৩ হাজার ১৪৫ কিলোমিটার মহাসড়ক সংস্কার কার্যক্রম সম্পন্ন করা হয়েছে। সরকার ২০০৯ থেকে এ পর্যন্ত ৪৫৮ কিলোমিটার জাতীয় মহাসড়ক চার বা তদূর্ধ্ব লেনে উন্নীত করেছে। বর্তমানে সার্ভিস লেনসহ ৭১৯ কিলোমিটার এবং সার্ভিস লেন ব্যতীত ১৬৮ কিলোমিটার মহাসড়ক ৪-লেনে উন্নীতকরণের কাজ চলমান রয়েছে। ঢাকা মহানগরী ও পার্শ্ববর্তী এলাকার যানজট নিরসন এবং পরিবেশ উন্নয়নে ছয়টি এমআরটি লাইন নির্মাণের লক্ষ্যে সরকার সময়াবদ্ধ কর্মপরিকল্পনা২০৩০ গ্রহণ করেছে। এর মধ্যে এমআরটি লাইন ছয়-এর নির্মাণকাজ ৭৪ শতাংশ সম্পন্ন হয়েছে এবং দশ সেট মেট্রো ট্রেন বাংলাদেশে এসে পৌঁছেছে।
২০২২ সালের ডিসেম্বর মাসে বাংলাদেশে প্রথম মেট্রোরেল চলাচল শুরু করবে, ইনশাআল্লাহ।

 দেশের দক্ষিণাঞ্চলের সঙ্গে অন্যান্য অঞ্চলের সুষ্ঠু এবং সমম্বিত যোগাযোগ ব্যবস্থা গড়ে তোলার লক্ষ্যে নিজস্ব অর্থায়নে ৯ দশমিক আট-তিন কিলোমিটার দীর্ঘ আইকনিক পদ্মা সেতুর নির্মাণকাজ প্রায় শেষ পর্যায়ে রয়েছে যা ২০২২ সালের জুন নাগাদ সম্পন্ন হবে। হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর হতে ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের কুতুবখালী পর্যন্ত ঢাকা এলিভেটেড এক্সপ্রেসওয়ের নির্মাণকাজ জুন ২০২৩ সাল নাগাদ সম্পন্ন হবে। কর্ণফুলী নদীর তলদেশে তিন দশমিক চার-শূন্য কিলোমিটার দীর্ঘ বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বহুলেন টানেলের দ্বিতীয় টানেলের নির্মাণকাজ ইতোমধ্যে সমাপ্ত হয়েছে। হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর থেকে সাভার ইপিজেড পর্যন্ত ২৪ কিলোমিটার দীর্ঘ ‘ঢাকা-আশুলিয়া এলিভেটেড এক্সপ্রেসওয়ে’ প্রকল্পের নির্মাণকাজ দ্রুত এগিয়ে চলছে।

জনাব স্পীকার,

দেশের সকল জেলাকে রেল নেটওয়ার্কের আওতায় আনার পরিকল্পনা গ্রহণ করা হয়েছে। রেলওয়েকে আধুনিক, যুগোপযোগী গণপরিবহন হিসাবে গড়ে তোলার লক্ষ্যে বর্তমান অর্থবছরে প্রায় ১৩ হাজার ৩৭১ কোটি ৪৫ লক্ষ টাকা ব্যয়ে মোট ৩৭টি উন্নয়ন প্রকল্পের কাজ চলমান রয়েছে। ঢাকা শহরের চতুর্দিকে সার্কুলার রেললাইন নির্মাণের সম্ভাব্যতা সমীক্ষা চলছে। পদ্মা সেতুর সঙ্গে পদ্মা সেতু রেল লিংকের ভায়াডাক্ট সংযোগ স্থাপন করা হয়েছে। বাংলাদেশ রেলওয়ের রোলিং-স্টক সংকট নিরসনে ১৪০টি লোকোমোটিভ, ৯০০ যাত্রীবাহী কোচ সংগ্রহ এবং ১০৩টি স্টেশনের সিগন্যালিং ও ইন্টারলকিং ব্যবস্থা আধুনিকীকরণ করা হয়েছে।

 দেশীয় পর্যটন শিল্পের সার্বিক উন্নয়ন ও বিকাশের লক্ষ্যে একটি স্বল্প, মধ্য ও দীর্ঘমেয়াদি পর্যটন মহাপরিকল্পনা প্রণয়নের কার্যক্রম চলমান রয়েছে। দেশের ক্রমবর্ধমান যাত্রী চাহিদা ও পর্যটন শিল্পের উন্নয়নকল্পে প্রায় ২১ হাজার ৩৯৯ কোটি টাকা ব্যয়ে হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের তৃতীয় টার্মিনালের নির্মাণকাজ দ্রুতগতিতে এগিয়ে চলছে। কক্সবাজার বিমানবন্দরকে আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে উন্নীত করার লক্ষ্যে এর রানওয়ে সম্প্রসারণের পাশাপাশি একটি আন্তর্জাতিক প্যাসেঞ্জার টার্মিনাল ভবনের নির্মাণকাজ চলছে। নতুন প্রজন্মের ১৬টি উড়োজাহাজ সংযোজনের মাধ্যমে বাংলাদেশ বিমানকে স্বয়ংসম্পূর্ণ করা হয়েছে।

জনাব স্পীকার,

বাণিজ্য সম্প্রসারণ ও সহজিকরণে নদী ও সমুদ্র বন্দরসমূহে দক্ষতা ও অবকাঠামোগত উন্নয়ন প্রয়োজন। মংলা বন্দরের সার্বিক অবকাঠামো নির্মাণের জন্য ১০টি প্রকল্প চলমান রয়েছে। নৌপথ উন্নয়নে ২০১৪-২০২১ মেয়াদে ১ হাজার ৫০২ লক্ষ ঘনমিটার উন্নয়ন ড্রেজিং ও ৯৭৯ দশমিক এক-ছয় লক্ষ ঘনমিটার সংরক্ষণ ড্রেজিং করা হয়েছে। ২০২০-২১ অর্থবছরে ৪ হাজার ৬২টি ভেসেল চট্টগ্রাম বন্দরে আগমন করেছে এবং বন্দর ১১ কোটি ৩৭ লক্ষ ২৯ হাজার ৩৭৩ মেট্রিক টন কার্গো হ্যাণ্ডলিং করেছে। পায়রা বন্দরের কার্যক্রম শুরুর পর থেকে অদ্যাবধি ১৫০টি বাণিজ্যিক জাহাজ বন্দরে আগমন করেছে, যা থেকে প্রায় ৩০৫ কোটি টাকার রাজস্ব আয় হয়েছে।

 জলবায়ু পরিবর্তনে অভিঘাত-সহিষ্ণু বাংলাদেশ গড়ে তোলার লক্ষ্যে গৃহীত ‘বাংলাদেশ ব-দ্বীপ পরিকল্পনা ২১০০’-এর আওতায় ৬৪টি জেলায় প্রায় ৪ হাজার ৪৩৯ কিলোমিটার নদী, খাল এবং জলাশয় পুনঃখনন করা হচ্ছে। এর ফলে ছোট নদী, খাল ও জলাশয় পুনরুজ্জীবিত হওয়ার মাধ্যমে এদের মধ্যে আন্তঃসংযোগ স্থাপন এবং এর পাশাপাশি জলাভূমি ও জীববৈচিত্র্য সংরক্ষণ সম্ভব হবে। পর্যায়ক্রমে ছোট নদী, খাল ও জলাশয়ের মোট ১৩ হাজার ৮৪৩ দশমিক দুই-নয় কিলোমিটার পুনঃখনন করা হবে।

জনাব স্পীকার,

 প্রধানমন্ত্রীর তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিষয়ক মাননীয় উপদেষ্টা জনাব সজীব আহমেদ ওয়াজেদ-এর সুপরিকল্পিত দিকনির্দেশনায় ‍আমাদের দেশ বহির্বিশ্বে ‘ডিজিটাল বাংলাদেশ’ হিসাবে ‍সুপরিচিত। বাংলাদেশের প্রথম স্যাটেলাইট ‘বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট-১’-এর মাধ্যমে সকল সরকারি-বেসরকারি টেলিভিশন চ্যানেল অনুষ্ঠান সম্প্রচার করছে। বর্তমানে ‘বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট-২’ উৎক্ষেপণের কার্যক্রম চলমান রয়েছে। মোবাইলসেবা উন্নতকরণ, তথ্য সংগ্রহ ও রিপোর্টিং প্রক্রিয়াকে অটোমেটেড করার পাশাপাশি সরকারের রাজস্ব আহরণে স্বচ্ছতা নিশ্চিতকরণে টেলিকম মনিটরিং সিস্টেম স্থাপনের কার্যক্রম শুরু হয়েছে। বর্তমানে বাংলাদেশের মোট জনসংখ্যার প্রায় ৭৫ দশমিক চার শতাংশ লোকের কমপক্ষে একটি মোবাইল ফোনের মালিকানা রয়েছে এবং ১৫ বছরের অধিক বয়সী মোট ৪৩ দশমিক পাঁচ শতাংশ ব্যক্তি ইণ্টারনেট ব্যবহার করে। বিশ্বের নবম দেশ হিসাবে ১২ ডিসেম্বর ২০২১ থেকে বাংলাদেশ 5G নেটওয়ার্ক যুগে প্রবেশ করেছে। 5G সহজলভ্যতার কারণে প্রচলিত অনলাইনভিত্তিক সকল কার্যক্রম আরও দক্ষ ও গতিশীল হবে। স্বাধীনতা ও বিজয়ের সুবর্ণজয়ন্তীতে বাংলাদেশের জন্য এটি একটি বিশাল অর্জন।

করোনাকালে মন্ত্রিসভা-বৈঠক, আদালতের কার্যক্রম, অফিস, ব্যবসা-বাণিজ্য, ভ্যাকসিন কার্যক্রমসহ প্রায় সবকিছুই চলমান রাখা সম্ভব হয়েছে ডিজিটাল পদ্ধতিতে। কোন অর্থ ব্যয় ব্যতীত ভ্যাকসিন ম্যানেজমেন্ট সিস্টেম ‘সুরক্ষা’ পোর্টাল তৈরি করে সরকার। এ পর্যন্ত পোর্টালে প্রায় ৮ কোটি জনসাধারণ নিবন্ধন করেছেন। মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর মানবিক সহায়তা প্রকল্প ও অন্যান্য সামাজিক নিরাপত্তা বেষ্টনী কর্মসূচির সুবিধাভোগী ১ কোটি ৩৯ লক্ষ জনগণের নিকট সহায়্তা ডিজিটাল উপায়ে পৌঁছে দেয়া হয়েছে। জাতীয় হেল্পলাইনে নাগরিকগণ ৭ কোটির অধিক কলের মাধ্যমে বিভিন্ন তথ্য ও সেবা গ্রহণ করেছেন। দেশের ১৮ হাজার পাঁচশত সরকারি অফিস ইন্টারনেট নেটওয়ার্কের আওতায় আনা হয়েছে এবং ২ হাজার ৬০০ ইউনিয়নে ফাইবার অপটিক ক্যাবল লাইনের মাধ্যমে ব্রডব্যান্ড ইন্টারনেট পৌঁছে দেয়া হয়েছে। ৮ হাজার ১৭৭টি ডিজিটাল সেন্টারের মাধ্যমে ৬০ কোটি সেবা প্রদান করা হয়েছে এবং বিশ্বের সর্ববৃহৎ পোর্টাল জাতীয় তথ্য বাতায়ন থেকে প্রতিদিন প্রায় ১০ লক্ষ তথ্য সেবা দেয়া হচ্ছে।

 ই-নথির মাধ্যমে ১১ হাজার ৩৭০টি সরকারি অফিসে কাজের গতিশীলতা বৃদ্ধি করা হয়েছে। হাই-টেক পার্ক, আইটি পার্ক এবং শেখ কামাল আইটি ইনকিউবেশন অ্যাণ্ড ট্রেনিং সেণ্টারে মোট ১০৩টি অবকাঠামো তৈরি করা হচ্ছে। এর মধ্যে পাঁচটি অবকাঠামোতে ইতোমধ্যে ১২০টি প্রতিষ্ঠান ৫৭০ কোটি টাকা বিনিয়োগ করেছে। সরকারি নীতি ও আর্থিক সহায়তায় বিগত চার বছরে দেশে স্টার্টআপে বিনিয়োগ ৫০০ মিলিয়ন ডলার ছাড়িয়েছে এবং এ পর্যন্ত ২০ লক্ষ মানুষের প্রযুক্তি-নির্ভর কর্মসংস্থান হয়েছে।

জনাব স্পীকার,

 সবার জন্য বিদ্যুৎ সুবিধা নিশ্চিত করার লক্ষ্যে ‘শেখ হাসিনার উদ্যোগ- ঘরে ঘরে বিদ্যুৎ’ বাস্তবায়ন করা হচ্ছে। বিদ্যুৎ খাতের পরিকল্পনা অনুযায়ী ২০২১ সালের উৎপাদন লক্ষ্যমাত্রা ছিল ২৪ হাজার মেগাওয়াট, যা ইতোমধ্যে অর্জিত হয়েছে। বিদ্যুতের স্থাপিত ক্ষমতা ক্যাপটিভ ও নবায়নযোগ্য জ্বালানিসহ ২৫ হাজার ২৩৫ মেগাওয়াটে উন্নীত হয়েছে এবং বিদ্যুৎ সুবিধাভোগী জনসংখ্যা ৪৭ থেকে শতভাগে উন্নীত হয়েছে। ২০৩০ সালে বিদ্যুৎ উৎপাদন ক্ষমতা ৪০ হাজার মেগাওয়াট এবং ২০৪১ সালে ৬০ হাজার মেগাওয়াটে উন্নীত করার লক্ষ্যে সরকার নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছে। বিশ্বব্যাপী করোনা সংকটের মধ্যেও রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্রের নির্মাণকাজ সন্তোষজনকভাবে এগিয়ে চলছে।

  দেশের আর্থসামাজিক উন্নয়ন, বিনিয়োগ আকর্ষণ ও শিল্পায়নে জ্বালানি খাতের ভূমিকা অপরিসীম। এ খাতে সরকারের উল্লেখযোগ্য অর্জন হচ্ছে পাঁচটি নতুন গ্যাসক্ষেত্র আবিষ্কার, আমদানিকৃত এলএনজিসহ প্রায় ১ হাজার ৫০৬ MMCFD গ্যাস সরবরাহ বৃদ্ধি, ১ হাজার ২২২ কিলোমিটার গ্যাস সঞ্চালন পাইপলাইন স্থাপন। এছাড়াও জ্বালানি তেলের সরবরাহ ৮০ লক্ষ মেট্রিক টনে, মজুদ ক্ষমতা ১৩ দশমিক দুই লক্ষ মেট্রিক টনে, এলপিজির ব্যবহার ১২ লক্ষ মেট্রিক টনে উন্নীত হয়েছে। জ্বালানি তেলের দ্রুত, নিরাপদ, নিরবচ্ছিন্ন সরবরাহ এবং সাশ্রয়ী পরিবহনের লক্ষ্যে এ পর্যন্ত ৩০৭ কিলোমিটার পাইপলাইন স্থাপন করা হয়েছে।

জনাব স্পীকার,

দেশীয় সংস্কৃতি, কৃষ্টি, ইতিহাস, ঐতিহ্য, মুক্তিযুদ্ধের চেতনা ও সমকালীন শিল্প ও সাহিত্য সংরক্ষণ, গবেষণা ও উন্নয়নের মাধ্যমে জনগণের মানসিক বিকাশ ও উৎকর্ষ সাধনের লক্ষ্যে সরকার নানামুখী কার্যক্রম গ্রহণ করেছে। ২০২১ সালে ৯ জন বিশিষ্ট ব্যক্তি ও একটি প্রতিষ্ঠানকে ‘স্বাধীনতা পুরস্কার’, ২১ জন সুধীকে ‘একুশে পদক’ এবং ৩০টি চলচ্চিত্রকে অনুদান প্রদান করা হয়েছে। অস্বচ্ছল সংস্কৃতিসেবী, সাংস্কৃতিক প্রতিষ্ঠান এবং বেসরকারি গ্রন্থাগারসমূহের মধ্যে প্রায় ২৫ কোটি টাকার সমপরিমাণ ভাতা ও অনুদান এবং বই প্রদান করা হয়েছে। করোনাকালীন ক্ষতিগ্রস্ত ৫ হাজার ৩৬৪ জন সাংবাদিককে সহায়তা হিসাবে ৬ কোটি ১৯ লক্ষ টাকা বিতরণ করা হয়েছে।

জনাব স্পীকার,

 দেশের অভ্যন্তরীণ আইন-শৃঙ্খলা রক্ষা, অপরাধ প্রতিরোধ ও জনগণের স্বাভাবিক জীবনযাত্রা নিশ্চিতকল্পে মোবাইল কোর্ট আইনের তফসিল সংশোধনের মাধ্যমে এর পরিধি ও কার্যক্রম বৃদ্ধি করা হয়েছে। বাংলাদেশ পুলিশের সক্ষমতা বৃদ্ধির লক্ষ্যে ২টি হেলিকপ্টার সংযোজনের কার্যক্রম চলমান রয়েছে। বিজিবি’র আধুনিকায়নে এয়ার উইং স্থাপন ও অত্যাধুনিক বর্ডার সার্ভেইল্যান্স এন্ড রেসপন্স সিস্টেমে নিজস্ব ডেটা সেন্টার স্থাপনের মাধ্যমে এ বাহিনীকে শক্তিশালী ও পুনর্গঠন করা হয়েছে। আনসার ও গ্রাম প্রতিরক্ষা বাহিনীর প্রশিক্ষণসহ সুযোগ-সুবিধা বৃদ্ধি করা হয়েছে এবং সকল আনসার ব্যাটালিয়নে নতুন কম্ব্যাট পোষাক চালু করা হয়েছে। বাংলাদেশ কোস্ট গার্ডের সক্ষমতা উন্নয়নে বিভিন্ন প্রকার ১০টি প্যাট্রোল ভেসেলসহ ভোলা জেলায় কোস্ট গার্ড বেজ কমিশনিং করা হয়েছে।

 মাদকের বিরুদ্ধে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী ঘোষিত জিরো টলারেন্স নীতি বাস্তবায়নে ডোপ টেস্ট কার্যকর করা হয়েছে। প্রতিটি উপজেলায় অন্তত একটি ফায়ার স্টেশন স্থাপনের অংশ হিসাবে এ পর্যন্ত ৪৫৬টি ফায়ার স্টেশন চালু করা হয়েছে। বহির্বিশ্বের সঙ্গে সামঞ্জস্য রেখে উন্নত প্রযুক্তিসম্পন্ন বাংলাদেশ ই-পাসপোর্ট প্রবর্তনের লক্ষ্যে ই-পাসপোর্ট ও স্বয়ংক্রিয় বর্ডার নিয়ন্ত্রণ ব্যবস্থাপনা প্রবর্তন করা হয়েছে। কারাবন্দিদের আত্মকর্মসংস্থানের লক্ষ্যে ৩৯টি ট্রেডে প্রশিক্ষণ ও উৎপাদিত পণ্যের লভ্যাংশের ৫০ শতাংশ প্রদান করা হচ্ছে এবং খাদ্যের মান উন্নয়নে আর্থিক বরাদ্দ বৃদ্ধি করা হয়েছে।

জনাব স্পীকার,

 বাংলাদেশের প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা উন্নয়নে সেনা, নৌ ও বিমান বাহিনীর সক্ষমতা বৃদ্ধির জন্য বিভিন্ন যানবাহন ও আধুনিক সরঞ্জাম সংযোজিত হয়েছে। বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর ১৪টি ইউনিট গঠন করা হয়েছে। আটটি শান্তিরক্ষা মিশনে বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর ৫ হাজার ১৬৮ জন শান্তিরক্ষী নিয়োজিত রয়েছেন। দেশে ‘বিএমডি ওয়েদার এ্যাপ’ এবং ‘বিএমডি এ্যাকুয়াকালচার এ্যাপ’ চালু এবং ডিজিটাল মানচিত্র প্রণয়ন করা হয়েছে। স্পারসো কর্তৃক দূর অনুধাবন প্রযুক্তি ব্যবহার করে বন্যাকবলিত এলাকা, উপকূলীয় এলাকা ও সমুদ্রে সম্ভাব্য মৎস্য বিচরণ ক্ষেত্র শনাক্ত করার কার্যক্রম পরিচালিত হচ্ছে।

জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের পররাষ্ট্রনীতির মূলমন্ত্র ‘সবার সাথে বন্ধুত্ব, কারও সাথে বৈরিতা নয়’ এই নীতির ভিত্তিতে রাষ্ট্রসমূহের সঙ্গে সুসম্পর্ক রক্ষা সরকারের করোনা মোকাবিলায় গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখতে সক্ষম হয়েছে। মুজিববর্ষ এবং স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী উপলক্ষ্যে আয়োজিত বিশ্ব শান্তি সম্মেলন, প্রতিবেশী দেশের রাষ্ট্র ও সরকার প্রধানদের রাষ্ট্রীয় সফর এবং বিদেশে নানাবিধ অনুষ্ঠান আয়োজনের মাধ্যমে বিভিন্ন দেশের সঙ্গে বাংলাদেশের সুসম্পর্ক-সহযোগিতার ক্ষেত্র সম্প্রসারিত হয়েছে। এর ফলে করোনা পরিস্থিতিতেও একাধিক সমঝোতা স্মারক, অগ্রাধিকারমূলক বাণিজ্য চুক্তির মত গুরুত্বপূর্ণ দলিলসমূহ স্বাক্ষরিত হয়েছে। সদ্য সমাপ্ত বিশ্ব শান্তি সম্মেলন সফল আয়োজনের মাধ্যমে বিশ্ব শান্তি প্রতিষ্ঠায় বাংলাদেশের আন্তরিকতা পৃথিবীব্যাপী প্রশংসিত হয়েছে। এ সম্মেলনে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সর্বজনীন টেকসই উন্নয়ন নিশ্চিতকল্পে অংশীদারিত্বের ভিত্তিতে একটি শান্তিপূর্ণ বিশ্ব গড়ে তোলার উপর গুরুত্বারোপ করেন।

জনাব স্পীকার,

 ন্যায়বিচার প্রাপ্তি প্রতিটি নাগরিকের অধিকার। বিচারাধীন ফৌজদারি মামলা দ্রুততম সময়ে নিষ্পত্তির লক্ষ্যে মোবাইল ফোনে এসএমএস প্রেরণের মাধ্যমে সাক্ষীদের প্রতি সমন জারির উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সুদক্ষ নির্দেশনায় ভূমিসেবা এখন মানুষের হাতের মুঠোয়। অনলাইন ভূমি-উন্নয়ন কর, ই-নামজারি, ডিজিটাল রেকর্ডরুম, হটলাইন-সেবা, ই রেজিস্ট্রেশন-মিউটেশন সংযোগ, সায়রাত ও অধিগ্রহণকৃত জমির ডেটাবেজ, রাজস্ব আদালতে অনলাইন শুনানি, সিভিল স্যুট ম্যানেজমেন্ট সিস্টেম এবং এনআইডি ভেরিফিকেশন ভূমিসেবায় স্বচ্ছতা ও জবাবদিহি নিশ্চিত করেছে। ভূমি সংক্রান্ত সেবা সহজিকরণের জন্য স্ব-স্ব প্রশাসনিক এখতিয়ার বজায় রেখে উপজেলা ভূমি অফিসের সঙ্গে সাব-রেজিস্ট্রি অফিসের আন্তঃসংযোগ স্থাপন মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর দীর্ঘদিনের লালিত স্বপ্ন। এ স্বপ্ন বাস্তবায়নে ভূমি নিবন্ধন ব্যবস্থাপনা ডিজিটাইজেশনের জন্য একটি প্রকল্প গ্রহণ করা হয়েছে।

জনাব স্পীকার,

পরিবেশ সুরক্ষা, দূষণ নিয়ন্ত্রণ এবং জলবায়ু পরিবর্তনের চ্যালেঞ্জ মোকাবিলায় সরকারের আন্তরিকতা ও সদিচ্ছা আজ আন্তর্জাতিক পর্যায়েও বিস্তৃত হয়েছে। জাতিসংঘ জলবায়ু সম্মেলন কপ-২৬-এ মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বাংলাদেশের দৃঢ় অবস্থান ও ভূমিকা বিশ্বে আমাদের মর্যাদা আরো বৃদ্ধি করেছে। জীববৈচিত্র্য সংরক্ষণে বর্তমানে দেশে রক্ষিত এলাকার সংখ্যা মোট ৪৯টি। ২০০৯-১০ অর্থবছর থেকে শুরু করে অদ্যাবধি জলবায়ু পরিবর্তন ট্রাস্ট তহবিলে বরাদ্দকৃত অর্থ থেকে প্রায় ৩ হাজার ৪১৫ কোটি ৪০ লক্ষ টাকা প্রাক্কলিত ব্যয়ে গৃহীত ৮০০টি প্রকল্পের মধ্যে ৪৩৫টি প্রকল্প সমাপ্ত হয়েছে। পরিবেশ ও জীববৈচিত্র্য সংরক্ষণের পাশাপাশি গ্রামীণ জনপদে আর্থসামাজিক উন্নয়ন ও দারিদ্র্য বিমোচনে সামাজিক বনায়ন এক নতুন ‍দিগন্তের সূচনা করেছে।

 দুর্যোগ সহনশীলতা অর্জনে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দেশে ও আন্তর্জাতিক পরিমন্ডলে সাফল্যের স্বাক্ষর রেখে চলেছেন। তার ধারাবাহিকতায় সম্প্রতি ঘূর্নিঝড় প্রস্তুতি কর্মসূচিতে নারীর ক্ষমতায়নে উদ্যোগের স্বীকৃতি হিসাবে ‘এসডিজি অর্জনে জেন্ডার রেসপন্সিভ সেবা’ ক্যাটাগরিতে জাতিসংঘ বাংলাদেশকে ‘জাতিসংঘ জনসেবা পদক ২০২১’ প্রদান করেছে। দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা কার্যক্রম অধিক দক্ষতার সঙ্গে সম্পাদনের লক্ষ্যে ২৭ মার্চ ২০২১ তারিখে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও ভারতের মাননীয় প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির উপস্থিতিতে ঢাকায় একটি সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষরিত হয়েছে। বিভিন্ন দুর্যোগে ক্ষতিগ্রস্ত ভূমিহীন ও গৃহহীনদের জন্য ৬৬ হাজার ২৯১টি দুর্যোগ-সহনীয় বাসগৃহ এবং উপকূলীয় ১৬টি জেলায় ২২০টি বহুমুখী ঘূর্ণিঝড় আশ্রয়কেন্দ্র নির্মাণ করা হয়েছে। বজ্রপাতে মৃত্যুরোধে আর্লি ওয়ার্নিং সিস্টেম স্থাপন এবং কংক্রিটের বজ্রপাত-নিরোধক শেল্টার নির্মাণের উদ্যোগ গ্রহণ করা হয়েছে।

জনাব স্পীকার,

রূপকল্প ২০২১-এর সফল বাস্তবায়ন শেষে রূপকল্প ২০৪১ বাস্তবায়িত হচ্ছে। পানি ব্যবস্থাপনা এবং পরিবেশগত পরিবর্তন বিবেচনা করে প্রণীত বাংলাদেশ ব-দ্বীপ পরিকল্পনা ২১০০-এর আওতায় বাস্তবায়ন কার্যক্রম শুরু হয়েছে। ২০৩১ সালে উচ্চ-মধ্য আয়ের দেশ এবং ২০৪১ সালে উন্নত দেশের কাতারে শামিল হতে চাই আমরা। ইতোমধ্যে উন্নয়নশীল দেশে উন্নীত হয়েছে বাংলাদেশ। এর পরিপ্রেক্ষিতে উত্তরণ পরবর্তী দেশীয় ও আন্তর্জাতিক প্রেক্ষাপট বিবেচনায় বিস্তারিত কর্মপরিকল্পনা গ্রহণ করে তা দ্রুত বাস্তবায়নের কাজ শুরু করতে হবে। উন্নত বাংলাদেশ গড়তে চতুর্থ শিল্প বিপ্লবের সুযোগ কাজে লাগাতে হলে আমাদের জনমিতির সুবিধা পুরোপুরি ব্যবহার করতে হবে। এ জন্য আমাদের শিক্ষা ব্যবস্থাকে ঢেলে সাজাতে হবে যাতে আমাদের নতুন প্রজন্ম দ্রুত পরিবর্তনশীল বিশ্বের সঙ্গে খাপ খাওয়াতে পারে। নতুন নতুন শ্রমবাজার অনুসন্ধানসহ বিদেশে শ্রমশক্তি রপ্তানির প্রচেষ্টা আরও জোরদার করতে হবে। বিশ্ববাজারের চাহিদা অনুযায়ী নতুন প্রশিক্ষণ কারিক্যুলাম প্রস্তুত, বিদ্যমান কারিক্যুলাম যুগোপযোগীকরণ এবং পর্যাপ্ত প্রশিক্ষণের মাধ্যমে আন্তর্জাতিকভাবে সার্টিফায়েড দক্ষ জনশক্তি তৈরি করতে হবে।

জনাব স্পীকার,

বিগত দেড় দশকে সরকারের উন্নয়ন কার্যক্রম ব্যাপকভাবে বৃদ্ধি পাওয়ায় সরকারি ব্যয় বৃদ্ধি পেয়েছে। এজন্য সরকারি অর্থের অপব্যবহার রোধপূর্বক প্রকল্প সংশ্লিষ্ট সকল বিষয়ে সতর্কতা অবলম্বন করতে হবে। সময়াবদ্ধ কর্মপরিকল্পনা গ্রহণ করে প্রকল্প বাস্তবায়ন শতভাগ নিশ্চিত করতে হবে। সর্বোপরি সরকারি সকল কার্যক্রমে জনগণের যথাযথ অংশগ্রহণ নিশ্চিত করার মাধ্যমে স্বচ্ছতা ও জবাবদিহিমূলক সুশাসন প্রতিষ্ঠা করে গণতন্ত্রকে অধিক কার্যকর করতে হবে।

 সন্ত্রাস ও জঙ্গিবাদের বিরুদ্ধে সরকারের কঠোর নীতির কারণে দেশে শান্তি ও স্থিতিশীলতা বিরাজ করছে যা উন্নয়নের পূর্বশর্ত। বাংলাদেশ সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির ক্ষেত্রে বিশ্বের জন্য একটি অনন্য উদাহরণ। দেশের সকল সম্প্রদায়ের মানুষ যাতে সম্প্রীতি সহকারে স্ব-স্ব ধর্ম চর্চা করতে পারে সে বিষয়ে সরকার সচেষ্ট রয়েছে। মুসলিম, হিন্দু, বৌদ্ধ ও খ্রিস্টানসহ সকল সম্প্রদায়ের ধর্মীয় উৎসবসমূহ নির্বিঘ্নে যথাযথ ভাবগাম্ভীর্য ও উৎসবমুখর পরিবেশে শান্তিপূর্ণভাবে উদ্‌যাপন করা হচ্ছে। তথাপি ধর্মের নামে কোনো ষড়যন্ত্রকারী গোষ্ঠী যাতে দেশের স্থিতিশীলতা বিনষ্ট করতে না পারে সে দিকে আমাদের সজাগ দৃষ্টি রাখতে হবে।

জনাব স্পীকার,

 সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ বাঙালি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের অবিসংবাদিত নেতৃত্বে বাঙালি অর্জন করে স্বাধীন সার্বভৌম বাংলাদেশ। জনগণের অধিকার আদায়ের জন্য তাঁর অব্যাহত সংগ্রাম, নির্ভীক ও দূরদর্শী নেতৃত্ব এবং গভীর দেশপ্রেম জাতীয় ও আন্তর্জাতিক পরিমণ্ডলে স্বীকৃত। জাতির পিতার আদর্শকে ধারণ করে তারই যোগ্য উত্তরসুরি মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সুদক্ষ নেতৃত্বে আজ বাঙালি জাতি এগিয়ে যাচ্ছে বঙ্গবন্ধুর আজীবন লালিত স্বপ্ন সুখী-সমৃদ্ধ সোনার বাংলা গড়ার পথে।

জনাব স্পীকার,

জনগণই সকল ক্ষমতার উৎস এবং তাদের সকল প্রত্যাশার কেন্দ্রবিন্দু জাতীয় সংসদ। জনপ্রতিনিধি হিসাবে জনস্বার্থকে সবকিছুর উর্ধ্বে স্থান দিতে হবে। আমি সরকারি দল ও বিরোধী দলের সকল সংসদ সদস্যদের এ মহান জাতীয় সংসদে যথাযথ ও কার্যকর ভূমিকা পালনের আহ্বান জানাই। নতুন প্রজন্মের জন্য একটি নিরাপদ, সুখী, সুন্দর ও উন্নত-সমৃদ্ধ বাংলাদেশ উপহার দেয়া আমাদের পবিত্র কর্তব্য। এ লক্ষ্যে গণতন্ত্র, আইনের শাসন এবং উন্নয়নের মত মৌলিক প্রশ্নে দল-মত, শ্রেণি ও পেশা নির্বিশেষে আপামর জনগণকে সম্মিলিত উদ্যোগ গ্রহণের জন্য আমি উদাত্ত আহ্বান জানাই। আসুন লক্ষ প্রাণের বিনিময়ে অর্জিত গৌরবোজ্জ্বল মহান স্বাধীনতা সমুন্নত রেখে দেশ থেকে সন্ত্রাস, মাদক, দুর্নীতি ও জঙ্গিবাদ নির্মূলের মাধ্যমে জাতির পিতার স্বপ্নের ‘সোনার বাংলা’ গড়তে ঐক্যবদ্ধ হয়ে কাজ করি।

আপনাদের সবাইকে আবারও আন্তরিক ধন্যবাদ ও শুভেচ্ছা।

আল্লাহ হাফেজ

জয় বাংলা

বাংলাদেশ চিরজীবী হোক।

http://www.anandalokfoundation.com/